PDA

View Full Version : জাবহাত আন-নুসরাহর আল-কায়েদা ত্যাগ এবং কিছু কথা



Egol
07-25-2016, 02:36 PM
আল-কায়েদা এমন একটি সংগঠন যারা দলের চেয়ে উম্মাহ কে ভালবাসেন। উম্মাহ স্বার্থ এবং কল্যাণের জন্য যাদের রক্ত, সম্পদসহ সব কিছুই বিলিয়ে দিচ্ছেন। যারা উম্মাহর মাঝে বিভক্ত নয় বরং একতায় বিশ্বাস করেন।

শামে প্রায় ৬ বছর ধরে চলে আসা যুদ্ধে মুসলিম নারী-শিশুসহ কয়েক লক্ষ মুসলিম শহীদ হয়েছে। বিদ্রোহী গুপগুলো কয়েকশত গ্রুপে ভাগ হয়ে গেছে। এতে লাভ হয়েছে শিয়া কাফেরদের। একতার অভাবে এইসব গ্রুপ গুলোর ত্যাগ কাজে আসছে না বরং আসাদ ও পশ্চিমা ক্রুসেডারদের লাভই হচ্ছে।

জাবহাত আন-নুসরাহ আল-কায়েদা কে বায়াত দেয়ার পর যুদ্ধের মোড় ঘুরতে থাকে এবং আসাদ ব্যাপকভাবে ভুমি হারাতে থাকে। অন্যান্য গ্রুপ গুলো ও এতে মনোবল পায়। বিদ্রোহীদের নিয়ে আল-কায়েদা জইস আল ফাতেহ জোট তৈরী করে এবং এতে ব্যাপক সাফল্য পায় মুজাহিদরা। ইদলিব, আলেপ্প ও লাত্তাকিয়ার চেহারা পরিবর্তন হয়ে যায়।

জোট তৈরী হওয়ার পরও কিছু বিভেদ থেকেই যাই গ্রুপ গুলোর মধ্যে। সব গ্রুপগুলো এক না হওয়ায় আশানুরূপ ফল পাওয়া যায় নাই। অনেকেই বিশেষ করে আহরার আশ শাম, ফাইলাক আশ শাম ইত্যাদি গ্রুপগুলো আল-কায়েদার সাথে এক হতে চাই না কারণ আল-কায়েদার নাম শুনলেই পশ্চিমা ক্রুসেডার তাদের উপর সর্বশক্তি প্রয়গ করে। আল-কায়েদা নামের ধুয়া তুলে রাশিয়ান ও আমেরিকান বিমানগুলো বছরের পর বছর নির্বিচারে মুসলিম নারী-শিশুদের হত্যা করে চলেছে, মুসলিম ঘর-বাড়ী, স্কুল, হাসপাতাল, বাজারে ক্রুসেডাররা নির্বিচারে বোমা বর্ষণ করছে। সাম্প্রতিক সময়ে এটি মারাত্মক আকার ধারণ করেছে।

উম্মাহর এই ক্রান্তি কালে আল-কায়েদার সাথে জাবহাত আন-নুসরাহর সম্পর্কের ছেদের জতেস্ট যৌক্তিকতা রয়েছে। এতে ইনশাল্লাহ সকল মুজাহিদগ্রুপ গুলো একটি গ্রুপ বা দলে পরিণত হবে। সাধারন মানুষ আল-কায়েদার নাম নিয়ে বোমা হামলা থেকে রেহায় পাবে এবং আসাদ-শিয়া-রাশিয়ান জোটের পরাজয় ত্বরান্বিত হবে ইনশাল্লাহ। শামের বিজয় ত্বরান্বিত হবে ইনশাল্লাহ।

আল-কায়েদা কখনো নেতৃত্বের লোভ করে না, ক্ষমতার লোভ করে না, লোভ করে না সম্পদ বা দুনিয়াবি কোন সুবিধার। উম্মাহর স্বার্থেই তাদের সকল আত্মত্যাগ এবং পথ চলা। আল-কায়েদা কখনোই মনে করে না যে তারাই একমাত্র হকপন্থি এবং অন্যরা বাতিল।

আল্লাহ যেন হেমমতের মাধ্যমে হলেও শামের মুসলিমদের রক্তপাত বন্ধ করে বিজয়কে ত্বরান্বিত করেন। আমীন।

সিপাহসালার
07-25-2016, 02:49 PM
ভাই কিছুই তো বুঝলাম না। আসলে ঘটনাটা কি? দলীল সহ দিলে ভাল হয়। অন্যথায় আরেকটা ফেৎনার আশংকা রয়েছে।

tipo soltan
07-25-2016, 02:55 PM
ওয়াল্লাহি ! যেই মূহুর্তে আমি এই ধরণের একটি লেখা পোস্ট দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিলাম সেমুহূর্তে আপনার লেখাটি নজরে আসল। জাজাকাল্লাহু আহসানাল জাজা।

Umar Abdur Rahman
07-25-2016, 03:18 PM
যে ভাইয়েরা শায়খ তারতুসি (হাফি)'র সাথে একমত পোষণ করে এমন কথা বলছেন তাদেরকে অত্যন্ত মনোযোগের সাথে নিচের লেখাটি পড়ার আহ্বান জানাচ্ছি...

Pieter Van Ostaeyen:

“Lately we have been reading a lot about the ties between Jabhat Nusra and Al-Qaedah within the Jihadist community on social media. There are scholars and factions in Syria who believe that Jabhat Nusra should break its ties with Al-Qaedah because they see it as harmful for the Syrian revolution and as an obstacle for unity among the factions. I would like to explore the thoughts regarding this disposition. What are your thoughts on it?”



Al-Maqalaat:

“Firstly, this discussion will be more theoretical than anything else, as we do not really see the negative effects of this issue on the actual ground. The formation of Jaysh Al-Fath and Jaysh Al-Fustaat and the recent victories in Idlib and southern Aleppo testify to this fact. With that being said, yes some factions and scholars like Shaykh Abu Baseer Tartoosi argue that Jabhat Nusra should cut its ties with Al-Qaedah because their ties form a danger for the Syrian revolution. The opposite is actually true. If we were to look at ISIS then they do not have any ties with Al-Qaedah, they cut their ties with Al-Qaedah and broke off from its leadership. So did this benefit the Syrian revolution? ISIS does not have any ties with Al-Qaedah but they form one of the greatest dangers for the Syrian revolution. When they were under the leadership of Al-Qaedah their weapons were aimed at the regime and its allies. But since they broke off from Al-Qaedah they are aiming their weapons at all the enemies of the regime, which empowered the regime a great deal. This is clear proof that their ties with Al-Qaedah were very much in the benefit of the Syrian revolution, as ISIS followed the sensible guidelines of the Al-Qaedah leadership. But when they broke these ties, they became an enemy of the Syrian revolution. So those who are demanding from Jabhat Nusra that they should break their ties with Al-Qaedah, because it is in benefit of the Syrian revolution, as they claim, should consider this.

The guidelines of the Al-Qaedah leadership, its Sharia politics and the methodology of Al-Qaedah will actually safeguard the Syrian revolution. There have been groups like the Hazm Movement, Syria Revolutionaries Front, Division 30, Army of Revolutionaries, and the New Syrian Forces, who did not have any ties with Al-Qaedah, but their foreign guidelines, politics and methodology harmed the Syrian revolution, and the civilians and factions in Syria agreed on this. If it wasn’t for Jabhat Nusra who stopped their corrupt projects then who knows what the damage would have been to the Syrian revolution. It was also Al-Qaedah who nullified the legitimacy of the Khawarij deviancy by ISIS. Unlike the local factions in Syria, Al-Qaedah is the only alternative besides ISIS for those who want to join a global Jihad movement. If Jabhat Nusra did not provide this target group with a legitimate alternative in Syria then perhaps they would have joined ISIS. So image how much turmoil Jabhat Nusra prevented by providing this alternative.

ISIS claimed that it wanted to foil the conspiracies of the local and global enemies in Syria, but they only empowered these conspiracies due to their foolish actions and politics. ISIS labeled everyone as an apostate and a traitor or a western agent, placing all the groups and factions in the same trench without differentiating. This made people disbelieve the claim that there were any actual traitors or agents in Syria. Because they saw ISIS accuse factions like Jabhat Nusra, Ahraar Shaam and Jaysh Al-Islam of being apostates, traitors and agents, together with actual traitors like the Hazm Movement.

There is a small select group of traitors and agents in Syria, and Jabhat Nusra is the only one who succeeded in exposing and removing them from the field; they now operate largely under the Kurdish led Syrian Democratic Forces. Due to the balanced and clearheaded politics of Jabhat Nusra even the average civilian in Syria was and is able to distinguish between the Mujahid and the traitor, between the corrupt and the pious. That is why nobody opposed Jabhat Nusra when they got rid of the Hazm Movement, because they saw how they were harming and corrupting the Syrian revolution. Whereas they did oppose the accusations and blood spilling of ISIS, and the crimes of certain factions. The Syrian people would not have reached this distinguishing awareness if Jabhat Nusra did not use wisdom, justice and tolerance in dealing with the civilians, groups and factions.

Right after Jabhat Nusra got rid of these corrupt groups it formed Jaysh Al-Fath with other factions and liberated Idlib. Since then all the local and global conspiracies dissolved with ease. Jabhat Nusra first exposes the corruption before dealing with it, and does not blend this corruption in a mélange of truth mixed with falsehood like ISIS does. This is of great benefit for the Syrian people, as it safeguards and purifies their revolution. Jabhat Nusra has exposed the traitors and corrupt groups without exhausting the Syrian people with much effort in doing so. This saved the Syrian people much turmoil and blood spilling. While the fruitless foolish actions and politics of ISIS did the opposite, without getting rid of the traitors and agents, rather they even empowered them.

