PDA

View Full Version : ইনবক্সে আসা একটি প্রশ্ন ও তার উত্তরঃ



শুহাদার কানন
11-17-2015, 02:24 AM
এই প্রশ্ন সৃষ্টি হয়েছে মুলত কিছু ভাইদের বাড়াবাড়ির কারনে, যারা মানহাজ সম্পর্কে পূর্ণ ধারনা রাখেন না , ভায়েরা নিচে খুব সুন্দর একটি উত্তর দেওয়া আছে , নিজে পড়ুন আর বেশি বেশি প্রচার করুন। আল্লাহ আমাদেরকে কবুল করুন আমিন।

উত্তর দিয়েছেন একজন উস্তাদ, উনার লেখা থেকে সংগৃহীত , আল্লাহ উনাকে কবুল করুন আমিন।

"হযরত, তাবলীগ জামাত সম্পর্কে আপনাদের অবস্থান সুষ্পট ভাবে জানতে চাই। তাসাউফ, মুফতী তাকী ওসমানী, মাওলানা আব্দুল মালেক সাহেবদের বিষয়েও আপনাদের অবস্থান জানতে চাই।"
-
-"তাবলীগ জামাতের সাথীরা আমাদের ভাই, আমরাও তাদের ভাই। উম্মাহর খেদমতে দাওয়াহর কাজে তারা যে খেদমত আঞ্জাম দিচ্ছেন, তার ধারে কাছেও কেউ নেই, যেরকমভাবে আমরা জিহাদের খেদমত আঞ্জাম দেয়ার চেষ্টা করে যাচ্ছি। আমরা উম্মাহর কোন অংশকেই নিচু চোখে দেখিনা । উম্মাহর উন্নতির জন্য যারাই চেষ্টা করে যাচ্ছেন, সবার জন্যই আমাদের সহযোগিতার হাত সবসময়ই প্রসারিত। আমরাও চাই আমাদের ভাইয়েরা জিহাদের কাজে তাদের হাত আমাদের দিকে প্রসারিত করে রাখবেন। আমরা কখনও চাইনা, তাবলীগের সকল সাথী ভাইয়েরা তাদের "দাওয়াত ও তাবলীগের" আমল একদম ছেড়ে দিয়ে আমাদের পথে চলে আসুন। বরং আমরা চাই, আপনারা দাওয়াহর কাজ আরো ভালোভাবে চালিয়ে যান। সাথে সাথে জিহাদের জন্য মানসিক ও আর্থিকভাবে প্রস্তুতি নিন। মুজাহিদদেরকে আপনাদের অর্থ, সময়, আশ্রয় ও দোয়া দিয়ে সাহায্য করুন। সাথে সাথে সম্ভব হলে শারিরীক প্রস্তুতিও নিয়ে রাখুন। আমরা আপনাদেরকে "তাবলীগের বিশাল ময়দান" ছেড়ে সবাইকে আজই ময়দানে চলে আসতে বলছিনা, বরং তাবলীগের পাশাপাশি আমাদেরকেও সাধ্যমত সহযোগিতা করুন। সময় হলে আমরাই আপনাদেরকে ডেকে নেবো। এ-ও সম্ভব না হলে অন্ততঃ আমাদের সম্পর্কে উম্মাহকে বিভ্রান্ত না করার জন্য আপনাদের কাছে আমাদের আন্তরিক অনুরোধ রইল। আমরা নিজেদেরকে মুসলিম উম্মাহর "আলাদা বিশেষ কিছু বা এলিট শ্রেনী" মনে করিনা। আমরা আপনাদেরই সন্তান, আপনাদের মত আমরাও মুসলিম উম্মাহর অংশ।
তাবলীগের যেসব ভাইয়েরা বর্তমান গ্লোবাল জিহাদ নিয়ে খারাপ মন্তব্য করেন, কটু কথা বলেন, আমরা তাদের "অজ্ঞতা ও জাহালতের" থেকে আল্লাহর কাছে আশ্রয় প্রার্থনা করি। আমরা তাদের জন্য হেদায়াতের দোয়া করি। না জেনে আমাদের সম্পর্কে এমন মন্তব্যের জন্য তাদের প্রতি আমাদের কিছুটা করুণাও হয়। তারাও আমাদের "মুসলিম" ভাই, তবে অজ্ঞতার দোষে দুষ্ট। তাদের উদ্দেশ্যে আমরা এটাও বলতে চাই, আমাদের পাকিস্তানী মুজাহিদ ভাইদের শতকরা পচানব্বই জন ভাই-ই তাবলীগে সময় লাগানে ওয়ালা। আমাদের ফিলিস্তিনের তাবলীগের সাথী ভায়েরা শতভাগই সামরিক প্রশিক্ষনপ্রাপ্ত। সুতরাং আপনি যা বলছেন, না জেনেই বলছেন।

