PDA

View Full Version : এক ভাইয়ের অনুরোধে সম্মানিত ভাইদের কাছে আমার জানতে চাওয়া..



দীনের প্রহরী
05-16-2019, 12:47 PM
আগামী ঈদ কে কেন্দ্র করে শুরু হবে গুনাহের সয়লাব যদিও তা আমাদের জন্য ইবাদত....
বিশেষ করে পার্ক /সিনেমা /মাজার ইত্যাদিকে ঘিরে..
তো ত্রাস সৃষ্টির লক্ষে উক্ত স্থান গুলোতে ককলেট জাতিয় কোন কিছু দিয়ে ত্রাস সৃষ্টি করা যাবে কি...?
দলিল ভিত্তিক উত্তরের আশা করছি.......

sabbir19
05-16-2019, 11:50 PM
জনসমাগমস্থলে হামলা সাধারণ জনগনের কাছে ভুল বার্তা দিতে পারে, তারপর উপর রয়েছে মিডিয়াগুলোর নির্লজ্ব মিথ্যাচার। ব্রং টার্গেট তো এমন হওয়া চাই যাদের কুফুরি সুপষ্ট এবং হামলার পরপর যাতে নিরাপদে ঘোষনা দেয়া যায় ও এর যৌক্তিকতা তুলে ধরা যায় সেই ব্যাপারে প্রস্তুতি নিয়ে রাখলে ভালো। তাছাড়া এই ধরনের হামলা আগেই নিশ্চিত হতে হবে যাতে কোন মুসলিম আহত না হন(দেখুন- লোন উলফ হামলার নির্দেশিকা) যা বেশ কঠিন হতে পারে। "ইসলাম বিদ্বেষী নাস্তিকদের" নিয়ে ভাইদের পুর্বেকার কাজগুলো বিশ্লেষণ করলে এই ব্যাপারে ভালো আইডিয়া পাবেন ইনশাআল্লাহ। - এটা আমার ব্যাক্তিগত মতামত। ফোরামের সিনিয়র ভাইয়ের এই ব্যাপারে আরো ভালো বলতে পারবেন ইনশাআল্লাহ।

ওমর বিন আ:আজিজ
05-17-2019, 03:22 PM
ভাই অসৎ কাজ থেকে মানুষকে বারণ করা খুবই সুওয়াবের কাজ কিন্তু তা হতে হবে হিকমাতের সাথে এমন কাজ করা যাবে না যার লাভ থেকে ক্ষতি বেশি।
আপনি কি ভাবেন যে আপনি ককটেল ফোটিয়ে মানুষকে এসব কাজ থেকে বিরত রাখতে পারবেন?
আপনি এক জায়গায় ককটেল ফোটাবেন ফলে তারা সেই জায়গায় ও অন্যান্য জায়গায় নিরাপত্তা বাহিনীর প্রহরায় সেই কাজ করবে।
তাছাড়া আমরা এক মহা লক্ষ্যকে সামনে নিয়ে গেরিলা যোদ্ধা হয়ে সামনে অগ্রসর হচ্ছি, আর গেরিলা যুদ্ধার জন্য এমন কাজ থেকে বিরত থাকা আবশ্যক যা তাদেরকে জনগণ থেকে বিচ্ছিন্ন করে দিবে, যদিও তা শরিয়ত সম্মত হোক।
আপনি এসব শাখা-প্রশাখা বিষয় বাদ দিয়ে গাছের শিকড় কাটতে ফিকির করুন,মনে রাখবেন আমরা আমাদের শক্তি এসব ক্ষুদ্র স্হানে ব্যাবহার করতে চাইনা বরং আমরা চাই এই তাগুত শাসন উৎখাত করে খিলাফা কায়েম করতে, তাহলে এসব শাখা প্রশাখা এমনিতেই বিলুপ্ত হয়ে যাবে।
আপনি মনে রাখবেন রাসূল সা: মুনাফিকদেরকে চিনেও কিন্তু তাদের বিরোদ্ধে কি'তাল করেন নি।
হে আল্লাহ তুমি আমাদের সঠিক বুঝ দান কর আমিন।

