PDA

View Full Version : শাসকদেরকে যারা কাফের মনে করে না তাদের পিছনে নামাযের বিধান!!



Ahmad Al-hindi
03-28-2017, 11:20 PM
অনেকের প্রশ্ন:
যেসব আলেম বর্তমান তাগুত শাসকদেরকে কাফের মনে করে না তাদের পিছনে নামায হবে কিনা?


কারণ কাফেরকে যে কাফের মনে করে না সেও কাফের। যেমনটা শাইখুল ইসলাম মুহাম্মদ ইবনে আব্দুল ওয়াহহাব নজদী রহ. বলেছেন,
من لم يكفر المشركين أو شك في كفرهم أو صحح مذهبهم كفر إجماعا

যে কাফেরদেরকে কাফের মনে করে না, কিংবা তারা কাফের হওয়ার ব্যাপারে সন্দেহ করে, কিংবা তাদের ধর্মকে সঠিক বলে- সে সকলের ঐক্যমতে কাফের হয়ে যায়।


যেহেতু এসব আলেম শাসকরা কাফের হওয়ার পরও তাদেরকে কাফের মনে করে না, কাজেই উপরোক্ত মূলনীতি অনুযায়ী তারা কাফের হয়ে যাওয়ার কথা। আর কাফেরের পিছনে নামায হয় না।



উত্তর:
কাফেরকে কাফের মনে না করলে কাফের হয়ে যায় কথাটা ঢালাওভাবে প্রযোজ্য নয়। এখানে ঐসব কাফের উদ্দেশ্য যাদের কাফের হওয়ার কথা কুরআন হাদিসে সুস্পষ্ট উল্লেখ আছে। যেমন- ইয়াহুদ, নাসারা, মজূসইত্যাদী কাফের সম্প্রদায়। হিন্দু, বৌদ্ধ সহ অন্যান্য সুস্পষ্ট কাফের সম্প্রদায়ও এর অন্তর্ভুক্ত। তদ্রূপ যে ব্যক্তি সুস্পষ্টভাবে ইসলাম ত্যাগ করে এসব ধর্মের কোন একটাতে প্রবেশ করেছে সেও এর অন্তর্ভুক্ত। এদেরকে যে কাফের মনে না করবে, কিংবা তারা কাফের হওয়ার ব্যাপারে সন্দেহ করবে, কিংবা তাদের ধর্মকে সঠিক বলবে- সে কাফের। কারণ, কুরআনের অসংখ্য আয়াত এবং অসংখ্য হাদিস দ্বারা তাদের কাফের হওয়াটা সুস্পষ্ট এবং সন্দেহাতিতভাবে প্রমাণিত। এরা যে কাফের তা কারো নিকট অস্পষ্ট নয়। এদেরকে কাফের না মানার অর্থ অসংখ্য আয়াত ও হাদিসকে প্রত্যাখ্যান করা, যা সুস্পষ্ট কুফর।


পক্ষান্তরে যাদের কাফের হওয়াটা স্পষ্টভাবে উল্লেখ নেই, বরং তাতে সন্দেহ সংশয়ের অবকাশ রয়েছে; যারা গভীরভাবে তাহকীক করেছেন তাদের নিকট তাদের কুফরটা ধরা পড়েছে আর যারা গভীরভাবে তাহকীক করতে পারেনি কিংবা যাদের ইলমের স্বল্পতা রয়েছে তাদের নিকট ধরা পড়েনি- এসব কাফের এখানে উদ্দেশ্য নয়। যাদের নিকট এদের কুফরটা স্পষ্ট নয়, তারা এদেরকে কাফের মনে না করলে তারা কাফের হবে না। বর্তমান শাসকগোষ্ঠীর কুফরটা এই শ্রেণীভুক্ত।


শায়খ আব্দুল্লাহ ইবনে নাসের আর-রশীদ বলেন,
الثالث: أن يكون تكفيره محتملاً للشبهة، كالحكام الحاكمين بغير ما أنزل الله ونحوهم، فهؤلاء وإن كان كفرهم قطعيًّا عند من حقق المسألة، فإنَّ ورود الشبهة محتمل فلا يكفَّر من لم يكفِّرهم، إلاَّ إن أُقيمت عليه الحجة، وكٌشفت عنه الشبهة وأزيلت، وعرف أنَّ حكم الله فيهم هو تكفيرهم.