তাবলীগের সফরে থাকা অবস্থায় আমরা কাউকে কখনই "জিহাদের দাওয়াত" দিতে বলিনা। এটা হিকমার পরিপন্থী। ঠিক তেমনিভাবে "হিকমাহ" অবলম্বন করতে গিয়ে জিহাদ মুজাহিদদের নামে কুৎসা রটানো, তাবলীগকে জিহাদের বিকল্প বানানোর মত অন্যায় কাজের প্রতিও আমাদের সমর্থন নেই।

উলামায়ে কেরামরা আমাদের মাথার তাজ। তাঁরাই আমাদের পথনির্দেশক। উলামায়ে কেরামদের "চোখের ইশারায়" হক্কের পথে জীবন দেয়াকে আমরা আমাদের জীবনের শ্রেষ্ঠ অর্জন বলে মনে করি। তারা আমাদের রুহানী পিতা। তাঁদের নেক দোয়া ও নির্দেশনা আমাদের চলার পাথেয়। সকল হক্কানী উলামায়ে কেরাম, যারা তাদের মেধা, ,ইলম, বুদ্ধি, পরামর্শ ও দোয়া দিয়ে আমাদের সহায়াতা করেছেন / করছেন আমরা তাদের প্রতি শুকরিয়া জানাই। ত্বাগুতের বাধার কারনে যেসকল উলামায়ে কেরাম হক্কের দাওয়াত প্রকাশ্যে দিতে পারছেন না, আমরা তাদের সম্পর্কে সুধারনা রাখি। আমরা দোয়া করি আল্লাহ যেন তাদেরকে ত্বাগুতের অনিষ্ট থেকে হেফাযত করেন।
কিন্তু যেসকল আলেমরা হক্ক জেনেও হক্কের বিরোধীতা করেন,আমরা কেবল তাদের ভ্রান্তীগুলোকেই উম্মাহর সামনে তুলে ধরি। আমাদের শাইখ, উসামা বিন লাদেন রাহিমাহুল্লাহ, শাইখ আব্দুল্লাহ বিন বায ও শাইখ সালেহ আল উসাইমিন রাহিমাহুমাল্লাহর "সৌদি রাজ পরিবারের তোষন" নীতির সমালোচনা করেছেন। এছাড়া অন্য কোন ব্যাপারেই তাদের সাথে আমাদের বিরোধ নেই। আলেমদের সাথে আমাদের অন্য কোন ধরনের শত্রুতা নেই। আমরা কেবল "দরবারি'' আলেমদের "দ্বীমুখি" নীতিকেই উম্মাহর সামনে পরিষ্কার করি। আলেমদে পরস্পর ইখতিলাফপুর্ন মাযহাবি ও ফিকহী মাসাইলে আমরা কোন একজনের মতামতকে আমাদের দলীয় নীতি হিসেবে গ্রহন করিনা। বরং এক্ষেত্রে প্রত্যেক মুসলিমকেই নিজ ইমামের ইজতিহাদ অনুসরন করে আমল করার ব্যপারে স্বাধীন মনে করি। মাজহাব অনুসরনকারী উলামায়ে কেরাম ও সাধাওরন মুসলিমদেরকে আমরা আহলুস সুন্নাহর অনুসারী হকপন্থী মনে করি । (সম্মানীত উলামায়ে কেরামদের মধ্য থেকে কারো নাম উল্লেখ করে আমরা তাকে বিপদেও ফেলতে চাইনা) ।

