PDA

View Full Version : ভারতে মুসলিম-বিরোধী দাঙ্গা 'পরিকল্পিত' হওয়ার কারণ, মুসলিম হত্যা, মুসলিমদের ঘরবাড়ি ভাঙচুর-অগ্নিসংযোগ



BANGLA NEWS
04-12-2018, 11:50 PM
ভারতে মুসলিম-বিরোধী দাঙ্গা 'পরিকল্পিত' হওয়ার কারণ, মুসলিম হত্যা, মুসলিমদের ঘরবাড়ি ভাঙচুর-অগ্নিসংযোগ
অমিতাভ ভট্টশালী বিবিসি, কলকাতা


১২ এপ্রিল ২০১৮

রামনবমী পালনকে কেন্দ্র করে ভারতে গত মাসে যে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা ছড়িয়েছিল, সেগুলো পরিকল্পনার ভিত্তিতেই হয়েছিল।
মার্চের শেষ সপ্তাহে পশ্চিমবঙ্গ আর বিহার রাজ্যে মোট দশটি জায়গায় উগ্র হিন্দুরা হামলা করেছিল।
ঘটনাগুলির তথ্যগুলো বিশ্লেষণ করে দেখা যাচ্ছে, একই ভাবে ওইসব অশান্তি শুরু হয়েছিল, হাজির ছিলেন একই ধরণের যুবকরা, তাদের গলায় ছিল একই ধরণের স্লোগান।
হামলার শিকারও হয়েছিলেন অনেক মুসলমান।
তাই এ অশান্তি, হিংসা বা অগ্নিসংযোগ কোনও সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা ছাড়াই, অনিয়ন্ত্রিতভাবে, হঠাৎ ঘটে গেছে - ঘটনাক্রম বিশ্লেষণ করে এরকমটা মনে করা কঠিন।
বিহার আর পশ্চিমবঙ্গের দাঙ্গা বা হিংসা কবলিত এলাকাগুলি থেকে যেসব প্রতিবেদন পাঠিয়েছিলেন, তার মধ্যে ৯টি বিষয় রয়েছে, যা প্রতিটি ঘটনার ক্ষেত্রেই মোটামুটিভাবে এক । কোথাও তা দাঙ্গার রূপ নিয়েছিল, কোথাও ভাঙচুর-অগ্নিসংযোগের মধ্যেই শেষ হয়েছে।
এই ৯টি বিষয় থেকেই পরিষ্কার হয়ে যায়, যে দশটি আলাদা শহরে বিচ্ছিন্নভাবে, কোনও পরিকল্পনা ছাড়াই ওই হিংসাত্মক ঘটনাগুলি ঘটে নি।
*একই ধরণের নানা নামের সংগঠন উগ্র মিছিল বের করেছিল
১. উগ্র মিছিল, যুববাহিনী, গেরুয়া পতাকা, বাইক...
বিহারের ভাগলপুরে ১৭ই মার্চ সাম্প্রদায়িক অশান্তির শুরু। সেদিন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী অশ্বিনী চৌবের পুত্র অর্জিত চৌবে 'হিন্দু নববর্ষে'র দিন এক শোভাযাত্রা বের করেছিলেন।
সেখান থেকে মুসলমানদের ওপরে একের পর এক হামলার ঘটনা ঘটে ওই রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায়।
প্রতিটা জায়গাতেই রামনবমীর দিন উগ্র মিছিল বার করা হয়েছিল। বাইকে চেপে যুবকরা ওইসব মিছিলে সামিল হয়েছিল। তাদের মাথায় গেরুয়া ফেট্টি ছিল। সঙ্গে ছিল গেরুয়া ঝান্ডা।
