PDA

View Full Version : তথাকথিত খিলাফাহ'র " বাক্বিয়্যাহ ওয়া তাতামাদ্দাদ" শ্লোগানধারীর সুর পাল্টে ফেলেছে



Egol
05-24-2016, 10:44 PM
প্রবন্দটি সংগৃহীত এবং আর একটি নিউজদিচ্ছি, খারিজীদের ২য় সর্বউচ্চ নেতা আবু আলী আল-আনবারি মারা গেছে। অফিসিয়াল ভাবে কনফার্ম


তথাকথিত খিলাফাহ'র " বাক্বিয়্যাহ ওয়া তাতামাদ্দাদ" শ্লোগানধারীর সুর পাল্টে ফেলেছে।
-
"জামাতুল বাগদাদীর বাগাড়ম্বর স্বর্বস্ব মূর্খ মুখপাত্র আবু মুহাম্মাদ আল-আদনানী তার সর্বশেষ বক্তব্যের - তারা বেঁচে থাকে প্রমাণ প্রতিষ্ঠার পর মাধ্যমে আবারো শায়খ উসামা বিন লাদিন রাহিমাহুল্লাহ, এবং তানযীম আল-ক্বাইদাতুল জিহাদের মানহাজের শ্রেষ্ঠত্বকেই পরোক্ষ ভাবে স্বীকার করে নিল। তবে অতীত জীবনে কবুতর শিকারি এই ধারালো জিভের উন্মাদ তা অনুধাবন করতে সক্ষম হয়েছে বলে মনে হয় না।
.
আদনানী তার তারা বেঁচে থাকে প্রমাণ প্রতিষ্ঠার পর শীর্ষক বক্তব্যে বলেছে-
যদি তোমরা (অ্যামেরিকানরা) মসুল, সিরতে কিংবা রাক্ক্বা দখল করে নাও, এমনকি সবগুলো শহর দখল করে নাও এবং আমরা আমাদের সূচনা অবস্থায় (গেরিলা যোদ্ধা দল) ফেরত যাই, তবে কি তা আমরা পরাজিত হব এবং তোমরা বিজয়ী হবে?
-
প্রশ্ন হল, যদি জামাতুল বাগদাদী পুনরায় একটি গেরিলা যোদ্ধা দলে পরিণত হয়, তবে তখন তারা কি হবে? একটী গেরিলা-খিলাফাহ?!!
.
সে আরও বলেছে
হে মুসলিমরা ! নিশ্চয় আমরা কোন ভূমি রক্ষা, কিংবা মুক্ত করা কিংবা নিয়ন্ত্রন করার জন্য জিহাদ করি না। আমরা কতৃত্ব অর্জন কিংবা নশ্বর সাময়িক পদের জন্য, কিংবা এই দুনিয়ার তুচ্ছ আবর্জনার জন্য যুদ্ধ করি না।
-
অথচ তাদের খিলাফাহ দাবির পেছনে একটা বড় যুক্তিই ছিল তাদের তামক্বীন, এবং শাম'সহ, লিবিয়, ইয়েমেন, বিভিন্ন জায়গাতে তারা বারবার প্রমান করেছে তাদের মূল লক্ষ্য সর্বদাই থাকে তাদের নিজেদের নিয়ন্ত্রিত ভুমি রক্ষা করা, এবং নতুন ভূমির উপর নিয়ন্ত্রন প্রতিষ্ঠা করা নির্যাতিত মুসলিমদের রক্ষা করা কিংবা তাগুতের পতন না। এবং একারনেই তাদের স্লোগানই ছিল বাক্বিয়্যাহ ওয়া তাতামাদ্দাদ যার মোটামুটি বাংলা অনুবাদ হল,
যা বিদ্যমান আছে ও থাকবে এবং প্রসারিত হচ্ছে। এমনকি তাদের দ্রুত প্রসারকে তারা তাদের পক্ষে দালীল হিসেবেও উত্থাপন করতে দ্বিধা করতো না। আজ যখন প্রসারিত হবার বদলে তাদের নিয়ন্ত্রিত অঞ্চল সংকুচিত হচ্ছে তখন হঠাত এই সীমালঙ্ঘনকারী তার সুর পাল্টে ফেলেছে।
-
-
ইতিপূর্বে কৌশলগত পর্যালোচনা ( পোষ্টের শেষে লিঙ্ক ) প্রবন্ধটিতে উল্লেখ করা হয়েছিল-
অন্য পদ্ধতিটি হল আত-তাকফির ওয়াল হিজরাহ (জামাতুল মুসলিমীন), GIA এবং হালের জামাতুল বাগদাদীর অনুসৃত পদ্ধতি। এই পদ্ধতিতে এখনো পর্যন্ত সবচেয়ে সফল হল জামাতুল বাগদাদী।
