PDA

View Full Version : উম্মাহ ও মুজাহিদিন নিউজ- রবিবার, ১ আগষ্ট ২০১৭ ইংরেজি, ১৭ শ্রাবণ ১৪২৪ বাংলা, ০৭ জিলকদ ১৪৩৮ হিজরি



HIND_AQSA
08-02-2017, 06:18 AM
উম্মাহ ও মুজাহিদিন নিউজ- রবিবার, ১ আগষ্ট ২০১৭ ইংরেজি, ১৭ শ্রাবণ ১৪২৪ বাংলা, ০৭ জিলকদ ১৪৩৮ হিজরি

ইরাক

আমেরিকা নেতৃত্বাধীন জোটের মসুল দখল! মুসলমানের মানবাধিকার থাকতে নেই!


ইরাক ইরান এবং আমেরিকা নেতৃত্বাধীন অান্তর্জাতিক জোটের মদতপ্রাপ্ত ইরাকের শিয়া মিলিশিয়া বাহিনী কর্তৃক মসুলের মুসলিমদের উপর চালানো বর্বরতার নমুনা.

হাতুরি দিয়ে আঘাত করছে এক নিরীহ মুসলিম বন্দিকে!

http://gazwah.net/wp-content/uploads/2017/07/vlcsnap-2017-07-31-21h37m37s053.png

http://gazwah.net/wp-content/uploads/2017/07/vlcsnap-2017-07-31-21h37m40s495.png

http://gazwah.net/wp-content/uploads/2017/07/vlcsnap-2017-07-31-21h38m15s870.png

http://gazwah.net/wp-content/uploads/2017/07/vlcsnap-2017-07-31-21h38m48s646.png

এটা মানবাধিকার লঙ্গন নয়! এটা মানবতা বিরুধি অপরাধ নয়! কারণ আইএস নিধনের নামে সব কিছুই বৈধ করে দিয়েছি আমরা! তাছাড়া মানবাধিকার তো পশ্চিমা গোষ্ঠী ও তাদের সমমনাদের জন্য বরাদ্ধ!

হায়রে ইসলাম! হায়রে মুসলিম!

HIND_AQSA
08-02-2017, 06:53 AM
বাংলাদেশ
১৮ বছরের নিচে বিয়ে নিষিদ্ধের উদ্দেশ্য কি? সরকারী লাইসেন্সধারী এক লক্ষ পতিতাসহ পাঁচ লক্ষ পতিতার তিন লক্ষাধিক ই হচ্ছে ১৮ বছরের নিচে।

সরকারী সহায়তায় সমাজের রন্ধ্রে রন্ধ্রে অশ্লীলতা ও নষ্টামি ছড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে। একদিকে সরকার ১৮ বছরের নিচে বিয়ে নিষিদ্ধ করছে, অপরদিকে পতিতাবৃত্তিসহ নানা অশ্লীলতায় আর্থিক ও নানাবিধ সহায়তা করছে, ফলে সমাজে ধ্বংসের অতল গহ্বরে চলে যাওয়ার উপক্রম হয়েছে।

বাংলাদেশে পতিতাদের সংগঠনগুলোই বলছে-
বাংলাদেশে ১৮ বছরের নিচে পতিতাদের সংখ্যা ৬৪%
এবং তারা আরো জানাচ্ছে,
৯০% পতিতা তাদের দেহব্যবসা শুরু করে শিশু বয়স থেকেই।
(সূত্র : http://bit.ly/2vdLMmq)

এবার আসুন-
বাংলাদেশে মোট পতিতার সংখ্যা কত ?
একটি সূত্র (http://bit.ly/2v9B0hC) জানাচ্ছে-
সরকার কর্তৃক লাইসেন্স দেওয়া পতিতা সংখ্যা ১ লক্ষ
এবং সব মিলিয়ে পতিতা সংখ্যা ৫ লক্ষ ।

সে হিসেবে ১৮ বছর নিচে-
মোট পতিতার সংখ্যা ৩ লক্ষ ২০ হাজার,
এবং মোট পতিতার ৪ লক্ষ ৫০ হাজার,
যারা ১৮ বছরের নিচেই দেহব্যবসা শুরু করে।