আদনানমারুফ
05-17-2019, 04:31 PM
না ভাই, এটা ঠিক হবে না। এ ধরণের কাজে জিহাদ ও মুজাহিদদের বদনাম হবে, শত্রুরা মুজাহিদদের বিরুদ্ধে প্রপাগান্ডার সুযোগ পাবে, ওরা বলতে থাকবে, এই যে, জিহাদীরা বোমাবাজী করে, সাধারণ মুসলিমদের কাফের মনে করে হত্যা করে। দেখুন জেএমবিও কিন্তু শুধু ত্রাস সৃষ্টির জন্য সিরিজ বোমা ফুটিয়েছিল, তাই তাদের বোমায় কেউ নিহত হয় নি। দুইএকটি পথশিশু কাগজ কুড়াতে গিয়ে অনাকাংক্ষিত ভাবে আহত হয়েছিল। কিন্তু মিডিয়া এটাকে হাতিয়ার বানিয়ে তাদের বিপক্ষে কি ভয়ানক প্রপাগান্ডাই না করেছে।

দেখুন, যতদিন সকল নষ্টের গোড়া, যুগের হোবল আমেরিকা ও তার দালাল মুরতাদ সরকারগুুলোকে হটিয়ে আমরা ইসলামী হুকুমত কায়েম করতে না পারবো, ততদিন আবেগের বশে এ ধরণের হামলার দ্বারা সাময়িক কিছু ফায়দা *দেখা গেলেও এর ক্ষতি হবে সুদূরপ্রসারী। তাই আমাদের এখন সর্বাত্মক চেষ্টা হওয়া দরকার ইসলামী হুকুমত কায়েমের। শায়েখ আবু মুহাম্মদ মাকদিসী বলেন সিনেমা হলে আক্রমণের কারণে গ্রেফতারকৃত এক ভাইকে বলেন,

قلت لمحدثي - وهو ممن حكم بالسجن المؤبد لتفجير بعض دور السينما والخمارات ثم نضج وارتقى تفكيره عن ذلك المستوى مع طول فترة السجن وطلب العلم فيه - قلت: إذا لم يعجبك كلامي هذا ولم تقنع به فإن خرجت من السجن فارجع إذن إلى تفجير دور السينما والخمارات مرة أخرى، في وقت يتطلع فيه المسلمون اليوم إلى عظائم الأمور ويتصدون فيه لأعتى قوى الأرض جاهدين أن تكون لهم دولة وكلمة في إدارة هذا العالم ودحر الكفر فيه؛ وهم بحاجة لتحقيق مثل هذه الغاية لكل جهد ولكل قطرة دم ولكل مخلص ومجاهد؛ دع أنت عنك المشاركة في هذه المعالي وارجع وافتح الحرب على فساق المسلمين وعوامهم وفجّر دور السينما التي يرتادونها ..
أليس هذا جائزاً ومشروعاً وإنكاراً للمنكر .. ؟! ..
قال: لا أفعل هذا ولا أبدأ به فقد فهمت وتعلمت وأصبو لما هو أعظم ..
قلت: إذا لم يستوعب عقلك ما قلته لك ففهمك وعلمك لا زال بحاجة إلى نضوج، وما فهمت بعد ولا علمت الفهم والعلم الذي يتناسب مع الواقع وتحديات العصر وحاجات ديننا وأمتنا ..
فإذا تأملت الضجة التي حصلت على إثر إعلان نشر صور ذبح ذلك الأمريكي الذي يسمى في عرف زماننا مدنيا، مع قطع رأسه عيانا على شاشات التلفزة بعد ذبحه والذي يعده بعض أهل العلم من التمثيل
وتابعت استغلال أعداء الله وعلماء السوء لهذه الحادثة وتوظيف الأمريكان والطواغيت لها لتشويه الجهاد وأهله والتشنيع عليهم وتنفير عوام المسلمين عموما والعراقيين خصوصاً عن المجاهدين، وغير ذلك من المفاسد دون فائدة أو عائدة عظيمة لإعلان ذلك وإشهاره وتبنيه؛ علمت أن من فعل ذلك لم يكن موفقاً في اختياره هذا، وأنه كي يفوت على أعداء الله هذا كله فيجب عليه أن يرتقي بتفكيره إلى معرفة حقيقة المعركة مع أعداء الله اليوم وحقيقة أسلحتها وأدواتها؛ وأنها لا تتوقف على ذلك السكين الذي ذبح به ذلك الأمريكي وأن النضوج وسعة الأفق في فهم الجهاد وأدواته ليس في كبر ذلك السكين وعظمه وإنما في شمولية الجهاد وأدواته للإعلام وغيره وتوسع مدارك أهله له، ونضوج اختياراتهم؛ فتارة يتركون أشياء وأعمال لأمور أهم، وتارة يقدمون شيئاً على شيء لتوقيت معين، وتارة يفعلون ويختارون دون أن يتبنوا ويعلنوا وتارة يعلنون ويشهرون ما فيه مصلحة خالصة وعملا نقياً لا ينتطح عليه عنزان ولا يماري فيه إنسان، فإن هم فعلوا ذلك وظفوا إعلام الأعداء إضافة إِلى إعلام المجاهدين ووجّهوه كما يريدون هم، لا كما يريد أعداؤهم إذ لم يتركوا مجالاً لهم في استغلال عثرة أو توظيفها لأهدافهم ومآربهم الخبيثة، ومثل هذا الأمر لا يكفي لتحقيقه والنجاح فيه علم الشرع وحده وإن كان ضرورياً بل لا بد معه من متابعة ذكية وحثيثة للواقع ومجرياته والأعداء ومكايدهم وتأمل في ظروف الأمة وأحوج حاجاتها وأعظم مصائبها ..