হিন্দু নববর্ষ দিনটিও নতুন আবিষ্কার হয়েছে। রামনবমীর শোভাযাত্রাও বেশীরভাগ শহরেই আগে বড় করে হতে দেখে নি কেউ।
২. শোভাযাত্রাগুলির আয়োজন করেছিল একই ধরণের নানা নামের সংগঠন
যে সব এলাকায় রামনবমীর শোভাযাত্রা থেকে অশান্তি ছড়িয়েছে, সেগুলির প্রত্যেকটিরই আয়োজন করেছিল একই ভাবধারার সংগঠন, যদিও একেক জায়গায় তাদের নাম ছিল একেক রকম।
সংগঠনগুলি প্রতিটি ক্ষেত্রেই ভারতীয় জনতা পার্টি, রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘ আর বজরং দলের সঙ্গে কোনও না কোনওভাবে যুক্ত।
ঔরঙ্গাবাদ আর রোসড়ায় তো বিজেপি এবং বজরং দলের নেতারা সরাসরিই মিছিলে যোগ দিয়েছিলেন।
বেশ কয়েকটি জায়গায় দেখা গেছে অপরিচিত কিছু হিন্দুত্ববাদী সংগঠনও জমকালো শোভাযাত্রা বার করেছে।
পশ্চিমবঙ্গের আসানসোল-রাণীগঞ্জ বা পুরুলিয়া অথবা উত্তর ২৪ পরগণা জেলাগুলির যেসব অঞ্চলে সাম্প্রদায়িক অশান্তি ছড়িয়েছিল, সেখানেও বিজেপি নেতাদের সমর্থন ছিল রামনবমীর শোভাযাত্রাগুলিতে। তারা বিভিন্ন জায়গায় মুসলমানদের ঘরবাড়িতে আগুন দিয়ে ছিল।
৩. বিশেষ একটি রাস্তা ধরেই মিছিল নিয়ে যাওয়ার জেদ
অশান্তি ছড়িয়েছিল যেসব শহরে, তার প্রত্যেকটির ক্ষেত্রেই মুসলমান প্রধান এলাকা দিয়ে রামনবমীর শোভাযাত্রা নিয়ে যাওয়ার জন্য জিদ ধরা হয়েছিল। মিছিলের রুট পরিকল্পিতভাবেই মুসলমান প্রধান এলাকাগুলো দিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।
৪. উস্কানিমূলক স্লোগান আর ডিস্ক জকি
যেসব জায়গায় শোভাযাত্রা বার করা হয়েছিল, তার প্রতিটি জায়গাতেই মুসলমানদের 'পাকিস্তানী' বলা হয়েছে। বাজানো হয়েছে ডি জে-ও।
'যখনই হিন্দুরা জেগে উঠেছে, তখনই মুসলমানরা ভেগেছে' - এরকম স্লোগানও উঠেছে মিছিল থেকে।
ঔরঙ্গাবাদে কবরস্থানে গেরুয়া ঝান্ডা লাগিয়ে দেওয়ার ছবি এসেছে বিবিসি-র কাছে।
রোসড়ার 'তিন মসজিদ'-এ ভাঙ্গচুড় করে গেরুয়া ঝান্ডা লাগিয়ে দেওয়া হয়েছিল।
প্রত্যেকটা মিছিলেই একই ধরণের রেকর্ড করা গান বাজানো হয়েছিল।
৫. মাপা হিংসা, বাছাই করে অগ্নিসংযোগ
মানুষের জীবন-জীবিকার ক্ষতি যাতে হয়, সেরকম ভাবেই হামলা হয়েছিল।
ঔরঙ্গাবাদে ৩০টি দোকান জ্বালিয়ে দেওয়া হয়েছিল - যার মধ্যে ২৯টি-ই মুসলমানদের দোকান। হিন্দুদের দোকানে নয়।
জেনে বুঝেই যে ঠিক মুসলমানদের দোকানেই আগুন দেওয়া হয়েছিল, সেটা বোঝাই যায়।
৬. প্রশাসনের ভূমিকা