কিন্তু কার আস্কারায় শিশুরা এই পতিতাবৃত্তিতে এত ব্যাপক হারে প্রবেশ করছে ?
এ সম্পর্কে, এনজিও লাইট হাউস কনসোর্টিয়াম-এর বিশেষজ্ঞ সৈয়দ তাপস বলে, পূর্বের তুলনায় অল্পবয়সী মেয়েদের এ পেশায় জড়িয়ে পড়তে দেখা যাচ্ছে বেশি। তিনি বলেন, আইনে অপ্রাপ্ত বয়স্কদের পতিতাবৃত্তি করা নিষিদ্ধ হলেও আইনের রক্ষকরাই এর অপব্যবহার করছেন। (http://bit.ly/2eZVtyE)

এ সম্পর্কে গত ২০১৫ সালের ২রা নভেম্বর তারিখে দৈনিক প্রথম আলোতে একটি খবর আসে। খবরের শিরোনাম- যৌনকর্মী তৈরি করে পুলিশ, আমরা না
বিস্তারিত
যশোর প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে এক যৌনকর্মী বলে-
আমাদের কাছে নতুন কোনো মেয়ে এলে, তাকে প্রথমে যশোর কোতোয়ালি থানার সদর ফাঁড়িতে নিতে হয়। তারা রাখার অনুমতি দিলেই আমরা তাকে রাখতে পারি। এ জন্য পুলিশকে ৫০-৬০ হাজার টাকা দিতে হয়। এ ছাড়া প্রত্যেককে মাসে ২০-৩০ হাজার টাকা করে পুলিশকে দিতে হয়। তাই যৌনকর্মী তৈরি করে পুলিশ, আমরা না। আর এ নিয়ে কিছু বলতে গেলেই আমরা মামলার আসামি হই। (http://bit.ly/2uQ3Fp2)

আসুন, এবার একটু সমীরকণ মেলাই-
১) ১৮ বছরের নিচে বিয়েতে বাধা
২) বিয়েতে বাধাগ্রস্ত দরিদ্র সমাজের নারীরা জড়াচ্ছে পতিতাবৃত্তিতে।
৩) পুলিশ-প্রশাসন লাভবান হচ্ছে। নারী মাংশের স্বাদ আর কাচা টাকা দুটোই কামাচ্ছে।

সমাজব্যবস্থা একটি চক্র ।
এর একটি বাধাগ্রস্ত হলে, অপর অংশে তার প্রভাব পড়ে।
পূর্বের তুলনায় অল্পবয়সী মেয়েরা পতিতা পেশায় আসছে বেশি বিশেষজ্ঞ সৈয়দ তাপস এই বক্তব্য বলে দিচ্ছে-
বাল্যবিবাহ বন্ধ করায় অল্পবয়সী মেয়েদের মধ্যে পতিতাবৃত্তি বাড়ছে।
উপরদিয়ে জনগণ দেখছে, প্রশাসন ১৮ বছরের নিচের মেয়ের বিয়ে বাধা দিচ্ছে,
কিন্তু ভেতর দিয়ে ঐ প্রশাসনের লোকজনই ১৮ বছরের নিচের মেয়ের দেহ ভোগ করছে, সাথে কামাচ্ছে টাকা।
লাভ ছাড়া, কে কার কাজ করে বলুন?

হে উম্মাহ! ডাস্টবিনে ছুড়ে ফেলুন এই সমাজ ব্যবস্থাকে! জিহাদ ও কিতালের মাধ্যমে ইসলামী শরিয়াহ প্রতিষ্ঠার জন্য মুজাহিদদের সহায়তা করুন! অন্যথায় আপনাদের জন্য একটি করুন সময় অপেক্ষা করছে।

HIND_AQSA
08-02-2017, 07:06 AM
বাংলাদেশ

বাংলাদেশের আইনে ১৪ বছর বয়সে নারী-পুরুষের যৌন কার্যকলাপ বৈধ হলেও ১৮ বছরের নিচে বিয়ে করা নিষিদ্ধ!

http://gazwah.net/wp-content/uploads/2017/07/20479674_413153729086296_1740212740372365884_n.jpg

