PDA

View Full Version : মুশরিকদের হত্যা কর যেখানেই তাদের পাও



ibn mumin
06-15-2016, 05:50 PM
আসলিহাত ছাড়া হারবি দেশগুলোতে ম্যাস কিলিং করার উপায়


আপনি হয়তো অবাক হতে পারেন এটা ভেবে যে কিভাবে আসলিহাত ছাড়া কুফফারদের হত্ত্যা করা যাবে ? তাহলে আপনার জন্যই এই নির্দেশনা ।


আমরা জানি হারবি কুফফার মারার ব্যাপারে কোন সমস্যা নাই, এদেরকে ম্যাস কিলিং করা যায়। আপনাকে যা করতে হবে তা হল আপনার সামর্থ্য থাকলে ইন্ডিয়া, রাশিয়া, চিন বা আমেরিকায় চলে যান। ভ্রমণ ভিসা হলেও যেতে পারেন ইংশা আল্লাহ। অথবা আপনার কোন আত্মীয় যদি সেই দেশগুলোর কোন একটিতে থেকে থাকে তাদেরকে জিহাদের জন্য তাহরিদ করুন। যখন সেই আত্মীয় জিহাদের ব্যাপারে রাজি হয়ে যাবে তখন নিন্মক্ত পদ্ধতিগুলোর মাঝে যে টি ইচ্ছা তাকে এপ্লাই করতে বলুন।


১। একটা বড় ট্রাক নিয়ে টার্গেটকৃত দেশের কোন জনবহুল স্থানে চলে যাবে। সেটা হতে পারে ঢাকার নিউ মার্কেটের মত কোন ক্রাউডেড প্লেস/ সমুদ্র সৈকত । তারপর আল্লাহর নামে সমানে ওদের উপর গাড়ি চালানো শুরু করবে। ইংশা আল্লাহ ১০০ এর নিচে মরবে না।

২। কিছু ইলেক্ট্রিক করাত পাওয়া যায়। তা নিয়ে কেউ যদি দিল্লি/ নিউ ইউরক সিটির ব্যাস্ত মোড়ে সমানে কাফেরদের গলা কাটা শুরু করে তাহলে ইংশা আল্লাহ একটা ম্যাস কিলিং করা সম্ভব। আল্লাহ চাইলে ১০০ মরবেই ইংশা আল্লাহ।

এই দুটি পদ্ধতি এপ্লাই করার সুবিধাঃ


১। কুফফাররা হয়তো আসলিহাতের ব্যাপারে নজরদারি করতে পারবে বাট গাড়ি চালানোতে কে নজরদারি করবে।

২। আর ইলেক্ট্রিক করাত কিনতেও তেমন সমস্যা হবে না ইংশা আল্লাহ। কারন আপনি যদি এতা বলেন আপনার বাগানের বড় গাছ কাটবেন তাহলে কে সন্দেহ করবে ?
৩। এইরকম একটা এটাক করতে পারলে হারবি কুফররা বুঝবে সারাক্ষন অনিরাপদ থাকতে কেমন লাগে।

৪। বাংলাদেশি নাস্তিকগুলো যেমন পিছনে ব্যাগ হাতে কাউকে দেখলেই ভয় পায় ঠিক তেমনি এই কাফেররাও পিছনে গাড়ীর আওয়াজ শুনলেই ভয় পাবে, কোন মেশিনের আওয়াজ শুনলেই ভয় পাবে।

৫। বোমা বা অন্য কিছু তৈরি করা লাগবে না, তাই কুফফারদের দেশে (আমেরিকা, রাশিয়া, চীন, হিন্দ) এদের গোয়েন্দা বাহিনির সন্দেহের তালিকাও আপনার আসা লাগবে না। ওরা ধারনাও করতে পারবে না।

৬। ভুলেও কোন মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশে এইরকম ম্যাস কিলিং করা যাবে না। এতে অহেতুক মুসলিমদের রক্তপাত হবে এবং আল্লাহর তরফ থেকে রহমতের বদলে আযাব চলে আসবে।

প্রিয় ভাই কাফেরদের জবাই করার সুন্দর নিরাপদ দুইটি কৌশল আপনাদের বলে দিলাম। এখন আপনারা যদি হাশরের ময়দানে এই ওজর দেন যে আপনি জানতেন না কিভাবে অস্ত্র চালাতে হয়/ আপনার কাছে জিহাদে/ আনসার আল ইসলামে/ আল কায়দায় যোগ দেয়ার কোন লিঙ্ক নেই/ আপনি বোমা তৈরি করতে জানেন না

তাহলে আল্লাহর কাছে এই ওজর গ্রহন হবে না। জিহাদ করার জন্য কোন দলের প্রয়োজন নেই। আপনি গড়ে উঠুন একজন লোন উলফ হিসেবে।

ইয়া আল্লাহ তুমি সাক্ষী থাকো আমি পৌঁছে দিয়েছি।

আমার কথা শেষ করবো একটা কথা দিয়েই তা হল নিজের বিয়ের জন্য যদি আমরা দেশ জুড়ে মেয়ে খুজে একটা বিয়ে করতে পারি তাহলে কি এইরকম একটি বরকতময় হামলার জন্য নিজের সবকিছু ব্যয় করতে পারি না ...।।

কালিমার পতাকা
06-16-2016, 04:58 AM
শামেলি১৮৫৭ আইডি থেকে পোস্ট করা নীচের লেখাটি পড়ে ক্লিয়ার হলাম।

মুসলিমদের সাথে যুদ্ধরত দেশসমূহের জনসাধারণকে হামলার লক্ষ্যবস্তু বানানো: শাইখ আনোয়ার আল-আওলাকি (রাহিমাহুল্ল

জাজাকুমুল্লাহ সময় মতো পোস্ট দেয়ার জন্যে .......................

ibn mumin
06-16-2016, 12:48 PM
নারী- শিশু মরলেও সমস্যা নাই। আপনি কি সেই যুদ্ধের কথা জানেন না যা রাতের বেলায় রাসুলুল্লাহ (সাঃ) শত্রু শিবিরে পরিচালনা করেছিলেন । যখন তাকে (সাঃ) কে প্রশ্ন করা হল যে সেখানে তো নারী শিশুও আছে। তখন রাসুলুল্লাহ (সাঃ) কি বলেছিলেন তা পড়ে নিয়েন প্রিয় ভাই...
আজকে যদি আপনার হাতে পারমানবিক বোমা আসে তাহলে কি আপনি এই কারনে তা হারবি দেশ গুলোতে মারবেন না যে সেখানে নারী-শিশুও আছে !!!
আমরা যেন খারেজিদের বিরোধিতা করতে করতে মুরজিয়া না হয়ে যাই।- সেদিকে খেয়াল রাখা দরকার।