PDA

View Full Version : আল মাক্বালাতঃ “সঠিক সময়ে সময়ে সঠিক দান: একটি অকল্পনীয় সিদ্ধান্ত গ্রহণের উপযুক্ত সময় নির্বাচন”



Anjem Chowdhury
07-28-2016, 09:35 AM
আল মাক্বালাতঃ “সঠিক সময়ে সময়ে সঠিক দান: জাবহাতুন নুসরাহ - একটি অকল্পনীয় সিদ্ধান্ত গ্রহণের উপযুক্ত সময় নির্বাচন”

al-Maqālāt: “The Wild Card in Time of Necessity: Jabhat al-Nuṣrah – Their Perfect Timing For an Unpredicted Decision” (https://justpaste.it/perfect_timing) এর অনুবাদ...

আল কায়েদা থেকে জাবহাতুন নুসরার বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়ার ইস্যুতে শত্রু-মিত্র সবাইকেই ব্যস্ত করে রেখেছে। প্রত্যেকেই অধীর আগ্রহে শায়খ আবু মুহাম্মদ জুলানীর মুখ থেকে শোনার জন্য ধৈর্য ধরে বসে আছে। এটাই প্রমাণ যে, জাবহাতুন নুসরাহ রাজনৈতিক এবং সামরিক উভয়দিক থেকেই সিরিয়ার ভেতর এবং বাহিরে কতটা প্রভাবশালী! এই খবরটা খুবই অপ্রত্যাশিত ছিল। আল কায়েদা থেকে বেড়িয়ে গেলে ইউএস নুসরাহর সম্পর্কে কী করবে, এমন দ্বিতীয় পরিকল্পনা তাদের ছিল না। আর এদিকে সেকুলার মুনাফিক এবং মানুষকে নিরুৎসাহিতকারী তোতাপাখিরা ইন্টারনেটে যে যা অভিযোগ, অনুযোগ পাচ্ছে জাবহাতুন নুসরাহর দিকে ছুড়ে মারছে। জাবহাতুন নুসরাহ বিচ্ছিন্ন হবে কি-না, এই সিদ্ধান্ত আমার হাতে নেই। কিন্তু ধরে নেই, তার হবে। এখন আমার কিছু পর্যবেক্ষন দ্রুত আপনাদের সাথে শেয়ার করি।

শামের মুসলিমরা জাবহাতুন নুসরাহকে তার স্ট্রাটেজি কিংবা মানহাজ থেকে সরে আসতে বলে নি, কেবল আল কায়েদার সাথে সাংগঠনিক সম্পর্ক ছিন্ন করতে বলেছে। যদি জাবহাতুন নুসরাহ তাদের নাম এবং সম্পর্ক পরিবর্তন করে, কিন্তু স্ট্রাটেজি এবং মানহাজে আল কায়েদাকে অনুসরণ করে, তবে এটাই তো আল কায়েদার প্রাথমিক পরিকল্পনা ছিল। কারণ শায়খ আইমান আয যাওয়াহিরি নির্দেশ দিয়েছিলেন, শামে আল কায়েদার উপস্থিতি যেন ঘোষণা না করা হয়। আল কায়েদার নাম ধারণ করে, কিন্তু একই মানহাজ এবং স্ট্রাটেজি ধারন করে না এমনটির চেয়ে আল কায়েদার সাথে সাংগঠনিক সম্পর্ক না রেখে মুজাহিদীনরা আল কায়েদার স্ট্রাটেজি ও মানহাজ অনুসরণ করবে, আমরা এটাই বেশি চাই। আমরা দেখেছি কীভাবে আবু বাকর আল বাগদাদী আল কায়েদার নাম ধারণ করা সত্যেও এর মানহাজ এবং স্ট্রাটেজী ধারণ করত না। বিভিন্ন ফ্রন্টে এমন বহু দল আছে যারা আল কায়েদার মানহাজ এবং স্ট্রাটেজি ধারণ করে, আবার অনেকের সাংগঠনিক সম্পর্কও আছে যেমন: মিসর, তিউনিসিয়া, মালি তারা কিন্তু প্রকাশ্যে এই সম্পর্কে ঘোষণা দেয় নি।

আহমদ শাওক্বি বলেন,
خفي الأساس عن العيون تواضعا .. من بعد ما رفع البناء مشيدا
দালানের ভিত চোখের আড়ালেই থাকে, যখন মজবুত হয় তার নির্মান।

