PDA

View Full Version : ব্রেকিং || শাইখ সামী আল উরাইদি সহ আল কায়েদা সংশ্লিষ্ট চার নেতৃত্বকে গ্রেফতার করেছে তাহরির আশ শাম!



umar mukhtar
11-28-2017, 09:03 PM
শাইখ সামী আল উরাইদি ও শাইখ আবু জুলাইবিব আল উরদুনি সহ আল কায়েদা সংশ্লিষ্ট চার নেতৃত্বকে গ্রেফতার করেছে তাহরির আশ শাম!

http://i.cubeupload.com/31lRFq.jpg

গতকাল সিরিয়ার ইদলিব থেকে শামের জিহাদিদের সবচে’ বড় জোট হাইয়াত তাহরির আশ শামের স্থানীয় নিরাপত্তা বাহিনী আল কায়েদা সংশ্লিষ্ট চার শাইখ ও নেতৃত্বকে গ্রেফতার করেছে বলে জানা গেছে। সুত্র জানায় তাহরির আশ শামের নিরাপত্তা বাহিনী গ্রেফতারকৃত নেতৃত্বদের বাড়িঘরসহ সিরিয়ায় অবস্থানরত শাইখ আবু মুসআব যারকাবির নায়েব বা ডেপুটি শাইখ আবুল কাসসাম উরদুনির বাসাও তসনস করে দিয়েছে। যদিও টুইটার ও টেলিগ্রাম ব্যবহারকারীদের অনেকে শাইখ কাসসামকে গ্রেফতারীর নিউজ জানাচ্ছিল, কিন্তু সর্বশেষ জানা গেছে শাইখ আবুল কাসসাম নিরাপদে আছেন। গ্রেফতারকৃতদের মাঝে আরও রয়েছেন শাইখ আবু হুমাম আস সুরি ও শাইখ আব্দুল করিম আল মিসরি। তাহরির আশ শাম এক বিবৃতিতে গ্রেফতারকৃতদের ফিতনা ও ফাসাদের মুল আখ্যায়িত করে তাঁদের তাহরির এর শরিয়াহ আদালতে পেশ করা হবে জানিয়েছে।

(উল্লেখ শাইখ সামি আল উরাইদি হচ্ছেন জাবহাতুন নুসরাহ সাবেক প্রধান শরিয়াহ বিশেষজ্ঞ ও মুফতি, ১৯৭৩ সালে জর্ডানের আম্মানে জন্মগ্রহণকারী এই আলেম ২০০১ সালে জামেয়া জর্ডান থেকে হাদিস এর উপর পড়াশোনা করেন এবং হাদিসের উপর পিএইচডি করেন একই প্রতিষ্ঠান থেকে। তিনি আন নুসরাহ ফ্রন্টের ২য় প্রধান নেতৃত্ব ছিলেন। তিনি প্রখ্যাত সিরিয়ান জিহাদি সমরকৌশলবিদ শাইখ আবু মুসআব দ্বারা খুবই অনুপ্রাণিত ছিলেন। আফগানিস্তানে আল কায়েদার প্রখ্যাত জিহাদি সমরকৌশলবিদদের সাথে থেকে তিনি জিহাদ করেছিলেন, অতঃপর আল কায়েদার হয়ে ইরাকে লড়াই করেন এবং জাবহাতুন নুসরাহর প্রধান ছয় প্রতিষ্ঠাতাদের একজনও তিনি । তাঁর দক্ষতা ও মেহনতের ফলে আন নুসরাহ সিরিয়াতে শক্ত অবস্থান করে নিতে সহায়ক হয়েছে বলে বিশেষজ্ঞদের ধারনা। তিনি জিহাদ ও মুজাহিদদের নিয়ে অনেক গুরুত্বপূর্ণ কিতাবাদি লিখেছেন। আধুনিক জিহাদের কর্মকৌশল নিয়ে তাঁর কিতাব ও ভিডিও মজলিসগুলো বিশ্বব্যাপী জিহাদিদের মাঝে প্রভাব ফেলেছিল। আল কায়েদা প্রধান ডক্টর আইমান আয যাওয়াহিরি তাঁর লিখিত “ফিতনার যুগে মুজাহিদদের প্রতি নসিহত” নামক একটি বইতে ভুমিকাও লিখেছেন।
শাইখ আবু জুলাইবিব হলেন জাবহাতুন নুসরাহ প্রতিষ্ঠাতাদের মধ্যে অন্যতম একজন। তিনি ইরাকি আল কায়েদার একজন গুরুত্বপূর্ণ নেতৃত্ব ছিলেন। এবং তিনি সিরিয়ার দার’আ প্রদেশের জাবহাতুন নুসরাহর সামরিক প্রধানও ছিলেন, কিন্তু তাহরির আশ শাম গঠন হওয়ার আগে এক ইস্যুতে তাঁকে পদ থেকে বরখাস্ত করা হয়েছিল)