তাসাওফ সম্পর্কে আমরা সেটাই বলি যা বলেছেন শাইখুল ইসলাম ইমাম ইবনু তাইমিয়্যাহ রাহিমাহুল্লাহ। যখন তাকে "সূফীযম" সম্পর্কে প্রশ্ন করা হয়েছিলো, তিনি উত্তর দিয়েছিলেনঃ
"সূফীযম এই পরিভাষাটি ইসলামের প্রথম স্বর্ণালী তিন যুগের (সাহাবা, তাবেঈ, তাবে তাবেঈন) এক যুগেও ব্যবহার হয়নি। কিন্তু পরবর্তীতে পরিভাষাটি ব্যবহার করেছেন ইসলামের সর্বোচ্চ সম্মানীত ইমামগন। যেমন ইমাম আহমদ ইবনে হানবাল রাহিমাহুল্লাহ, ইমাম সুফইয়ান বিন সাওরী রাহিমাহুল্লাহ, ইমাম হাসান আল বসরী রাহিমাহুল্লাহ সহ অনেক ইমামগন।"
কয়েক লাইন পর ইমাম ইবনু তাইমিয়্যাহ রাহিমাহুল্লাহ বলেনঃ
"সুফীদের মধ্যে তিনটি দল আছে। প্রথম দলঃ এরা চরম বিদআতী, পথভ্রষ্ট, কোরআন সুন্নাহর পথ থেকে বিচ্যুত। এদের বিপরীতে দ্বিতীয় আরেকটি দল আছেঃ যারা "তাসাওফ চর্চা" করতে করতে এমন স্থরে উপনিত হয়েছে যে, তারা (নিজেদের সম্পর্কে) বলা শুরু করেছে, তারাই হল আল্লাহর সৃষ্টির শ্রেষ্ঠ ও পরিপুর্ন মানব। নবী ও রাসুলদের পরেই তাদের মর্যাদা।'' তাসাওফ চর্চায় এই উভয় দলই নিন্দার যোগ্য।
এ বিষয়ে (অর্থাৎ তাসাওফ) এর বিষয়ে মধ্যপন্থী এবং এটিই সঠিক কথা যেঃ (মুসলিম উম্মাহর সকল শ্রেনীর, যেমন মুহাদ্দিস, মুফাসসির, মুজাহিদদের মত) সুফীদের মধ্যেও এমন কিছু ইবাদতগুজার আল্লাহর নৈকট্যপ্রাপ্ত বান্দা রয়েছেন, যারা আল্লাহর ইবাদতে সবাইকে ছাড়িয়ে গেছেন, তারা সর্বদা নিজেদের সকল সামর্থ দিয়ে আল্লাহর আনুগত্যের উপর চলার চেষ্টা করে যাচ্ছেন, যেভাবে অন্যরাও (যেমন উলামায়ে কেরামরা, মুজাহিদরা) আল্লাহর আনুগত্য মেনে চলার চেষ্টা করে যাচ্ছেন। আবার সুফীদের মাঝারী মানের কেউ কেউ এমনও আছেন যাদের থেকে যেমন নেক আমলও পাওয়া যায় আবার ত্রুটিও পাওয়া যায়। আবার সূফীদের মধ্যে এমন পাপাচারী জালেমও আছে , যে অহরহ আল্লাহর নাফরমানী করে চলেছে।" (ইমাম রাহিমাহুল্লাহর কথা এখানেই সমাপ্ত)।
আমাদের মহান ইমাম, ইবনে তাইমিয়্যাহ রাহিমাহুল্লাহর মত আমরাও বলি, "মুসলিম উম্মাহর প্রত্যেকটি জামাত, দল, মতবাদ ও মানহাজের মধ্যেও এই তিনটি স্থরের লোক পাওয়া যাবে। আমরা আমাদের মহান ইমামদের দেখানো "শরীয়ত মেনে তাসাউফ চর্চাকারী হক্কপন্থী আলেম উলামা ও ভাইদেরকে" সম্মান করি। আমাদের শাইখ "শহীদ আবু আব্দির রাহমান খালিদ আল হুসাইনান আল কুয়েইতী" রাহিমাহুল্লাহর সকল বয়ান ও লেকচারই তাযকিইয়াহ ও তাসাওফ সংক্রান্ত।
কিন্তু সুফিযমের নামে সব ধরনের কবরপূজা, মাজারপুজা, কুফরী, শিরকী, বিদাতী কাজ ও কথা থেকে আমরা মুক্ত। সুতরাং যারাই তাসাওফের নাম দিয়ে মুসলিমদের ঈমান আকীদা বিনষ্ট করার চেষ্টায় লিপ্ত রয়েছে, তাদের সাথে আমরা প্রকাশ্য শত্রুতা পোষন করি। আল্লাহ আমাদের হাতে "তামকীন" দিলে, (আর অবশ্যই আল্লাহ আমাদেরকে দেবেন-ই দেবেন ইনশাআল্লাহ) আমরা এদেরকে সমূলে দমন করব। যেরকমভাবে আমাদের আমীরুল মুমিনীন মোল্লাহ মুহাম্মাদ উমার রাহিমাহুল্লাহ আফগানিস্তানে শক্ত হাতে এদেরকে দমন করেছিলেন, যেমনভাবে সিরিয়ায় আমাদের জাবহাত আন নুসরাহর ভাইরা শিরকের আড্ডাখানা হয়ে থাকা কিছু মাজার উপড়ে দিয়ে সেখানকার লাশ্গুলোকে অজ্ঞাত স্থানে দাফন করে দিয়েছিলেন।