বেশীরভাগ ক্ষেত্রেই দেখা গেছে প্রশাসন একরকম নির্বাক দর্শকের ভূমিকায় থেকেছে।
ঔরঙ্গাবাদের ২৬ মার্চ যে মিছিল হয়েছিল, সেখান থেকে মসজিদের দিকে চপ্পল ছোঁড়া, কবরস্থানে গেরুয়া ঝান্ডা পুঁতে দেওয়া বা মুসলমানদের বিরুদ্ধে অপমানজনক স্লোগান দেওয়া হয়েছিল।
তবুও পরের দিন প্রশাসনিক কর্মকর্তারা মুসলমান-প্রধান এলাকা দিয়েই মিছিল করার অনুমতি দিয়েছিল।
ঔরঙ্গাবাদে দাঙ্গা কবলিত এলাকার মানুষ বলেছেন যে প্রশাসনের চোখের সামনেই শহর জ্বলছিল।
৭. মুসলমানদের মধ্যে আতঙ্ক, অন্যদিকে বিজয়ের আনন্দোল্লাস
ঔরঙ্গাবাদের এক বাসিন্দা ইমরোজ মধ্য প্রাচ্যে রোজগারের অর্থ জমিয়ে দেশে ফিরে এসে জুতোর ব্যবসা শুরু করেছিলেন।
তার দোকান জ্বালিয়ে দেওয়া হয়েছে।
এখন ইমরোজ ঠিক করেছেন এই দেশে আর ব্যবসা করবেন না। পরিবার নিয়ে তিনি হংকং চলে যাওয়ার পরিকল্পনা করছেন।
অন্যান্য এলাকার মুসলমানরাও ভাবতে শুরু করেছেন যে ব্যবসা বোধহয় তুলেই দিতে হবে।
উল্টোদিকে ওই সব এলাকায় বসবাসকারী হিন্দু যুবকদের মধ্যে একটা জয়ের আনন্দ দেখতে পাওয়া গেছে।
ভাগলপুরের এক যুবক শেখর যাদব বুক চিতিয়ে বলছিলেন, এইভাবেই জবাব দেওয়া হবে।"
*সমগ্র ভারত জুড়েই উগ্রবাদী হিন্দুদের আগ্রাসন বাংলাদেশেও যার প্রভাব পড়ছে।
*ভারতকে মুসলিম মুক্ত করার ঘৃণ্য চক্রান্তে মেতে উঠেছে। আসাম থেকে লক্ষ লক্ষ মুসলিমদের ভিটা বাড়ি থেকে উচ্ছেদ করতে যাচ্ছে। এমনিভাবে আসানসোলে ইমাম সাহেবের যুবক ছেলেকে ভর দুপুরে হত্যা করেছে। মুসলিম হওয়ায় তাকে হত্যা করে উল্লাস করে হিন্দুত্ববাদীরা। হত্যার পর বুক চিরে ফেলা হয়েছে। ঘাড়ে ধারালো অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন। মেরে ফেলার আগে উপড়ে ফেলা হয় হাতের নখ। রক্তাক্ত শরীর আগুনে পুড়িয়ে ফেলার চেষ্টা করা হয়েছিল। মোট কথা মুসলমানদের রক্তের হোলিখেলায় মেতে উঠেছে সন্ত্রাসী মালাউনরা। তবুও কি তাদের বিরুদ্ধে জাগার সময় হয়নি? এখনো কি মনে করবেন গাযওয়াতুল হিন্দ অনেক দূরে? সর্বত্র হিন্দু গো রক্ষকরা মুসলমানদের মারছে, বাড়ি ঘর ভাঙচুর-অগ্নিসংযোগ করছে! আর মুসলমানদের ভাবখানা যেন এমন >> হিন্দু মুসলিম ভাই ভাই জিহাদের কোন প্রয়োজন নাই!!! নাকি বলবেন, ইসলাম শান্তির ধর্ম, মানবতার ধর্ম। যারা মুসলমানদের মারছে তাদের বিচার আল্লাহ কেয়ামতের ময়দানে করবেন! তাদের শাস্তি দেবেন।?