উল্লেখ্য সিরিয়ার অন্যতম শক্তিশালী জোট ছিল আল কায়েদার অঙ্গসংগঠন জাবহাতুন নুসরাহ। জানা যায় ২০১৬ সালে আল কায়েদা নেতৃবৃন্দের অনুমতি ছাড়াই নুসরাহ আল কায়েদা ত্যাগ করে। কিন্তু আল কায়েদা সিরিয়ার জিহাদকে রক্ষার স্বার্থে বিষয়টি নিয়ে চুপ থাকে।
এদিকে কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ ও সিরিয়ায় অবস্থানরত আল কায়েদা সংশ্লিষ্ট শাইখদের সাথে পরামর্শ ছাড়াই তাহরির আশ শাম গঠন করা হয়। এরপর শাইখ সামি আল উরাইদি, শাইখ আবু জুলাইবিব সহ অনেক নেতৃবৃন্দ তাহরির আশ শাম ছেড়ে বেড়িয়ে যান।
বেশ কয়েক মাস ধরেই শামে অবস্থিত শায়খ সামি আল উরাইদির মতো আল কায়েদা সংশ্লিষ্ট নেতৃবৃন্দ ও উমারাহ এবং তাহরির আশ শামের নেতৃবৃন্দের মাঝে বিবাদ স্পষ্ট হয়ে উঠে। এবং এর জের ধরেই শাইখ সামি আল উরাইদি সহ অনেককে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে ধারনা।

শাইখ যাওয়াহিরি সাম্প্রতিক এক বার্তায় বলেছেন-
“কিছু লোক চিৎকার করে বলে, আমাদের উপর আমেরিকাকে চাপিয়ে দিবেন না! কেমন যেন তারা অজ্ঞ যে পাঁচ দশকের অধিক সময় ধরে আমেরিকা আমাদের উপর চেপে বসে আছে, আমাদের উপর হিংস্রতা চালিয়ে যাচ্ছে। আমেরিকার পূর্বে ব্রিটিশরা, ফ্রান্সিসরা ও রুশরা উসমানী সাম্রাজ্যের উত্তরাধিকারকে পরস্পর বণ্টন করে নিয়েছে। কেন ব্রিটিশরা জাবালে তারেক থেকে ভারত উপমহাদেশ পর্যন্ত ইসলামের ভূমিগুলোর উপর দখলদারিত্ব কায়েম করেছিল? কেন রুশরা মুসলমানদের কাফকাজ ও মধ্য এশিয়াকে ধ্বংস করে দিয়েছিল? কেন চীন পূর্ব তুর্কিস্তানের মুসলমানদের উপর দখলদারিত্ব কায়েম করেছে? কেন ফ্রান্সিসরা শাম ও মাগরিবুল ইসলাম (মরক্কো ও আফ্রিকান আরও কিছু মুসলিম ভুমি) এর উপর দখলদারিত্ব চালিয়েছিল? কেন আমেরিকা ইসরাইলকে পরিপূর্ণ সমর্থন ও সাহায্য করছে যে, ইসরাইল ইসলামী বিশ্বের মধ্যভাগে জগদ্দল পাথরের ন্যায় চেপে বসে আছে এবং সেখানের খনিজ সম্পদকে লুণ্ঠন করছে?
তাহলে আল কায়েদা কি তাদের উপর চেপে বসেছিল? আল কায়েদা কি তাদেরকে প্ররোচিত করেছিল? তাদেরকে কি ভয় দেখিয়েছিল??
শামে (সিরিয়াতে) কারা তাদের ইতর লোকজন বরং সৈন্যদের দ্বারা বাড়িঘর ধ্বংস করেছে, বোমা বর্ষণ করেছে, হত্যাকাণ্ড চালিয়েছে এবং যুদ্ধ করেছে? কারা সেখানে নোংরা বিভাজনের খেলা খেলেছে? কারা মুজাহিদদের উত্তম লোকদের উপর বোমা করেছে? আল কায়েদা-ই কি সেখানে আমেরিকাকে চেপে ধরেছে? টেনে এনেছে?
আল্লাহ তায়ালার দয়া ও অনুগ্রহে আল কায়েদা-ই শামে আমাদের অধিবাসীদের জিহাদের প্রথম দিন থেকেই সমর্থন করেছে, রিবাত ও জিহাদের শামে প্রত্যেক মুজাহিদের জন্য তাঁরা তাদের হাতকে প্রশস্ত করেছেন, তাঁদের বক্ষকে উন্মুক্ত করে দিয়েছেন!”