এদেশ সহ সকল মুসলিম দেশের মুসলিম জনগনকে আমরা মুসলিম-ই মনে করি। এবং মুসলিম দেশসমূহের ত্বাগুত ও মুরতাদ শাসকদের কুফর ও রিদ্দাহ থেকে আমরা নিজেদেরকে মুক্ত ঘোষনা করছি।
হে আল্লাহ আপনি সাক্ষ্যি থাকুন, আমি সামর্থ অনুযায়ী পৌছে দিয়েছি।
হে আল্লাহ আপনি সাক্ষ্যি থাকুন, আমি সামর্থ অনুযায়ী পৌছে দিয়েছি।
হে আল্লাহ আপনি সাক্ষ্যি থাকুন, আমি সামর্থ অনুযায়ী পৌছে দিয়েছি।
"আল্লাহ আমাদের পরস্পরের অন্তরকে দ্বীনি মহব্বতে ভরপূর করে দিন। আমীন।"

কাল পতাকা
11-17-2015, 05:42 AM
যাজাকাল্লাহ

shotter torbary
11-17-2015, 09:39 AM
আমশাআল্লাহ!! আমাদের এই মানহাজ এমনি এক মুহূর্তে পোস্ট দিয়েছেন যখন গোটা জাতি এর জন্য উন্মোখ হয়ে আছে। জাযাকুমুল্লাহ ওয়া আহসানাল জাযা;;
হে মুসলিম জাতি! ওহে বিভিন্ন দলে উদ্ধত মেজাযের অধিকারি(?)!! দেখে নিন; এটাই ইসলামের মানহাজ এটাই আমাদের মানহাজ।
ওয়াসসালাম...।

Ahmad Faruq M
11-18-2015, 07:03 PM
মাশাআল্লাহ।
জাযাকাল্লাহ ভাই শুহাদার কানন ও সন্মানিত উস্তাদকে।
অনেক উত্তম ও সুন্দর মানহাজ আপনার জবাবপত্রে ফুটে উঠেছে।
আল্লাহ তায়ালা আমাদের সকলকে ইখলাস ও ইত্তেবায়ে সুন্নাহর পথ ধরে দীন কায়েমের লক্ষ্যে ঐক্যবদ্ধভাবে তাওহীদ প্রতিষ্ঠার জিহদে শরীক হওয়ার তৌফিক দিন। আমীন।