So imagine how much turmoil and blood spilling could have been saved if ISIS did not break its ties with the Al-Qaedah leadership and followed its guidelines and politics like Jabhat Nusra does, and imagine how much this would have benefited the Syrian revolution. Additionally accusing Al-Qaedah of being responsible for the crimes of ISIS would be unreasonable, as the first generation of the Khawarij broke off from the army of Sayidna Ali, may Allah be pleased with him. So do we blame Ali for their deviance? No.

Al-Qaedah has long experiences in guerilla war tactics and fighting super powers, the factions in Syria must be willing to learn from these experiences and insights. Al-Qaedah has experience with local enemies as well as the global enemies. It has experience with different groups, parties and sects. Even the turmoil of the Khawarij sect is not new, Al-Qaedah already experienced this in the past in Algeria, Pakistan, Afghanistan, and Sudan. Jabhat Nusra was for example one of the few factions who recognized that a cease fire with the regime was a conspiracy. More than 1500 rebels defected from other factions and joined Jabhat Nusra when those factions agreed on a cease fire with the regime. And it did not take long before those factions also realized that the cease fire was a conspiracy against the Syrian people. So they resumed the battle after catching their breath and reorganizing. This is one example of the insights and experiences we must learn from.

Claiming that the relationship between Jabhat Nusra and Al-Qaedah is forming an obstacle for unity with the other factions in Syria is not really convincing, because the remaining factions did not unite amongst each other in the first place. So what is the obstacle for them to unite amongst each other? Moreover, if the relationship between Jabhat Nusra and Al-Qaedah is the only obstacle for unity according to them, then this means that they actually agree with the methodology and politics of Jabhat Nusra. Because they are not complaining about the methodology or politics of Jabhat Nusra. Their only problem with Jabhat Nusra is their relationship with Al-Qaedah. This means that the remaining methodology and politics of Jabhat Nusra are not forming any problems or obstacles for unity. Although this is a comforting conclusion, it makes you wonder if this is really the only condition they will set for unity. It does not seem reasonable. If this relationship was really the only obstacle for unity then this would be very good news. Because this means that all other remaining factions besides Jabhat Nusra who do not have any ties with Al-Qaedah can finally unite amongst each other.

Even if some factions disagree with the methodology or certain tactics and Sharia politics of Al-Qaedah, then this should not be an obstacle for unity. If we were to look at the western countries for example and their alliance with the US, then we can say without a doubt that there are many disagreements between these western countries. Not all the western countries support the wars waged by the US, especially by the Bush Administration. Not all the western countries agreed on the extraordinary rendition policy. Not all the western countries agreed on the prison torture policies of the US in Guantanamo Bay. Not all the western countries agree on the US policy concerning drone air strikes on high value targets; 140 civilians are bombed on an average to hit just one high value target under the current Obama Administration. Not all the western countries agree on such excessive collateral damage. So there are many differences and disagreements between the allies of the US on certain politics and military policies.

But do we see these western countries break their alliance with the US because of these disagreements? No they do not, they stay united to protect their democratic ideals and values. Because they know that unity is strength. If these western countries stay united to protect their democratic ideals and values despite their disagreements, then why can’t we stay united to protect our Islamic ideals and values despite our differences? If some factions disagree with certain politics or military policies and battles fought by Al-Qaedah on other fronts in the world, then this should not be an obstacle for unity. Jabhat Nusra also does not agree with certain politics and policies by other factions, but it is nevertheless willing to unite for the greater good of the Muslim Ummah in Syria.

Al-Qaedah has united with the Taliban despite their differences and disagreements. The Taliban and Al-Qaedah do not share the exact same school of thought and methodology. The Taliban follows the Hanafi school of thought and is somewhat influenced by the Deoband movement which leans towards the Ash’ari and Maturidi theology. While Al-Qaedah leans toward Salafi Jihadism. Al-Qaedah in theory would have more in common with the Salafi Saudis than the Hanafi Afghans, but in practice we see something totally different. As the Saudis betrayed Shaykh Usama bin Laden and the Mujahideen, while the Islamic Emirate of Afghanistan protected and sheltered them. The Salafi Saudis rejected Jihaad, while the Hanafi Afghans are waging Jihaad for decades. This shows us that the differences and similarities should be put in their correct context and balance.

Salahdinne Al-Ayoubi shared the Ash’ari theology but nonetheless many founding Salafi scholars –who are critical towards the Ash’ari theology– spoke highly of him, because his righteousness outweighed his mistakes. So we should not let form be predominant over content. We do not have to agree on every understanding to unite against our enemies. As long as we agree on the core principles; the internal enemy most be deposed from authority over our countries, the external enemy must retreat from our countries, our countries must be independent –politically, militarily and economically– and our Islamic countries and peoples will be ruled by the Islamic law, whether the west likes it or not.

Al-Qaedah is even closer to the school of thought shared by the factions in Syria, who do not want to unite with Al-Qaedah, then it is to the school of thought shared by the Taliban in Afghanistan. This shows us how tolerant and flexible Al-Qaedah is and how rigid and stubborn these factions are. Because Al-Qaedah is willing to unite with others even if they differ in politics and religious understanding, moreover Al-Qaedah is willing to be one of its soldiers as long as they judge with the Islamic law. While these factions do not want to unite with those who share similar theoretical doctrines and religious understandings. Sidelining Jabhat Nusra is merely the first phase of eliminating all the other factions who share similar doctrines. Ahraar Shaam and Jaysh Al-Islam and other factions will not be left as a ruling power in Syria neighboring Israel. The US knows that they can not attack all the factions at once, so they divide and conquer, and by giving up Jabhat Nusra the factions are putting themselves on the list same of extermination.

Whether Shaykh Abu Muhammad Al-Joulani declared his oath of loyalty to Shaykh Ayman Zawahiri in April 2013 or not is actually a detail. Because Jabhat Nusra shares the same methodology and Sharia politics as Al-Qaedah, even if they did not give their oath to Al-Qaedah or even if they broke their oath to Al-Qaedah. That is why the US placed Jabhat Nusra on the terror list in December 2012, before Jabhat Nusra announced its oath to Al-Qaedah in the first place. So the whole issue of breaking ties with Al-Qaedah is insignificant, because the methodology and the Sharia politics of Jabhat Nusra will stay the same, even if they broke their ties with Al-Qaedah. That is why it is incomprehensible that some are obsessed with the ties of Jabhat Nusra. If they would break their ties with Al-Qaedah this would not really change anything on the ground.

The US will not remove them from the terror list and they will not stop attacking them. Look at Jund Al-Aqsa, they split from Jabhat Nusra in January 2014, but they were placed on the terror list nonetheless. The US designated Shaykh Abu Ibrahim Al-Jazaairi as a terrorist, one of the previous leaders of Jund Al-Aqsa, and bombed his car in rural Latakiyah in May 2015. The same goes for Shaykh Rifa’ee Ahmad Taha, the previous leader of Al-Jamah Al-Islamiyah in Egypt, who preceded Shaykh Umar Abdurahmaan, may Allah hasten his release. Shaykh Rifa’ee was a neutral figure in Syria, he had a great part in uniting the different factions together. He therefore posed a problem for the devide strategy of the US, so they killed him with a drone air strike on April 2016 in Northern Idlib. He was not a member of Al-Qaedah but they killed him regardless.

The relationship with Al-Qaedah is more than a political and military alliance, it is the bond of Islamic brotherhood which is rooted in the Islamic doctrine of Al-Walaa wal Baraa (loyalty and disavowal). So it is impossible for Jabhat Nusra to break this bond. It was exactly this bond and this doctrine which were put to the test when the Bush Administration ordered Mullah Muhammad Umar to hand over Shaykh Usama bin Laden. Now we are seeing that this bond and this doctrine are being put to the test once again in Syria. The Taliban is a great example for the factions in Syria. More than fifty countries gathered against the Islamic Emirate in Afghanistan when it didn’t want to hand over Shaykh Usama bin Laden, and after more than 15 years of war the Taliban still controls up to 80% of Afghanistan. While we see the humiliated and desperate western countries stumble over each other to reach a peace agreement with the Taliban. This is the fate of the proud Taliban who did not want to hand over one single Muslim. The Taliban is truly a great example of unity between Muslims despite the differences.

But if some factions think that their disassociation from Al-Qaedah will benefit them in any way then they should take Omar Al-Bashir as an example. Omar Al-Bashir expelled Shaykh Usama bin Laden at the orders of the Clinton Administration in 1996. But it did not take long before the International Criminal Court charged and accused Omar Al-Bashir for genocide and war crimes in Darfur and issued an arrest warrant against him. The Pakistani court likewise issued an arrest warrant against Pervez Musharraf. Allying with the US against Al-Qaedah didn’t protect him either. The same goes for Shakil Afridi who helped the US catch Shaykh Usama bin Laden, he too was eventually sentenced to thirty years of imprisonment. So what did they gain by disassociating from Al-Qaedah? Do we really want to pursue the fate of such miserable people who backstabbed Al-Qaedah to please their masters? Or should we pursue the fate of an honorable man like Mullah Muhammad Umar who refused to disassociate from Shaykh Usama bin Laden?

The alliance between the Taliban and Al-Qaedah is actually the secret to a successful strategy formula from which the factions should learn. Having external branches to your official and restricted army is considered to be a very sharp military strategy, many proxy wars today are fought this way. Iran has multiple militias outside its official army, like Hizbullah in Lebanon, and Faylaq Badr in Iraq, and the Houthis in Yemen. These militias can operate outside the borders and territory of the official army. The same goes for Al-Qaedah, which is an external branch of the official and restricted Taliban army. Mullah Muhammad Umar gave Shaykh Usama bin Laden the green light to operate outside Afghanistan while the official army focused its efforts inside Afghanistan. This gave the Taliban political and military flexibility. While the US was eager to negotiate with the Taliban in Qatar, the external branch Al-Qaedah was conducting operations against western embassies in the same region and western targets all over the world to weaken the coalition against Afghanistan. If it were official Taliban soldiers who were conducting these operations, in stead of their external branch Al-Qaedah, then the Taliban would not have the chance to take part in politics and move freely in the region.