ধারণা করা হয়, হাকিমুল উম্মাহ শাইখ ডঃ আইমান আয-যাওয়াহিরির হাফিযাহুল্লাহ’র এ কথাগুলো তাহরির আশ-শামকে ইঙ্গিত করেই বলা।
শাইখের এই বার্তার প্রেক্ষিতে একদিকে তাহরির আশ শামের শরিয়াহ বোর্ডের সদস্য আবু আব্দুল্লাহ আশ শামীসহ অন্যান্যরা এবং অন্য দিকে শাইখ ডঃ সামি আল উরাইদি, শাইখ আবু জুলাইবাব সহ অন্যান্য বক্তব্য –পাল্টা বক্তব্য দেয়া শুরু করলে বিরোধটা সামনে চলে আসে। এই বিরোধের সুত্র ধরেই তাঁরা গ্রেফতার হয়েছেন বলে জানা যাচ্ছে। তবে এরও অনেক আগে প্রায় এক বছর পূর্বে, বৈশ্বিক জিহাদিদের আধ্যাত্মিক নেতৃত্ব শাইখ আবু মুহাম্মাদ আল-মাক্বদিসি সর্বপ্রথম জনসম্মুখে বলেন – আন-নুসরার, জাবহাতু ফাতহিশ শামে পরিণত হবার সিদ্ধান্ত হাকিমুল উম্মাহ শায়খ ডঃ সমর্থিত ছিলো না।
জানা যায় কিছুদিন পূর্বে তাহরির আশ শাম ও আল কায়েদা সংশ্লিষ্ট নেতৃবৃন্দকে লক্ষ্য করে শাইখ আবু কাতাদাহ ও শাইখ মাকদিসির নেতৃত্বে উলামাদের একটি বোর্ড সন্ধির আহবান জানিয়েছিল, তবে তাহরির কৌশলে পাশ কাটিয়ে যায় বলে অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে।
উল্লেখ্য তাহরির এর অনেক নেতৃবৃন্দসহ সিরিয়া ও সিরিয়ার বাহিরের অসংখ্য উলামা, উমারাহ ও জিহাদি নেতৃত্ব নিঃশর্তে গ্রেফতারকৃত শাইখদের মুক্ত করে দিতে আহবান জানিয়েছেন এবং তাহরিরকে উম্মাহর আলেমদের কাছে আসার আহবান করেছেন, যাদের মাঝে তাহরির অনেক সামরিক, প্রশাসনিক ও শরিয়াহ বিভাগের সদস্যও রয়েছেন। তাঁরা এই কাজটিকে খুবই বাড়াবাড়ি হিসেবে বিবেচনা করছেন।


সংবাদ সংশ্লিষ্ট ছবি-
http://i.cubeupload.com/EzqF78.jpg

http://i.cubeupload.com/3r3Brl.jpg

http://i.cubeupload.com/GoqURE.jpg

bokhtiar
11-28-2017, 09:24 PM
সবাইকি আর তালিবান হতে পারবে!?

ইলম ও জিহাদ
11-29-2017, 01:17 AM
সংবাদটি কোত্থেকে পেয়েছেন? সংবাদটির সত্যতার ব্যাপারে যথেষ্ট সন্দেহ হচ্ছে। বানোয়াট বানোয়াট মনে হচ্ছে। তাই সংবাদটির মূল লিংকটি দেয়ার আহ্বান জানাচ্ছি। মডারেটর ভাইরাসহ অন্যান্য ভাইদের আবেদন জানাচ্ছি: সংবাদটির সত্য-মিথ্যা নির্ণয়ের জন্য। হাইয়াতু তাহরীরিশ শামের বদনাম করার জন্য কেউ সংবাদটাকে বানিয়ে চিনিয়ে পেশ করেছে কি’না দেখার আবেদন জানাচ্ছি।

umar mukhtar
11-29-2017, 05:20 AM
সংবাদটি কোত্থেকে পেয়েছেন? সংবাদটির সত্যতার ব্যাপারে যথেষ্ট সন্দেহ হচ্ছে। বানোয়াট বানোয়াট মনে হচ্ছে। তাই সংবাদটির মূল লিংকটি দেয়ার আহ্বান জানাচ্ছি। মডারেটর ভাইরাসহ অন্যান্য ভাইদের আবেদন জানাচ্ছি: সংবাদটির সত্য-মিথ্যা নির্ণয়ের জন্য। হাইয়াতু তাহরীরিশ শামের বদনাম করার জন্য কেউ সংবাদটাকে বানিয়ে চিনিয়ে পেশ করেছে কি’না দেখার আবেদন জানাচ্ছি।

