PDA

View Full Version : মিয়ানমারে অমুসলিমদের অস্ত্র দেওয়ার পরিকল্পনা। হে মুসলিম! আপনি কি এখনো অস্র বিমুখ থাকবেন?



Abdullah Ibnu Usamah
11-06-2016, 10:19 AM
মিয়ানমারে অমুসলিমদের অস্ত্র দেওয়ার পরিকল্পনা

সহিংসতাপ্রবণ রাখাইন রাজ্যে অমুসলিম নাগরিকদের অস্ত্র ও প্রশিক্ষণ দেওয়ার পরিকল্পনা করছে মিয়ানমার সরকার। এর ফলে সহিংসতাপীড়িত ওই স্থানের মানবাধিকার পরিস্থিতি আরও খারাপ হয়ে যাবে বলে আশঙ্কা করছে ইন্টারন্যাশনাল কমিশন ফর জুরিস্ট (আইনবিদদের আন্তর্জাতিক কমিশন) ও দেশটির মানবাধিকার সংগঠনগুলো।
অক্টোবরে মংডু শহরের বাংলাদেশ সীমান্তবর্তী চৌকিতে হামলার ঘটনায় পুলিশ সদস্য নিহত হওয়ার পর পরিস্থিতি আবার জটিল আকার ধারণ করেছে। পুরো মংডু শহর ও বাংলাদেশ সীমান্তবর্তী এলাকায় প্রচুর সেনা মোতায়েন করা হয়েছে।
মিয়ানমারের রাখাইন প্রদেশে রোহিঙ্গারা নির্মম নির্যাতনের শিকার। অথচ অং সান সু চি রোহিঙ্গাদের দুর্দশা নিরসনে খুব কমই উদ্যোগ নিয়েছেন বলে তাঁর বিরুদ্ধে সমালোচনা রয়েছে। মানবাধিকারকর্মীদের অভিযোগ, সেখানকার সংঘাতের পর সেনাবাহিনীর নির্যাতনের শিকার হয়েছে জনগণ।
সেনাসদস্যদের বিরুদ্ধে ধর্ষণ, শহর লুটপাট ও বেসামরিক লোকদের বাড়িঘরে অগ্নিসংযোগের অভিযোগ উঠেছে। তবে সরকার এই অভিযোগ অস্বীকার করছে। রাখাইন প্রদেশের পুলিশপ্রধান কর্নেল সাইন লিউইন বলেন, তাঁরা রাখাইন আদিবাসী এবং অমুসলিম সংখ্যালঘুদের মধ্য থেকে আঞ্চলিক পুলিশ সংগ্রহ করছেন। ইন্টারন্যাশনাল কমিশন ফর জুরিস্টের এশিয়া অঞ্চলের পরিচালক স্যাম জারিফি বলেন, কোনো নির্দিষ্ট জনগোষ্ঠীকে প্রশিক্ষণহীন ও জবাবদিহিহীন অবস্থায় অস্ত্র দেওয়া ভয়াবহ ব্যাপার হবে। বিশেষ করে বর্তমান সমস্যার মধ্যে আরও আশঙ্কার কারণ।
রাখাইন প্রদেশের পার্লামেন্টের মন্ত্রী অং সান সু চির দলের নেতা মিন অং অবশ্য মনে করছেন, এই উদ্যোগে কোনো সমস্যা হবে না; বরং এর ফলে উগ্রবাদীদের হামলা থেকে স্থানীয়দের বাঁচানো সহজ হবে।

সুত্রঃ http://mybangla24.com/naya_diganta_bangla-newspaper.php

Mujaheed of Hind
11-06-2016, 02:39 PM
The only way of solution is Jihad...

Al-jihad
Al-jihad

আবুল ফিদা
11-06-2016, 08:44 PM
না মোগো গাড়ের উপর যে দিন আইসা কোপ দিবে সেদিন-ই জিহাদ ফরজ হবে, তাও সরকার বল্লে।।

Mullah Murhib
11-06-2016, 09:42 PM
না মোগো গাড়ের উপর যে দিন আইসা কোপ দিবে সেদিন-ই জিহাদ ফরজ হবে, তাও সরকার বল্লে।।

হা হা হা...আখি! হাসি চেপে রাখতে পারলাম না।...কমেন্টস বটে!

