PDA

View Full Version : ব্রেকিং || কাশ্মিরে আনসারু গাযওয়াতুল হিন্দ নামে নতুন জিহাদি গ্রুপ প্রতিষ্ঠার ঘোষণা।



HIND_AQSA
07-27-2017, 03:35 AM
http://i.cubeupload.com/gRhCOa.jpg

কাশ্মিরে "আনসারু গাযওয়াতুল হিন্দ" নামে নতুন জিহাদি গ্রুপ প্রতিষ্ঠার ঘোষণা।

আল হামদু লিল্লাহ, ওয়াসসালাতু ওয়াসসালামু আলা রাসুলিল্লাহ, ওয়া আলা আলিহি ওয়া সাহবিহি আম্মা বাদ
মর্দে মুজাহিদ বুরহান ওয়ানি রহঃ এর শাহাদাতের পর কাশ্মিরের জিহাদ জাগরণের এক নতুন যুগে প্রবেশ করেছে। এবং কাশ্মিরি মুসলমানরা জিহাদের পতাকা মজবুতভাবে আঁকড়ে ধরেছেন। এবং দৃঢ় অঙ্গিকার করেছেন দখলদার হিন্দু আর্মির জুলুম ও অত্যাচারের জবাব শুধুমাত্র বন্দুক দ্বারা-ই দেওয়া হবে।
এবং জিহাদের পথকে আপন করে নিয়ে আল্লাহ সাহায্যে কাশ্মিরকে আযাদ করা হবে।
সেই মাকসাদ অর্জনের জন্য শহীদ বুরহান ওয়ানি রহঃ এর সাবেক সাথীগন তাঁর শাহাদাতের পর কমান্ডার জাকির মুসা হাফিজাহুল্লাহর নেতৃত্বে এক নতুন জিহাদি গ্রুপ "আনসারু গাযওয়াতুল হিন্দ" প্রতিষ্ঠার এলান করছেন।
এবং আনসারু গাযওয়াতুল হিন্দ" এর অফিসিয়াল মিডিয়ার নাম "আলহুর" রাখা হয়েছে। যার অর্থ হচ্ছে স্বাধীনতা। নিচের লোগো টা হচ্ছে তাঁর মনোগ্রাম।
সামনে এই মিডিয়া থেকেই আমাদের প্রকাশনাসমুহ রিলিজ হবে। এবং খুব দ্রুত এই মিডিয়া থেকে একটি বার্তা প্রকাশ করা হবে, যাতে আমাদের জামাআত/গ্রুপ সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা থাকবে। ইনশা আল্লাহ।

ওয়াখিরু দাওয়ানা আনিল হামদু লিল্লাহি রাব্বিল আলামিন।
জুলাই, ২০১৭ ইংরেজি।

বার্তা লিংক-
http://i.cubeupload.com/341VTz.jpg
http://i.cubeupload.com/Ludahj.jpg

http://i.cubeupload.com/Ludahj.jpg

http://i.cubeupload.com/341VTz.jpg

Musafir
07-27-2017, 05:11 AM
আলহামদুলিল্লাহ।

Allah Viru
07-27-2017, 06:36 AM
আলহামদুলিল্লাহ্*

রক্ত ভেজা পথ
07-27-2017, 06:47 AM
আলহামদুলিল্লাহ।

Taalibul ilm
07-27-2017, 07:04 AM
আল্লাহু আকবার!!

আল্লাহু আকবার!!!