যারা অভিযোগ করছে আল কায়েদার সাথে সম্পর্কের কারণে পশ্চিমারা জাবহাতুন নুসরাহর বিরূদ্ধে গিয়েছে, তাদের প্রথমে জানা উচিৎ, সম্পর্ক ঘোষণার বহু আগেই তারা জাবহাতুন নুসরাহকে জঙ্গি তালিকাভুক্ত করেছিল। দ্বিতীয়তঃ এছাড়াও সিরিয়ার বিপ্লবের জন্য পশ্চিমাদের চেয়েও ক্ষতিকর আরেকটি বিপদ সেসময়ে ছিল – খাওয়ারেজদের ফিতনা। এটা ভুলে যাওয়া উচিৎ। যদি জাবহাতুন নুসরাহ প্রকাশ্যে আল কায়েদার সাথে সম্পর্ক ঘোষণা না দিয়ে খারেজীদের ‘মিথ্যা বৈধতা’র মুখোমুখি না হত, তবে হয়ত অধিকাংশ মুজাহিদ ISIS এ যোগ দিত। জাবহাতুন নুসরাহ শুরু থেকেই তাদের ভ্রান্তি-বিচ্যুতির বিরোধিতা করায় এই ক্ষতি সীমিত ছিল, এবং FSA এর একটি দল ছাড়া আর কেউই ISIS এ যোগ দেয় নি। কিন্তু বর্তমানে এই বিপদটি আর আগের মত ভয়ঙ্কর নেই, কারণ খারেজীদের বিচ্যুতি-ভ্রষ্টতা সবার কাছে সাফ হয়ে গেছে। তাই, খারেজীদের মুখোশ উন্মোচন এবং তাদের ‘মিথ্যা বৈধতা’ শুন্য করে দেয়ার পর তাদের ফিতনা বিবেচনাযোগ্যভাবে সামাল দেয়া গেছে। তাই এখন উচিৎ তারচেয়েও বড় বিপদ এবং হুমকির দিকে মনোযোগ দেয়া। ইউএস এবং রাশিয়ার ষড়যন্ত্রমূলক ঐক্য এই বর্ধমান বিপদের তাৎপর্য বহন করে।

আল্লাহর নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, “তোমরা মুমিনের অন্তর্দৃষ্টিকে ভয় করো, কেননা সে আল্লাহ-প্রদত্ত নুর দ্বারা দেখে।” শায়খ আবু মুহাম্মদ জুলানী আল কায়েদার সাথে সম্পর্কের ঘোষণা ঐ সময়ের চাহিদা অনুযায়ী দিয়েছিলেন, আর এখন সময়ের চাহিদা বদলে যাওয়ায় তিনি এই সম্পর্ককে ছিন্ন করবেন। আল কায়েদা এবং নুসরাহর বন্ধন বিচ্ছিন্ন হওয়া অনেকগুলো বিষয় পরিষ্কার করে। এই সিদ্ধান্ত গ্রহণের সময় আকস্মিক কিংবা কাকতালীয় নয়। ইউএসের সাথে রাশিয়ার সাহায্য ও সহযোগিতার চুক্তির পরপরই এই সিদ্ধান্ত নেয়া হচ্ছে। জাবহাতুন নুসরাহ চুপচাপ বসে থেকে তাদের শত্রুদের ঐক্যবদ্ধ হতে দেখতে পারে না। তাই তাদের ঐক্য ও মৈত্রীকে প্রতিরোধ ও বাধাগ্রস্ত করতে, তারা এই বিশাল কৌশলগত পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। সিরিয়াতে তাদের ভূমিকা স্বীকার করে নেয়া কোন ঐচ্ছিক বিষয় ছিল না, বরং এটা ছিল সম্পূর্ন সামরিক বাধ্যবাধকতা।

আল কায়েদার সাথে সম্পর্ক ছিন্ন করায় us এখন বিপাকে পড়বে। সম্পর্ক ছিন্ন করার পরও যদি us রাশিয়ার সাথে নুসরাহকে টার্গেট করে বোমাবর্ষন করে, তবে এটা নিশ্চিতভাবে প্রমাণ করবে যে, তারা আসাদের রেজিমকে সাহায্য করছে। এটাও প্রমাণ করবে, তাদের যুদ্ধ সন্ত্রাসের বিরূদ্ধে নয়, বরং ইসলাম ও মুসলিমদের বিরূদ্ধে। যেই গ্রুপগুলো এখনও জাবহাতুন নুসরাহর সাথে এক হতে চায় না, তাদের মুখোশও উন্মোচন হয়ে যাবে। এটা স্পষ্ট হয়ে যাবে, তারা ঐক্য চায় না, একারণেই তারা এতদিন আল কায়েদার সাথে নুসরাহর সম্পর্কে অজুহাত হিসেবে ব্যবহার করেছে। ফলে সত্যসন্ধানী দলগুলো যারা কেবল নুসরাহর আল কায়েদার সাংগঠনিক সম্পর্কের বিরোধিতা করত, তাদের এবং ঐসব দল যারা গোপন এজেন্ডা বাস্তবায়নের চেষ্টায় আছে এবং যারা প্রকৃতপক্ষে নুসরাহর সাংগঠনিক সম্পর্ক নয়, বরং তাদের শরীয়াহ প্রকল্পের বিরোধী।