সম্মানিত ভাই! সংবাদটি সত্য, নিম্নে কিছু প্রমাণ পেশ করেছি-
http://i.cubeupload.com/LMTtdA.jpg
http://i.cubeupload.com/bOqHXq.jpg
http://i.cubeupload.com/2kFeUZ.jpg
http://i.cubeupload.com/7pOPtB.jpg
http://i.cubeupload.com/SvPWgC.jpg
http://i.cubeupload.com/Qo42Qm.jpg
http://i.cubeupload.com/ZTOgq8.jpg
http://i.cubeupload.com/S8uDok.jpg
http://i.cubeupload.com/XcD1T2.jpg

উল্লেখ্য অসংখ্য প্রমাণ থেকে খুবই স্বল্প দিলাম এখানে। জাঝাকাল্লাহ খাইরান।

umar mukhtar
11-29-2017, 05:22 AM
টেলিগ্রামের নিচের দুটি চ্যানেলে জয়েন করলে বিষয়টা আরও পরিস্কার হতে পারে ভাইয়েরা!

https://t.me/gareb_Alzarqa
https://t.me/chnegg

Anas ab
11-29-2017, 08:43 AM
বুঝে আসছে না। কি হলো??

Shirajoddola
11-29-2017, 09:27 AM
মোডারেট ভাইগন বিষয়টি যাচাইকরে আপনাদের মূল্যাবন দিকনির্দেশনা দিবেন ইনশআল্লাহ, আল্লাহ সকল মুজাহিদ নেতৃবৃন্ধকে হিফাজত করুন, আমিন।
আল্লাহ সকল মুজাহিদের মাঝে ঐক করে দিন, ফিতনাবাজদের সু-পথ দান করুন, আমিন। জারা জিহাদ ও মুজাহিদীনের মাঝে ফিতনা সৃষ্টি করতে চায় হেদায়তে পথ বন্ধ থাকলে আল্লাহ তাদের সরিয়ে দিন। আমিন।

Abu Hamjah
11-29-2017, 09:36 AM
شكرا جزاك الله خير

আবুল ফিদা
11-29-2017, 11:51 AM
ঘটনাটি পুরোপুরি সত্য, এই ব্যাপারে কোন সন্দেহ নেই,তবে অতি নিকটেই কোন একটা কিছু হবে, হয়ত নতুন কোন ফেতনার দুঃসংবাদ শুনতে পাব আর নয় কোন সুরাহা, তবে আমরা সুরাহা চাই। আল্লাহ তা‘আলা সকলকে মৃত্যু পর্যন্ত হক্বের উপর থাকার তাওফিক দান করুক, আমিন! যত দিন তাহরির আল-কায়দার সাথে ছিলো, ততদিন তারা কোন মুজাহিদের উপর তরবারি উত্তলন করেননি, কিন্তু যখনই আল-কায়দা ত্যাগ করলো, সাথে সাথেই সংঘর্ষে লিপ্ত হলো বেশ কিছু তানজিমের সাথে, সর্বশেষ যা ঘটলো হারকাতু নুরুদ্দীন জিংকী এর সাথে, এই সংঘর্ষের সুরাহা পুরোপুরি ভাবে হতে না হতেই, এখন সরাসরি আল-কায়দার সাথেই সংঘর্ষে লিপ্ত হয়ে যাওয়ার দারপ্রান্তে উপনিত হয়েছে, তবে উতিহাস শাক্ষী আল-কায়দা হলো সেই দল যে দলের বিরুদ্ধে যে হাতটিই এসেছে তাদের করুন পরিণতি ভোগ করতে হয়েছে, হোক সে কুফফারদের মধ্য থেকে কিংবা মুসলিমদের মধ্য থেকে, যার জলন্ত প্রমাণ আপনাদের বলার প্রযোজন মনে করছিনা,আর যতদিন আল-কায়দার সাথে ছিলো ততদিন পর্জন্ত তারা কালো পতাকার ছায়া তলে ছিলো, কিন্তু আল-কায়দা থেকে বের হয়েই সাথে সাথে কালো পতাকার ছায়া তলে বের হয়ে গেলো,সত্যিকার খোরাসানের কালো পতাকাবাহী দলকে ভালোভাবে চিনে রাখুন, যারা এখনো খুরাসান থেকে আলমী জিহাদের নেতৃত্ব দিচ্ছেন।

salahuddin aiubi
11-29-2017, 12:30 PM
মুসলিম জাতির সবচেয়ে আশা ভরসার কেন্দ্র ছিল সিরিয়া, যদিও মায়ানমার সহ বিভিন্ন দেশে প্রতিরোধ ছাড়া মার খাচ্ছে। কিন্তু সিরিয়ায় কি হচ্ছে!! কি হবে?!!! মুক্তি আর কত বিলম্বিত হবে!!! আল্লাহ ই ভাল জানেন।
হে আল্লাহ হকপন্থী আলেমদেরকে ও আপনার মুখলিস বান্দাদেরকে সাহায্য করুন!!