lion of the desert
07-27-2017, 12:24 PM
আলহামদুলিল্লাহ।।

কালো পতাকা
07-28-2017, 11:15 PM
মহান আল্লাহ তায়ালা্ কুরআনের সুরা আনফালের ৬০ নম্বর আয়াতে বলেন,”
وَأَعِدُّوا لَهُم مَّا اسْتَطَعْتُم مِّن قُوَّةٍ وَمِن رِّبَاطِ الْخَيْلِ تُرْهِبُونَ بِهِ عَدُوَّ اللَّهِ وَعَدُوَّكُمْ وَآخَرِينَ مِن دُونِهِمْ لَا تَعْلَمُونَهُمُ اللَّهُ يَعْلَمُهُمْ ۚ وَمَا تُنفِقُوا مِن شَيْءٍ فِي سَبِيلِ اللَّهِ يُوَفَّ إِلَيْكُمْ وَأَنتُمْ لَا تُظْلَمُونَ [
আর তোমরা তাদের বিরুদ্ধে প্রস্তুত রাখবে যা-কিছুতে তোমরা সমর্থ হও -- শৌর্য-বীর্যে ও হৃস্পুষ্ট ঘোড়াগুলোয়, -- তার দ্বারা ভীত-সন্ত্রস্ত রাখবে আল্লাহ্*র শত্রুদের তথা তোমাদের শত্রুদের, আর তাদের ছাড়া অন্যদেরও, তাদের তোমরা জানো না, আল্লাহ্ তাদের জানেন। আর যা-কিছু তোমরা আল্লাহ্*র পথে ব্যয় করবে তা তোমাদের পুরোপুরি প্রতিদান দেওয়া হবে, আর তোমরা অত্যাচারিত হবে না।"
ভাই কাশ্মির এর খবর আরো বেশী বেশী দেন
জায়াকাল্লাহু খাইরান

Shirajoddola
07-29-2017, 12:25 AM
alhamdulillah

কালো পতাকা
07-29-2017, 01:55 PM
কাশ্মিরের খবর গুলো দেখে গাজওয়া হিন্দের হাদীস / শাহ্ নেয়ামতুল্লাহ (রহ.) ভবিষ্যদ্বাণী/ কথা মনে পড়ে যাচ্ছে
হাদিস শরীফে বর্ণিত “গাজওয়াতুল হিন্দ” সম্পর্কে আসা ৫ টি হাদিসই বর্ণনা করছি।
(১) হযরত আবু হুরায়রা (রাঃ) এর প্রথম হাদিস

আবু হুরায়রা (রাঃ) কর্তৃক বর্ণিত, তিনি বলেনঃ
“আল্লাহর রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আমাদের থেকে হিন্দুস্থানের সঙ্গে যুদ্ধ করার প্রতিশ্রুতি নিয়েছেন। কাজেই আমি যদি সেই যুদ্ধের নাগাল পেয়ে যাই, তাহলে আমি তাতে আমার জীবন ও সমস্ত সম্পদ ব্যয় করে ফেলব। যদি নিহত হই, তাহলে আমি শ্রেষ্ঠ শহীদদের অন্তর্ভুক্ত হব। আর যদি ফিরে আসি, তাহলে আমি জাহান্নাম থেকে মুক্তিপ্রাপ্ত আবু হুরায়রা হয়ে যাব”।
(সুনানে নাসায়ী, খণ্ড ৬, পৃষ্ঠা ৪২)

(২) হযরত সা্ওবান (রাঃ) এর হাদিস
নবীজি সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের আজাদকৃত গোলাম হযরত সা্ওবান (রাঃ) বর্ণনা করেন,
আল্লাহর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন,
“আমার উম্মতের দুটি দল এমন আছে, আল্লাহ যাদেরকে জাহান্নাম থেকে নিরাপদ করে দিয়েছেন। একটি হল তারা, যারা হিন্দুস্তানের সাথে যুদ্ধ করবে, আরেক দল তারা যারা ঈসা ইবনে মারিয়ামের সঙ্গী হবে’।
(সুনানে নাসায়ী, খণ্ড ৬, পৃষ্ঠা ৪২)