তৃতীয় প্রকার: তার তাকফীরের মাঝে সন্দেহ সংশয়ের অবকাশ থাকা। যেমন, আল্লাহ তাআলার নাযিলকৃত বিধান ব্যতীত ভিন্ন বিধান দিয়ে রাষ্ট্র পরিচালনাকারী শাসক ও এ জাতীয় ব্যক্তিরা। মুহাক্কিকদের নিকট এদের কুফরটা অকাট্য হলেও তাতে সন্দেহ সংশয়ের অবকাশ রয়েছে। কাজেই এদেরকে যারা কাফের মনে করে না তাদেরকে কাফের বলা হবে না; যতক্ষণ না তাদের উপর হুজ্জত কায়েম করা হয়, তাদের সংশয় দূর করা হয় এবং তারা বুঝতে পারে যে, এদেরকে তাকফীর করাই এদের ব্যাপারে আল্লাহ তাআলার ফায়সালা।
(শায়খ আবুল মুনযির আশ-শানকিত্বী প্রণীত শরহু কায়িদাতি- মান লাম ইউকাফফিরিল কাফিরা ফাহুয়া কাফির)



অতএব, যেসব আলেমের তাহকীকের অভাবে কিংবা ইলমের স্বল্পতার কারণে শাসকদের কুফরটা তাদের নিকট স্পষ্ট নয়, তাদেরকে এ কারণে কাফের বলার যাবে না। অন্যথায় অল্প কিছু মুজাহিদ এবং তাদের সমমনা ব্যক্তি ব্যতীত দুনিয়ার সকল মুসলমানকেই কাফের বলে দিতে হবে। কেননা, তারা ব্যতীত বাকিরা এদেরকে মুরতাদ মনে করে না।



নামাযের বিধান:
তারা যেহেতু কাফের নয় তাই তাদের পেছনে নামায পড়লে নামায হয় যাবে। বরং যদি সহীহ আকীদার ইমাম না পাওয়া যায় তাহলে এদের পেছনেই নামায আদায় করতে হবে। তবুও জামাআত ছাড়া যাবে না।
এ ব্যাপারে শায়খ আবু মুহাম্মদ আল-মাকদিসী হাফিজাহুল্লাহর একটি ফতোয়া উল্লেখ করছি।


শায়খ মাকদিসীর ফতোয়া:
الصلاة خلف من يدعو للحاكم المرتد

* * *
السلام عليكم ورحمة الله وبركاته.
الشيخ الفاضل:
ما حكم الصلاة - الجمعة وباقي الصلوات - وراء الأئمة الذين يدعون للحاكم المرتد؟ فإن الأقوال قد كثرت علي في هذا الباب، وأين أصلي إن كان هذا حال جميع أو معظم الأئمة والخطباء؟
وجزاكم الله خيرا.
* * *
الجواب:


بسم الله، والحمد لله، والصلاة والسلام على رسول الله.

الأخ الفاضل:
السلام عليكم.