দুই ধরনের লোক আছে যারা আল কায়েদা এবং নুসরাহর সম্পর্ক ছিন্ন হতে দেখতে চায়। প্রথম হচ্ছে সত্যসন্ধানী মুসলিমগণ। যারা মনে করে এটা সিরিয়ার বিপ্লবকে বহুগুনে সাহায্য করবে। আর দ্বিতীয় দল হচ্ছে মুনাফিক্ব, যারা নুসরাহর বিরূদ্ধে সবাইকে ক্ষেপাতে চায় এবং নুসরাহকে দূর্বল করে দিতে চায়; তাদের ধারণা- নুসরাহর জীবন এই সাংগঠনিক সম্পর্কের উপর টিকে আছে! জাবহাতুন নুসরাহ এই দুই দলের কারোই মন যোগাতে ব্যস্ত নয়, তবে আল কায়েদার সাথে সম্পর্ক ছিন্ন করলে এই অত্যন্ত ভিন্ন দুইটি দল একই অবস্থান গ্রহণ করবে না।

যেমন: মুহাম্মদ ইবনুল ক্বাসিম বলেছেন,

إذا رضيت عني كرام عشيرتي .. فلا زال غضباناً عليّ لئامها

“যদি আমি আমার গোত্রের সম্মানিতদের ব্যাপারে সন্তুষ্ট হয়ে যাই, আমাদের গোত্রের ইতরদের রাগ আমার উপর কমবে না।”

ومن ذا يرضي كل نفس … وبين هوى النفوس مدى بعيد

“আর যে সবাইকে সন্তুষ্ট করার পাল্লায় পড়ে, (তার জানা উচিৎ)মানুষের খায়েশগুলোর মধ্যে বিশাল পার্থক্য বিদ্যমান।”

আল্লাহ বলেন, “ইহুদি-নাসারারা তোমার উপর ততক্ষণ সন্তুষ্ট হবে না যতক্ষণ তুমি তাদের মিল্লাতের (আদর্শ) অনুসরণ না করো।” সবাইকে সন্তুষ্ট করা অসম্ভব, যদিও আপনি চান। আপনি যদি ইহুদীদের মিল্লাত অনুসরণ করেন, খ্রিস্টানরা নারাজ হবে। উল্টোভাবেও কথাটা সত্য- আপনি খ্রিস্টানদের মিল্লাত অনুসরণ করলে, ইহুদীরা নারাজ হবে। তো শুরু থেকেই এটা একটা ব্যর্থ প্রচেষ্টা। মানুষকে সন্তুষ্ট আমাদের কোন লক্ষ্য হওয়া উচিৎ নয়, বরং লাভ-ক্ষতিগুলো আমাদের মেপে দেখা উচিৎ, কোন্টার পাল্লা ভারী। এই ধরণের সংবেদনশীল সিদ্ধান্তগুলোর ক্ষেত্রে এটাই মূলনীতি হয়ে থাকে।

নিঃসন্দেহে শামের উলামাদের কিছুদিনের আগের সমাবেশ জাবহাতুন নুসরাহর সিদ্ধান্তকে প্রভাবিত করেছে। আফগানিস্তানে মুজাহিদীনদের ঐক্য সাধিত হয়েছিল এভাবেই – ইলমে দ্বীনের শিক্ষক ও ছাত্রদের সমাবেশের মাধ্যমে যাকে আমরা তালিবান নামে চিনি। এই মুবারক সমাবেশের ফলে সত্যবাদী মুজাহিদদের ঐক্য সাধিত হয় এবং মুনাফিক্বদের মুখোশ উন্মোচন হয়, অথচ এরাও কিন্তু মুজাহিদদের সাথে সোভিয়েতের বিরূদ্ধে যুদ্ধ করেছিল। তালিবানের মুবারক সমাবেশ সমস্ত চিন্তাধারার অনুসারীদের ঐক্য সাধন করে। শামের উলামাদের সমাবেশ থেকেও (ইনশাআল্লাহ) একই দৃশ্যপট আশা করা যায়। আর ইতোমধ্যেই ঐক্যের চিহ্ন প্রস্ফুটিত হচ্ছে। প্রকৃত ঐক্য সর্বদাই ইলমের সঙ্গে আসে।