The Prophet (SalAllahu Alayhi wa Selam) adopted the same strategy when he made the truce of Al-Hudaybiyyah in Medina with the pagans of Quraiysh in Mekkah, while the militia of Abu Baseer loyal to the Prophet raided their caravans on the outskirt of Medina. This went on until the Prophet successfully gained the upper hand in the political negotiations. The Taliban likewise, in cooperation with Al-Qaedah, were able to overpower their enemies military and politically. Look at the weak negotiation position of the pressured Syrian factions in Geneva, and compare this to the strong negotiation position of the commanding Taliban in Qatar. It is a comparison between humiliation and honor. Do they think that their negotiation position will improve if they disassociate themselves from Al-Qaedah? Rather their political negotiation position will improve if they would strengthen their relationship with Al-Qaedah; taking the successful formula of the Prophet with Abu Baseer and the Taliban with Al-Qaedah as leading examples.

To conclude, the mission of Jabhat Nusra is a pure Sunni project. It is far removed from extremism or negligence. They use harshness at the right time and against the appropriate people, while using softness at the right time and against the appropriate people. They are tolerant but not heedless, they are flexible and they always outweigh the benefits against the harms. They are very keen on preserving the religious, political and worldly interests of the Syrian people. That is why they withdrew from their military positions in Idlib, so that the regime would not bomb the civilians in Idlib under the pretext of attacking Jabhat Nusra. And that is why Al-Qaedah chose not to launch from Syria against western interests, so that the west does not bomb the Syrians like it is doing now in Raqqah for example. Their very first priority is repelling the transgression of the regime and toppling it. Their aspiration is building an independent Islamic government. And they are willing to cooperate with other Sunni factions in reaching this goal. They possess much needed capabilities; steadfast men who do not fight for worldly gains, independent finance, and they enjoy popular support. They are unmistakably an integral part of the Syrian people and they are one of the essential pillars of the Syrian revolution. But any faction, including Jabhat Nusra, who thinks that they alone can decide the future of Syria, is truly hallucinating. That’s why the factions must merge; there is no choice in the matter.”

Egol
07-25-2016, 03:35 PM
মালাকাত যথার্থ যুক্তি ও উদাহরণ দিয়ে বলেছেন যে নুসরাহ আল-কায়েদার সাথে সম্পর্ক ছিন্ন করলেও শামের জনগনের জন্য আপাত দৃষ্টিতে যা ভালো মনে হয় তা আসবে না। আসলে এই মুহূর্তে যদি শুরা থেকে বিজ্ঞ শাইখরা সিদ্ধান্ত নেন এবং সত্যিই যদি নুসরা আলাদা হয়ে যায় তাহলে সেটাও অযৌক্তিক হবে না। বিজ্ঞ শূরা সদস্যরা অবশ্যই যুদ্ধের ময়দান ও উম্মাহর বিশেষ করে শামের জনগনের কল্যাণে আসে এমন সিদ্ধান্তই নিবেন।

tipo soltan
07-25-2016, 04:14 PM
উম্মাহর বৃহত্তর ঐক্যের স্বার্থে যদি নুসরা এ ধরণের কোন সিদ্ধান্ত নেয় তবে আমাদের আমির শায়খ আইমান আয যাওয়াহিরী অগ্রিম অনুমতি দিয়ে দিয়েছেন..........

শামের জিহাদের বের হও বয়ানের অংশ বিশেষ......

পৃথিবীর সকল স্থান থেকে আগত জিহাদ ও রিবাতের ভূমি শামে আমার মুজাহিদ ভাইগণ!
নিশ্চয়ই আজ ঐক্যবদ্ধ হওয়ার ব্যাপারটি হল আপনাদের বাচা-মরার ব্যাপার। তাই, হয় আপনারা সম্মান ও মর্যাদার সাথে মুসলিম হিসাবে বসবাস করার জন্য ঐক্যবদ্ধ হোন, অন্যথা মতবিরোধ করে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়লে, পরিণামে আপনাদেরকে একজন একজন করে (শত্রুরা) গ্রাস করবে।

আরেকটি বিশেষ বিষয়, যার ব্যাপারে অনেকেই অনেক কথা বলেছে। আর তা করেছে, শামে জিহাদী মুসলিম উম্মাহর দৃষ্টি তাদের প্রকৃত শত্রুদের থেকে ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য।

আর তা হচ্ছেঃ সম্মান ও গৌরবের প্রতীক, প্রিয় জাবহাতুন নুসরা-র কায়িদাতুল জিহাদের সাথে সম্পৃক্ততার কথা, যার সাথে সম্পৃক্ত হওয়ার কারণে আমরা গর্বিত এবং যার ব্যাপারে আমরা আল্লাহর নিকট প্রার্থনা করি, আল্লাহ তার দৃঢ়তা ও শক্তি বাড়িয়ে দিন।

এই ব্যাপারে আমি কয়েকটি সংক্ষিপ্ত ও স্পষ্ট কথা বলব যা পূর্বেও বহুবার বলেছি, তা হলঃ
শামবাসী ও তাদের হৃদপিন্ড; সাহসী ও সৌভাগ্যবান মুজাহিদগণ যখন তাদের ইসলামী সরকার প্রতিষ্ঠা করবে এবং তারা তাদের জন্য কোন ইমাম মনোনীত করবে, তখন তারা যেটা পছন্দ করবে, সেটাই আমাদের পছন্দ। কারণ আল্লাহর অনুগ্রহে আমরা ক্ষমতার আকাঙ্খী নই; বরং আমরা শরীয়তের শাসন বাস্তবায়নের প্রত্যাশী। আমরা মুসলমানদেরকে শাসন করতে চাই না; বরং আমরা চাই ইসলাম দিয়ে মুসলিমদের মত শাসিত হতে।

আমরা সর্বদা বলেছি, আমরা শামের মুজাহিদদেরকে এক হওয়ার জন্য এবং একটি আদর্শ ইসলামী জিহাদী রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠায় ঐক্যবদ্ধ হওয়ার জন্য আহ্বান করি, যা ইনসাফের প্রসার ঘটাবে, পরামর্শ নীতির বিস্তার ঘটাবে, অধিকারসমূহ ফিরিয়ে দিবে, অসহায়-নিপিড়ীতদেরকে সাহায্য করবে, জিহাদকে পুনরুজ্জীবিত করবে, অতঃপর সমস্ত দেশগুলো মুক্ত করবে এবং আল আকসাকে মুক্ত করার জন্য ও খিলাফত আলা মিনহাজিন নুবুওয়াহ ফিরিয়ে আনার জন্য চেষ্টা করবে। আল্লাহর অনুগ্রহে কখনো কিছুতেই

সাংগঠনিক সম্পৃক্ততার দ্বারা এই সকল মহান কার্যক্রমের বিপরীতে কোন বাধা সৃষ্টি হবে না, যার স্বপ্ন দেখছে উম্মাহ, আমরা তার একটি অংশ মাত্র; অভিভাবক নই। আমরা অপরিচিত লোকদের বায়আতের মাধ্যমে তার অধিকারী হতে চাই না। এবং আমরা আকস্মিক খলিফাও নই।

সুতরাং, “জাবহাতুন নুসরাহ” যদি আল-কায়েদা থেকে পৃথক হয়ে যায়, তাহলে কি অপরাধীদের মোড়লরা তাদের প্রতি সন্তুষ্ট হয়ে যাবে, নাকি তাদেরকে খুনি অপরাধীদের সাথে এক দস্তরখানে বসতে বাধ্য করবে? অতঃপর তাদেরকে বাধ্য করবে লাঞ্ছনা ও অপমানের চুক্তির আনুগত্য স্বীকার করতে, তারপর অনৈতিকতা ও দালালী শাসনের কাছে আত্মসমর্পণ করতে, অতঃপর নোংরা গণতন্ত্রের খেল-তামাশায় অংশগ্রহণ করতে। অতঃপর তাদেরকে নিক্ষেপ করবে কারাগারে। যেমনটা করেছিল ‘আলজেরিয়ায়’ ‘জাবহাতুল ইসলামীয়ার’ সাথে এবং মিশরে ইখওয়ানুল মুসলিমীনের সাথে।

হে আমার মিশরের মুসলিম ভাইয়েরা!

মহান আল্লাহ সত্যই বলেছেন:
﴿وَلَن تَرْضَى عَنكَ الْيَهُودُ وَلاَ النَّصَارَى حَتَّى تَتَّبِعَ مِلَّتَهُمْ قُلْ إِنَّ هُدَى اللَّهِ هُوَ الْهُدَى وَلَئِنِ اتَّبَعْتَ أَهْوَاءَهُم بَعْدَ الَّذِي جَاءَكَ مِنَ الْعِلْمِ مَا لَكَ مِنَ اللَّهِ مِن وَلِيٍّ وَلاَ نَصِيرٍ﴾.