(৩) হযরত আবু হুরায়রা (রাঃ) এর দ্বিতীয়
হাদিস
হযরত আবু হুরায়রা (রাঃ) কর্তৃক বর্ণিত হযরত মুহাম্মদ (সাঃ) হিন্দুস্তানের কথা উল্লেখ করেছেন এবং বলেছেন,
“অবশ্যই আমাদের একটি দল হিন্দুস্তানের সাথে যুদ্ধ করবে, আল্লাহ্ সেই দলের যোদ্ধাদের সফলতা দান করবেন, আর তারা রাজাদের শিকল/ বেড়ি দিয়ে টেনে আনবে । এবং আল্লাহ্ সেই যোদ্ধাদের ক্ষমা করে দিবেন (এই বরকতময় যুদ্ধের দরুন)। এবং সে মুসলিমেরা ফিরে আসবে তারা ঈসা ইবনে মারিয়াম (আঃ) কে শাম দেশে (বর্তমান
সিরিয়ায়) পাবে”।
হযরত আবু হুরায়রা (রাঃ) বলেন,
“আমি যদি সেই গাযওয়া পেতাম, তাহলে আমার সকল নতুন ও পুরাতন সামগ্রী বিক্রি করে দিতাম এবং এতে অংশগ্রহণ করতাম । যখন আল্লাহ্ আমাদের সফলতা দান করতেন এবং আমরা ফিরতাম, তখন আমি একজন মুক্ত আবু হুরায়রা হতাম; যে কিনা সিরিয়ায় হযরত ঈসা (আঃ) কে পাবার গর্ব নিয়ে ফিরত । ও মুহাম্মাদ (সাঃ) ! সেটা আমার গভীর ইচ্ছা যে আমি ঈসা (আঃ) এর এত নিকটবর্তী হতে পারতাম, আমি তাকে বলতে পারতাম যে আমি মুহাম্মাদ (সাঃ) এর একজন সাহাবী”।
বর্ণনাকারী বলেন যে হযরত মুহাম্মাদ (সাঃ) মুচকি হাসলেন এবং বললেনঃ ‘খুব কঠিন, খুব কঠিন’।
(আল ফিতান, খণ্ড ১, পৃষ্ঠা ৪০৯)

(৪) হযরত কা’ব (রাঃ) এর হাদিস
এটা হযরত কা’ব (রাঃ) কর্তৃক বর্ণিত হাদিসে মুহাম্মাদ (সাঃ) বলেনঃ
“জেরুসালেমের (বাই’ত-উল-মুক্বাদ্দাস) [বর্তমান ফিলিস্তিন] একজন রাজা তার একটি সৈন্যদল হিন্দুস্তানের দিকে পাঠাবেন, যোদ্ধারা হিন্দের ভূমি ধ্বংস করে দিবে, এর
অর্থ-ভান্ডার ভোগদখল করবে, তারপর রাজা এসব ধনদৌলত দিয়ে জেরুসালেম সজ্জিত করবে, দলটি হিন্দের রাজাদের জেরুসালেমের রাজার দরবারে উপস্থিত করবে, তার সৈন্যসামন্ত তার নির্দেশে পূর্ব থেকে পাশ্চাত্য পর্যন্ত সকল এলাকা বিজয় করবে, এবং হিন্দুস্তানে ততক্ষণ অবস্থান করবে যতক্ষন না দাজ্জালের ঘটনাটি ঘটে”।

(ইমাম বুখারী (রঃ) এর উস্তায নাঈম বিন হাম্মাদ (রঃ) এই হাদিসটি বর্ণনা করেন তার ‘আল ফিতান’ গ্রন্থে । এতে, সেই উধৃতিকারীর নাম উল্লেখ নাই যে কা’ব (রাঃ) থেকে হাদিসটি বর্ণনা করেছে)

(৫) হযরত সাফওয়ান বিন উমরু (রাঃ)
তিনি বলেন কিছু লোক তাকে বলেছেন যে রাসুল (সাঃ) বলেছেনঃ
“আমার উম্মাহর একদল লোক হিন্দুস্তানের সাথে যুদ্ধ করবে, আল্লাহ্ তাদের সফলতা দান করবেন, এমনকি তারা হিন্দুস্তানের রাজাদেরকে শিকলবদ্ধ অবস্থায় পাবে। আল্লাহ্ সেই যোদ্ধাদের ক্ষমা করে দিবেন। যখন তারা সিরিয়া ফিরে যাবে, তখন তারা ঈসা ইবনে মারিয়ামকে (আঃ) এর সাক্ষাত লাভ করবে”।
(আল ফিতান, খণ্ড ১, পৃষ্ঠা ৪১০)