Age of consent বাংলায় অনুবাদ করলে হয় সম্মতির বয়স। Age of consent এর ব্যবহারিক অর্থ যে নূন্যতম বয়সে একজন নাগরিকের নিজ ইচ্ছায় যৌন কার্যকলাপে অংশগ্রহণ করাকে রাষ্ট্র বৈধ বলে গণ্য করে।
বাংলাদেশের আইন অনুসারে একজন নাগরিকের (পুরুষ অথবা নারী) Age of consent হচ্ছে ১৪ বছর। অর্থাৎ বাংলাদেশের আইন অনুসারে একজন পুরুষ অথবা নারী ১৪ বছর বয়সে নিজ ইচ্ছায় যে কোন ধরনের যৌন কার্যকলাপে অংশ নিলে রাষ্ট্র তাকে বৈধ বলে গন্য করবে।
বিভিন্ন দেশের Age of consent বিভিন্ন রকম। যেমন: অস্ট্রিয়াতে ১৪, জার্মানিতে ১৪, কিউবাতে ১৬, ইতালিতে ১৪, জাপানে ১৩, ফিলিপাইনে ১২ । অবশ্য বিভিন্ন ইসলামী রাষ্ট্রগুলোতে (যেমন : সৌদি আরব, মালদ্বীপ, কুয়েত, ইরান, ওমান, পাকিস্তান) Age of consent এর জন্য বয়স নির্ধারণ করা হয় নাই, বিয়েকে আবশ্যক শর্ত হিসেবে গণ্য করা হয়েছে। রাষ্ট্রধর্ম ইসলামের দেশে বাংলাদেশ তার ব্যতিক্রম। বাংলাদেশে বিয়ে নয়, ১৪ বছর বয়সকে Age of consent ধরা হয়েছে।
(বিস্তারিত: https://www.ageofconsent.net/world)

তবে আরো কঠিন বিষয় হচ্ছে, বাংলাদেশে Age of consent ১৪ হলেও, বিয়ের আইনত বৈধ বয়স করা হয়েছে নারীর ক্ষেত্রে ১৮, পুরুষের ক্ষেত্রে ২১ বছর বয়সকে। অর্থাৎ একজন নারী-পুরুষ ১৪ বছর বয়সে নিজ সম্মতিতে বিপরীত লিঙ্গের সাথে শারীরিকভাবে মিলিত হলে বাংলাদেশের আইন তাকে বৈধ হিসেবে স্বীকৃতি দিবে, কিন্তু ১৮ বছরের নিচে কোন নারী কিংবা ২১ বছরের নিচে কোন পুরুষ বৈধভাবে বিয়ে করলে রাষ্ট্র তাকে অবৈধ বলবে এবং দণ্ড প্রদান করবে।

বিষয়টা গিয়ে দাড়ায় আজকে যারা ১৮/২১ বছরের নিচে বিয়ে করতে আগ্রহী,
বাংলাদেশের গণতান্ত্রিক আইনে লিভ-টুগেদার আইনত বৈধ কিন্তু ভুলেও কবুল বলে বিয়ে করা যাবে না, তাহলে কিন্তু পুলিশ ধরে নিয়ে যাবে।

হে পাঠক! আপনার কি মনে হয়, ইসলামী শাসন প্রতিষ্ঠা ছাড়া এই সমাজকে শুদ্ধ করা সম্ভব? নিশ্চই কস্মিনকালে নয়! তাহলে আসুন বদলে দিতে হবে এই সমাজ ব্যবস্থাকে!

HIND_AQSA
08-02-2017, 07:13 AM
মরক্কো সফরে সৌদি বাদশাহর প্রতিদিনের খরচ ৩ লাখ ডলারঃ অপরদিকে শুধুমাত্র ইয়েমেনেই কলেরায় আক্রান্তের সংখ্যা ৬০০,০০০ পৌঁছানোর আশঙ্কা।

মরক্কোয় সৌদি বাদশাহর প্রতিদিনের খরচ ৩ লাখ ডলার। অপরদিকে ইয়েমেন, সোমালিয়া, মালি ও আফ্রিকার বেশ কিছু অঞ্চলে ভয়াবহ দুর্ভিক্ষ ও কলেরায় আক্রান্ত মুসলমানের সংখ্যা কি পরিমান তারও কোন পরিসংখ্যান নেই। শুধুমাত্র ইয়েমেনেই কলেরায় আক্রান্তের সংখ্যা ৬০০,০০০ পৌঁছাতে পারে যা অাগের সংখ্যার দ্বিগুণ।