যদি তোমার আমার কথা পছন্দ না হয় তাহলে মুক্তি পাবার পর আবার গিয়ে এধরণের কাজ করো, অথচ এখন মুসলমানদের খেলাফত কায়েমের মত কত বড় বড় কাজ পড়ে আছে, যে কাজগুলোর দাবী হলো, মুসলমানদের প্রতিটি মূহুর্ত ও প্রতি ফোটা রক্ত শুধু তার জন্যই ব্যায় হবে, কিন্তু তুমি তার বদলে ফাসেক মুসলমানদের সাথে যুদ্ধ শুরু করবে। তুমি কি দেখনি, ইরাকে একটি বেসামরিক আমেরিকানকে জবাই করার ভিডিও প্রচার করার কারণে মুজাহিদদের বিরুদ্ধে মিডিয়া ও দরবারী আলেমরা কি পরিমাণ প্রপাগান্ডা করেছে? ..... ওয়াকাফাতুন মাআ ছামারাতিল জিহাদ, ১১৯-১২০ দীর্ঘসূত্রটার কারণে সবটুকু অংশ তরজমা করলাম না, আসলে আরবী জানা ভাইদের জন্য এই বই পুরোটাই পড়া উচিত। তাহলে জিহাদের কৌশলগত বিধানগুলোর ব্যাপারে তাদের জ্ঞান পরিপক্ক হবে ইনশাআল্লাহ।

তিনি তার এক সাক্ষাৎকারে বলেন,
أنا عندي مشروع، مشروعي ليس تفجير خمارة، مشروعي ليس تفجير دار سينما، مشروعي ليس قتل ضابط مارَس معي التعذيب، عذبني وآذاني. مشروعي إعادة الأمة لأمجادها، وإقامة الدولة الإسلامية، التي يأوي إليها كل مسلم. وهذا مشروع كبير وضخم، لا يتأتى بأعمال نكائية صغيرة؛ يحتاج إلى تربية جيل مسلم، يحتاج إلى إعداد طويل المدى، يحتاج إلى مشاركة الأمة بعلمائها وبأبنائها كلهم. وما دمت أنا لا أملك الإمكانيات، لإقامة هذا المشروع؛ فلن أورط أخواني، في بمرحلة من المراحل، التي تسبق هذه الإمكانيات، في أي عمل مادي صغير، يتمناه أعداء الأمة؛ ليزجوا الشباب خلف السجون.