আত-তাকফির ওয়াল হিজরাহ কিংবা GIA, কোনটাই জামাতুল বাগদাদীর মতো সাফল্য অর্জন করে নি। এই দলটি শুরুতে ছিল তানজীম আল-ক্বাইদার অধীনস্ত একটি ইমারাহ যারা, ইরাকে কর্মকান্ড পরিচালনা করতো। ইরাকেও তাদের অবস্থা বেশির ভাগ সময় ছিল একটি গেরিলা দলের মত। পরবর্তীতে সিরিয়াতে আরো কিছু অংশের উপর তামক্বীন অর্জনের পর তারা নিজেদের খিলাফাহ এবং তাদের আমীরকে খালিফাহ হিসেবে ঘোষনা করেছে। এই ঘোষণার ভিত্তিতে তারা মুসলিমদের তাকফির করেছে, তাদের জান-মাল-সম্মান হালাল করেছে এবং মারাত্বক সীমালঙ্ঘন করেছে। যদি আমরা জামাতুল বাগদাদীর অবস্থার দিকে তাকাই তাহলে এটা পরিষ্কার বোঝা যায়, কিছুক্ষন আগে আমরা হিযবুত তাহরির বা জামা-ইখওয়ানের সম্ভাব্য খিলাফাহ- ব্যাপারে যা যা হতে পারে বলে আলোচনা করলাম- তার সব কিছুই জামাতুল বাগদাদীর সাথে বাস্তবিকই হয়েছে। খিলাফাহ ঘোষণার মাস খানেকের মধ্যে তারা ব্যাপক আক্রমণের সম্মুখীন হয়েছে এবং আক্রমণ ওঁ আত্বগোপনের (attack and retreat) একটি গেরিলা দলে পরিণত হয়েছে। খোদ তাদের নিয়ন্ত্রনাধীন অঞ্চলে তারা মুসলিমদের নিরাপত্তা দিতে সক্ষম না। এমনকি তাদের নেতাদেরকেও, তাদের রাজধানী রাক্কা থেকে অ্যামেরিকানারা ধরে নিয়ে গেছে।
.
পাশপাশি আমরা দেখেছি, জামাতুল বাগদাদী নির্যাতিত মুসলিমদের সাহায্য করতে সক্ষম বা ইচ্ছুক কোনটাই না। তাদের কথিত খিলাফাহ-র কাছেই 'মাদায়াহ' শহরে ৪০,০০০ সুন্নি মুসলিম অনাহারে মারা যাচ্ছে, তারা সাহায্য করছে না, বা সাহায্য করতে অক্ষম।
তাদের কথিত খিলাফাহর কাছে ইরাকের বিভিন্ন জায়গায় রাফিদা শিআরা সুন্নিদের জ্যান্ত পুড়িয়ে মারছে, সুন্নি নারীদের ধর্ষণ করছে তারা সাহায্য করতে অক্ষম বা অনিচ্ছুক। তাদের খিলাফাহর পাশেই পশ্চিম তীরে মুসলিমদের ইহুদীদের হাতে নিহত হচ্ছে। পাশাপাশি দেখা যাচ্ছে, যেসব জায়গায় জামাতুল বাগদাদী উলাইয়্যা ঘোষণা করেছে যেমন সিনাই, ইয়েমেন, লিবিয়া এবং খুরাসান এখানেও তারা না মুসলিমদের নিরাপত্তা দিতে সক্ষম আর না শারীয়াহ প্রতিষ্ঠা করতেসুতরাং চক্ষুস্মান সকলের জন্য এটা স্পষ্ট যে বাগদাদীর খিলাফাহ একটি বাস্তবতা বিবর্জিত ঘোষণা মাত্র।
.
তাদের সর্বোচ্চ গেরিলা যুদ্ধে লিপ্ত একটি ইমারাহ বলা যায়, যা ইরাক-সিরিয়ার কিছু অংশ নিয়ন্ত্রন করে। সমগ্র ইরাকের উপর, শামের উপর কিংবা যে যে জায়গায় উলাইয়্যা ঘোষণা করা হয়েছে তার কোথায় তাদের পূর্ণ তামক্বীন নেই। আর না ই বা তারা এসব অঞ্চলের মুসলিমদের কুফফার ও তাওয়াঘীতের আক্রমণের মুখে নিরাপত্তা দিতে সক্ষম। এরকম একটি দলের নিজেদের খিলাফাহ দাবি করা, তাদের বাইয়াহ ওয়াযিব দাবি করা বাস্তবতা থেকে বিচ্ছিন্ন বাগাড়ম্বর ছাড়া আর কিছুই না।
.
সুতরাং দেখা যাচ্ছে প্রতিটি পদ্ধতিতে শেষ পর্যন্ত ঘুরেফিরে গেরিলা যুদ্ধের মাধ্যমে ইমারাহ প্রতিষ্ঠার দিকেই যেতে হচ্ছে। আর এটাই হল তৃতীয় সশস্ত্ পদ্ধতি - তানজীম আল-ক্বাইদা তথা শাইখ উসামা বিন লাদিন রাহিমাহুল্লাহর মানহাজ।