অপরদিকে ইরাক ও সিরিয়া সহ মুসলিম বিশ্বের অনেক অঞ্চল যুদ্ধবিগ্রহে পুরোপুরি ধ্বসে গিয়েছে। সৌদি রাজ পরিবারের একটি কানাকড়িও তাদের জন্য বরাদ্ধ নেই। আর আমেরিকা-ইসরাইল কে নানাভাবে সহায়তা করছে এই শাসকগোষ্ঠী!

http://gazwah.net/wp-content/uploads/2017/07/20246490_249292248915566_6443571241806776161_n.jpg

সম্প্রতি বার্ষিক ছুটি কাটাতে মরক্কোর তানজা শহরে দিন কাটছে সৌদি বাদশাহ সালমান বিন আবদুল আজিজের। তাঁর সঙ্গে আছেন রাজপরিবারের সদস্য, আমির-ওমরাহ ও উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা। মাসব্যাপী এই অবকাশ যাপনে বাদশাহর প্রতিনিধিদলের হোটেল কক্ষ ও গাড়িভাড়া বাবদ প্রতিদিন খরচ হচ্ছে ৩ লাখ ১২ হাজার মার্কিন ডলার। মরক্কোর একটি পত্রিকায় প্রকাশিত খবরে এ তথ্য জানা যায়।

আল আখবার নামের ওই দৈনিক পত্রিকায় প্রকাশিত খবরে জানানো হয়, তানজা শহরের আসকার সৈকতে নিজের মালিকানাধীন প্রাসাদে থাকছে বাদশাহ সালমান। তাঁর সঙ্গে আসা সফরসঙ্গীদের জন্য বরাদ্দ করা হয়েছে তানজা শহরের পাঁচটি হোটেলের মোট ৮০০টি কক্ষ। প্রতি রাতের জন্য এসব কক্ষের গড় ভাড়া ৩০০ মার্কিন ডলার। ৮০০ কক্ষের জন্য প্রতি রাতে ব্যয় হচ্ছে ২ লাখ ৪০ হাজার মার্কিন ডলার।

এ ছাড়া বাদশাহর সফরসঙ্গীদের ঘোরাফেরার জন্য ভাড়ায় নেওয়া হয়েছে ১৭০টি দামি গাড়ি। প্রতিটি গাড়ি বাবদ প্রতিদিন গুনতে হচ্ছে ৪২৩ ডলার করে। ফলে প্রতিদিনের মোট গাড়িভাড়া ৭২ হাজার মার্কিন ডলার।

প্রকাশিত খবরের তথ্যমতে, কেবল গাড়ি ও হোটেলের কক্ষ বাবদ সৌদি বাদশাহর সফরসঙ্গীদের প্রতিদিন খরচ ৩ লাখ ১২ হাজার মার্কিন ডলার। ফলে এক মাসে এই দুটি খাতে তাঁদের মোট খরচ ৯৩ লাখ ৬০ হাজার মার্কিন ডলার। এর বাইরে নিরাপত্তা, খাবারদাবার, কেনাকাটা, সেবক-সেবিকাসহ অন্যান্য খরচ তো রয়েছেই।

২৪ জুলাই সৌদি বাদশাহ তানজা শহরে পৌঁছান। কয়েক বছর ধরে তিনি বার্ষিক অবকাশ যাপনের জন্য এই শহরকে বেছে নিচ্ছেন। মরক্কোয় প্রাকৃতিক ঐশ্বর্য আর সাগরতীরের সৌন্দর্যে চমৎকার আবহাওয়ার শহর তানজা পর্যটকদের কাছে আকর্ষণীয় স্থান।

হে উম্মাহ! এরা উম্মাহর খাদেম নয়, উম্মাহর শত্রুদের খাদেম! এদের চিনে রাখুন!

http://gazwah.net/wp-content/uploads/2017/07/20257980_249292398915551_4331653531539682731_n.jpg

http://gazwah.net/wp-content/uploads/2017/07/20265073_249292328915558_3674002555412141497_n.jpg

HIND_AQSA
08-02-2017, 07:35 AM
সিরিয়া

পশ্চিম কালামুনে বন্দিচুক্তির মাধ্যমে ৫ মুসলিমকে মুক্ত করেছে তাহরির শাম।

http://gazwah.net/wp-content/uploads/2017/07/photo5186135206074099663.jpg

পশ্চিম কালামুনে শিয়া সংগঠন হিজবুল্লাহর সাথে এক বন্দি বিনিময়ের মাধ্যমে ৮ জন মুসলমানকে মুক্ত করেছে তাহরির আশ শা, যাদের মাঝে অনেক শহীদ পরিবারের সদস্যরাও রয়েছেন।