“ইহুদীরা তোমার প্রতি কিছুতেই সন্তুষ্ট হবে না এবং নাসারারাও না, যতক্ষণ না তুমি তাদের ধর্মের অনুসরণ করবে। বল, আল্লাহর নির্দেশিত পথই সঠিক পথ। আর যদি তোমার নিকট ইলম আসার পরও তুমি তাদের কামনা-বাসনার অনুসরণ কর, তাহলে (জেনে রেখ) আল্লাহ থেকে রক্ষার করার জন্য তোমার কোন বন্ধু বা সাহায্যকারী নেই। (সূরা বাকারা-১২০)

আমরা কায়িদাতুল জিহাদে সন্তুষ্টিচিত্ত ব্যতীত কারো হতে বায়আত গ্রহণ করি না, কাউকে তাতে বাধ্য করি না এবং কারো শিরোচ্ছেদ বা গর্দান পৃথক করে ফেলার হুমকি দেই না। আমাদের সাথে যারা যুদ্ধ করে তাদেরকে তাকফীর করি না, যেমনটা নব্য খারিজী সীমালঙ্ঘনকারীরা করে থাকে।

tipo soltan
07-25-2016, 04:18 PM
যাই হোক না কেন : ইনশাআল্লাহ আল কায়েদার সিংহরা শরীরের শেষ রক্তবিন্দুটুকু থাকা পর্যন্ত শামের ভূমিতে কুফফারদের কোন স্বপ্ন বাস্তবায়িত হতে দিবে না।

কুফফাররা যদি কোন স্বপ্ন দেখে থাকে তাহলে অচিরেই সেটা দুঃস্বপ্নে পরিণত হবে ইনশাআল্লাহ।

শাম একটি পবিত্র ভূমি, আল্লাহ তাআলা অবশ্যই শামবাসীর উপর কল্যাণের ধারা অব্যাহত রাখবেন। সুতরা আমারেদ পেরেশান হওয়ার কোন কারণ নেই।

ibn mumin
07-25-2016, 05:21 PM
ভাই নুসরার ভাইরা কি কোন স্টেট ম্যান্ট দিয়েছে এই ব্যাপারে ।।
শামবাসি যদি মনে করে জালেমের অত্যাচারের কারণ আল কায়দা তাহলে বিরাট ভুল করবে।
কাফেররা শামবসির উপর ততদিন পর্যন্ত ঐক্যবদ্ধ হয়ে আক্রমন করবে যতদিন পর্যন্ত তারা লা ইলাহা ইল্লাল্লাহর ঘোষণা দিবে।
আল কায়দা তো শুধুই একটি জামাত যার সৃষ্টি ২০-৩০ বছর আগে। এর আগে কি কাফেররা মুসলিমদের বিপক্ষে আক্রমন করে নি।
হায় কত বড় ভুলই না শামবাসি করতেছে ।
আল কায়দাই তো আল্লাহর ইচ্ছায় শামবাসির এলোমেলো বিদ্রোহকে জিহাদে রুপান্তরিত করেছে।
আল্লাহ না করুন নয়তো আমরা আজ আরেক ফিলিস্তিন পেতাম।
আল্লাহ আমাদের সবাইকে সঠিক পথে, তাওহীদ ও জিহাদের পথে অবিচল রাখুন।

Abu Anwar al Hindi
07-25-2016, 06:01 PM
নিশ্চিত থাকতে পারেন শায়খ জুলানির পক্ষ থেকে বার্তা দেয়া হলে তা হাকীম আল উম্মাহ শায়খ আইমান আয-যাওয়াহিরীর অজান্তে দেয়া হচ্ছে না। বর্তমানে শামে জাবহাত আন-নুসরার সাথে অবস্থান করা শায়খ সাইফ আল-আদলের মতো আল-ক্বা'ইদার প্রতিষ্ঠাতা শূরা সদস্যদের মতের বিরুদ্ধে গিয়েও কোন ঘোষণা দেয়া হচ্ছে না। একই সাথে স্মরণ করুন যখন তানযীম আল-ক্বা’ইদাহ্* ফী বিলাদ আর-রাফিদাইন বিলুপ্ত করার ঘোষণা দেয়া হয়েছিল এবং মাজলিশ শূরা গঠন করা হয়েছিল, এবং শায়খরা বলেছিলেন "ইরাকে এখন আল-ক্বা'ইদাহ্* নামে কোন সংগঠন নেই।"

বিষয়টি সুক্ষ এবং গভীর, আমরা যেন বিষয়টির ব্যাখ্যায় ত্বরাপ্রবণ না হই। শায়খ জুলানির এবং শায়খ আইমানের বক্তব্যের জন্য অপেক্ষা করুন।

এবং ইন শা আল্লাহ নিশ্চিত থাকুন - আন-নুসরার পতাকা থেকে আল-ক্বা'ইদাহ্*র নামকে সরানো আর আন-নুসরার চিন্তা,আদর্শ ও মানহাজ থেকে আল-ক্বা'ইদাহ্*কে সরানো এক না।

Zakaria Abdullah
07-25-2016, 06:09 PM
আমরা সবর করি আর মুজাহিদ শুয়ুখগণ কি বলেন - সেটা দেখি ইনশাআল্লাহ।

tipo soltan
07-25-2016, 06:11 PM
নিশ্চিত থাকতে পারেন শায়খ জুলানির পক্ষ থেকে বার্তা দেয়া হলে তা হাকীম আল উম্মাহ শায়খ আইমান আয-যাওয়াহিরীর অজান্তে দেয়া হচ্ছে না। বর্তমানে শামে জাবহাত আন-নুসরার সাথে অবস্থান করা শায়খ সাইফ আল-আদলের মতো আল-ক্বা'ইদার প্রতিষ্ঠাতা শূরা সদস্যদের মতের বিরুদ্ধে গিয়েও কোন ঘোষণা দেয়া হচ্ছে না। একই সাথে স্মরণ করুন যখন তানযীম আল-ক্বা’ইদাহ্* ফী বিলাদ আর-রাফিদাইন বিলুপ্ত করার ঘোষণা দেয়া হয়েছিল এবং মাজলিশ শূরা গঠন করা হয়েছিল, এবং শায়খরা বলেছিলেন "ইরাকে এখন আল-ক্বা'ইদাহ্* নামে কোন সংগঠন নেই।"

বিষয়টি সুক্ষ এবং গভীর, আমরা যেন বিষয়টির ব্যাখ্যায় ত্বরাপ্রবণ না হই। শায়খ জুলানির এবং শায়খ আইমানের বক্তব্যের জন্য অপেক্ষা করুন।

এবং ইন শা আল্লাহ নিশ্চিত থাকুন - আন-নুসরার পতাকা থেকে আল-ক্বা'ইদাহ্*র নামকে সরানো আর আন-নুসরার চিন্তা,আদর্শ ও মানহাজ থেকে আল-ক্বা'ইদাহ্*কে সরানো এক না।

জাজাকাল্লাহ ! চমৎকার বলেছেন --
আন-নুসরার পতাকা থেকে আল-ক্বা'ইদার নামকে সরানো আর আন-নুসরার চিন্তা,আদর্শ ও মানহাজ থেকে আল-ক্বা'ইদাহকে সরানো এক না।

Anjem Chowdhury
07-25-2016, 10:04 PM
আবেগ একটু বেশীই হয়ে গেছে :p

polashi
07-25-2016, 10:20 PM
ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন।

মুরজিয়াদের সাথে ঐক্য গড়তে গিয়ে নুসরাহ aqc থেকে বিচ্ছিন্ন হলো?

সৌদী, তুর্কির মিত্রদের সাথে ঐক্যের জন্য?

কী লাভ হবে? কোনো লাভ হবে না।

ইউএস, রাশিয়া কী ঘাস খায়?

আল কায়েদা ছাড়লে কি তারা নুসরাকে ছেড়ে দিবে? তাদের অবস্থান টার্গেট করে বম্বিং বন্ধ করে দিবে?

لن ترضى عنك اليهود ولا النصارى حتى تتبع ملتهم "ইহুদী-খ্রিষ্টানদের তরীকা অনুসরণের আগ পর্যত তারা কখনোই তোমাদের সন্তুষ্ট হবে না" এই আয়াত কি তারা ভুলে গেল?

কুফফারদের মনে কি কোন দয়া আছে? তারা নুসরার এই বিচ্ছিন্ন হওয়াকে কখনোই আমলে নিবে না।

নুসরা কি বাশারের সাথে একই টেবিলে বসতে চায়? তাহলে, কী লাভ? কী লাভ?? বাশার কি সুন্নাহর নারী-শিশু হত্যা থামিয়ে দেবে???

গ্লোবাল জিহাদ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়া, এটাই তো পতনের শুরু।

আল্লাহ তুমি সাহায্য করো।

আলহামদুলিল্লাহ আমাদের শায়খরাও ঘাস খান না।

polashi
07-25-2016, 10:22 PM
এক ভাইয়ের শোক গাথা



وداعاً يا جميلة ..

كنت أحلم وأنا صغير أن أعانقك، كنت أراكِ في أحلامي في منامي وفي اليقضة، جميلتي تغنيت باسمك سنين وسنين وكنت أشاهد العشاق يموتون في أحضانك نصرةً لدين الله وكنت أحسدهم ..



أراك في الشاشات وفي المنتديات تتبخترين بقوامك الجميل، تميلين أنحاء العالم في أفغانستان والعراق مرة وتتبخترين في الصومال، وفي مالي تميل قلوب العشاق إليك، وفي اليمن يقطعون المسافات والمسافات لعناقك، وأحينا لنيل شرف المحاولة .. يالكِ من قاسية



حاول الكثير تشويه سمعتك وقالو عنك قاتلة بل خادعة وأحدهم قال عنكِ:( زانية) اااخ لو يعلمون كم أنت شريفة وعفيفة وطاهرة، فمن أنجبك قد أقسم وبر بقسمه أنكِ قادرة على فعل كل هذا وأكثر، ورأينا بأعيننا كم أهلكت من مجرم بطرفة عين، بل كم أسرت من أسير بجمالك وفضحت الخائن بثبات ..



محبوبتي .. أتذكرين حين هزمتي أمريكا بطائراتك، أتذكرين حين دمرتي امريكا بقواربك، أتذكرين حينما أخفتي أوربا بقطاراتك، نعم أنت قادرة على فعل كل هذا، فأبوكِ قد وصى أبنائه فيك،ِ فها هو حمزه قد كَبُرَ ليأخذ بثأرك، وها هو رفيق دربه ينافح ويكافح من أجلك، وها هم الوفود تلو الوفود جاءوا إليك كي يشربوا من عزتك ومن أنفتك ومن رفعتك بعد أن كانو عطشى في بلدانهم فأحسني استقابلهم يا حلوة ...