নাঙ্গা তলোয়ার
11-29-2017, 12:37 PM
হে আল্লাহ !! এই চোখকে কল্যানকর কিছু দেখার জন্যই কবুল করো ৷

আল জিহাদ
11-29-2017, 01:05 PM
সম্ভবত নতুন কিছু ঘটনা হতে দেখতে পাব।

ইলম ও জিহাদ
11-29-2017, 01:08 PM
যতটুকু জানি, আলকায়েদার সাথে পরামর্শ সাপেক্ষেই হাইয়াতুত তাহরীর আলকায়েদা থেকে আলাদা হয়েছে। এ ব্যাপারে আইমান আয-যাওয়াহিরি হাফিজাহুল্লাহর একটি বয়ান শুনেছি বলেও মনে হচ্ছে। যদি তাই হয়, তাহলে এখন নতুন করে আলকায়েদার সাথে বিরোধ হবে কেন? আর আইমান আয-যাওয়াহিরি হাফিজাহুল্লাহ সহ আলকায়েদার কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ যদি তা সমর্থন করে থাকেন, তাহলে আলকায়েদার অন্যান্য মাশায়েখ এর বিরোধিতাই বা করবেন কেন? তাই ভাইদের কাছে আবেদন জানাচ্ছি ঘটনাটি তলিয়ে দেখার জন্য। যেমন-
- মাশায়েখদেরকে গ্রেফতারীর মূল কারণ কি?
- গ্রেফতার কারা করেছে? হাইয়াতুত তাহরীরের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের অনুমতিতে হয়েছে, নাকি নেতৃবৃন্দের অনুমতি ছাড়াই কিছু অবুঝ মুজাহিদ তা করে ফেলেছে?
- গ্রেফতারীর পর হাইয়াতুত তাহরীরের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ কি প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন?
- আলকায়েদার কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ কি কোন প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন?

বিষয়টি তলিয়ে দেখতে বলছি, কারণ- হাইতুত তাহরীর থেকে এমন আচরণ হওয়ার কথা না। বিশিষ্ট আলেম উলামা ও বড় বড় মুত্তাকি পরহেযগার নেতৃবৃন্দ নিয়ে হাইয়াত গঠিত। তাই এমনটা তাদের থেকে হওয়ার কথা না। তারা একটা হক দল বলেই পরিচিত। তাই বিষয়টা তলিয়ে দেখে পরিষ্কার করার জন্য ভাইদের আবেদন জানাচ্ছি।

আবুল ফিদা
11-29-2017, 01:39 PM
যতটুকু জানি, আলকায়েদার সাথে পরামর্শ সাপেক্ষেই হাইয়াতুত তাহরীর আলকায়েদা থেকে আলাদা হয়েছে। এ ব্যাপারে আইমান আয-যাওয়াহিরি হাফিজাহুল্লাহর একটি বয়ান শুনেছি বলেও মনে হচ্ছে। যদি তাই হয়, তাহলে এখন নতুন করে আলকায়েদার সাথে বিরোধ হবে কেন? আর আইমান আয-যাওয়াহিরি হাফিজাহুল্লাহ সহ আলকায়েদার কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ যদি তা সমর্থন করে থাকেন, তাহলে আলকায়েদার অন্যান্য মাশায়েখ এর বিরোধিতাই বা করবেন কেন?

শাইখ!
আলকায়েদার সাথে পরামর্শ সাপেক্ষেই হাইয়াতুত তাহরীর আলকায়েদা থেকে আলাদা হয়েছে।
এই তথ্যটি মুলত ভুল ছিলো, এই কথাটি প্রচার করেছে তাহরিরের ভাইরাই, কিন্তু বাস্তবতা ছিলো ভিন্ন, আসলে তখন শাইখ আইমান আম বার্তায় এই ব্যাপারে চুপ চিলেন, কোন ফেৎনার আশংকা করে,
এ ব্যাপারে আইমান আয-যাওয়াহিরি হাফিজাহুল্লাহর একটি বয়ান শুনেছি বলেও মনে হচ্ছে।
শাইখ! বয়ানটি আমাকে দেওয়া যাবে? আমি যতটুকু জানি, আম বয়ানে কখনো কোন সম্মতি প্রকাশ করেননি, তবে এটা ঠিক তখন চুপ ছিলেন ফেৎনার আশংকা করে,আর খাস বয়ানে অসম্মতির বিষয় প্রকাশ করেছেন যা শাইখ সামি আল উরাইদী এর এই ব্যাপারে আলোচনার এর মধ্যে পাওয়া যায়,
তবে এই ব্যাপারে বিস্তারিত জানার জন্য অপেক্ষা করুন, আশাকরি ভাইরা অচিরেই এই বিষয়ে বিস্তারিত রিপোর্ট প্রকাশ করবেন ইনশাআল্লাহ