শিয়া হিজবুল্লাহর সাথে ৫ বন্দির বিনিময়ে ৮ জনকে মুক্ত করেন যোদ্ধারা। উল্লেখ্য শামের জনপ্রিয় এই সংগঠনটি মুসলমানদের রক্ষা ও শরিয়াহ শাসন প্রতিষ্ঠায় লড়াই করে আসছেন।

http://gazwah.net/wp-content/uploads/2017/07/photo5186135206074099662.jpg

HIND_AQSA
08-02-2017, 07:39 AM
সিরিয়া

সিরিয়ার বিভিন্ন এলাকায় তাহরির আশ শামের জনসেবামূলক কাজ।

সিরিয়ার বিভিন্ন এলাকায় নানাবিধ জনসেবামূলক কাজ করে যাচ্ছেন তাহরির আশ শামের অনুগত কর্মীরা। বিদ্যুৎ মেরামত, রাস্তাঘাট নির্মাণ সহ নানাবিধ কাজ আঞ্জাম দিচ্ছেন তারা।

সিরিয়ার জনপ্রিয় জিহাদি গ্রুপ তাহরির আশ শামের স্বেচ্ছাসেবীরা রাত দিন এক করে সিরিয়াকে নতুনভাবে নির্মাণের কাজ করে যাচ্ছেন। জনগণের জীবনযাত্রাকে সহজ করতে চেষ্টার কোন ত্রুটি করছেন না তারা।

নিন্দুকদের নিন্দা গায়ে না মেখে জনগণের জন্য কাজ করে যাচ্ছেন মুজাহিদিন ও গেরিলা যোদ্ধারা। যারা বলে জঙ্গিরা রাষ্ট্র চালাবে কিভাবে তারা দেখে নিক!

http://gazwah.net/wp-content/uploads/2017/07/photo4900075390429669313.jpg

http://gazwah.net/wp-content/uploads/2017/07/photo4900075390429669314.jpg

http://gazwah.net/wp-content/uploads/2017/07/photo4900075390429669315.jpg

http://gazwah.net/wp-content/uploads/2017/07/photo4900075390429669316.jpg

HIND_AQSA
08-02-2017, 07:45 AM
http://gazwah.net/wp-content/uploads/2017/07/photo5186053966767695865.jpg

http://gazwah.net/wp-content/uploads/2017/07/photo5186135206074099664.jpg

http://gazwah.net/wp-content/uploads/2017/07/photo5186135206074099665.jpg

HIND_AQSA
08-02-2017, 07:50 AM
সিরিয়া

সিরিয়ার শিশু কিশোরদের জন্য কুরআন শিক্ষার ব্যবস্থা করেছেন তাহরির আশ শাম।

সিরিয়ার বিভিন্ন এলাকায় শিশু কিশোরদের জন্য কুরআন শিক্ষার ব্যবস্থা করেছেন তাহরির আশ শাম। যুদ্ধ বিধ্বস্ত সিরিয়ার শিশুকিশোরদের শিক্ষা দিক্ষায় যাতে ব্যাঘাত না ঘটে, সেদিকে নজর রাখছেন তারা। দক্ষিন ইদলিবের হাইশ এলাকা থেকে কিছু ছবি

http://gazwah.net/wp-content/uploads/2017/07/photo4900075390429669311.jpg

http://gazwah.net/wp-content/uploads/2017/07/photo4900075390429669312.jpg

HIND_AQSA
08-02-2017, 07:58 AM
ইয়েমেন

বায়দা প্রদেশে আল কায়েদার একাধিক অপারেশন, কমান্ডার সহ অনেক হুথি সেনা হতাহত।

গত সোমবার দুপুর ১২:৩০ টার দিকে ইয়েমেনের বায়দা প্রদেশের আল্মালাহ এলাকায় আল কায়েদা শাখা আনসার আশ শরিয়াহর স্নাইপার যোদ্ধারা এক হুথি সেনাকে হত্যা করেছেন।

অপরদিকে একই প্রদেশের কাসারাহ নামক এলাকায় রাত ১০:৩০ টা বাজে হুথিদের একটি টিমের উপর অতর্কিত হামলা চালিয়ে একটি ট্যাংক ধ্বংস করেছেন তাঁরা। ট্যাঙ্কে অবস্থানরত সকল সেনাকে হত্যা করেছেন।

