PDA

View Full Version : জানতে চাই ...তাদের পিছনে নামাজ আদায় করা যাবে কিনা ?



Ahmad Faruq M
08-20-2016, 01:25 PM
বর্তমানে তো মসজিদের ইমাম-খতীবগনের অবস্থা বড়ই নাজুক। আওওামীলিগের(সরকারের নির্দেশনায় ) চাপে উনারা জুমার বয়ানে জিহাদ (জঙ্গীবাদের) এর বিরুদ্ধে বয়ান করেন। এই তো রিসেন্ট ১৫ ই আগষ্ট উপলক্ষে আমাদের দেশের প্রায় মসজিদেই শেখ মুজিবের মাগফেরাতের জন্যে দূয়া করেছেন এই ইমাম খতীবগন !!! এদের পিছনে নামাজ আদায় করতে মন চায় না।

শুধু মাত্র ইমামতি টিকানোর জন্যে, নির্যাতনের ভয়ে হককে বাতিল ভাবে উপস্থাপন করছেন। এ যেন বনী ইসরাঈলের আহবার রোহবান্দের গুইসাপের গর্তের পদাঙ্ক অনুসরণ !! নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এর ভবিষ্যতবানীর বাস্তব দৃশ্য।

সন্মানিত উলামাগনের দৃষ্টি আকর্ষন করছিঃ যে সব ইমাম খতীবগন জেনে শুনে জিহাদের বিরুদ্ধে খুতবা দিচ্ছেন। যারা জঙ্গিবাদ ও আত্নঘাতী হামলা হারাম ফত্বওয়া দিচ্ছেন তাদের পিছনে নামাজ আদায় করা যাবে কিনা ?

Ustad Sayed Qutub
08-20-2016, 05:42 PM
আলহামদুলিল্লাহ, ভাই আজ আসরের সলাত আদায় করে মাসজিদ থেকে আসছিলাম, আর ভাবছিলাম কি করা যায় এই ব্যাপারে। আলহামদুলিল্লাহ, আল্লাহ সুবহান ওয়াতা'আলা আপনাকে আগেই প্রকাশ করার তাওফিক দান করেন। সম্মানিত আলেমগণের কাছ থেকে যথাযথ উত্তরের অপেক্ষায় রইলাম। আর আল্লাহ আজ্জা ওয়াজাল সত্য প্রকাশে কারো পড়োয়া করেন না।

salahuddin aiubi
08-20-2016, 07:47 PM
ভাই! আমি কয়েক দিন আগে একবার এমন একটি মসজিদে নামায পড়তে গেলাম। মসজিদে ঢুকেই দেখি, এসব শয়তানী কথাগুলো বলছে। আমি সঙ্গে সঙ্গে উক্ত মসজিদ থেকে চলে গিয়ে অন্য মসজিদে নামায আদায় করলাম, যেখানে এগুলো শুনতে পাইনি।
ভাই! এ সকল লোকগুলোর অবস্থা তো ইকরাহ হিসাবে ধর্তব্য হবে না, যেমনটা কিতাবুল ইকরাহ পড়ে মনে হয়। তাহলে তো এই কুফরী কথাগুলো বলার অবকাশ থাকে না। তাই যে ইমাম বা খতীব থেকে স্পষ্টভাবে জঙ্গীদের (তথা মুজাহিদদের) বিরুদ্ধে এবং তাগুতের পক্ষে (তথা মুরতাদ, যিন্দীকসহ সকল জনগণের নিরাপত্তার বাস্তবায়নের পক্ষে) বক্তব্য পাওয়া যায়, তার পিছনে নামায নাজায়েয হবে বলেই মনে হয়। তবে কারো ব্যাপারে তাবীল করার দাবি করা হলে তার কথার ধরণ দেখে বোঝা যাবে, তাতে কুতটুকু তাবিলের অবকাশ আছে? আল্লাহই ভাল জানেন।

Zakaria Abdullah
08-20-2016, 08:24 PM
আমি এই প্রশ্নের উত্তর জানি না। তবে এই ব্যাপারে কয়েকটি বিষয় সামনে আসেঃ

ক) ইকরাহঃ এই ক্ষেত্রে কুফরী করার অযুহাতের জন্য প্রাণহানির বাস্তব রিস্ক থাকতে হয়। যেমনঃ এই কুফরী কথা উচ্চারণ না করলে বা এই বয়ান না দিলে অমুককে হত্যা করা হবে, এটা প্রায় নিশ্চিত। এটা এই ইমামদের আছে বলে মনে হয় না।

তবে তাদের ইমামতি / চাকুরী এর রিস্ক থাকে। এটা হচ্ছে, দুনিয়া বনাম আখেরাতের যে কোন একটাকে প্রাধান্য দেয়ার বিষয়। এটাই তো ঈমানের পরীক্ষা।