-
-
এবং আজ জামাতুল বাগদাদীর এই মূর্খ সীমালঙ্ঘনকারী এই সত্যকেই স্বীকার করে নিল। তবে সবচেয়ে বিস্ময়কর বিষয় হল নিজেদের অঞ্চল হারানোর ব্যাপারে সাফাই গাইবার পরেই, একই বক্তব্যে মুকাল্লা থেকে AQAP এর স্ট্র্যাটিজিক রিট্রিটের করার কারনে সে তানযীম আল-ক্বাইদার সমালোচনা করেছে। এবং হাকিম আল-উম্মাহ শায়খ আইমান হাফিযাহুল্লাহ কথিত উম্মাহর নির্বোধ বলে সম্বোধন করেছে। আল্লাহু মুস্তাআন। অথচ এই একই বক্তব্যে এই অপদার্থ বলেছে .
... আর যে মনে করে আমরা কোন ভূমির প্রতিরক্ষা কিংবা কতৃত্বের জন্য যুদ্ধ করি, কিংবা এগুলোর বিজয়ের মাপকাঠি, নিশ্চয় সে সত্য থেকে বিচ্যুত হয়েছে।
যদি ভূমির জন্য যুদ্ধ জিহাদের মূলনীতি না হয় তাহলে মুকাল্লাহ থেকে কৌশলগত পিছু হটার জন্য কেন সে আল-ক্বাইদার সমালচনা করছে?
আর কোন্ মুখে সে সমালোচনা করছে যখন রামাদিতে, তিকরিতে, ফাল্লুজাতে এবং আরো অনেক জায়গাতে?
এবং সে নিজেই এ বক্তব্যে যুক্তি দিচ্ছে আক্রমনের মুখে কৌশলগত পিছু হটার এবং গেরিলা যুদ্ধের পর্যায়ে ফেরত যাবার ! এবং সে আরো বলছে সালাফ আস সলেহিনের মধ্যে কোন ভুখন্ড থেকে পিছু হটার কোন নজির নেই, অথচ আল- সাইফুল্লাহ মাসলুল খালিদ দামাস্কাস বিজয়ের পর, জিযিয়া ফেরত দিয়ে পিছু হটেছিলেন কৌশলগত কারনে। এবং এমন নজীর তাবেঈ ও তাব-তাবেঈনদের মধ্যেও অনেক। আর যদি কৌশলগত কারনে কোন অঞ্চলে নিয়ন্ত্রন পাবার পর সেখান থেকে পিছু হটা বিদআ কিংবা হারাম হয় তবে তারা নিজেরা কেন তা করছে আবার তার স্বপক্ষে যুক্তি দিচ্ছে সাফাই গাইছে, বলছে আমরা তো ভূমির জন্য জিহাদ করি না, ভুমি গেলে কি আর হবে? কতোবড় নির্বোধ, কতোবড় নির্লজ্জ হায়াহীন হলে, কান্ডজ্ঞানহীন হলে একই বক্তব্যে একই ব্যক্তি এরকম সাঙ্ঘর্ষিক কথা বলতে পারে!
.
হাকিম আল-উম্মাহ শায়খ আইমান হাফিযাহুল্লাহ যথার্থই বলেছেন, ঠিক যেমনিভাবে আলজেরিয়ার জিআইএ-র প্রথমে নৈতিক ও পরবর্তীতে সামরিক অধঃপতন সুস্পষ্টোহয়েছিলে, জামাতুল বাগদাদীর ক্ষেত্রেও একই রকম হচ্ছে ওয়াল্লাহু আলাম।
ইতিপূর্বে মুজাহিদিনের স্ত্রীদের যিনাকারী আখ্যায়িত করা এবং নানা বক্তব্যের মাধ্যমে তাদের নৈতিক অধঃপতন স্পষ্ট হয়ী গিয়েছিল, আর আজ তাদের সামরিক অধঃপতন কবুতর শিকারি আদনানী নিজেই স্বীকার করছে, এবং আল্লাহই উত্তম ফায়সালাকারী।
.
হে কবুতর শিকারি মুর্খ, হে শামের যুওয়াবরি !
তোমার অবস্থাও তেমনই হচ্ছে যেমনটা হয়েছিল আলজেরিয়ার মুরগী জবাইকারীর।
অপেক্ষা করো। মুবাহালার পূর্ণ ফলাফল দেখার প্রতিক্ষায় আমরা আছি।"
-
আবু আনওয়ার আল-হিন্দী হাফিযাহুল্লাহj
অফিসিয়াল ফোরাম থেকেঃ dawahilallah.in
-
''একটি কৌশলগত পর্যালোচনা"-প্রবন্ধটি জিহাদী, নন-জিহাদী সবাই পড়তে পারেন, তথ্যবহুল 'নিশ্চয়ই যুদ্ধ মানেই কৌশল' ।
প্রবন্ধের লিংক pdf Link (size- 800 Kb)