তবে জেন রেখ! যতই ভাই ভাই বল তারা মুসলমানদের চির শত্রু। কখনো বন্ধু হবে না!! তোমরা তাদের শান্তির বাণীর শোনালেও তারা শুধু তোমাদের রক্তই ঝরাবে!! তাই আসুন কুরআন সুন্নাহের সঠিক শিক্ষায় উজ্জিবিত হয়ে হিন্দুত্ব্যবাদী আগ্রাসনের বিরুদ্ধে রুখে দাড়াই।
গাযওয়াতুল হিন্দের জন্য প্রস্তুতি গ্রহণ করি।ভারতে মুসলিম-বিরোধী দাঙ্গা 'পরিকল্পিত' হওয়ার কারণ, মুসলিম হত্যা, মুসলিমদের ঘরবাড়ি ভাঙচুর-অগ্নিসংযোগ
অমিতাভ ভট্টশালী বিবিসি, কলকাতা


১২ এপ্রিল ২০১৮

রামনবমী পালনকে কেন্দ্র করে ভারতে গত মাসে যে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা ছড়িয়েছিল, সেগুলো পরিকল্পনার ভিত্তিতেই হয়েছিল।
মার্চের শেষ সপ্তাহে পশ্চিমবঙ্গ আর বিহার রাজ্যে মোট দশটি জায়গায় উগ্র হিন্দুরা হামলা করেছিল।
ঘটনাগুলির তথ্যগুলো বিশ্লেষণ করে দেখা যাচ্ছে, একই ভাবে ওইসব অশান্তি শুরু হয়েছিল, হাজির ছিলেন একই ধরণের যুবকরা, তাদের গলায় ছিল একই ধরণের স্লোগান।
হামলার শিকারও হয়েছিলেন অনেক মুসলমান।
তাই এ অশান্তি, হিংসা বা অগ্নিসংযোগ কোনও সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনা ছাড়াই, অনিয়ন্ত্রিতভাবে, হঠাৎ ঘটে গেছে - ঘটনাক্রম বিশ্লেষণ করে এরকমটা মনে করা কঠিন।
বিহার আর পশ্চিমবঙ্গের দাঙ্গা বা হিংসা কবলিত এলাকাগুলি থেকে যেসব প্রতিবেদন পাঠিয়েছিলেন, তার মধ্যে ৯টি বিষয় রয়েছে, যা প্রতিটি ঘটনার ক্ষেত্রেই মোটামুটিভাবে এক । কোথাও তা দাঙ্গার রূপ নিয়েছিল, কোথাও ভাঙচুর-অগ্নিসংযোগের মধ্যেই শেষ হয়েছে।
এই ৯টি বিষয় থেকেই পরিষ্কার হয়ে যায়, যে দশটি আলাদা শহরে বিচ্ছিন্নভাবে, কোনও পরিকল্পনা ছাড়াই ওই হিংসাত্মক ঘটনাগুলি ঘটে নি।
*একই ধরণের নানা নামের সংগঠন উগ্র মিছিল বের করেছিল
১. উগ্র মিছিল, যুববাহিনী, গেরুয়া পতাকা, বাইক...
বিহারের ভাগলপুরে ১৭ই মার্চ সাম্প্রদায়িক অশান্তির শুরু। সেদিন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী অশ্বিনী চৌবের পুত্র অর্জিত চৌবে 'হিন্দু নববর্ষে'র দিন এক শোভাযাত্রা বের করেছিলেন।
সেখান থেকে মুসলমানদের ওপরে একের পর এক হামলার ঘটনা ঘটে ওই রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায়।
প্রতিটা জায়গাতেই রামনবমীর দিন উগ্র মিছিল বার করা হয়েছিল। বাইকে চেপে যুবকরা ওইসব মিছিলে সামিল হয়েছিল। তাদের মাথায় গেরুয়া ফেট্টি ছিল। সঙ্গে ছিল গেরুয়া ঝান্ডা।
হিন্দু নববর্ষ দিনটিও নতুন আবিষ্কার হয়েছে। রামনবমীর শোভাযাত্রাও বেশীরভাগ শহরেই আগে বড় করে হতে দেখে নি কেউ।
২. শোভাযাত্রাগুলির আয়োজন করেছিল একই ধরণের নানা নামের সংগঠন