আল কায়েদার সাথে সম্পর্ক ছিন্নকরণ ঐ সকল দলের প্রতিও একটা বার্তা বহন করবে, যারা ঐক্য চায় না এবং পশ্চিমা শক্তির প্রতিও যারা উম্মাহকে ধোকা দিতে চায়। আল কায়েদার সাথে সম্পর্ক ছিন্নকরণের মোটামুটি এরকমই হবে, যে US কেবল আল কায়েদার শত্রু নয়, বরং তাদের শত্রুতা পুরো উম্মাহর সাথে, বিশেষ করে ঐসকল মুসলিমদের প্রতি যারা ইসলামের হুকুম প্রতিষ্ঠা করতে চায়। বহু মুসলিম এই সচেতনতা অর্জন করতে পেরেছে, সত্য। তবে এখন এই সচেতনতা আরও বৃদ্ধি পাবে এবং সমস্ত প্রজন্মের সাধরণ মুসলিমদের কাছেও পৌছে যাবে। যদি আল কায়েদার সাথে সম্পর্ক ছিন্নকরণের পরও US নুসরাহকে লক্ষ্য করে বোমাবর্ষণ করে তবে নুসরাহর জনসমর্থন আরও বৃদ্ধি পাবে এবং তা হবে খুব দ্রুততার সাথে। শামের জনগণই জাবহাতুন নুসরাহকে আল কায়েদার সাথে সম্পর্ক ছিন্ন করতে অনুরোধ করেছিল, জাবহাতুন নুসরাহ মুসলিমদের প্রতি আনুগত্য হিসেবে সেটা রক্ষা করেছে, তারা প্রমাণ করেছে- তারা দলীয় স্বার্থের উপর উম্মাহর স্বার্থকেই প্রাধান্য দেয়। এই সদিচ্ছা প্রদর্শনের পরও যদি অন্যান্য দল তাদের ফেলে রাখে, শামের ভেতরে এবং বাইরে অপ্রতিরোধ্য গতিতে তাদের জনসমর্থন বৃদ্ধি পাবে। এমন জনসমর্থনের ফলে আল কায়েদার মানহাজ এবং স্ট্রাটেজি মুসলিমদের মাঝে অত্যন্ত প্রসার লাভ করবে, এমনকি তাদের হৃদয় পর্যন্ত পৌছে যাবে। আর এই উদ্দেশ্য অর্জন করা আল কায়েদার জন্য নুসরাহর সাথে সাংগঠনিক সম্পর্ক বজায় রাখার চেয়ে অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ।

এই বিষয়গুলো কিন্তু গোপনীয় কিছু নয়। এটা স্পষ্ট যে এই সিদ্ধান্ত খুব সুন্দরভাবে কাজ করবে। যেমন এক গোয়েন্দা তথ্যদাতা সাইট লিখেছে, “আল কায়েদার সাথে আনুষ্ঠানিক সম্পর্ক ছিন্নকরন, অতঃপর আল কায়েদার অনুগ্রহস্পৃষ্ট হয়ে একটি ঐক্যজোট তৈরির প্রকল্প নিঃসন্দেহে US এর জন্য সবচেয়ে মন্দ পরিস্থিতি। এতে বিপ্লব ও বিদ্রোহের মাঝে মিশে থাকা জঙ্গিদের টার্গেট করা খুবই কঠিন হয়ে যাবে। এছাড়াও, এমতাবস্থায়, পরিকল্পিত ইউএস-রাশিয়া সমন্বয় যদি আগে বাড়ে, আপাতদৃষ্টিতে বোঝা যাচ্ছে, নুসরাহর সাথে অন্যান্য দলগুলো আরও বড় ঐক্যজোট তৈরি করবে। এই দলগুলো অতঃপর দ্রুততার সাথে উত্তরাঞ্চলে সিরিয় বিদ্রোহীদের মধ্যে US সমর্থিত ও মদদপুষ্ট দলগুলোকে গুড়িয়ে দিবে। ফলে সিরিয়াতে US এর প্রত্যাশিত রাজনৈতিক সমাধানের ব্যাপারে সমস্ত প্রভাব এবং উপরহাত বিলুপ্ত করে দিতে। অথবা US সমর্থিত দলগুলো এই জোটে যোগ দিবে। ... জাবহাতুন নুসরা অত্যন্ত বিচক্ষণতার সাথে যুদ্ধবিরতি ভঙ্গকে কাজে লাগিয়েছে। হতে পারে, আল কায়েদার সাথে সম্পর্ক ছিন্ন করে তারা বুদ্ধি ও কৌশলের দিক দিয়ে US-কে হারিয়ে দিবে। তারা তো আল কায়েদার মতাদর্শকে ত্যাগ করবেই না, বরং একে আরও গভীরভাবে পারিপার্শ্বিক পরিবেশের মধ্যে মিলিয়ে দিবে।” (সুত্র: ‘Jabhat al-Nusra: Breaking ties with al-Qaeda?’ –jihadintel.meforum.org)