http://www.mediafire.com/download/3ew5dcg5f5bjtct/StrategicReview.pdf

গাযওয়াতুল হিন্দ
05-24-2016, 11:07 PM
jazakallah

shameli
05-25-2016, 12:45 AM
মাশাআল্লাহ ! হাকীরদের মুখোশ উন্মোচনের জন্য আল্লাহ তাআলা আপনাকে জাজা দান করুন।
নেটে খারেজীদের পক্ষে কাজ করতেন এমন একজন বড় মাপের ব্যক্তিকে আল্লাহ তাআলা হেদায়াত দিয়েছেন।
ওনি এখন ওনার অনুসারিদের সহ আল কায়েদা উপমহাদেশের কাজ করছেন। ওনার সাথে ভাইদের অনেক তর্ক হত।
আল্লাহ তাআলা ভাইদের তর্ককে কাজে লাগিয়েছেন। ওনার চোখ খুলে দিয়েছেন।
তাই ভ্রান্তি প্রকাশ জরুরী যাতে সত্যান্বেষীগণ সত্যকে খুজে পায়........
আপনার লেখা আমাদের নিকট ডুকুমেন্ট । তাই আপনার নিকট আবেদন... আপনি আরো বেশী বেশী লিখুন।

shohid
05-25-2016, 12:47 AM
জাঝাকুমুল্লাহ।

insallah shohid
05-25-2016, 05:47 AM
jazakallah

Ahmad Faruq M
05-25-2016, 08:11 AM
মাশাআল্লাহ। অনেক সুদর লেখা। সত্য উন্মোচনে দারুন সহায়ক হবে আশা করি।
জাযাকাল্লাহু খাইরান।