অপরদিকে খিরকা এলাকায় দুপুর ১১ টা বাকে অতর্কিত হামলা চালিয়ে দুই হুথি সেনাকে হত্যা করেছেন আল কায়েদার যোদ্ধারা। এবং তাদের অস্ত্রসমূহ গনিমত হিসেবে নিয়ে নিয়েছেন তাঁরা।

এদিকে বিলাদুজ জাহর এলাকায় হুথিদের একটি আক্রমন প্রতিহত করেছে যোদ্ধারা। দুপুর ১২:০০ থেকে অর্ধ রাত অবধি লড়াই চলমান থাকে, এতে হুথিদের কমান্ডার নিহত হয়। এবং বেশ কিছু সেনা হতাহত হয়। অতঃপর হুথিরা পলায়ন করে বলে জানা যায়।

http://gazwah.net/wp-content/uploads/2017/07/photo6012673143606454589.jpg

HIND_AQSA
08-02-2017, 08:01 AM
আফগানিস্তান

নাওয়া জেলায় তালেবান গেরিলাদের হামলায় অন্তত ২০০ আফগান সেনা নিহত।

http://gazwah.net/wp-content/uploads/2017/07/photo6050961939531672213.jpg

আফগানিস্তানের হেলমান্দ প্রদেশে বিশ্বের জনপ্রিয় গেরিলা ও স্বাধীনতাকামী জিহাদি সংগঠন তালেবান যোদ্ধাদের হেলমান্দ প্রদেশের নাওয়া জেলায় পরিচালিত অপারেনে অন্তত ২০০ আফগান সেনা নিহত হয়েছে বলে জানা গেছে।

অবশিষ্ট সেনারা ময়দান ছেড়ে পলায়ন করেছে।

কালো পতাকা
08-02-2017, 11:07 AM
জাযাকাল্লাহু খাইরান(আল্লাহ তায়ালা আপনাকে উওম প্রতিদান করুক)

"কেউ হেদায়েতের দিকে আহ্বান করলে যতজন তার অনুসরণ করবে প্রত্যেকের সমান সওয়াবের অধিকারী সে হবে, তবে যারা অনুসরন করেছে তাদের সওয়াবের কোন কমতি হবে না।" [সহিহ মুসলিমঃ ২৬৭৮]

Mullah Murhib
08-02-2017, 10:07 PM
বাংলাদেশ
১৮ বছরের নিচে বিয়ে নিষিদ্ধের উদ্দেশ্য কি? সরকারী লাইসেন্সধারী এক লক্ষ পতিতাসহ পাঁচ লক্ষ পতিতার তিন লক্ষাধিক ই হচ্ছে ১৮ বছরের নিচে।

সরকারী সহায়তায় সমাজের রন্ধ্রে রন্ধ্রে অশ্লীলতা ও নষ্টামি ছড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে। একদিকে সরকার ১৮ বছরের নিচে বিয়ে নিষিদ্ধ করছে, অপরদিকে পতিতাবৃত্তিসহ নানা অশ্লীলতায় আর্থিক ও নানাবিধ সহায়তা করছে, ফলে সমাজে ধ্বংসের অতল গহ্বরে চলে যাওয়ার উপক্রম হয়েছে।

বাংলাদেশে পতিতাদের সংগঠনগুলোই বলছে-
বাংলাদেশে ১৮ বছরের নিচে পতিতাদের সংখ্যা ৬৪%
এবং তারা আরো জানাচ্ছে,
৯০% পতিতা তাদের দেহব্যবসা শুরু করে শিশু বয়স থেকেই।
(সূত্র : http://bit.ly/2vdLMmq)

এবার আসুন-
বাংলাদেশে মোট পতিতার সংখ্যা কত ?
একটি সূত্র (http://bit.ly/2v9B0hC) জানাচ্ছে-
সরকার কর্তৃক লাইসেন্স দেওয়া পতিতা সংখ্যা ১ লক্ষ
এবং সব মিলিয়ে পতিতা সংখ্যা ৫ লক্ষ ।

সে হিসেবে ১৮ বছর নিচে-
মোট পতিতার সংখ্যা ৩ লক্ষ ২০ হাজার,
এবং মোট পতিতার ৪ লক্ষ ৫০ হাজার,
যারা ১৮ বছরের নিচেই দেহব্যবসা শুরু করে।