সেকুলার মুনাফিক্ব এবং তাদের তোতাপাখিরা বারবার আওড়ে বেড়াচ্ছিল জাবহাতুন নুসরাহ নাকি সিরিয়ার বিপ্লব নষ্ট করে দিচ্ছে! অথচ আমরা দেখতে পাব, যারা মিসর, লিবিয়ার বিল্পবকে নষ্ট করেছে এবং তুরস্কের রাজনৈতিক পদক্ষেপকেও নষ্ট করতে চেয়েছে, তারাই ভেড়ার ছদ্মবেশে লুকিয়ে থাকা নেকড়ের মত কিছু মিথ্যা অজুহাত এবং অভিযোগের দোহাইয়ের আড়ালে সিরিয়ার বিপ্লবকে নষ্ট করার জন্য সব চেষ্টা করে যাচ্ছে, এবং উপযুক্ত সময়ের অপেক্ষায় ঘাপটি মেরে বসে আছে। এই বিষাক্ত আগাছাগুলোর মূলোৎপাটন প্রয়োজন। আর (আলহামদুলিল্লাহ) জাবহাতুন নুসরাহ এই মহামারীর মহৌষধ হিসেবে প্রমাণিত হয়েছে! জাবহাতুন নুসরাহ এই হুমকি থেকে মোটেও গাফেল নয়, আল কায়েদার সাথে সম্পর্ক ছিন্নকরণের সাথে তাদের এই সচেতনতা মোটেও পরিবর্তন হবে না। বরং এই সচেতনতা সমস্ত দলগুলোতে ছড়িয়ে যাবে।

যেমন: আবু মুসলিম খুরাসানী বলেছিল:

من رعى غنما في أرض مسبعة .. ونام عنها تولى رعيها الأسد
যে রাখাল তার ভেড়াকে শ্বাপদসংকুল বনের পাশে ছেড়ে দিয়ে ঘুমিয়ে পড়ে, তার ভেড়ার পালের দায়িত্ব তখন সিংহ বুঝে নেয়।

বহু লোককে দেখা যায়, এই কৌশলগত পদক্ষেপে বিমূড় এবং বিস্মিত হয়ে গেছে। কিন্তু আমরা যদি আল কায়েদার ইতিহাসের দিকে তাকাই, তবে একে নতুন কিছু মনে হবে না। এটা প্রথমবারের ঘটনা নয়। শায়খ আবু মুস’আব যারক্বাভী এবং তার পর শায়খ আবু হামযা মুহাজির ইরাকে আল কায়েদার নেতা ছিলেন। এরপর আল কায়েদা মুজাহিদীন শুরা কাউন্সিলের সাথে একীভূত হয় এবং ইসলামিক স্টেট ইন ইরাক নামে পরিচিত হয়। এটা বাথিস্টদের অনুপ্রবেশ এবং তাদের দ্বারা ছিনতাই হয়ে বর্তমান বিকৃত রূপ লাভের পূর্বের ঘটনা। যখন আল কায়েদা মুজাহিদীন শুরা কাউন্সিলের অন্যান্য দলের সাথে একীভূত হয়, ইরাক থেকে আল কায়েদা নাম হারিয়ে যায়, এবং আল কায়েদার প্রতি আনুগত্য একটি গোপন বিষয়ে পরিণত হয়, এবং আল কায়েদার মানহাজ এবং কৌশল একইরকম থাকে; অবশেষে isis বিভ্রান্ত ও পথভ্রষ্ট হয়। এই সিদ্ধান্ত মুজাহিদদের ঐক্যের দিকে খেয়াল রেখে নেয়া হয়েছিল। তাই খুব সম্ভাবনা আছে, (আল্লাহর ইচ্ছায়) আমরা “জাবহাতু ফাতহিশ শামে”র অধীনে এমনই একটা ঐক্য খুব শীঘ্রই দেখব।


সিরিয়াতে আল কায়েদার প্রথম অগ্রাধিকার হচ্ছে সিরিয় সরকারের পতন, তারা অন্যান্য দলের সাথে এই লক্ষ্য শেয়ার করে, কিন্তু এই লক্ষ্য অর্জনের জন্য আল কায়েদা এবং বাকি মুজাহিদদের সম্পূর্ন একসাথে এবং এক হয়ে কাজ করতে হবে, যেন তারা তাদের প্রচেষ্টা এবং অপারেশনগুলোতে সমন্বয় ও সহযোগিতা করতে পারে। শায়খ আবু মুহাম্মদ জুলানীর চোখ দামেশকের দিকে নিবদ্ধ, কিন্তু অন্যান্য দলগুলোর সাথে সহযোগিতা ও সমন্বয় ব্যাতীত তিনি দামেশক মুক্ত করতে পারবেন না। আল কায়েদা দেখিয়েছে এবং প্রমাণ করেছে, যে তারা তাদের লক্ষ্য এবং দাবীতে সত্যবাদী। এখন বাকি মুজাহিদদের পালা এসেছে একই আন্তরিকতা প্রদর্শনের। তাদের উচিৎ ঐক্যের পথে বিদ্যমান সমস্ত বাঁধা একপাশে সরিয়ে রাখা এবং অপর দলগুলোর সাথে এক ও একীভূত হয়ে যাওয়া।