যে সব এলাকায় রামনবমীর শোভাযাত্রা থেকে অশান্তি ছড়িয়েছে, সেগুলির প্রত্যেকটিরই আয়োজন করেছিল একই ভাবধারার সংগঠন, যদিও একেক জায়গায় তাদের নাম ছিল একেক রকম।
সংগঠনগুলি প্রতিটি ক্ষেত্রেই ভারতীয় জনতা পার্টি, রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সংঘ আর বজরং দলের সঙ্গে কোনও না কোনওভাবে যুক্ত।
ঔরঙ্গাবাদ আর রোসড়ায় তো বিজেপি এবং বজরং দলের নেতারা সরাসরিই মিছিলে যোগ দিয়েছিলেন।
বেশ কয়েকটি জায়গায় দেখা গেছে অপরিচিত কিছু হিন্দুত্ববাদী সংগঠনও জমকালো শোভাযাত্রা বার করেছে।
পশ্চিমবঙ্গের আসানসোল-রাণীগঞ্জ বা পুরুলিয়া অথবা উত্তর ২৪ পরগণা জেলাগুলির যেসব অঞ্চলে সাম্প্রদায়িক অশান্তি ছড়িয়েছিল, সেখানেও বিজেপি নেতাদের সমর্থন ছিল রামনবমীর শোভাযাত্রাগুলিতে। তারা বিভিন্ন জায়গায় মুসলমানদের ঘরবাড়িতে আগুন দিয়ে ছিল।
৩. বিশেষ একটি রাস্তা ধরেই মিছিল নিয়ে যাওয়ার জেদ
অশান্তি ছড়িয়েছিল যেসব শহরে, তার প্রত্যেকটির ক্ষেত্রেই মুসলমান প্রধান এলাকা দিয়ে রামনবমীর শোভাযাত্রা নিয়ে যাওয়ার জন্য জিদ ধরা হয়েছিল। মিছিলের রুট পরিকল্পিতভাবেই মুসলমান প্রধান এলাকাগুলো দিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।
৪. উস্কানিমূলক স্লোগান আর ডিস্ক জকি
যেসব জায়গায় শোভাযাত্রা বার করা হয়েছিল, তার প্রতিটি জায়গাতেই মুসলমানদের 'পাকিস্তানী' বলা হয়েছে। বাজানো হয়েছে ডি জে-ও।
'যখনই হিন্দুরা জেগে উঠেছে, তখনই মুসলমানরা ভেগেছে' - এরকম স্লোগানও উঠেছে মিছিল থেকে।
ঔরঙ্গাবাদে কবরস্থানে গেরুয়া ঝান্ডা লাগিয়ে দেওয়ার ছবি এসেছে বিবিসি-র কাছে।
রোসড়ার 'তিন মসজিদ'-এ ভাঙ্গচুড় করে গেরুয়া ঝান্ডা লাগিয়ে দেওয়া হয়েছিল।
প্রত্যেকটা মিছিলেই একই ধরণের রেকর্ড করা গান বাজানো হয়েছিল।
৫. মাপা হিংসা, বাছাই করে অগ্নিসংযোগ
মানুষের জীবন-জীবিকার ক্ষতি যাতে হয়, সেরকম ভাবেই হামলা হয়েছিল।
ঔরঙ্গাবাদে ৩০টি দোকান জ্বালিয়ে দেওয়া হয়েছিল - যার মধ্যে ২৯টি-ই মুসলমানদের দোকান। হিন্দুদের দোকানে নয়।
জেনে বুঝেই যে ঠিক মুসলমানদের দোকানেই আগুন দেওয়া হয়েছিল, সেটা বোঝাই যায়।
৬. প্রশাসনের ভূমিকা
বেশীরভাগ ক্ষেত্রেই দেখা গেছে প্রশাসন একরকম নির্বাক দর্শকের ভূমিকায় থেকেছে।
ঔরঙ্গাবাদের ২৬ মার্চ যে মিছিল হয়েছিল, সেখান থেকে মসজিদের দিকে চপ্পল ছোঁড়া, কবরস্থানে গেরুয়া ঝান্ডা পুঁতে দেওয়া বা মুসলমানদের বিরুদ্ধে অপমানজনক স্লোগান দেওয়া হয়েছিল।
তবুও পরের দিন প্রশাসনিক কর্মকর্তারা মুসলমান-প্রধান এলাকা দিয়েই মিছিল করার অনুমতি দিয়েছিল।
ঔরঙ্গাবাদে দাঙ্গা কবলিত এলাকার মানুষ বলেছেন যে প্রশাসনের চোখের সামনেই শহর জ্বলছিল।