أما اليوم يا عزيزتي قد نفارقك في أي لحظة في أي ثانية، فبعد أن كنا نفتخر بأننا عشنا تحت ظلك، اليوم نودعك وأعيننا تفيظ من الدمع، نودعك وقلوبنا معك، نودعك ودماء إخواننا التي تسقيك وتروي عطشك لم تجف بعد، فلازلنا نتغنى بك ونذكر اسمك، فأنت حتى جميلة في وصفك، فأنت قائمة شامخة عالية وغيرك قاعد، دعيني لحظات أستغل آخر أيامي معك، أرتشف آخر طلقاتي بجانبك أتلذذ بالنظر إليك، أعيش أجمل أيامي في أحضانك، وأتذكر كم وكم وكم من حبيب مات وهو يفتخر ويتشرف انه كُفِّن باسمك ايتها الجميلة،

سأشتاق إليكِ .. وداعاً يا رسالة





كتبه / عكرمة (ولكن بدون #قاعدة)

Anjem Chowdhury
07-25-2016, 10:36 PM
أما اليوم يا عزيزتي قد نفارقك في أي لحظة في أي ثانية، فبعد أن كنا نفتخر بأننا عشنا تحت ظلك، اليوم نودعك وأعيننا تفيظ من الدمع، نودعك وقلوبنا معك، نودعك ودماء إخواننا التي تسقيك وتروي عطشك لم تجف بعد، فلازلنا نتغنى بك ونذكر اسمك، فأنت حتى جميلة في وصفك، فأنت قائمة شامخة عالية وغيرك قاعد، دعيني لحظات أستغل آخر أيامي معك، أرتشف آخر طلقاتي بجانبك أتلذذ بالنظر إليك، أعيش أجمل أيامي في أحضانك، وأتذكر كم وكم وكم من حبيب مات وهو يفتخر ويتشرف انه كُفِّن باسمك ايتها الجميلة

ফিরে আয়ে নুসরাহ, ফিরে আয়।
সন্তান ছাড়া মায়ের কি আছে সুখ? :'(

Anjem Chowdhury
07-25-2016, 11:26 PM
অনেকেই হাকীমুল উম্মাহ শায়খুল মুজাহিদ আয-যাওয়াহিরীর বক্তব্য বুঝতে ভুল করেছেন, তিনি নুসরাকে কায়েদা থেকে পৃথক হওয়ার অনুমতি ঠিকই দিয়েছেন, কিন্তু হাকীম তথা বিজ্ঞজন হিসেবে তার পরামর্শটুকুও সাথে দিয়ে দিয়েছেন। এই লেখাটুকু খেয়াল করুন -


সুতরাং, “জাবহাতুন নুসরাহ” যদি আল-কায়েদা থেকে পৃথক হয়ে যায়, তাহলে কি অপরাধীদের মোড়লরা তাদের প্রতি সন্তুষ্ট হয়ে যাবে, নাকি তাদেরকে খুনি অপরাধীদের সাথে এক দস্তরখানে বসতে বাধ্য করবে? অতঃপর তাদেরকে বাধ্য করবে লাঞ্ছনা ও অপমানের চুক্তির আনুগত্য স্বীকার করতে, তারপর অনৈতিকতা ও দালালী শাসনের কাছে আত্মসমর্পণ করতে, অতঃপর নোংরা গণতন্ত্রের খেল-তামাশায় অংশগ্রহণ করতে। অতঃপর তাদেরকে নিক্ষেপ করবে কারাগারে। যেমনটা করেছিল ‘আলজেরিয়ায়’ ‘জাবহাতুল ইসলামীয়ার’ সাথে এবং মিশরে ইখওয়ানুল মুসলিমীনের সাথে।

আসলে, আমিও এটাই বলতে চাচ্ছি। ঐক্যের মিথ্যা প্রতিশ্রুতি দিয়ে মুরজিয়ারা নুসরাকে কায়েদা থেকে পৃথক করিয়ে ফেলে, কাফিরদের "বিভাজন, অতঃপর শাসন" নীতিকেই সাহায্য করেছে। নুসরার কায়েদা থেকে বিচ্ছিন্ন হওয়ার মাঝে যে কোন ফায়দা নেই, সেটা বুঝার জন্য আমি সবাইকে শায়খ মাকদীসীর লেটেস্ট বিবৃতি এবং মাক্বালাত ম্যাগাজিনের লেখাটা (উমার আব্দুর রাহমান ভাই যেটার ইংরেজি অনুবাদ দিয়েছেন) পড়তে অনুরোধ করছি।

@পলাশী ভাই, নুসরার শায়খরা এখন আর আমাদের শায়খ নেই। কায়েদা থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে, তারা ইমারতে ইসলামিয়্যাহ থেকেও বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। সুতরাং নুসরাহকে "আমাদের" বলছেন কীভাবে, বুঝে আসছে না। এতদিন হয়ত ছিল, কিন্তু এখন?

ibnmasud2016
07-26-2016, 12:19 AM
মুহতারাম আঞ্জেম ভাই, আপনি তাড়াহুড়ো করছেন, আপনি অস্থির হয়ে গেছেন। আপনার কথা আক্রমনাত্বক। সুতরাং আপনি শান্ত হোন, অপেক্ষা করুন। কেননা তাড়াহুড়ো শয়তানের কাজ। তাড়াহুড়ো কখনো ভালো ফল বয়ে আনেনা। আপনি খাওয়ারিজদের দেখতে পারেন। তারা তাড়াহুড়ো করার কারনে সবখানে ফেতনাই হয়েছে। ভালো কিছু উম্মাহকে উপহার দিতে পারেনি।
আল্লাহ আমাদের সবরে জামিল দান করুন এবং ধৈয্যর সাথে কাজ করার তাওফিক দান করুন। আমীন।

আবু মুহাম্মাদ
07-26-2016, 03:21 AM
নুসরার শায়খরা এখন আর আমাদের শায়খ নেই। কায়েদা থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে, তারা ইমারতে ইসলামিয়্যাহ থেকেও বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। সুতরাং নুসরাহকে "আমাদের" বলছেন কীভাবে, বুঝে আসছে না। এতদিন হয়ত ছিল, কিন্তু এখন?

ক্বায়েদা থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়া মানে তো আকীদা-মানহাজ থেকে বিচ্ছিন্ন হওয়া নয়। আমরা শুধু আল-কায়েদাকেই আমাদের মনে করি না বরং যারাই সঠিক জিহাদের আকীদা নিয়ে আছে তারাই আমাদের ভাই ও শাইখ।

আর এখানে বায়াআত ভঙ্গেরও প্রশ্ন আসবে না । কেননা শাইখ জাওলানীর হাকীমুল উম্মাতের কাছে মুসলিমদের আমীরে আম হিসেবে বায়আত ছিল না বরং তা ছিল ক্বিতালের বায়াত। আর তারা তো করছেই। শুধু তাজাম্মু' উলামা আহলিশ শামের আবেদনের কারণে তারা এটা করবেন না। বরং নুসরার ৯০% আলেম ও কাজী শরয়ী ও বাস্তবতার দিক দিয়ে পৃথক হয়ে যাওয়ার পক্ষেই কথা বলছেন।

আবু মুহাম্মাদ
07-26-2016, 05:06 AM
জাবহাতুন নুসরা আল-কায়েদার সাথে সম্পর্ক ছিন্নের ব্যপারে নুসরার আল্-মানারাতুল বাইদা এর অফিসিয়াল এক ভাইয়ের সাক্ষাৎকারঃ



مسالة #فك_الارتباط
كلام من اعلامي في #المنارة_البيضاء

- هل القرار اتخد دون مشورة قيادات القاعدة المركزية؟
لا؛ المشاورات مستمرة منذ مدة والقرار اتخد بعد موافقة السلم القيادي المعني بالأمر في القاعدة، ونستطيع الجزم بأن القاعدة قررتا فك ارتباط النصرة بها تنظيميا بناء على اطلاعهم على الواقع في الأرض والمتغيرات العالمية في تعاطي أمريكا وروسيا للوضع في الساحة الشامية.

- هل تم مشاورة قاعدة اليمن والمغرب؟
مشاورة الفروع في مثل هكذا قرار ليس من ضمن نظام الشورى في القاعدة.. ولكن تم إبلاغهم بالطبع.
فإبلاغ الفروع هو أمر روتيني ويحدث بشكل إداري تلقائي ولكنه قد يتعرقل نتيجة الأمور التقنية والأمنية المعروفة..
والمقصد واضح.. فالإعلان الرسمي لم يتم بعد ولن يتم إلا بعد استكمال الإجراءات الإدارية الخاصة بها والتي منها إبلاغ الفروع.

- لماذا هذه الخطوة الآن؟
مخطط الاتفاق بين أمريكا وروسيا على استهداف وقصف النصرة عامة كان له دور في اتخاذ الخطوات العملية .. أما الفكرة فهي مطروحة من قبل الشيخ أيمن منذ كلمة (نداء عاجل لأهلنا في الشام).