আমি আগে যা বলেছি তা পুনর্ব্যক্ত করছি। যদি সমস্ত দলগুলো ইসলামি শরীয়াহ বাস্তবায়ন করে, যদি তুরস্ক এবং জর্দানের গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর সাথে তারা সম্পর্ক ছিন্ন করে, যদি আসাদের সাথে সমস্ত রাজনৈতিক আলোচনা এবং সন্ধি তারা প্রত্যাখ্যান করে, যদি তারা এক বাহিনীতে পরিণত হতে পারে, যদি সমস্ত বিদেশি এজেন্ডাগুলো শুন্য করে দেয়া হয়, যদি মুহাজিরদেরকে সিরিয়াতে থাকতে এবং আসতে দেয়া হয়, যদি দূর্নীতিগ্রস্তদের ময়দান থেকে অপসারণ করা হত, এবং যদি সমস্ত ফ্রন্টগুলো আসাদের বিরূদ্ধে পুনরায় জ্বলে ওঠে, কেবলমাত্র জাবহাতুন নুসরাহর আল কায়েদা থেকে বিচ্ছিন্ন হওয়ার কারণে; আর এই শর্তগুলোর কোন একটিও যদি বাকি দলগুলো মেনে নেয়, তাহলে আমি বলব এই সিদ্ধান্ত ইসলামের ইতিহাসেই একটি যুগান্তকারী সিদ্ধান হবে, বরং মানবাজাতির ইতিহাসেও। যদি অন্য দলগুলো এই পূর্বশর্তগুলো মেনে নেয়, তবে আল কায়েদা থেকে নুসরাহর বিচ্ছিন্ন হওয়া পশ্চিমাদের জন্য বড় একটা ধাক্কা হবে, কারণ তারা শামে এগুলো বজায় রাখার জন্যই মরিয়া। আল কায়েদা যতটা না একটি সংগঠন, তার চেয়েও বেশি একটি বার্তা, একটি আহবান। আর উল্লিখিত এই লক্ষ্যগুলোই আল কায়েদার বার্তা এবং তাদের দাওয়াহর লক্ষ্য। লক্ষ্য মাধ্যমের চেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ। উল্লিখিত লক্ষ্যগুলো অর্জন সাংগঠনিক সমপর্ক বজায় রাখার চেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ন, কারণ এই লক্ষ্য অর্জনের জন্যই মুজাহিদগণ এই সাংগঠনিক সম্পর্ক তৈরি করেছেন।

আল্লাহর নবী (সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) হুদায়বিয়ার চুক্তিনামা থেকে “মুহাম্মাদুর রাসুলুল্লাহ” শব্দগুলো মুছে দিয়েছিলেন; কারণ নামই সবকিছু নয়, আসল হচ্ছে লক্ষ্য অর্জন। এই শব্দগুলো মুছে দেয়ার কারণে তিনি যে রাসুল এই সত্যে কোন পরিবর্তন আসে নি। চাই মক্কার মুশরিক এটা মেনে নিক বা না নিক।

আল কায়েদার একজন মুজাহিদ জিহাদ করে গোটা দ্বীন এবং গোটা উম্মাহর স্বার্থে, শুধু তার সংগঠনের জন্য নয়। ময়দানে এই লক্ষ্য অর্জনের জন্য তার সংগঠন কেবল একটি ওয়াসিলা বা মাধ্যম মাত্র। যদি আল কায়েদাতে তার যদি ক্রিয়াকর্ম আরো শৃংখলিত করা যায়, যদি আল কায়েদাতে থেকে যাওয়া উম্মাহর জন্য অধিক কল্যানকর হয়, তবে এটা সুস্পষ্ট- তার থেকে যাওয়াই উত্তম। তবে অন্য কোন সাংগঠনিক সেটিংয়ে তার কাজগুলো আরও গোছানো হয়, এবং উম্মাহর স্বার্থের জন্য অধিক কল্যানকর হয়, তবে এটাই অধিক পছন্দনীয়। একজন মুজাহিদের উচিৎ নয় দলাদলিতে অন্ধ হওয়া। তার অনুধাবন করা উচিৎ- এই সংগঠনগুলো হচ্ছে পা রাখার জন্য সিড়ি মাত্র, যার শেষে রয়েছে আরো বড় স্বার্থ, গোটা উম্মাহর স্বার্থ। সে সবচেয়ে উপযুক্ত, দক্ষ, উপকারী সাংগঠনিক সেটিঙে কাজ করে। আল কায়েদার মুজাহিদগণ স্পষ্টভাবে প্রমাণ করেছে, তারা দলাদলি দ্বারা অন্ধ নয়। তারা উম্মাহর স্বার্থ এবং জিহাদের লক্ষ্যের উপরে দলের প্রতি ভালবাসাকে স্থান দেয় না। আল কায়েদার একজন মুজাহিদ তার দলের নামের জন্য জিহাদ করে না, সে লড়াই করে উম্মাহকে অত্যাচার ও নিপীড়ণ থেকে মুক্ত করতে এবং আল্লাহর কালিমাকে সর্বোচ্চ করতে।

