PDA

View Full Version : বিভিন্ন অজুহাত দেখিয়ে হিন্দু শিক্ষকদের দিয়ে ইসলাম শিক্ষা পড়াচ্ছে হিন্দুত্ববাদী আওয়ামীলীগ সরকার



hadid_bd
09-23-2016, 07:10 PM
বিভিন্ন অজুহাত দেখিয়ে হিন্দু শিক্ষকদের দিয়ে ইসলাম শিক্ষা পড়াচ্ছে হিন্দুত্ববাদী আওয়ামীলীগ সরকার

মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল উপজেলায় ১৯টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ধর্মীয় শিক্ষকের তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে। এসব বিদ্যালয়ে হিন্দু শিক্ষকদের দিয়ে ইসলাম শিক্ষার ক্লাস নেয়া হচ্ছে।

শিক্ষা অফিসে ধর্মীয় শিক্ষক চেয়ে অনেক আবেদন করেও কোনো ফল পাওয়া যাচ্ছে না। এ কারণে ছাত্র ও অভিভাবকদের মাঝে তীব্র ক্ষোভ সৃষ্টি হয়েছে। অথচ শিক্ষা অফিস কর্তৃপক্ষ বলছেন, প্রাথমিক শিক্ষাব্যবস্থায় এতে কোনো অসুবিধা হচ্ছে না।

উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা গেছে, শ্রীমঙ্গল উপজেলায় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সংখ্যা ১৩৮টি। এর মধ্যে ৬৬টি সম্পূর্ণ সরকারি এবং নতুন জাতীয়করণ ৫৭টি। সরকারি ১৩৮টি স্কুলের বিপরীতে ১৫৯ জন ধর্মীয় শিক্ষক কর্মরত থাকলেও এর মধ্যে ১৯টি স্কুলে কোনো ধর্মীয় শিক্ষক নেই। উল্লেখিত ১৩৮টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে অনুমোদিত শিক্ষক-শিক্ষিকার ৬৪৯টি পদের বিপরীতে শিক্ষক শিক্ষিকার সংখ্যা ৫৪৬। শূন্যপদের সংখ্যা ১০৩টি। এর মধ্যে নারী শিক্ষক ৩৯০ জন ও পুরুষ ১৫৬ জন।

শিক্ষা অফিসের দেয়া তথ্যমতে, উপজেলা ১৩৮টি সরকারি স্কুলের মোট ২০ হাজার ৩ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে মুসলিম শিক্ষার্থী প্রায় ৬৫ শতাংশ। এর মধ্যে মুসলমান শিক্ষকের সংখ্যা ১৫৯ জন এবং হিন্দু শিক্ষক রয়েছেন ৩৮৭ জন।

মুসলিম শিক্ষক নেই এমন স্কুলগুলো হলো, সুইলপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, চাতল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, গন্ধর্বপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ভীমসী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মনারগাঁও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, বরুনা ফয়জুর রহমান সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, নয়নশ্রী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, উত্তর জিলাদপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, পূর্ব জামসী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, তিতপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, শাসন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, বালিশিরা খাসিয়া পুঞ্জি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, কৃষ্ণরাম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, রায়পরান সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, উত্তর পাঁচাউন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মাকড়িছড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, পশ্চিম আশিদ্রোন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, কামাসিদ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও শ্রীমঙ্গল হাউজিং এস্টেট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়।

বালিশিরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের এক ছাত্রের অভিভাবক মনির মিয়া ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, একটি স্কুলে সব ধর্মের শিক্ষার্থীই থাকে। প্রত্যেক ধর্মেরই শিক্ষক স্কুলে থাকা বাঞ্ছনীয়। সেক্ষেত্রে স্কুলে মুসলিম শিক্ষক না থাকাটা খুবই বেদনাদায়ক।

http://www.bdface.net/newsdetail/detail/45/245133

polashi
09-24-2016, 10:37 AM
অনেক স্কুল ছাত্র এখন হিন্দুদের পুনর্জন্মে বিশ্বাস করতে শুর করেছে ..........

শুদ্ধ বানান
09-24-2016, 01:46 PM
ইন্নালিল্লাহ!!