শাহ্ নেয়ামতুল্লাহ (রহ.) ভবিষ্যদ্বাণী
কাসিদাটি পিডিএফ আকারে পড়ুন ও ডাউনলোড করুন এখান থেকে
https://ia601309.us.archive.org/30/i...128/Kasida.pdf
বইটি থেকে শিক্ষনীয় যেই বিষটি তা হলো—
,শাহ্ নেয়ামতুল্লাহ (রহ.) ভবিষ্যদ্বাণী অনুযায়ী শেখ হাসিনা দিল্লির সাথে বাংলাদেশ বিক্রির চুক্তি করল চুক্তি করল ৮ এপ্রিল এর পর কাশ্মিরে বিজয়ের ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে ইনশাল্লাহ
হিন্দস্তানের যুদ্ধের পুর্বে মুসলিমরা সর্বপ্রথম ভারতের কাছ থেকে একটি এলাকা দখল করে নেবে। এটা হচ্ছে পাকিস্তান সিমান্তলঘ্ন পান্জাব ও জম্মু কাশ্মির এলাকাটা। কারন হল পাকিস্তান সরকার লস্করে তইয়েবা সহ বেশ কিছু জিহাদি গ্রুপকে প্রষিহ্মন দিচ্ছে জম্মু কাশ্মির কে ভারতের দখল থেকে মুক্ত করার জন্য। একই সাথে কাশ্মিরের স্থানীয় মুজাহিদ, আল কায়দা ,তালেবান সহ অার অনেক জিহাদি গ্রুপ ব্যপক অাকারে প্রস্তুতুতি নেওয়া শুরু করেছে। 38 ও 39 নং লাইনে বলা হয়েছে , মুসলিমরা যখন কাশ্মির দখল নেবে এর পরই হিন্দুরা মুসলিমদের একটি এলাকা দখলে নেবে। এবং সেখানে ব্যাপক হত্যা ধংসযগ্য চালাবে। মুসলমানদের ধনস্পদ ভারত সরকার লুটপাটের মাদ্ধমে নিয়ে নেবে মুসলিমদের ঘরে ঘরে কারবালার ন্যায় রুপধারন করবে কিন্তু অাপনি কি জানেন? মুসলিমদের যে দেশটা ভারত সরকার দখলে নিয়ে এ ধরনের হত্যা ধংসযগ্য চালাবে সেটা কোন দেশ? হা সেটা অাপনার প্রিয় মাতৃভূমি বাংলাদেশ। ব্যাপারটা স্পষ্ট ক্লিয়ার করা হয়েছে 40 ও 41 নং লাইনে মুসলিমদের দেশটা ভারত সরকার দখলে নেওয়ার কারন হল মুসলিমদের শাসক এমন একজন ব্যাক্তি হবেন যে নামধারী মসলমান হবে, কিন্তু গোপনে গোপনে হিন্দুবান্ধব হবে। মুসলিমদের ধংস করার জন্য ভারত সরকাররের সাথে গোপনে পাপ চুক্তি করবে। ইসলাম ধংসকারি এই শাসককে চিনার উপাই হল তার নামের প্রথম অহ্মর হবে (শ ) এবং শেষের অহ্মর হবে (ন ) এবার বলুন এই শাসক কি অামাদের দেশের প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা নয়? তার সাথে কি উপরের সমস্ত অালামত কি মিলে যাচ্ছে না? হা 100% মিলে যাচ্ছে। অার এসব ঘটনা ঘটবে দুই ইদের মাঝে। যেটা হতে পারে অাগামি ইদ থেকে দুই তিন বছরের মদ্ধে।এটাই রাসুলুল্লাহ সা. এর ভবিষতবানী 58 লাইনের এই কবিতাটি ফার্সি ভাষায় 1158 সালে লেখা হয়েছিল