- ما الذي سيجدّ إذا تم فك الارتباط.. الحرب مستمرة والقصف مستمر؟
الخطوة المتخذة من قبل القاعدة والنصرة هي خطوة اجتهادية.. لكن قيادات القاعدة والنصرة يرون أنها على الأقل ستعرقل الاتفاق بين أمريكا وروسيا وستعطي مجالا أكبر ومرونة للفصائل الصادقة في الساحة للتعاون فيما بينها لصد العدو الصائل على الإسلام والمسلمين.. فستنتقل قوة جبهة النصرة وإمكانياتها في الساحة من كونها مصنفة على قائمة الإرهاب وتحت البند السابع.. ستنتقل هذه القوة بإمكانياتها (بنفس منهجها) إلى اسم جديد نظيف ليس مصنفًا تحت أي وصف.
كما أنه إن تم الاتفاق الأمريكي الروسي وبدأ قصف جبهة النصرة فليست النصرة وحدها من سيتأثر، بل الساحة برمتها والجهاد ككل.. فمن سيعوض أكثر من 5000 جندي مرابط على أشد الثغور شراسة؟! ومن سيستبدل أكثر من 10000 مقاتل يُدفع بهم العدو الصائل ويُغزى بهم في المعارك؟! هذا بخلاف الجرحى وأسر الشهداء والعوائل.
فحتى لا يُقال يومًا إن القاعدة كانت هي السبب في إنهاء الجهاد بالشام لتعنتها في التمسك باسمٍ يتخذه الكفر العالمي ذريعة لإنهاء الجهاد في أرض الشام.. فلله ثم للتاريخ ولمصلحة الساحة الشامية، كان فك الارتباط التنظيمي.

- تتحدث كأن فك الارتباط هو الذي سيحل مشاكل الساحة كلها؛ أليس في ذلك مبالغة؟!
هو أمر اجتهادي اجتهد فيه قيادات الجهاد (قاعدة ونصرة) للحفاظ على مكتسبات الجهاد على أرض الشام.. فلربما نجحت خطتهم -وهذا ما نسأل الله أن ييسره ويتمه-، ولربما تجاهلت أمريكا وروسيا القصة برمتها واستمرت في مشروعها لقصف الجبهة دون غطاء قانوني -من طرفهم أقصد-، ولكن ذلك لن يكون بهذه السهولة أو على الأقل سيأخر مشروعهم ويخلط أوراقهم.

- هل فك الارتباط خطوة أولية للاجتماع مع الأحرار؟
فك الارتباط سيزيل ما تعتبره بعض الفصائل مانعا للاجتماع.. وسيلقي بالكرة في ملعب الفصائل.. أما الاجتماع مع الأحرار بخصوصه فلا أعلم أنه مطروح للنقاش حاليا إلا كما هو مطروح من قبل.

- هل التنازل عن اسم القاعدة اليوم سيتبعه تنازلات في المنهج فيما بعد؟
بالطبع لا؛ فالتخلي عن التبعية التنظيمية للقاعدة لا يعني التخلي عن أي ثابت من ثوابت الدين ولا حتى ما نراه ونعتقده من السياسة الشرعية، كما أن الأخوة والولاء الإيماني مع تنظيم قاعدة الجهاد بكل فروعه باق بالطبع، وهو أعلى وأدوم من أي ولاء تنظيمي..
ولمن يخاف من تغير النهج بعد ذلك؛ أقول لكم أنا وأنتم متابعون وسنرى ما يتكشف في قادم الأيام بإذن الله تعالى.

- ما هو الموقف من المهاجرين وهل ما زال الباب مفتوحا لاستقبالهم؟
المهاجرين -وأنا منهم- كما هم؛ قادةً وجنودًا.. وباب استقبال المهاجرين والتنسيق معهم ما يزال مفتوحا كما كان.

- ولكن حركة الهجرة ستقل كثيرا بعد فك الارتباط عن القاعدة؟
هذا رأي شخصي، ولربما قال أحدهم بل ستزداد حيث من كان يخاف من ارتباط اسمه بالقاعدة لم يعد كذلك الآن.. أما أنا فأراه لن تتأثر كثيرا خصوصا بعد مرور مدة من الزمن وإثبات أن التغير هو في الاسم فقط أما المنهج والثوابت فكما هي لم تتغير.. وعلى كل حال فنسبة المهاجرين في الجماعة لا تتجاوز الثلث أما أغلب التجنيد فهو من الأنصار وهم قوام جيش النصرة الأصلي.. ولا شك أن عدد التجنيد الداخلي سيزداد مع الوضع الجديد.

- ألا تخشون من حدوث انشقاقات وفتن نتيجة هذه الخطوة؟
بإذن الله لن يحدث شيء.. فجلُّ مجلس الشورى وقيادات الصف الأول والثاني موافقون ويثقون بقيادة الجبهة ويعلمون الخطر المحدق بهم في المرحلة الحالية.
كما أن قيادة الجبهة قد وعت الدرس الذي حدث يوم شقت الدولة الصف من قبل.. ولن تسمح أن يتكرر مثل ذلك.



قنَاةُ
"ثوّرَةُ لُبْنَانَ اْلمُسْلِمُ"
@Lebanon1_sawra
للإشتراك واتساب:+33756995445

tipo soltan
07-26-2016, 05:56 AM
মুহতারাম আবু মুহাম্মাদ ভাই ! আপনি লিংকটা কপি করে পেস্ট করবেন যেনো ডাইরেক্ট যাওয়া যায়। জাজাকাল্লাহ।

আবুল ফিদা
07-26-2016, 08:24 AM
tipo soltan

আল হামদুলিল্লাহ ! সংবাদটি সম্পূর্ণই মিথ্যা । সিরিয়ার সবচেয়ে প্রসিদ্ধ সাংবাদিক মাজেন আল্লুশ আমার উপরে পোস্টকৃত নিউজটি শেয়ার করেছেন

লিংক

https://twitter.com/mazenaloush

আলহামদুলিল্লাহ ! নুসরার উপর যদি এধরণের আরো কয়েকগুণ চাপও আসে তবুও তারা ওই ধরণের কোন চিন্তাই করবে না ইনশাআল্লাহ। কেননা এটি বাগদাদী গ্রুপ নয় এটি শামের গ্রুপ। এটি ফিৎনার ভুমি ইরাক নয় এটি নবীজীর দোয়ার বরকতময় ভুমি শাম। যাদের আখলাক সম্পর্কে মুহাজির আবু সুলাইমান আল মুহাজির হাফিযাহুল্লাহ বলেন : আমি পৃথিবীতে অনেক সফর করেছি কিন্তু শাম বাসীর উত্তম চরিত্রের লোক আর কোথাও দেখিনি।

জাজাকাল্লাহ ! চমৎকার বলেছেন --
আন-নুসরার পতাকা থেকে আল-ক্বা'ইদার নামকে সরানো আর আন-নুসরার চিন্তা,আদর্শ ও মানহাজ থেকে আল-ক্বা'ইদাহকে সরানো এক না।

প্রথমে বলে ছিলেন সংবাদটি মিথ্যা আর এখন আপনার কথা দ্বারা বুঝা যায়, সংবাদটি সত্য, বুঝলামনা?

murabit
07-26-2016, 08:37 AM
আঞ্জেম সাহেব আবেগি কথা বলেছেন ,রনাঙ্গনে কর্মরত মুজাহিদ মাশায়েখ উমারার সাথে মাশওয়ারা করে যে সিদ্ধান্ত গ্রহন করেন সেটি ইনশাআল্লাহ কল্যান করই হবে, এখানে উম্মাহর সার্থ বড়, কোন তানযীমের প্রতি অতিরিক্ত আবেগি ভাবঃ মায়ের চেয়ে মাসির দরদের মত হয়ে যায়, যুদ্ধ ধোকা , যুদ্ধে সন্ধি জায়েয কেন? অথচ ফুকাহায়ে কিরাম লিখেছেন সন্ধি হলো কিতালের পরি পন্থি।এই কারনেই সাভাবিক অবস্থায় সন্ধি করা অর্থ হলোঃ কিতাল বিমুখি হওয়া এটা নাজায়েজ, এটা করার অবকাশ নেই, তবে জরুরতের ভিত্তিতেঃ যখন মুসলিমদের মধ্যে দুর্বলতা থাকে তখন যুদ্ধের প্রস্তুতি গ্রহনের উদ্দ্যেশ্যে সাময়িক বিরতি দেয়ার অবকাশ আছে, কারন প্রস্তুতি এটা কাজেরি অংশ। তাহলে সাময়িক যুদ্ধ বন্ধ রাখা যদি জায়েজ থাকে তবে অন্যের সাথে মিলে যুদ্ধকরার অবকাশ থাকবেনা কেন? বড়জোর আজীমত রুখছাতের বিষয় হতে পারে , এটার জন্য এইভাবে কোরান শরিফের আয়াত উল্লেখের দ্বারা কারো ভ্রম হতে পারে যে তাহলে এই সন্ধি হিলে বুঝি কুরানের খিলাফ হয়ে যাবে, পরিনতিতে এটাই অবচেতনে সবার মধ্যে বদ্ধমুল হবে যে দীর্ঘদিন সঠিক মানহাজে রনাঙ্গনে কুরবানিয়ে দিয়েও তারা দুনিয়ার সুবিধার জন্য শরিয়তের বাইরে চলে গেল।ওবশেষে সাভাবিক ভাবে মুজাহিদদের প্রতি একটি অনাস্থার ওয়াসওয়াসা সৃষ্টি হবে, স্বয়ং রাসুল সাল্লাল্লাহু তায়ালা আলাইহি ওয়াসাল্লাম আহযাবের যুদ্ধে সাকিফ কে মদিনার একতৃতিয়াংশ খেজুর দিয়ে সন্ধির অফার দিয়ে ছিলেন। এগুলো যুদ্ধের কৌশলগত বিষয়, দলিয় গন্তান্ত্রিক নির্বাচন নহে যে এখানে কর্মিদের সেন্টিমেন্ট কাজে লাগিয়ে একজনের পক্ষে আরেকজনের বিপক্ষে জনমত গঠন করব,নিজের সুবিধার প্রার্থির জয় ছিনেয়ে আনব,যত্তসব,
আল্লাহ তায়ালা আমাদের ভুল ভ্রান্তি মাফ করে দিয়ে সীরাতে মুস্তাকীমে অবিচল থাকার তাওফীক দিন,আমীন।।

murabit
07-26-2016, 08:44 AM
আন-নুসরার পতাকা থেকে আল-ক্বা'ইদার নামকে সরানো আর আন-নুসরার চিন্তা,আদর্শ ও মানহাজ থেকে আল-ক্বা'ইদাহকে সরানো এক না।