لا ينبغي أن تترك صلاة الجماعة إلا خلف من تحقق عندك وقوعه بمكفر مخرج من الملة، أما ما هو دون ذلك من المعاصي والبدع أو المداهنات؛ فلا يجوز أن يكون مدعاة أو سببا لترك صلاة الجماعة.
ودعاء الخطيب للحاكم المرتد بالهداية أو بالتوفيق لتحكيم الكتاب والسنة أو لما يحبه الله و يرضاه أو لما فيه خير البلاد والعباد ونحو ذلك من الأدعية التي لا تندرج تحت نصرة الطاغوت أو نصرة قانونه الكفري أو مظاهرته على الموحدين؛ هذا كله وإن كان من البدع التي لم تكن في القرون المفضلة فقد عد العلماء الدعاء للسلطان المسلم المحكم لشرع الله على منبر الجمعة من البدع المحدثة؛ فكيف بغيرهم من الحكام الكفرة المرتدين؟!
إلا أن ذلك لا يمنع من صلاة الجماعة خلف أولئك الأئمة الذين يدعون به، ما دام لا يندرج تحت نصرة الطاغوت أو نصرة شركه - كما قدمنا - فلا ينبغي أن تكون مثل هذه البدع غير المكفرة ذريعة لترك صلاة الجماعة والتهاون بها.
اللهم إلا أن يثبت لديك بالدليل القاطع أن الإمام أو الخطيب من أولياء الطاغوت وأنصاره، فهذا لا تحل الصلاة خلفه لأنه ليس من المسلمين - لا أبرارهم ولا فجارهم - حتى تسوغ الصلاة خلفه، بمقولة أهل السنة في الصلاة خلف البر والفاجر.
...
والسلام.


মুরতাদ শাসকের জন্য যে দোয়া করে তার পেছনে নামাযের বিধান

* * *

আসসালামু আলাইকুম ওয়া রাহমাতুল্লাহি ওয়া বারাকাতুহ।
শ্রদ্ধেয় শায়খ,
যেসব ইমাম মুরতাদ শাসকের জন্য দোয়া করে তাদের পেছনে জুমআ ও অন্যান্য নামায আদায়ের বিধান কি? এ ব্যাপারে অনেক কথা বার্তা হচ্ছে। সব কিংবা অধিকাংশ ইমাম ও খতীবের অবস্থা যদি এমনই হয় তাহলে নামায কোথায় পড়ব??
জাযাকুমুল্লাহু খাইরান!
* * *

জওয়াব:
بسم الله، والحمد لله، والصلاة والسلام على رسول الله.

শ্রদ্ধেয় ভ্রাতা,
আসসালামু আলাইকুম!
যার ব্যাপারে তুমি নিশ্চিত যে, সে ইসলাম থেকে বের করে দেয় মতো কোন কুফরে লিপ্ত হয়েছে, সে ব্যতীত অন্য কারো পেছনে নামাযের জামাআত ছাড়া উচিৎ হবে না। কুফরে গড়ায়নি এমনসব গুনাহ, বিদআত বা শিথিলতার কারণে জামাআত ছাড়া জায়েয হবে না।


খতীব যদি মুরতাদ শাসকের হেদায়াতের জন্য কিংবা কিতাব সুন্নাহ মতে বা আল্লাহ তাআলার পছন্দ মতে বা দেশ ও জনগণের কল্যাণকর পন্থায় দেশ চালানোর তাওফীকের জন্য দোয়া করে কিংবা এ জাতীয় অন্য কোন দোয়া করে যা তাগুত বা তাগুতের কুফরী কানূনের নুসরত কিংবা ঈমানদারদের বিরুদ্ধে তাদেরকে সহায়তার দরজায় পড়ে না, তাহলে এসব বিষয় এইসব দোয়াকারী ইমামদের পেছনে জামাআতের সাথে নামায আদায়ের ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধক হবেনা। যতক্ষণ না তা তাগুত বা তাদের শিরকের নুসরতের দরজায় না গড়ায়; যেমনটা পূর্বে বলেছি। কাজেই এসব গাইরে মুকাফফির বিদআতকে জামাআত ছেড়ে দেয়া কিংবা তাতে অবহেলা করার ওসীলা বানানো উচিৎ হবে না।


তবে এসব দোয়া বিদআত যা শ্রেষ্ট যামানাগুলোতে অর্থাৎ সাহাবা ও তাবিঈনদের যামানায় ছিল না। কেননা, আল্লাহ তাআলার শরীয়ত অনুযায়ী রাষ্ট্র পরিচালনাকারী মুসলিম শাসকের জন্য জুমআর মিম্বরে দোয়া করাকেও ওলামায়ে কেরাম নব আবিষ্কৃত বিদআত আখ্যা দিয়েছেন। তাহলে কাফের ও মুরতাদ শাসকদের জন্য দোয়া করার অবস্থা কি হবে!!


