Announcement

Collapse
No announcement yet.

পুলিশে চাকরি করা কি জায়েয হবে?

Collapse
X
 
  • Filter
  • Time
  • Show
Clear All
new posts

  • পুলিশে চাকরি করা কি জায়েয হবে?

    আসসালামু আলাইকুম। আমি জিহাদি মনোভাবের একজন ব্যাক্তি। মালি, সোমালিয়াতে জিহাদ করতে যেতে চেয়েছিলাম কিন্তু আমার মা এর বাধায় যেতে পারিনি। এক জায়গায় দেখলাম ফরজ জিহাদ ছাড়া অন্য জিহাদে বাবা মা এর অনুমতি ছাড়া যাওয়া নিষেধ। এখন বর্তমানে আমরা যারা এই দেশে আছি পরিস্থিতি অনুযায়ী আমাদের উপর কি জিহাদ ফরজ? যদি আমার পরিস্থিতি অনুযায়ী জিহাদে যাওয়ার চেয়ে মা এর কথা মেনে তার সেবা করাটা ঠিক হয় তাহলে কর্মক্ষেত্রে পেশা হিসেবে খেলোয়াড় বা পুলিশে চাকরি করাটা কি জায়েজ হবে? বিশেষ করে পুলিশের বড় পদে যেমন: পুলিশ সুপার, ডি আই জি, আইজিপি পদে। কারন এসব পদে থাকলে যারা ইসলামি রাষ্ট্র কায়েম করতে চায় তাদের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ নিতে হয় রাষ্ট্র বিরোধী কাজের জন্য, অনৈসলামিক আইন এর বাস্তবায়ন ও রক্ষা করতে হয়, নারী পুরুষ দরকার ছাড়াও একসাথে কাজ করতে হয়। আবার যারা ইসলামি রাষ্ট্র কায়েম করতে চায় তাদের অন্যতম টার্গেট থাকে পুলিশ। অন্যদিক দিয়ে দেখলাম ভালোরা এসব পদে না আসলে খারাপ লোকেরা আসবে বা হিন্দুরা আসবে। যতটুকু ন্যায়বিচার আইন আছে তাও থাকবে না। অপহরণ, খুন, অন্যায় দখল, মাদক, ধর্ষনের মত আরও অনেক অপরাধ বৃদ্ধি পাবে ও এসব কর্মকান্ডের সাজা সঠিকভাবে বাস্তবায়ন হবে না। এসব দিক বিবেচনায় পুলিশে চাকরি করাটা কি জায়েজ হবে?আর আরেকটা হলো ক্রিকেট খেলোয়াড়। এখানে ক্রিকেট বোর্ড বা ক্লাব খেলোয়াড়দের যেই টাকাটা দেয় সেটা যাদের থেকে নেয় তাদের অনেকেই ইসলামি নিয়ম মানে না। যেমন : সুদ এর ব্যাংক, অশ্লীল বিজ্ঞাপন দেয়া কোম্পানি ও টিভি চ্যানেল। মাঠে যারা খেলা দেখতে আসে তাদের নামাজ পড়ার ব্যাবস্থা থাকে না। এসব বিষয় আলাদা রেখে যদি এভাবে নেই যে খারাপ ব্যাবস্থা বোর্ড কর্মকর্তা দের উপর বর্তাবে আমি তো খেলার বিনিময়ে টাকা নেই বেতন যদি ১০০ টাকা হয় তাহলে ৩০ টাকা নিব কারন ভালো ক্রিকেট কর্মকর্তা রা থাকলে তো এমন খারাপ ব্যাবস্থা থাকতো না। খেলোয়াড়দের খেলা দেখে কিশোর যুবকরা মাঠে খেলতে যাবে শরীর সুস্থ্য থাকবে নেশা থেকে দূরে থাকবে। এসব দিক বিবেচনায় কি জায়েজ হবে? আর্থিক অবস্থা ভালোই মা এর বাড়ি আছে সেখান থেকে ভাড়া আসে কিন্তু মা চায় আমি চাকরি করি। এই বিষয়ে অভিজ্ঞ ভাইদের গাইডলাইন চাই।
    Last edited by Munshi Abdur Rahman; 1 week ago.

  • #2
    যেহেতু আপনার আর্থিক অবস্থা বেশ ভালো তাই (সম্ভব হলে) সুচিন্তিত কোন ভাল ব্যাবসা শুরু করতে পারেন!

    হাদীসে এসেছে- বিধবা, ইয়াতীম... এদের জন্য পরিশ্রম করে অর্থ উপার্জনকারী হল মুজাহিদ ফী সাবিলিল্লাহর ন্যায়!

    অর্থাৎ, অভাবী, বিধবা, ইয়াতীম ও বন্দী পরিবার (যার কোন উপার্জনক্ষম সদস্য বন্দীদশায় রয়েছেন) তাদের জন্য সহায় হতে পারবেন এ নিয়্যাত রেখেও কর্মজীবন শুরু করা!

    Comment


    • #3
      মুহতারাম ভাই আপনার বিষয় গুলো ফতোয়া ওয়েবসাইটের ভাইদেরকেও জিজ্ঞেস করতে পারেন।
      Last edited by Munshi Abdur Rahman; 1 week ago.

      Comment


      • #4
        Sad ibne abi waqqas Abdullah sadi জাযাকাল্লাহু খাইর

        Comment


        • #5
          সম্মানিত ভাই, আপনার প্রশ্ন শুনে মনে হচ্ছে কিছু বিষয়ে আপনার জ্ঞানের সীমাবদ্ধতা রয়েছে। তাই আমি আপনাকে একটি বইয়ের লিংক দিচ্ছি। বইটি শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত পড়লে আপনার সকল প্রশ্নের উত্তর পেয়ে যাবেন ইনশাল্লাহ। আমি আশা করব আপনি বইটি ডাউনলোড করে পড়বেন।
          লিংক- [সরাসরি দেখা/পড়া যায়, এমন লিঙ্ক কাম্য। যেমন- https://archive.org/ প্রভৃতি। -মডারেটর]
          Last edited by Munshi Abdur Rahman; 1 week ago.

          Comment


          • #6
            Originally posted by Mohammed abir hossen View Post
            সম্মানিত ভাই, আপনার প্রশ্ন শুনে মনে হচ্ছে কিছু বিষয়ে আপনার জ্ঞানের সীমাবদ্ধতা রয়েছে। তাই আমি আপনাকে একটি বইয়ের লিংক দিচ্ছি। বইটি শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত পড়লে আপনার সকল প্রশ্নের উত্তর পেয়ে যাবেন ইনশাল্লাহ। আমি আশা করব আপনি বইটি ডাউনলোড করে পড়বেন।
            লিংক- [সরাসরি দেখা/পড়া যায়, এমন লিঙ্ক কাম্য। যেমন- https://archive.org/ প্রভৃতি। -মডারেটর]
            ভাই লিনক তো পেলাম না

            Comment

            Working...
            X