আল কায়েদা একটি শিক্ষাপীঠ, আর শামের মহান মুজাহিদগণ হচ্ছেন সেখানকার অসংখ্য স্নাতকবৃন্দের মধ্য থেকে অল্প কয়েক স্নাতক। আল কায়েদার কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব হচ্ছে এমন একটি কেন্দ্র যা সচেতনতা তৈরি করে, এটি আল কায়েদার বার্তা এবং স্ট্রাটেজি বিস্তার করে, এটি উম্মাহকে পশ্চিমা অপশক্তির বিরূদ্ধে অনুপ্রাণিত এবং উজ্জীবিত করে, সেটা আল কায়েদার কমান্ডের মধ্য থেকেও হতে পারে, কিংবা স্বাধীনভাবেও হতে পারে। কিন্তু এই কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব না কোন ভূমি নিয়ন্ত্রণ করে, না মানুষ। অপরদিকে জাবহাতুন নুসরাহ হচ্ছে একটি গেরিলা আন্দোলন যারা স্থানীয় শত্রুর বিরূদ্ধে প্রতিরক্ষামূলক যুদ্ধ করছে, এটি এমন আন্দোলন যা বর্তমানে বিস্তৃত ভূমি নিয়ন্ত্রণ করছে, এই নিয়ন্ত্রিত জনসংখ্যার প্রতি তাদের সমস্ত প্রকার দায়িত্ব ও কর্তব্য রয়েছে। তাদের ঘাড়ে একই সাথে জিহাদে লড়ে যাওয়ার এবং অন্যান্য দলগুলোর ভূমি নিয়ন্ত্রণে রাখার দায়িত্ব আছে। আর এই দলগুলোর সাথে তাদের একসময় এক ও একীভূত হতেই হবে। সাথে সাথে নতুন কোন শত্রুর (যেমন: পশ্চিমা অপশক্তি) মুখোমুখি হওয়া থেকে বিরত থাকতে হবে। সুতরাং জাবহাতুন নুসরাহকে কাজ করতে হয় আল কায়েদার কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব থেকে সম্পূর্ণ ভিন্ন একটি সেটিঙে।

আল কায়েদা পশ্চিমাদের বিরূদ্ধে প্রকাশ্য যুদ্ধ ঘোষণা করেছে, এবং এর উপর আঘাত হানতে আহবান জান্নাছে, আর এদিকে তারা জাবহাতুন নুসরাহকে আদেশ করেছে কেবল আসাদ সরকারের প্রতি নিবদ্ধ থাকতে এবং পশ্চিমাদের বিরূদ্ধে কোন হামলা পরিচালনা না করতে। তবে পশ্চিমারা ইচ্ছাকৃতভাবে কার্যধারার এই বিচাজনকে উপেক্ষা করেছে এবং জাবহাতুন নুসরাহর বিরূদ্ধে পশ্চিমে আঘাত হানার পরিকল্পনা করার অভিযোগ এনেছে। এই অজুহাতে তারা জাবহাতুন নুসরাহর উপর সম্মিলিতভাবে বিমান হামলা পরিচালনা করেছে, যাতে আসাদকে সাহায্য করা যায় এবং সিরিয়ায় একটি ইসলামি সরকার প্রতিষ্ঠা রুখে দেয়া যায়। যদি জাবহাতুন নুসরাহ আল কায়েদার সাথে সাংগকনিক সম্পর্ক ছিন্ন করে, তবে পশ্চিমাদের কোন অজুহাত বাকি থাকবে না। জাবহাতুন নুসরাহর প্রতি তাদের শত্রুতা তখন সকলের দেখার জন্য উন্মুক্ত হয়ে যাবে। এতে (ইনশাআল্লাহ) মুসলিম জনগণ পশ্চিমাদের বিরূদ্ধে ঘুরে দাঁড়াবে। দীর্ঘমেয়াদে যা মুসলিমদের পশ্চিমাদের বিরূদ্ধে আন্দোলিত করবে, আর একেবারে শুরু থেকে এটাই আল কায়েদার লক্ষ্য ছিল।