affansadi
11-09-2016, 12:26 AM
আহ
ওদের সরকার ওদের অস্র দিচ্ছে আর আমাদের সরকার আমাদের গরু আর সনদ দিচ্ছে। মসজিদে প্রতিদিন তাহাজ্জুদে দোয়া হচ্ছে , পানিও ঝরছে কিন্তু বলা হয় না اللهم انصرالمسلمىن. চিতকার দিয়ে কাদতে ইচ্ছে করে . তবুও কাদতে পারিনা। বয়ান গুলো এমন ভাবে হয় যেন এরাই তো যুগশ্রেষ্ঠ .
প্রথমে এভাবে মানুষ মারা জিহাদ নয়।এটা সন্ত্রাসী . এরা কাফেরদের দালাল . মন চাইলেই জিহাদ হয়না। আমির লাগে , মারকাজ লাগে . আবার শেষে বলে জিহাদ ছিলো আছে থাকবে . আসলে ব্রেন ওয়াস জংগিদের নয় কিছু আলেম ইমাম সাহেবের হয়ে গেছে।
اللىم انصرالمجاهدىن فى كل مكان

salahuddin aiubi
11-09-2016, 12:09 PM
পূর্বে ব্লগারগুলোর হত্যার সময় প্রায় সমস্ত জনগণের মৌন সমর্থন ছিল। আলেমদেরও অনেকে কিছুটাও হলেও সাপোর্ট করেছে, এমনকি পুলিশদেরও মৌন সমর্থন ছিল। এটাই প্রমাণ করে, কৌশলে কাজ করলে অনেক সমর্থন পাওয়া যাবে এবং এগিয়ে যাওয়া যাবে। তবে মিডিয়ার কাজ চতুর্মূখী হওয়া উচিত। অনেক লোক নিয়োগ করে বেশি পরিমাণে ছাপ্লাই দেওয়া এবং প্রতিটি কাজকে অধিক পরিমাণ জনগণের নিকট পৌঁছানোর মাধ্যমে সফল করে তোলা। এখন দেখা যায়, অনেক পরিশ্রমের একটি জিনিস যতসামান্য লোকের নিকট পৌঁছে। কিন্তু আমাদের উচিত, স্বল্প পরিমাণ জিনিস হলেও যেন অধিক থেকে অধিক পরিমাণ মানুষের নিকট পৌঁছাতে পারি। এমনকি একটা সফলভাবে পৌঁছানোর কার্যক্রম শেষ হলে আরেকটার কাজ ধরা। মিডিয়ায় আরও লোক থাকা দরকার। যারা বিভিন্ন তত্ত্ব উপাত্ত জমা করবে। যেমন মিডিয়াগুলোর মিথ্যাচার ও দাজ্জালী উম্মোচন করার জন্য তাদের প্রতিদিনের রিপোর্টগুলোর উপর প্রত্যহ নজর রাখবে, তারপর অডিও-ভিডিওর মাধ্যমে প্রমাণসহ সেগুলোর মিথ্যাচার উম্মোচন করে সেগুলোর গ্রহণযোগ্যতা কমিয়ে আনতে হবে। সরকারের সর্ব সাইডের জুলুম, দূর্ণীতি, দাজ্জালী, দালালী ও বৈষম্যগুলো পত্রিকা থেকে গুণে গুণে সংরক্ষণ করে রাখা।সর্ব সাইডের পাহাড় পরিমাণ জুলুম ও ষড়যন্ত্রগুলোকে একটি একটি করে ধরে স্পষ্ট করা। অডিও ভিডিওর মাধ্যমে। বর্তমান বনী ইসরাঈলী আলেমদের ন্যায়পরাণতাকে প্রশ্নবিদ্ধ করার মত হাজারো ঘটনা ও কথাবার্তাগুলো সংরক্ষণ করার জন্য লোক নিয়োগ দেওয়া, তারপর সেগুলোকে একটি একটি করে ধরে তাদের দূর্ণীতি, মিথ্যাচার, কাপুরুষতা, ঈমান বিক্রি, আদর্শচ্যুতি, স্বার্থপরতা, ধান্ধাবাজী, নীচুতা, লোভ, গোলামী ইত্যাদি একটি একটি করে প্রমাণ সহ তুলে ধরে তাদের গ্রহণযোগ্যতা একেবারে শেষ করে দেওয়া।এগুলো খুবই প্রয়োজন। আল্লাহ আমাদের তাওফীক দান করুন!

কি করবো ভাইয়েরা! আলেমদের দু:খজনক অবস্থা দেখে অনেক বেশি চিন্তিত হয়ে যাওয়ার কারণে এগুলো মাথায় আসলো, তাই লিখলাম। কতটুকু অর্থবহ তা আল্লাহই ভাল জানেন।