আমাদের লক্ষ্য-উদ্দেশ্য কোন মদের আড্ডা কিংবা সিনেমা হল উড়িয়ে দেওয়া নয়, বরং আমাদের লক্ষ্য হলো উম্মহের হারানো গৌরব পুনরুদ্ধার করা, ইসলামী হুকুমত কায়েম করা। এটা একটি বিরাট প্রকল্প, সামান্য কিছু হামলা দ্বারাই এই লক্ষ্যে পৌঁছানো সম্ভব নয়, বরং এর জন্য দীর্ঘমেয়াদী তরবিয়াত ও প্রস্তুতির প্রয়োজন, এ প্রস্তুতি অর্জনের পূর্ব পর্যন্ত অহেতুক বোমাবাজী থেকে বিরত থাকাই কর্তব্য, তাগুতরা যে বোমাবাজীর আকাক্ষা করে, যেন এর দ্বারা তারা জিহাদের প্রতি আগ্রহী ভাইদের জেলে পুরতে পারে।

তার রিসালা {هذان خصمان اختصموا في ربهم} ... من نحن؟ وما هي تهمتنا؟ পৃ: ৮ এ বলেন,
وأصل النزاع بين أهل التوحيد وبين أنصارها وجندها وأولياءها، فهو ليس على كراسٍ أو مناصب أو أرضٍ أو مال - كما يتوهم كثير من النّاس - فأنت ترى أتباع هذا التوحيد أبعد النّاس عن مناصب الحكومات، بل أول ما يدعونك إليه إن كانوا مخلصين - إن كنت من أهل هذه المناصب الموالية للطاغوت - هو ترك تلك المناصب واجتنابها للنجاة من الشرك وأهله.
فقول الله تعالى {اعبدوا الله واجتنبوا الطاغوت} هو منهاج حياتهم، وليس الصراع كذلك على إنكار فروع أو إصلاح جزئيات ... كتغيير واقع خمارة أو سينما أو مرقص أو نحوه ... ومن ظن أن هذه هي حقيقة الصراع وأصله بيننا وبينهم، فإنه لم يفهم حقيقة دعوة الرسل، ولا عرف سبب الخصومة بينهم وبين أقوامهم، والمنشغل بذلك كمن ينشغل بعلاج جروح سطحية في جسدٍ يعج فيه سرطان خبيث قاتل.
إن الخصومة - يا قومنا - أخطر وأعظم من ذلك بكثير، إنها في توحيدٍ وشرك، وفي كفر وإيمان، إنها خلود في الجنّة أو في السعير.
إنّ هذه الحكومات ومن تابعها ووالاها وناصرها على شركها قد جعلوا من أنفسهم أنداداً لله تعالى، أبوا إلا أن يُشاركوه في صفةٍ هي من أخصّ صفاته، ألا وهي التشريع، فجعلوا السلطة التشريعية - كما نصت دساتيرهم - لهم ولمن تابعهم على دينهم "الديمقراطية"، الذي معناه؛ تشريع الشعب للشعب، لا تشريع الله للشعب؛ فالشعب بنوابه وبأمر حاكمه هم أصحاب السلطة التشريعية في هذه البلاد ... {ءأرباب مُتفرقون خير أم الله الواحد القهار}؟

তাওহিদের অনুসারী ও তাগুতদের মধ্যকার আসল লড়াই কোন পদ, ভূমি বা সম্পদ নিয়ে নয়, তেমনিভাবে কোন শাখাগত অন্যায় কাজের প্রতিকারও নিয়েও তাদের মধ্যে লড়াই নয়, বরং তাদের মধ্যকার লড়াই তো হলো, শিরকী গণতন্ত্র নিয়ে, যা মানুষকে রবের আসনে অধিষ্ঠিত করে। যে ব্যক্তি এই মূল বিষয় থেকে দৃষ্টি ফিরিয়ে কোন শাখাগত ইসলাহের চেষ্টা করে সে তো এমন ব্যক্তির বাহ্যিক যখম সারাতে ব্যস্ত যে কিনা মরণব্যাধী ক্যান্সারে আক্রান্ত !

কিছুদিন পুর্বে শায়েখ আইমান যাওয়াহেরীর *سِيَر الأُباةِ নামে সিরিজ প্রবন্ধ বের হয়, সেখানে শায়েখ সুলাইমান আলউলওয়ানের জীবনীতে শায়েখ আইমান অহেতুক বোমাবাজী যে জিহাদের জন্য ক্ষতিকর এ বিষয়ে আলোচনা করেছেন।

abu ahmad
05-18-2019, 10:16 AM
জাযাকুমুল্লাহু খাইরান। আপনাদের মূল্যবান মতামত আমাদের চলার পথের পাথেয় হোক। আমীন

lahul hukmu
05-18-2019, 07:35 PM
masaallah
আল্লাহ ভাইদের আসল মাকসাদ আদায়ের তৌফিক দান করুণ আমিন