চমতকার! জাদাকাল্লাহু ফাহমান ওয়া ইফহামান।

tipo soltan
07-26-2016, 08:51 AM
মুরাবিত ভাই !
আবু মুহাম্মাদ ভাই লিখেছিলেন ...
“আল্লাহ তায়ালা জাবহাতুন নুসরাকে সাহায্য করুন। আমরা সবাই জাবহাতুন নুসরা। অনেক দুঃখ, কষ্ট ও শাম বাসীর পক্ষ থেকে গাদ্দারীর পর জাবহাতুন নুসরা তাদের নাম পরিবর্তন করেছেন। এবং বাহ্যিক ভাবে আল-কায়েদার সাথে সম্পর্ক ছিন্নতার ঘোষনা দিয়েছেন। আগে থেকে বুঝতেছিলাম এই রকম কিছু একটা হবে। আল্লাহ তাদেরকে সাহায্য করুন “

বিষয়টা এখন পর্য়ন্ত আলোচনা চলছে: নুসরা তো এখনো অফিসিয়ালী ঘোষণা দেয়নি ।
আর গতকাল সকাল পর্য়ন্ত দেখলাম আল কায়েদা শামের ভাইয়েরা এ ব্যাপারে এক রকম চুপ। দুপুরের দিকে দেখলাম এদিকে ইঙ্গিত করে ভাইরা লেখালেখি করছেন : তখন আমরাও নড়েচড়ে বসলাম।

আবু মুহাম্মাদ
07-26-2016, 08:59 AM
طاعون الدواعش (https://twitter.com/alhoty5nsrra) : https://twitter.com/alhoty5nsrra

فرسان الشامي 9 (https://twitter.com/forsan_9) : @forsan_9 (https://twitter.com/forsan_9)
এই দুইটা লিঙ্কে তাদের পতাকাও প্রকাশ করেছেন।

https://pbs.twimg.com/media/CoQXgqOWYAACPB-.jpg

https://pbs.twimg.com/media/CoQXhfKWcAA7dTm.jpg

আবু মুহাম্মাদ
07-26-2016, 09:44 AM
শামের একটা পেইজে সুন্দর পোস্টটা দেয়া হয়েছেঃ-

{ আল-কায়েদার সাথে নুসরার সম্পর্ক ছিন্ন করাটা আমাদের কাছে ততটা গুরুত্বপূর্ণ নয় যতটা গুরুত্বপূর্ণ তার মানহাজের উপর টিকে থাকা ...
কেননা আমরা তার সাথে জিহাদে এই কারনে বের হই নাই যে সে আল-কায়েদার সাথে আছে, বরং তার সাথে বের হয়েছি কেননা আমরা তার ফায়সালার উপর বিশ্বাস করেছি, এবং তার নেতৃত্যকে আমরা ভালবেসেছি এবং তাদের মানহাজ আমাদেরকে আশ্চর্য করেছে।
জাবহাতুন নুসরা ...
এই নামটি কতবার বলেছি ও ভালবেসেছি ...
কিন্তু তার পরিবর্তন আমাদের কোনই প্রতিক্রিয়া করবে না।
শামে আল কায়েদার শাখা ...
আমি সর্বদাই গৌরব অনুভব করতাম যখন আমি বলতাম আমি তাদের সাথে আছি ...
কিন্তু আমরা শামের মাসলাহাতকে আমাদের চাহিদার উপর প্রাধান্য দিব।
শাইখ আইমান আজ-জাওয়াহিরী ...
কত গর্ব করতাম কেননা আপনি আমাদের আমীর ...
এবং আপনি আমীর হিসেবেই যদিও আমরা সম্পর্ক ছিন্ন করি ।

@khwatermojahed

Egol
07-26-2016, 09:49 AM
সম্মানিত ভাইয়েরা। আসলে নুসরাহ ভিতরে এখন দুইটি বিষয় চলছে।

১) ইসলামিক আমিরাতের প্রতিষ্ঠা ও
২) আল-কায়েদার সাথে বিচ্ছিন্ন হওয়া (কৌশলগত কারনে)

আমরা আল-কায়েদার সাথে বিচ্ছিন্ন হওয়া নিয়েই আলোচনা করছি শুধু। যদি এটি এখনও অফিসিয়ালভাবে কোন ঘোষণা হইনি। ঠিক তেমনি ইসলামিক আমিরাত ঘোষণার কথাও শুনছি। কেন আমরা এটি বাদ দিচ্ছি!

ইসলামিক আমিরাত আফগানিস্থান কিন্তু আল-কায়েদা কে বায়াত দেয় নি বরং আল-কায়েদাই ইসলামিক আমিরাত আফগানিস্থানের নেতা আমিরুল মুমিনিন হায়বাতুল্লাহ আখন্দ (হাঃ) কে বায়াত দিয়েছে।

এখন উম্মাহর স্বার্থে ও শামের মুসলিম জনগনের দীর্ঘ সময়ের কষ্ট ও নির্যাতন থেকে মুক্ত হতে যদি নুসরাহ ইসলামিক আমিরাত ঘোষণা করে এবং আল-কায়েদার সাথে সম্পর্ক ও ছিন্ন করে তাতে ক্ষতি কি???

আমাদের সম্পর্ক তো হওয়া উচিৎ আল্লাহর সাথে। কোন গ্রুপ বা দলের সাথে নয়!

যদিও এক হয়ে থাকার প্রয়োজনীয়তা আছে কিন্তু কৌশলগত কারনে ক্ষণস্থায়ীভাবে সেটা ছিন্ন করলে প্রব্লেম কোথায়?


আর
আন-নুসরার পতাকা থেকে আল-ক্বা'ইদার নামকে সরানো আর আন-নুসরার চিন্তা,আদর্শ ও মানহাজ থেকে আল-ক্বা'ইদাহকে সরানো এক না।

এখন আমাদের কে অফিসিয়াল স্টেটমেন্ট/ঘোষণা পাওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে।

Anjem Chowdhury
07-26-2016, 10:23 AM
আলহামদু লিল্লাহ, আমি জাবহাতুন নুসরাহর আল কায়েদা থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে জাবহাতু ফাতহিশ শাম নাম ধারণ করার উপর সন্তুষ্ট হয়েছি।

নুসরার অফিসিয়াল মিডিয়া আল-মানারাতুল বায়দ্বাহ এর সাক্ষাৎকার পড়ার পর। সেই সাক্ষাৎকারের কয়েকটি পয়েন্ট উল্লেখ করছি।

১. নুসরাহ আল কায়েদার পরামর্শ ও অনুমতিক্রমে বিচ্ছিন্ন হয়েছে। সুতরাং বাইয়াহ ভঙ্গের কোন বিষয় নেই।

لا؛ المشاورات مستمرة منذ مدة والقرار اتخد بعد موافقة السلم القيادي المعني بالأمر في القاعدة

২. নুসরার বিচ্ছিন্ন হওয়ার প্রধাণ কারণ হচ্ছে তাদের বিরূদ্ধে আম্রিকা ও রাশিয়ার ঐক্যবদ্ধ হওয়া।

مخطط الاتفاق بين أمريكا وروسيا على استهداف وقصف النصرة عامة كان له دور في اتخاذ الخطوات العملية

৩. আল কায়েদা থেকে বিচ্ছিন্ন হওয়া মানে তাদের মানহাজ, পরামর্শ, নির্দেশনা থেকেও বিচ্ছিন্ন হওয়া নয়।

فالتخلي عن التبعية التنظيمية للقاعدة لا يعني التخلي عن أي ثابت من ثوابت الدين ولا حتى ما نراه ونعتقده من السياسة الشرعية، كما أن الأخوة والولاء الإيماني مع تنظيم قاعدة الجهاد بكل فروعه باق

৪. নুসরাহ এখনও বিদেশী মুহাজিরদের নিজেদের মাঝে স্থান দিবে, আল-হামদু-লিল্লাহ তাই এটা এখনও আন্তর্জাতিক জিহাদ হিসেবেই বাকি থাকবে।

باب استقبال المهاجرين والتنسيق معهم ما يزال مفتوحا كما كان

৫. বিচ্ছিন্ন হওয়ার পর নুসরার সদস্যসংখ্যা পূর্বের চেয়েও বেড়ে যাবে। কারণ অনেকেই আল কায়েদা নামের ভয়ে নুসরাহতে যোগ দিচ্ছিল না।

ولا شك أن عدد التجنيد الداخلي سيزداد مع الوضع الجديد

৬. এই পদক্ষেপ ইনশাআল্লাহ মুজাহিদীনদের মাঝে কোন অনৈক্য, বিশৃঙ্খলা কিংবা ফিতনাহ সৃষ্টি করবে না। কারণ মজলিশু শুরা, প্রথম ও দ্বিতীয় সারির নেতৃত্বের অধিকাংশই এই পদক্ষেপের ব্যাপারে একমত।

فجلُّ مجلس الشورى وقيادات الصف الأول والثاني موافقون ويثقون بقيادة الجبهة ويعلمون الخطر المحدق بهم في المرحلة الحالية

Egol
07-26-2016, 10:28 AM
নুসরার অফিসিয়াল মিডিয়া আল-মানারাতুল বায়দ্বাহ এর সাক্ষাৎকার পড়ার পর। সেই সাক্ষাৎকারের কয়েকটি পয়েন্ট উল্লেখ করছি।


লিংক দিন। এই বিষয়ে অনেকেই অনেক কথা বলছে। অফিসিয়াল স্টেটমেন্ট/বিবৃতি না আসা পর্যন্ত ওতি উৎসাহী হয়ে মন্তব্য করা থেকে বিরত থাকুন।