আবুল ফিদা
11-29-2017, 01:50 PM
বিষয়টি তলিয়ে দেখতে বলছি, কারণ- হাইতুত তাহরীর থেকে এমন আচরণ হওয়ার কথা না। বিশিষ্ট আলেম উলামা ও বড় বড় মুত্তাকি পরহেযগার নেতৃবৃন্দ নিয়ে হাইয়াত গঠিত। তাই এমনটা তাদের থেকে হওয়ার কথা না। তারা একটা হক দল বলেই পরিচিত। তাই বিষয়টা তলিয়ে দেখে পরিষ্কার করার জন্য ভাইদের আবেদন জানাচ্ছি।


ভাই হক্ব থেকে বিচ্যুত হতে সময় লাগেনা, আর যেসকল বড় বড় মাশায়েখদের কথা বলছেন তারা ইতি মধ্যেই অনেকেই বেরিয়ে গেছেন, এবং অনেকেই তাহরির গঠনের সময় ছিলেন না,
আপনাকে আরো বলছি, তাহরিরের যিনি আমির ছিলো, শাইখ আবু যাবের তিনি মাস খানিক আগে পদত্যাগ করেছেন, শাইখ আবু মুহাম্মাদ আল মাক্কদিসী তো তাহরির গঠনের সময়ই বলেছেন যে, এটা বয়াত ভঙ্গ হচ্ছে, আরো অনেক উলামায়ে কেরাম তাহরির থেকে বের হয়ে গিয়েছেন, যেমন,
শাইখ আবু ক্বাতাদাহ ফিলিস্তিনী
শাইখ আব্দুর রাজ্জাক আল-মাহদী
শাইখ আব্দুল্লাহ আল মুহাইসিনী
শাইখ মুসলিহ আল-উলয়ানী
শাইখ সামী আল উরাইদী
শাইখ আবু জুলাইবীব
শাইখ আবু হাম্মাম
শাইখ আবু কাসসাম
আরো অনেক উলামায়ে কিরাম তাহরির থেকে বের হয়েগেছেন,

tawsif ahmad
11-29-2017, 02:21 PM
zajakallah

ইলম ও জিহাদ
11-29-2017, 11:11 PM
আলহামদু লিল্লাহ! তাহরীরের ব্যাপারে আইমান আয-যাওয়াহিরি হাফিজাহুল্লাহর বয়ানটি শুনেছি। শায়খের বয়ানে সত্যটা ফুটে উঠেছে। মূলত শায়খ হাফিযাহুল্লাহ জাবহাতুন নুসরাকে আল-কায়েদা থেকে বিচ্ছিন্ন হওয়ার অনুমতি দেননি। তবে তিনি বলেছেন- যদি দুইটি শর্ত পরিপূর্ণ পাওয়া যায়, তাহলে আল-কায়েদা জাবহাতুন নুসরা থেকে সাংগঠনিক সম্পর্ক বিচ্ছিন্ন করতে পারে, এর পূর্বে নয়:
১. শামের সব মুজাহিদ গ্রুপ ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।
২. শামে ইসলামী হুকুমত প্রতিষ্ঠিত হতে হবে এবং শামবাসী উক্ত হুকুমতের জন্য নিজেদের একজন ইমাম নিয়োগ দিতে হবে।

এই দুই শর্ত পাওয়া গেলেই কেবল আলকায়েদা জাবহাতুন নুসরা থেকে সাংগঠনিক সম্পর্ক বিচ্ছিন্ন করতে পারে, এর পূর্বে কিছুতেই বিচ্ছিন্ন হওয়ার অনুমতি নেই।

শায়খ হাফিজাহুল্লাহ বলেন, বিগত এক বছরে এই দুই শর্তের কোনই বাস্তবায়ন হয়নি। তাই তিনি আল-কায়েদার হাতে বাইয়াত ছিল এমন সকল মুজাহিদকে আবার আল-কায়েদার বাইয়াতে ফিরে যেতে বলেছেন।