খ) অজ্ঞতার অযুহাতঃ এটা তাদের জন্য প্রযোজ্য যাদের কাছে ইলম পৌঁছে নি। যারা দুনিয়া কামাই এ ব্যস্ত থাকায় সঠিক ইলম হাসিল করতে পারে নাই কিন্তু ঠিকই জিহাদের বিরোধিতা করছে, তারা এটা পাবে বলে মনে হয় না।

তবে এই ব্যাপারে বাংলায় কিতাবাদির ব্যাপক প্রচারের অভাবের একটা ব্যাপার আছে। অন্যান্য সকল বিষয়ের বই যেভাবে বাংলায় আছে, জিহাদের খুটিনাটি বিষয় কিংবা মানহাজের ব্যাপারে বিভিন্ন বই এভাবে পাওয়া যায় না। হাতেগুনা ২/১ টা প্রকাশনীর বই কতজনের কাছে পৌছে? সেটা খুবই কম। এই কারণে কেউ কেউ হয়তো দ্বীনের প্রতি আন্তরিক থাকলেও বর্তমান যুগের জিহাদের হাকীকত সম্পর্কে অজ্ঞ থাকতে পারে।

গ) অনিচ্ছাকৃত কুফরী করাঃ তারা অনিচ্ছাকৃত হটাৎ মনের ভুলে এই রকম খুতবা দিচ্ছে বলে মনে হয় না। আর আল্লাহই ভাল জানেন।

তবে আমরা হয়তো কোন আলেম এর কাছ থেকে এই ব্যাপারে সরাসরি কোন ফতোয়া পাবো না। এটা খুবই নাজুক একটা বিষয়। বরং সবাই আমাদেরকে অন্য মসজিদে / যে মসজিদে এ রকম খুতবাহ দেয়া হয় না, সেটাতে নামাজ পড়তে বলবেন। খুজে নিতে বলবেন।

কালিমার পতাকা
08-21-2016, 01:20 AM
আসলে এই ফিৎনার ধূমায়িত সময়ে ঈমান বাঁচানো কঠিন।

abu umama
08-21-2016, 01:36 PM
জি ভাই কিছুটা বুঝেছি আলহামদুলিল্লাহ্*

abu umama
08-21-2016, 01:47 PM
حكم الصلاة خلف الأئمة الذين يدعون للحكام المرتدين
5:22 ص الشيخ أبو بصير الطرطوسي


س23: ما حكم الصلاة ـ الجمعة وباقي الصلوات ـ وراء الأئمة الذين يدعون للحاكم المرتد، فإن الأقوال قد كثرت علي في هذا الباب، وأين أصلي إن كان هذا حال جميع أو معظم الأئمة والخطباء .. وجزاكم الله خيراً ؟!
الجواب: الحمد لله رب العالمين. هذه مسألة قد شرق فيها الناس وغربوا بين إفراطٍ وتفريط إلا من رحم الله .. ألخص جوابي عليها في النقاط التالية .. سائلاً الله تعالى السداد والتوفيق فأقول:

أولاً: تخصيص الحكام وغيرهم بالدعاء لهم في خطب الجمعة ومن على المنابر .. هو من البدع والأمور المحدثات، وكان أول من ألزم الناس بالدعاء لهم على المنابر هم الأمويون .. تعبيراً عن دخول الخطباء والعلماء في موالاتهم وطاعتهم ..!
ثانياً: أن الصلاة تقام خلف كل بر وفاجر .. والصلاة خلف البر أفضل من الصلاة خلف الفاجر .. ولكن إذا خير المرء بين أن تفوته الصلاة مع الجماعة وبين أن يصلي خلف الإمام الفاجر الفاسق .. لزمه أن يصلي خلف الإمام الفاجر حتى لا تفوته الصلاة مع الجماعة .
فقد ثبت عن ابن عمر وغيره من الصحابة أنهم قد صلوا خلف الطاغية الحجاج بن يوسف الثقفي .. وكذلك عبد الله بن مسعود كان يصلي خلف الوليد بن عقبة بن أبي معيط، وكان يشرب الخمر، حتى إنه صلى بهم الصبح مرةً أربعاً، ثم قال: أزيدكم ؟! فقال له ابن مسعود: ما زلنا معك منذ اليوم في زيادة ..!!
ولكن لا يجوز أن يبلغ به فجوره درجة الكفر البواح ثم يبقى إماماً للمسلمين .. فإن بلغ به فجوره درجة الكفر البواح .. تعين عزله، وحرمت الصلاة خلفه ولا بد .
ثالثاً: فإذا عرفت ذلك يجب أن تعرف أن المسألة التي توجهت بها تختلف بحسب صيغة الدعاء .. وبحسب الداعي ذاته .. وبحسب المدعو له من هؤلاء الحكام .
أما بحسب صيغة الدعاء .. فإن كان الدعاء جاء بصيغة تفيد طلب الهداية لهذا الحاكم المرتد كأن يقول: اللهم اهده ووفقه إلى الخير ونحو ذلك .. فهي صيغة غير مكفرة .. وصاحبها لا يجوز أن يُشار إليه بالكفر أو الارتداد !
أما إن جاء الدعاء بصيغة تفيد الدخول في موالاة وطاعة هذا الحاكم المرتد ونصرته على ما هو عليه من الباطل .. فهذه صيغة مكفرة، وصاحبها يكفر على تفصيل سنبينه إن شاء الله .
أما قولنا بحسب الداعي ذاته .. فالمراد إن كان هذا الداعي من ذوي العلم والجهاد والمروءة، والصدق في نصرة هذا الدين .. ثم عُرف عنه شيء من ذلك .. فإنه ينبغي إقالة عثرته .. وتحسين الظن به ابتداءً .. والتبين من السبب الذي حمله على الدعاء لهذا الحاكم أو ذاك .. لعل عنده ما يبرر فعلته .. أو على الأقل يصرف عنه حكم الكفر .
بخلاف من لا يعرف عنه سابقة علم ولا جهاد ولا بلاء في سبيل الله .. ولا صدق مع الدعوة في الشدة والرخاء .. ثم هو يستشرف تملقاً الدعاء الذي يفيد الموالاة والنصرة للحاكم المرتد .. فهذا وأمثاله لا يتوسع لهم في التأويل كالأول، وحكم الكفر والردة أسرع إليهم من الصنف الأول من العلماء المخلصين.
ولكي تتضح الصورة أكثر أضرب مثالاً واقعاً قد عايشناه وهو كالتالي: قد عرف الجميع عن الشيخ عبد الله عزام رحمه الله أنه كان لا يكفر حاكم باكستان الأسبق ضياء الحق .. لأسباب وجيهة ومعتبرة، وبناءً على ذلك كان يخلص له في الدعاء .. بخلاف بعض الأخوان والمشايخ الذين كانوا يرون كفره ..!
والشاهد هل يجوز أن يُرمى الشيخ عبد الله عزام ـ رحمه الله ـ بالكفر والردة من قبل الذين كانوا يرون كفر ضياء الحق ..لكونه كان يدعو له ؟!
أقول: لا .. لأسباب عديدة منها تاريخ الشيخ العلمي والدعوي، ومواقفه الجهادية .. التي تلزم بإقالة عثرات الشيخ، وبتوسع التأويل بحقه، بخلاف من لا يُعرف بما عرف به الشيخ من صفات أو عُرف بما يضاد ما عُرف به الشيخ من الصفات .. وهذا مثال تقيس عليه .
أما قولنا بحسب المدعو له من هؤلاء الحكام .. أريد أن حكام هذا الزمان الذين نعتقد كفرهم نوعان: نوع كفره بواح لا يحتمل غير ذلك بأي وجه من الأوجه، ونوع عنده من الدين ما يمكن أن يضلل به كثيراً من الناس عن جانب الكفر الصريح المتلبس به .. فالذي يدخل في موالاة ونصرة الأول في الدعاء يكفر ويقع في الردة، لقوله تعالى:) ومن يتولهم منكم فإنه منهم ( .
بينما من يدخل في نصرة وموالاة النوع الآخر من الحكام في الدعاء .. أرى أن لا يتسرع في إطلاق حكم الكفر بحقه .. إلا بعد النظر في الأسباب التي حملته على الدعاء .. والنظر في صفاته وأحواله العامة كما تقدم .. بعدها ستجد نفسك أمام صنفين: صنف تستريح لتكفيرهم .. وصنف آخر محاط بسياج من التأويلات والشبهات .. تجد من السلامة لنفسك ودينك أن تمسك عن القول بكفرهم أو ردتهم !
قد كان ابن عمر وغيره من الصحابة لا يرون كفر الحجاج، وكانوا يصلون خلفه كما تقدم .. وبنفس الوقت وجد من أهل العلم من كان يعتقد كفر الحجاج وخروجه من الدين .. ومع ذلك لم يكن ليخطر على بالهم تكفير الفريق الذي أمسك عن كفر الحجاج ودخل في طاعته وموالاته، أو ترك الصلاة خلفهم بحجة أنهم دخلوا في موالاة ونصرة الطاغية الحجاج ..!
والشاهد مما تقدم أن الحاكم الذي يحتمل كفره من وجه، وإيمانه من وجه آخر .. ثم يحصل اختلاف الناس عليه .. أرى أن لا يكون هذا الاختلاف سبباً للعن وتكفير كل فريق الفريق الآخر المخالف له .. وبخاصة إن وجد في الفريقين أناس من أهل العلم المعتبرين ممن يُعتد بأقوالهم وآرائهم وشهاداتهم .. والله تعالى أعلم .
رابعاً: إذا عرفت ذلك يا أخا الإسلام .. بقي أن أقول لك: إن اختلفت مع إمام المسجد أو خطيب الجمعة في كفر حاكم .. يحتمل أن يكون كافراً من أوجه .. ومسلماً من أوجه أخرى .. وكنت أنت ترى كفره وردته .. وهو يرى إسلامه لأسباب معتبرة حملته على ذلك .. ثم هو لذلك نصره بالدعاء .. أقول: مثل هذا الاختلاف مستقلاً لا يمكنك من تكفير مخالفك الخطيب أو الإمام .. وبالتالي لا يبرر لك ترك الجمعة والجماعات خلفه .
أما إن كان هذا الحاكم لا يُعرف عنه إلا الوجه المكفر وما يُلزم بتكفيره .. ثم وجدت الخطيب أو الإمام قد أمسك عن تكفيره ـ مع علمه بأحواله وكفره ـ ودخل في موالاته ونصرته بالدعاء .. فهذا الذي أرى أن تعتزل الصلاة خلفه .. وأرى لك أن تكفره بعينه ولا كرامة .