মুনাফিক্ব এবং উম্মাহর শত্রুরা আল কায়েদার সাথে জাবহাতুন নুসরাহর সাংগঠনিক সম্পর্ককে ফোকাস করে অনেক প্রোপাগান্ডা চালিয়েছে, যাতে জনমত তাদের বিরূদ্ধে দাঁড় করানো যায়, এবং যেন জাবহাতুন নুসরাহর সারিগুলোকে ভেঙে দূর্বল করে দেয়া যায়। জনমত যেন প্রকৃতই তাদের বিরূদ্ধে না যায়, এবং তাদের সারিগুলো যেন দূর্বলও না হয়, এ উদ্দেশ্য সামনে রেখে আল কায়েদা থেকে সম্পর্ক ছিন্ন করার এটাই উপযুক্ত সময়। কিন্তু একই কাজ যদি আজ থেকে ২ বছর আগে করা হত, তাহলে তা হয়ত তাদের সারিগুলোতে দূর্বলতা নিয়ে আসত। কিন্তু জাবহাতুন নুসরাহর সৈনিকরা বর্তমানে তাদের নেতৃত্বের প্রতি একটি উচ্চ আস্থা স্থাপন করতে সক্ষম হয়েছে, এবং অধিকাংশই এই সিদ্ধান্তের সুফল সম্পর্কে অবগত আছে, আর অনেকে তো বেশ আগে থেকেই এটা চাচ্ছিলেন। তাই যে জিনিসটি জাবহাতুন নুসরাহর দূর্বলতা ভাবা হত, আজ তাই তাদের শক্তিতে পরিণত হয়েছে। আর তাই এটি এখন সম্পূর্ণরূপে উম্মাহর স্বার্থে এবং উম্মাহর শত্রুদের বিরূদ্ধে কাজ করবে।

উম্মাহর শত্রুরা অবশ্য এই সিদ্ধান্তের অপব্যবহার করবে; রাশিয়া, রাওয়াফিদ্ব-শিয়া, নুসাইরি, পশ্চিম, সেকুলার মুনাফিক্ব, এবং খারিজি উগ্রপন্থী - এদের সবাই এই সিদ্ধান্তকে জন্য অপব্যবহার করবে এবং এর দ্বারা নিজেদের স্বার্থসিদ্ধি লাভ করতে চাইবে। হয়তবা তারা কৌশলগত ভাবে কিছু অর্জনও করে ফেলতে পারে, কিন্তু সবদিক বিবেচনায় কৌশলগত লাভ আল্লাহর ইচ্ছায় মূলত মুজাহিদীনের পক্ষেই হবে। বিশেষ করে খাওয়ারিজ চরমপন্থিরা এই সিদ্ধান্ত থেকে সর্বোচ্চ সুবিধা অর্জনের চেষ্টা করবে, ঠিক যেভাবে তারা শামের ফিতনার সময় করেছিল এবং তাদের এই প্রতারণার মাধ্যমে তারা বহু অনুসারীও অর্জন করতে সক্ষম হয়েছিল। কিন্তু, মুজাহি নেতৃবৃন্দ এবং উলামা' তাদের আত্মঘাতী কাণ্ডজ্ঞানহীন আচরণের ব্যাপারে সতর্ক করেছিলেন। দূর্ভাগ্যজনকভাবে বহু যুবকই তাদের কথা শোনে নি, ফলে তাদের জীবনগুলো খাওয়ারিজদের শোচনীয় রাজনৈতিক, আকীদা বা ধর্মতাত্ত্বিক এবং স্ট্রাটেজিক অন্তর্দৃষ্টির কারণে। ইরাক এবং সিরিয়ায় তাদের দ্রুত কৌশলগত অর্জনগুলো এখন হারিয়ে গেছে, ইরাক ও শামে মুসলিম এবং মুজাহিদদের শরীর এবং পিঠের উপর তারা যাই নির্মান করেছিল, সব গুঁড়েবালিতে পরিণত হলো। তাই এমন সাময়িক বিজয় অন্তর্দৃষ্টিসম্পন্ন ব্যাক্তি কিংবা ইতিহাস থেকে যারা শিক্ষা নেয়, তাদেরকে বোকা বানাতে না পারে।


(সমাপ্ত)

Anjem Chowdhury
07-28-2016, 10:12 AM
--------------

সঠিক দাওয়াত
07-28-2016, 10:33 AM
জাযাকাল্লাহ ভাই !

Anjem Chowdhury
07-28-2016, 11:23 AM
-------------------------

banglar omor
07-28-2016, 11:44 AM
জাজাকাল্লাহ ।
ফোরামে আমরা আপনার কাছে এমন খেদমতই কামনা করি।

Anjem Chowdhury
07-28-2016, 12:17 PM
--------------------------

Anjem Chowdhury
07-28-2016, 01:59 PM
---------------------------

Zakaria Abdullah
07-28-2016, 03:31 PM
মাশাআল্লাহ, উত্তম খেদমত।

Anjem Chowdhury
07-28-2016, 09:04 PM
--------------------------------------

Anjem Chowdhury
07-28-2016, 09:05 PM
পুরোটা একসাথে মূল পোস্টে এডিট করে দিচ্ছি।