কিন্তু কার আস্কারায় শিশুরা এই পতিতাবৃত্তিতে এত ব্যাপক হারে প্রবেশ করছে ?
এ সম্পর্কে, এনজিও লাইট হাউস কনসোর্টিয়াম-এর বিশেষজ্ঞ সৈয়দ তাপস বলে, পূর্বের তুলনায় অল্পবয়সী মেয়েদের এ পেশায় জড়িয়ে পড়তে দেখা যাচ্ছে বেশি। তিনি বলেন, আইনে অপ্রাপ্ত বয়স্কদের পতিতাবৃত্তি করা নিষিদ্ধ হলেও আইনের রক্ষকরাই এর অপব্যবহার করছেন। (http://bit.ly/2eZVtyE)

এ সম্পর্কে গত ২০১৫ সালের ২রা নভেম্বর তারিখে দৈনিক প্রথম আলোতে একটি খবর আসে। খবরের শিরোনাম- যৌনকর্মী তৈরি করে পুলিশ, আমরা না
বিস্তারিত
যশোর প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে এক যৌনকর্মী বলে-
আমাদের কাছে নতুন কোনো মেয়ে এলে, তাকে প্রথমে যশোর কোতোয়ালি থানার সদর ফাঁড়িতে নিতে হয়। তারা রাখার অনুমতি দিলেই আমরা তাকে রাখতে পারি। এ জন্য পুলিশকে ৫০-৬০ হাজার টাকা দিতে হয়। এ ছাড়া প্রত্যেককে মাসে ২০-৩০ হাজার টাকা করে পুলিশকে দিতে হয়। তাই যৌনকর্মী তৈরি করে পুলিশ, আমরা না। আর এ নিয়ে কিছু বলতে গেলেই আমরা মামলার আসামি হই। (http://bit.ly/2uQ3Fp2)

আসুন, এবার একটু সমীরকণ মেলাই-
১) ১৮ বছরের নিচে বিয়েতে বাধা
২) বিয়েতে বাধাগ্রস্ত দরিদ্র সমাজের নারীরা জড়াচ্ছে পতিতাবৃত্তিতে।
৩) পুলিশ-প্রশাসন লাভবান হচ্ছে। নারী মাংশের স্বাদ আর কাচা টাকা দুটোই কামাচ্ছে।

সমাজব্যবস্থা একটি চক্র ।
এর একটি বাধাগ্রস্ত হলে, অপর অংশে তার প্রভাব পড়ে।
পূর্বের তুলনায় অল্পবয়সী মেয়েরা পতিতা পেশায় আসছে বেশি বিশেষজ্ঞ সৈয়দ তাপস এই বক্তব্য বলে দিচ্ছে-
বাল্যবিবাহ বন্ধ করায় অল্পবয়সী মেয়েদের মধ্যে পতিতাবৃত্তি বাড়ছে।
উপরদিয়ে জনগণ দেখছে, প্রশাসন ১৮ বছরের নিচের মেয়ের বিয়ে বাধা দিচ্ছে,
কিন্তু ভেতর দিয়ে ঐ প্রশাসনের লোকজনই ১৮ বছরের নিচের মেয়ের দেহ ভোগ করছে, সাথে কামাচ্ছে টাকা।
লাভ ছাড়া, কে কার কাজ করে বলুন?

হে উম্মাহ! ডাস্টবিনে ছুড়ে ফেলুন এই সমাজ ব্যবস্থাকে! জিহাদ ও কিতালের মাধ্যমে ইসলামী শরিয়াহ প্রতিষ্ঠার জন্য মুজাহিদদের সহায়তা করুন! অন্যথায় আপনাদের জন্য একটি করুন সময় অপেক্ষা করছে।


যারা বৈধ বিবাহ ব্যবস্থা ভেঙ্গে দিয়ে সমাজে অশ্লীলতা ছড়ানোর অপপ্রয়াস চালিয়ে যাচ্ছে; এ ধরনের বিকৃতমনা কীটদের চাপাতির আওতায় আনা হোক! এমন দু'একটাকে চাপাতির ঘ্রাণ শুঁকাতে পারলে,বাকীদের জন্য বিবাহ ভেঙ্গে দেওয়ার স্বাদ মিটে যাবে।