Mullah Murhib
11-30-2017, 12:26 AM
ভাই! এটা সত্য, আমরা কেউই এমন সংবাদ শোনার জন্য প্রস্তুত ছিলাম না। তবুও আমাদের বাস্তবতা মেনে নিতে হবে। অটল-অবিচলতার সাথে কাজ চালিয়ে যেতে হবে। আর এটা তো নিশ্চিত সত্য...... ক্রমশ আমরা বিজয়ের দিকেই অগ্রসর হচ্ছি। একেক দিন অতিবাহিত হচ্ছে তো ইমাম মাহদী আসার সময় ঘনিয়ে আসছে। এভাবেই অনেক কাঙ্ক্ষিত-অনাকাঙ্ক্ষিত সংবাদ শুনতে শুনতে আমরা একদিন শুনবো... হাদীসে বর্ণিত চূড়ান্ত বিজয় লাভের পয়গাম। দেখবো... কালেমার পতাকাই সুউচ্চে উড়ছে অবিরাম । সেই পর্যন্ত আমাদের যেমন অনেক কিছুই হারাতে হবে, তেমনি অনেক অপ্রিয় সংবাদও শুনতে হবে।

আর তাহরীরের সাথে সম্পৃক্ত সবাই যে, পূর্ব থেকেই আল-কায়েদার মানহাজ বুঝে ময়দানে জড়ো হয়েছে, এমন কিন্তু নয়। যারা মানহাজ বুঝেছেন, তারা অবশ্যই মূলের সাথেই নিজেকে জড়িয়ে রাখবেন। এটাই আমরা আশা করি এবং এর জন্যই দুয়া করি। তাই ভাই, আমরা অত্যধিক পেরেশান হয়ে বিচলিত না হয়ে পড়ি; বরং উদ্যমের সাথে কাজ চালিয়ে যাই। আমীন, আল্লাহই একমাত্র তাওফীকদাতা। তিনিই অবস্থার পরিবর্তনকারী।
যারা কমেন্ট করে সান্ত্বনার বাণী শুনিয়েছেন সবাইকে জাযাকুমুল্লাহ... বিশেষ করে, মুহতারাম ভাই আবুল ফিদা।

Anas ab
11-30-2017, 08:33 AM
উপরোল্লিখিত পর্যালোচনা গুলো পড়ে যা বুঝে আসে তা হলো,জাবহাতু নুসরাহ মূলত শাইখ আইমান হাফিঃ'র বার্তায় উল্লেখিত শর্ত সাপেক্ষেই আল-কায়দা থেকে বায়আত প্রত্যাহার করেছিল।কিন্তু যেহেতু দীর্ঘ এক বছর প্রতিক্ষার পরেও তা বাস্তবায়ন হয়নি,তাই শাইখ হাফিঃ যারা পুর্বে বাইআতবদ্ধ ছিলেন তাদেরকে পুনরায় বাইআতবদ্ধ হওয়ার জন্য আহবান করেছেন।যার ফলেই বড় বড় শাইখগণ তাহরীর আশ-শাম থেকে বের হয়ে গেছেন। যা আমরা ইতি পূর্বেই লক্ষ করেছি।

murabit
11-30-2017, 08:50 AM
هنالك ابتلى المؤمنون وزلزلوا زلزالا شديدا
সেই যুদ্ধে মুমিনদের কে বিপদ গ্রস্থ করা হয়েছিল এবং প্রচন্ড রূপে প্রকম্পিত করা হয়েছিল।

Taalibul ilm
11-30-2017, 09:11 AM
ছেড়া তসবীর দানার মতো ফিতনা আসতে থাকবে...
মনোবল হারানো যাবে না...

স্নাইপার
12-01-2017, 09:31 AM
আল্লাহ মুজাহিদিনদের মাঝে বোঝাবুঝি দূর করে দিন। আমিন।

Muhammad bin maslama
12-01-2017, 07:41 PM
সবাইকি আর তালিবান হতে পারবে। কথাটা যদিও ছোট কিন্তু এর মাঝে অনেক কিছুই লুকায়িত আছে।

Muhammad bin maslama
12-01-2017, 07:44 PM
আল্লাহ মুজাহিদিনদের মাঝে বোঝাবুঝি দূর করে দিন। আমিন।


আখিঁ, আপনি মনে হয় ভুল বোঝাবুঝি লিখতে চাচ্ছিলেন।

khalid-hindustani
12-01-2017, 08:26 PM
সবাইকি আর তালিবান হতে পারবে। কথাটা যদিও ছোট কিন্তু এর মাঝে অনেক কিছুই লুকায়িত আছে।

নি:সন্দেহে। এটা নিয়ে আমি অনেকক্ষণ জায়নামাজে বসে বসে চিন্তা করেছিলাম আর এক ভাইয়ের সাথে আলাপ করেছিলাম।
আসলে মোল্লাহ মোহাম্মদ ওমর রহিমাহুল্লাহ যদিও তার পড়াশুনা শেষ করতে পারেন নি / বড় মাপের প্রখ্যাত আলেমও হয়তো ছিলেন না।
কিন্তু আল্লাহর সাথে তার সম্পর্ক তার জীবনী ও তার আমল থেকেই বুঝা যায়।