Ahmad Faruq M
08-21-2016, 10:30 PM
জাযাকুমুল্লাহ ।
ভাই আপনাদেরকে শুকরান।

salahuddin aiubi
08-21-2016, 11:26 PM
بخلاف من لا يعرف عنه سابقة علم ولا جهاد ولا بلاء في سبيل الله .. ولا صدق مع الدعوة في الشدة والرخاء .. ثم هو يستشرف تملقاً الدعاء الذي يفيد الموالاة والنصرة للحاكم المرتد .. فهذا وأمثاله لا يتوسع لهم في التأويل كالأول، وحكم الكفر والردة أسرع إليهم من الصنف الأول من العلماء المخلصي

“এর ব্যতিক্রম হচ্ছে ঐসকল লোকদের অবস্থা, যাদের মাঝে পূর্ব হতে ইলম, জিহাদ, আল্লাহর পথে বিপদাপদ বরণ এবং সুখে-দু:খে সর্বদা দাওয়াতে একনিষ্ঠ থাকার প্রমাণ পাওয়া যায় না; কিন্তু এখন সে চাটুকারীতা বশত: এমন দু’আ করতে আসে, যা মুরতাদ শাসকের সাথে বন্ধুত্ব সৃষ্টি করে এবং তাকে সাহায্য করে, তাহলে এই ব্যক্তি ও এর মত লোকদের ক্ষেত্রে প্রথমোক্ত ব্যক্তিদের মত তাবিল বা ব্যাখ্যার অবকাশ নেই। কুফর ও রিদ্দার হুকুমটি (পূর্বোল্লেখিত) প্রথম শ্রেণীর নিষ্ঠাবান আলেমদের তুলনায় এদের দিকেই অধিক দ্রুত ধাবিত হয়।”

আর এখন তো এ ধরণের সুবিধাবাদী লোকদের থেকে শুধু দু’আই নয়; বরং তাগুতদের মিশন বাস্তবায়নের পক্ষে এবং মুজাহিদদেরকে সার্বিক অসহযোগীতা করার জন্য স্পষ্টভাবে ও সরাসরি আলোচনা করা হয়। চিন্তা করে দেখুন! যখন বলা হয়: এসকল জঙ্গীবাদের সাথে ইসলামের কোন সম্পর্ক নেই, এরা ইসলামের শত্রু, এদের বিরুদ্ধে সকলকে এক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে,- তখন ইসলামের সাথে তার সম্পর্ক কিরূপ হয়ে যায়!?

murabit
08-23-2016, 02:27 PM
জঙ্গিবাদ বা যে নামেই হোক যে জিহাদের বিরোধিতা করে তার কি ঈমান বাকি থাকবে?
তার মুসলিমস্ত্রী্র সাথে সম্পর্ক ঠিকথাকবে?
স্ত্রীর সাথে মেলামেশা কি জিনা হবে না?
সন্তান কি জারজ পয়দা হবেনা?
তার যবাই করা জন্তু খাওয়া হালাল হবে?
তার ইমামতিতে নামাজ শুদ্ধহবে?
..?

tipo soltan
08-23-2016, 02:37 PM
.....................................