৭. মুসলমানদের মধ্যে আতঙ্ক, অন্যদিকে বিজয়ের আনন্দোল্লাস
ঔরঙ্গাবাদের এক বাসিন্দা ইমরোজ মধ্য প্রাচ্যে রোজগারের অর্থ জমিয়ে দেশে ফিরে এসে জুতোর ব্যবসা শুরু করেছিলেন।
তার দোকান জ্বালিয়ে দেওয়া হয়েছে।
এখন ইমরোজ ঠিক করেছেন এই দেশে আর ব্যবসা করবেন না। পরিবার নিয়ে তিনি হংকং চলে যাওয়ার পরিকল্পনা করছেন।
অন্যান্য এলাকার মুসলমানরাও ভাবতে শুরু করেছেন যে ব্যবসা বোধহয় তুলেই দিতে হবে।
উল্টোদিকে ওই সব এলাকায় বসবাসকারী হিন্দু যুবকদের মধ্যে একটা জয়ের আনন্দ দেখতে পাওয়া গেছে।
ভাগলপুরের এক যুবক শেখর যাদব বুক চিতিয়ে বলছিলেন, এইভাবেই জবাব দেওয়া হবে।"
*সমগ্র ভারত জুড়েই উগ্রবাদী হিন্দুদের আগ্রাসন বাংলাদেশেও যার প্রভাব পড়ছে।
*ভারতকে মুসলিম মুক্ত করার ঘৃণ্য চক্রান্তে মেতে উঠেছে। আসাম থেকে লক্ষ লক্ষ মুসলিমদের ভিটা বাড়ি থেকে উচ্ছেদ করতে যাচ্ছে। এমনিভাবে আসানসোলে ইমাম সাহেবের যুবক ছেলেকে ভর দুপুরে হত্যা করেছে। মুসলিম হওয়ায় তাকে হত্যা করে উল্লাস করে হিন্দুত্ববাদীরা। হত্যার পর বুক চিরে ফেলা হয়েছে। ঘাড়ে ধারালো অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন। মেরে ফেলার আগে উপড়ে ফেলা হয় হাতের নখ। রক্তাক্ত শরীর আগুনে পুড়িয়ে ফেলার চেষ্টা করা হয়েছিল। মোট কথা মুসলমানদের রক্তের হোলিখেলায় মেতে উঠেছে সন্ত্রাসী মালাউনরা। তবুও কি তাদের বিরুদ্ধে জাগার সময় হয়নি? এখনো কি মনে করবেন গাযওয়াতুল হিন্দ অনেক দূরে? সর্বত্র হিন্দু গো রক্ষকরা মুসলমানদের মারছে, বাড়ি ঘর ভাঙচুর-অগ্নিসংযোগ করছে! আর মুসলমানদের ভাবখানা যেন এমন >> হিন্দু মুসলিম ভাই ভাই জিহাদের কোন প্রয়োজন নাই!!! নাকি বলবেন, ইসলাম শান্তির ধর্ম, মানবতার ধর্ম। যারা মুসলমানদের মারছে তাদের বিচার আল্লাহ কেয়ামতের ময়দানে করবেন! তাদের শাস্তি দেবেন।?
তবে জেন রেখ! যতই ভাই ভাই বল তারা মুসলমানদের চির শত্রু। কখনো বন্ধু হবে না!! তোমরা তাদের শান্তির বাণীর শোনালেও তারা শুধু তোমাদের রক্তই ঝরাবে!! তাই আসুন কুরআন সুন্নাহের সঠিক শিক্ষায় উজ্জিবিত হয়ে হিন্দুত্ব্যবাদী আগ্রাসনের বিরুদ্ধে রুখে দাড়াই।
গাযওয়াতুল হিন্দের জন্য প্রস্তুতি গ্রহণ করি।

BANGLA NEWS
05-26-2018, 11:08 AM
https://i.imgur.com/UxEyQtE.jpgহেনস্থার শিকার মুসলিম যুবক