মুফতি তাকি উসমানী সহ আরো অনেক বড় বড় আলেম তখন মোল্লা ওমরকে বলেছিলো ইসলামী ইমারতকে রক্ষার জন্য ওসামা বিন লাদেনকে আপনি আমেরিকার হাতে তুলে দিন।
কিন্তু তিনি ছিলেন পাহাড় সম অবিচল তার সিদ্ধান্তে।

আজকের সিরিয়ার জিহাদ, ইরাকের জিহাদ ও অনান্য অঞ্চলের জিহাদ তো আফগানিস্তানে তালেবানদের জিহাদের ই ফল। মানে নতুন জিহাদের ভূমিগুলোর জন্মভূমি তো আফগান তালেবান আর আল কায়েদা, আল্লাহর ইচ্ছায়।

অথচ নতুনরা যদি পুরতনদের হাকিকত বুঝতে না পারে তাহলে ভবিষ্যত অন্ধকার।

আল্রাহ আমদেরকে সীসাঢালা প্রাচীরের ন্যায় কুফফারদের বিরুদ্ধে একত্রিত করুন, মুমিনদের বিরুদ্ধে নয়।

রক্ত ভেজা পথ
12-01-2017, 08:33 PM
ঘটনাটি পুরোপুরি সত্য, এই ব্যাপারে কোন সন্দেহ নেই,তবে অতি নিকটেই কোন একটা কিছু হবে, হয়ত নতুন কোন ফেতনার দুঃসংবাদ শুনতে পাব আর নয় কোন সুরাহা, তবে আমরা সুরাহা চাই। আল্লাহ তাআলা সকলকে মৃত্যু পর্যন্ত হক্বের উপর থাকার তাওফিক দান করুক, আমিন! যত দিন তাহরির আল-কায়দার সাথে ছিলো, ততদিন তারা কোন মুজাহিদের উপর তরবারি উত্তলন করেননি, কিন্তু যখনই আল-কায়দা ত্যাগ করলো, সাথে সাথেই সংঘর্ষে লিপ্ত হলো বেশ কিছু তানজিমের সাথে, সর্বশেষ যা ঘটলো হারকাতু নুরুদ্দীন জিংকী এর সাথে, এই সংঘর্ষের সুরাহা পুরোপুরি ভাবে হতে না হতেই, এখন সরাসরি আল-কায়দার সাথেই সংঘর্ষে লিপ্ত হয়ে যাওয়ার দারপ্রান্তে উপনিত হয়েছে, তবে উতিহাস শাক্ষী আল-কায়দা হলো সেই দল যে দলের বিরুদ্ধে যে হাতটিই এসেছে তাদের করুন পরিণতি ভোগ করতে হয়েছে, হোক সে কুফফারদের মধ্য থেকে কিংবা মুসলিমদের মধ্য থেকে, যার জলন্ত প্রমাণ আপনাদের বলার প্রযোজন মনে করছিনা,আর যতদিন আল-কায়দার সাথে ছিলো ততদিন পর্জন্ত তারা কালো পতাকার ছায়া তলে ছিলো, কিন্তু আল-কায়দা থেকে বের হয়েই সাথে সাথে কালো পতাকার ছায়া তলে বের হয়ে গেলো,সত্যিকার খোরাসানের কালো পতাকাবাহী দলকে ভালোভাবে চিনে রাখুন, যারা এখনো খুরাসান থেকে আলমী জিহাদের নেতৃত্ব দিচ্ছেন। জাযাকাল্লাহ ভাই।

সঠিক দাওয়াত
12-02-2017, 08:34 AM
ছেড়া তসবীর দানার মতো ফিতনা আসতে থাকবে...
মনোবল হারানো যাবে না...

ঠিক বলেছেন ভাই ।

سلاح الحق
12-02-2017, 09:10 AM
اللهم الف بين قلوب المسلمين وشتت قلوب الكفار
হে আল্লাহ্*! তুমি মুমিমদের অন্তর গুলো একত্রিত করে দাও,আর কাফেরদের মাঝে বিভেদ সৃষ্টি করে দাও।
আমীন!!!

mumtahina07
09-18-2018, 12:19 AM
কিছু কিছু বিষয় অন্তরকে ভেঙ্গে দেয়। মনকে অশান্ত করে তোলে।

Sotter Soinik
09-18-2018, 11:28 AM
আ্ল্লাহপাক সবাই কে সত্যের পতাকা তলে । অর্থাৎ হাদিসে বর্নিত খোরাসানের সেই পতাকাবাহী দল আল-কায়দা এর পতাকা তলে থেকে আল্লাহ রাস্তায় জিহাদ করার তৌফিক দান করুন । আমীন