কারো একটি সাক্ষাৎকার এমনকি কি কোন মুজাহিদের সাক্ষাৎকার ও অফিয়াল স্টেটমেন্টের মাঝে আকাশ পাতাল পার্থক্য আছে।

polashi
07-26-2016, 10:29 AM
ঈগল ভাই ! বিষয়টা যদি ইমারাহ প্রতিষ্ঠার হয় তাহলে তো আমাদের জন্য অত্যন্ত আনন্দের ।
কারণ তখন অন্যান্য স্বেচ্চাচার দলগুলো আর পৃথক থাকতে পারবে না । দলছুট বকরি শিকারের মতো কুফফাররাও আর স্বার্থ উদ্ধার করতে পারবে না।
নেটে এ বিষয়টা দেখিনি।
দয়া করে লিংক দেন

Egol
07-26-2016, 10:36 AM
ঈগল ভাই ! বিষয়টা যদি ইমারাহ প্রতিষ্ঠার হয় তাহলে তো আমাদের জন্য অত্যন্ত আনন্দের ।
কারণ তখন অন্যান্য স্বেচ্চাচার দলগুলো আর পৃথক থাকতে পারবে না । দলছুট বকরি শিকারের মতো কুফফাররাও আর স্বার্থ উদ্ধার করতে পারবে না।
নেটে এ বিষয়টা দেখিনি।
দয়া করে লিংক দেন

ইদলিব জয়ের পর থেকেই ইমারাত প্রতিষ্ঠার কথা শোনা যাচ্ছে। শূরা তে ও আলোচনা হয়েছে বলে জানা যাই। আল-কায়েদা উম্মার জন্য যখন যে সিদ্ধান্ত ভালো হবে সেটাই গ্রহণ করবে ইনশাল্লাহ। আমাদের কে অপেক্ষা করতে হবে। আমরা শাম থেকে অনেক দুরে। শামে উপস্থিত শাইখ ও মুজাহিদরা সেখানকার বিষয়ে সমক্ষ জ্ঞাত এবং তারা ভালো সিদ্ধান্তই নিবেন এতে আমাদের দুঃখিত হওয়ার বা খুশি হওয়ার চেয়ে বিষয়টা মূল্যায়ন করা অধিক গুরুত্বপূর্ণ।

mohammod bin maslama
07-26-2016, 02:11 PM
আল কায়েদা এমন যার পতাকা তলে সমস্ত উম্মাহ একদিন আস্রয় নিবে।

shameli
07-26-2016, 06:18 PM
পতাকাটা সাদা করে ফেলাতে তো তারা কালো পতাকার সৌভাগ্য থেকে মাহরুম হচ্ছে। কারণ কালো পতাকা তো একটি গর্ব।
খোরাসানের কালো পতাকা তো এখন শুধু সেন্ট্রাল আল কায়েদাই থেকে যাচ্ছে।
কী বলেন ?

Egol
07-28-2016, 05:58 PM
শাইখ আইমান আল-যাওয়াহিরি (হাঃ) এর অনুমতিতে আল-নুসরাহ আল-কায়েদার সাথে বন্ধন ছিন্ন করেছে। আল-কায়েদা উম্মাহর মাঝে ঐক্য, বৃহত্তর স্বার্থে ও শামে দীর্ঘ ৬ বছর মুসলিমদের রক্তপাত বন্ধ করার জন্য এই সিন্ধান্ত নিয়েছে।

http://https://dawahilallah.in/showthread.php?3838-%E0%A6%A8%E0%A7%81%E0%A6%B8%E0%A6%B0%E0%A6%BE%E0%A 6%B0-%E0%A6%AC%E0%A6%BF%E0%A6%B7%E0%A7%9F%E0%A7%87-%E0%A6%86%E0%A6%B2-%E0%A6%95%E0%A6%BE%E0%A7%9F%E0%A7%87%E0%A6%A6%E0%A 6%BE%E0%A6%B0-%E0%A6%85%E0%A6%AB%E0%A6%BF%E0%A6%B8%E0%A6%BF%E0%A 7%9F%E0%A6%BE%E0%A6%B2-%E0%A6%85%E0%A6%A1%E0%A6%BF%E0%A6%93-%E0%A6%AC%E0%A6%BE%E0%A6%B0%E0%A7%8D%E0%A6%A4%E0%A 6%BE!-(%E0%A6%AC%E0%A6%BE%E0%A6%82%E0%A6%B2%E0%A6%BE-%E0%A6%85%E0%A6%A8%E0%A7%81%E0%A6%AC%E0%A6%BE%E0%A 6%A6-%E0%A6%AA%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A7%9F%E0%A7%8B%E0%A 6%9C%E0%A6%A8) (dawahilallah.in/showthread.php?3838-%E0%A6%A8%E0%A7%81%E0%A6%B8%E0%A6%B0%E0%A6%BE%E0%A 6%B0-%E0%A6%AC%E0%A6%BF%E0%A6%B7%E0%A7%9F%E0%A7%87-%E0%A6%86%E0%A6%B2-%E0%A6%95%E0%A6%BE%E0%A7%9F%E0%A7%87%E0%A6%A6%E0%A 6%BE%E0%A6%B0-%E0%A6%85%E0%A6%AB%E0%A6%BF%E0%A6%B8%E0%A6%BF%E0%A 7%9F%E0%A6%BE%E0%A6%B2-%E0%A6%85%E0%A6%A1%E0%A6%BF%E0%A6%93-%E0%A6%AC%E0%A6%BE%E0%A6%B0%E0%A7%8D%E0%A6%A4%E0%A 6%BE!-(%E0%A6%AC%E0%A6%BE%E0%A6%82%E0%A6%B2%E0%A6%BE-%E0%A6%85%E0%A6%A8%E0%A7%81%E0%A6%AC%E0%A6%BE%E0%A 6%A6-%E0%A6%AA%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A7%9F%E0%A7%8B%E0%A 6%9C%E0%A6%A8))

mohammod bin maslama
07-28-2016, 06:30 PM
আল কাইদা হল বিশ্য ব্যপি জিহাদ পরিচালনার একটি সংগঠন। যারা কোন ভৌগলিক সিমাকে উনুসরন করেনা।যেখানে ই, মোসলিমরা নিরজাতিত হবে, সেখানে ই,আল কাইদার মিশন চলবে।সাম, আফগান , সুমালিয়া, কাশমির, বিজয় হয়ে দেলোও আল কাইদার মিশ্ন চলবে।আর আমরা আলকাইদার সাথেই থাকব,।কে আসল কে চলে গেলো দেখার বিষয় না।

Egol
07-28-2016, 06:41 PM
কে আসল কে চলে গেলো দেখার বিষয় না।

শাইখ আইমান আল-যাওয়াহিরি (হাঃ) এর অনুমতিতে আল-নুসরাহ আল-কায়েদার সাথে বন্ধন ছিন্ন করেছে। এতে উম্মাহর বৃহত্তর স্বার্থ নিহীত আছে।

Zakaria Abdullah
07-28-2016, 08:10 PM
মাশাআল্লাহ, যখন শামের দায়িত্ব নেয়ার জন্য ঐখানকার উম্মাত প্রস্তুত, তানজীম আল কায়েদা তখন সেই দায়িত্ব উম্মাতের হাতে ছেড়ে দিয়েছে।

নিজেকে শামের রাজা বানানোর কোন খায়েস দেখায় নি। আল্লাহ কবুল করুন।

Abu Anwar al Hindi
07-28-2016, 08:47 PM
আশা করি হাকিমুল উম্মাহ শায়খ আইমান আয-যাওয়হিরীর হাফিযাহুল্লাহ নায়েবে আমীর শায়খ আহমাদ হাসসান আবু খাইর আল মাসরির হাফিযাহুল্লাহ বক্তব্যের পর যে ভাইরা কিছুটা বিভ্রান্তিতে পড়েছিলেন তাদের বিভ্রান্তি দূর হবে। শামের ব্যাপার তানযীম ক্বা'ইদাতুল জিহাদের বর্তমান কৌশল অনুধাবনের জন্য আমি আবারো সম্মানিত ভাইদের অনুরোধ করবো তানযীম আল-ক্বা’ইদাহ্* ফী বিলাদ আর-রাফিদাইন বিলুপ্ত করে মাজলিশে শূরা গঠনের সিদ্ধান্ত এবং শামের জিহাদের শুরুতে আল-ক্বা'ইদাহ্*র যে কৌশল ছিল (জাবহাত আন-নুসরাকে একটী স্বতন্ত্র তানযীম হিসেবে উপস্থাপন করা) তা নিয়ে গভীর ভাবে চিন্তা করার। বারবার ভাইরা যে বিষয়টা অনুধাবন করবেন ইন শা আল্লাহ, তা হল আল-ক্বা'ইদাহ্* লম্বা রেসের ঘোড়া। স্বল্পমেয়াদি চিন্তাভাবনা, কিংবা খেয়ালখুশির বশে আবেগ সর্বস্ব কিংবা হঠকারীতাবশত এ তানযীম সিদ্ধান্ত নেয় না। অনেক ভাই খুব বেশি বিচলিত হয়ে পড়েছিলেন বলে মনে হচ্ছিল, তবে এখনো পর্যন্ত যা আপাতভাবে দৃশ্যমান তার ভিত্তিতে আমার মতে শুধুমাত্র শায়খ জুলানির ২০১৩ সালে শায়খ আইমানের প্রতি সরাসরি বাই'য়াহর ঘোষণা ছাড়া নুসরার পক্ষ থেকে এখনো পর্যন্ত যেসব পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে, এবং হচ্ছে, শায়খ জুলানির বক্তব্যে যে ঘোষণা আসবে তা সহ, তার কোনটাই শাম নিয়ে আল-ক্বা'ইদাহ্*র বৃহত্তর পরিকল্পনার সাথে অসামঞ্জস্যপূর্ণ না, ওয়াল্লাহু 'আলাম।