নির্যাতনের শিকার মুসলিম যুবকের নাম জামাল মোমিন। বাড়ি পশ্চিমবঙ্গের মালদা। কাজ করেন ভারতের অন্য আরেকটি রাজ্যে। ঘটনার দিন সে কলকাতা থেকে মালদায় নিজের বাড়ি ফিরছিল। ট্রেনে তাকে ঘিরে ধরে উগ্রবাদী যুবকেরা, শুরু হয় হেনস্থার উদ্দেশ্যে প্রশ্নেরবান, ভারতের রাষ্ট্রপতি নাম কি? কিছুক্ষণ থেমে আবার প্রশ্ন ভারতের জাতীয় সঙ্গীত কি? তিনি জনিনা বলার সাথে সাথেই অশ্লীল গালিগালাজ আর চড় থাপ্পড় শুরু হয়। তাকে জিজ্ঞাসা করা হয় নামাজ পড়তে জানে কি না? সে জানে বললে মালাউনরা বলে, নামাজ পড়তে জানিস তো জাতীয় সঙ্গীত জানিস না কেন? তখন মালাউনরা বলে তুই জনগনমন বলতে পারিস? জামাল বলে সে জানে বললে গেয়ে শোনাতে বাধ্য করে। এরপর তাকে দিয়ে বন্দেমাতরম, ভারতমাতা কি জয় বলানো হয়। জামাল বারবার নিরক্ষরতার কথা বললেও ঘুরে ফিরে তাকে প্রশ্নগুলি করা হয় এবং না পারলে চড় থাপ্পড় তো আছেই সেই সাথে অশ্লীল গালি গালাজ। এ সময় পাশ থেকে আরেকজন বলে, নামাজ পড়লে কি লেখাপড়া লাগে? এসব বলে তার ধর্মীয় আচার-আচরন নিয়ে হেনস্থা করা হয়। এরপর আবার জামালের উপর বর্বরতা শুরু হয়।
তার একটাই অপরাধ, সে মুলিম!তাই মালাউনরা তাকে ঘিরে নানাভাবে হেনস্থা, গালিগালাজ ও উল্লাসে মেতে উঠে।
হে মুসলিম জাতি! ভারতে এমন চিত্র শুধু এক মুসলিম ভায়ের ক্ষেত্রেই নয় বরং সেখানে অবস্থানরত অন্যান্য মুসলিমরাও প্রতিনিয়ত উগ্রবাদী মালাউনদের হাতে নানাভাবে নিপীড়নের শিকার হচ্ছে। যার অতি সামন্যই আমরা জানতে পারি। আমাদের অজানাগুলো আরো অধিক ভয়াবহ। তাই মালাউনদের বিষয়ে সঠিক সিদ্ধান্ত নেওয়ার ব্যাপারে অবহেলা করার কোন সুযোগ নাই।

BANGLA NEWS
05-28-2018, 12:45 PM
আজব বন্ধুত্ব!!!
আমাদের দেশের কিছু বুদ্ধিজীবী নামের বুদ্ধি ব্যাপারী ভারতের সাথে এদেশের বন্ধুত্বের কথা বলতে বলতে মুখের থুতু গুলু করে ফেলছে।
এইতো বন্ধুত্বের পরিচয় দিয়ে ভারতের মুসলিম বিদ্বেষী মোদির আমন্ত্রণে দুই দিনের সরকারি সফর শেষে দেশে ফিরেছেন কুলাঙ্গার মুরতাদ শেখ হাসিনা। হাসিনা মোদিতে বন্ধুত্বটা বেশ ভালই জমেছে। আর জমবেই না কেন? হাসিনা বুবু দেওয়ার ক্ষেত্রে তো কোন কার্পণ্য করে না! বুবুজানের মনটা বড় উদার!!যা চেয়েছে সবই দিয়েছে, পারলে আর কিছু দিত!!বন্ধু বলে কথা! কিন্তু প্রাণের দোস্তরা বেশ আজব, দেওয়া প্রশ্ন আসলে কৌশলে এড়িয়ে যান। গ্রীষ্মকালে তিস্তার পানি দিবে না তাতে কি বর্ষাকালে তো একেবারে বর্নায় ভাসিয়ে দিবে। তাই বুবুজান মোটেও বেজার নন। মমতার সঙ্গে প্রায় এক ঘন্টা বৈঠক করেছেন, তবুও তিস্তার পানি বন্টন নিয়ে মুখ খোলেন নি। এতে আবার বন্ধুত্বের ফাটল সৃষ্টি হতে পারে। এছাড়াও তারা বাংলাদেশের সঙ্গে পশ্চিমবঙ্গের সম্পর্কটা একটু ঘনিষ্ঠ করছে যেন সেখানকার ৫০লক্ষ মুসলিমদেরকে ঘর বাড়ি থেকে উচ্ছেদ করে বাংলাদেশে পাঠাতে পারে। এই না হলে বন্ধু!! বন্ধুত্বের লীলাখেলাটা বেশ আজব!!!তাই আমাদের মত ছোট ঘিলুওলারা বুঝে উঠতে পারি না!!!!