তবে হ্যাঁ, তোমার নিকট অকাট্য দলীল দ্বারা যদি সাব্যস্ত হয় যে, ইমাম বা খতীব তাগুতের দোস্ত ও তাদের সহায়ক, তাহলে এর পেছনে নামায হবে না। কেননা, সে মুসলমান নয়। না নেককার মুসলমান, না বদকার মুসলমান যে, তার পেছনে নামায জায়েয হবে এই অজুহাতে যে, আহলে সুন্নাত নেককার বদকার সবার পেছনেই নামায পড়তে বলে।

ওয়াসসালাম!
(শায়খ মাকদিসী প্রণীত তুহফাতুল আবরার, পৃষ্ঠা ১৪৬-১৪৭)
* * *



উল্লেখিত ফতোয়া অনুযায়ী ফরীদ মাসউদদের মত দালালদের পেছনে নামায হবে কিনা তা প্রশ্ন হতে পারে। সাধারণ আলেম ওলামার পেছনে নামায পড়তে কোন অসুবিধে নেই। বরং সহীহ আকীদার ইমাম না পাওয়া গেলে এদের পেছনেই পড়তে হবে। তবুও জামাআত ছাড়া যাবে না। والله تعالى أعلم بالصواب

***



বিষয়টি বিস্তারিত আলোচনার দাবি রাখে। এখানে যতটুকু আলোচিত হয়েছে তাতে মূল বিষয়টা এসে গেছে। সামনে যদি কখনো সুযোগ হয় তাহলে বিস্তারিত আলোচনা করা হবে ইনশাআল্লাহ!



[বি.দ্র. আমার তাহকীকে মাসআলাটা এমনই ধরা পড়েছে। যদি কারো কাছে এর বিপরিত কোন দলীল বা গ্রহণযোগ্য কারো কোন ফতোয়া থাকে তাহলে জানালে উপকার হবে।]

Abu Osama
03-28-2017, 11:59 PM
আল্লাহ্ আপনাকে উত্তম প্রতিদান দান করুন,,,,। ইয়া আখী।

ibn jiad
03-29-2017, 12:00 AM
জাযাকাল্লাহ !!

Tahmid
03-29-2017, 07:47 AM
জাযাকাল্লাহ ভাই ।

Tahmid
03-29-2017, 08:01 AM
অনেকে এমন আছে যে , তাদের কুফুর সুস্পষ্ট স্বীকারও করে তারপরেও তাদের কে কাফের বলেনা চাকরি চলে যাবে , বা পুলিশের ভয়ে বলে না । তাদের ব্যাপারে কি করার ?

Zubaer Mahmud
03-29-2017, 08:10 AM
জাযাকাল্লাহ অাখি

উমাইর
03-29-2017, 10:12 AM
ফরীদ উদ্দিন মাসউদকে কি কাফের বলা যাবে।

s_forayeji
03-29-2017, 10:41 AM
বাইতুল মুকাররম এর খতিব এর বেপারে? যে স্পস্ট তাগুতের বন্দনা কারী, তাগুতের আদেশের আজ্ঞাবাহী, তাগুতের সন্তুষ্টির আশাকারী -

ভোটার আইডি হচ্ছে এমন একটি উপাদান যা তাগুত কে শক্তিশালী করে এবং গনতন্ত্র নামক শির্ক এর প্রচারের একটি উপাদান। যদি কোন ইমাম ভোটার আইডি কার্ড এর ব্যাপারে তাগুতের প্রজ্ঞাপন জুমুয়া উপস্থিত মুসল্লির সামনে সবার সামনে বলতে থাকে, সেটা হচ্ছে সবার সামনে শির্কের প্রচার - এমন ব্যাপার গুলো ও যদি পরিষ্কার করে দিতেন -

জানালে ভালো হতো