Results 1 to 6 of 6
  1. #1
    Media Al-Firdaws News's Avatar
    Join Date
    Sep 2018
    Posts
    3,203
    جزاك الله خيرا
    30
    10,406 Times جزاك الله خيرا in 3,189 Posts

    উম্মাহ্ নিউজ # ১৬ই জমাদিউস-সানি ১৪৪১ হিজরী # ১১ই ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ঈসায়ী।

    মালাউন মোদি সরকার আমাদের অস্তিত্বের ওপরে আঘাত হানার চেষ্টা করছে : মাওলানা সিদ্দিকুল্লাহ



    জমিয়তে উলামা হিন্দের পশ্চিমবঙ্গ সভাপতি মাওলানা সিদ্দিকুল্লাহ চৌধুরী বলেছেন, কেন্দ্রীয় সরকার আমাদের অস্তিত্বের ওপরে আঘাত হানার চেষ্টা করছে। তিনি নদিয়া জেলার কৃষ্ণনগর গভর্নমেন্ট কলেজ ময়দানে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন (সিএএ), জাতীয় নাগরিকপঞ্জি (এনআরসি)ও জাতীয় জনসংখ্যা নিবন্ধন (এনপিআর)-এর বিরুদ্ধে বক্তব্য রাখার সময় ওই মন্তব্য করেন।

    মাওলানা সিদ্দিকুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ‘মানুষ একবেলা না খেয়ে থাকতে পারে। ভালো কাপড় না পরেও বাঁচতে পারে। কিন্তু অস্তিত্বের ওপরে আঘাত কোনোদিন কেউ মেনে নেবে না। আমাদের দুর্ভাগ্য, আমরা হতভাগ্য যে, আমাদের দেশের প্রধানমন্ত্রী, দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, দিল্লিতে সরকারে যারা আছে তাঁরা ভারতবর্ষের ১৩০ কোটি মানুষের মাথা হেঁট করে দিয়েছে।’

    তিনি বলেন, ‘আমরা পড়েছি শিশুকালে ‘সদা সদ্য কথা বলিব। কদাচ মিথ্যা কথা বলিব না। আর প্রধানমন্ত্রী কী বলছেন? সদা মিথ্যা কথা বলিব। কদাচ সত্য কথা বলিব না! এরকম মিথ্যাবাদী প্রধানমন্ত্রী ভারতবর্ষের ১৩০ কোটি মানুষ দেখেনি। তিনি বুঝতে পারছেন মিথ্যা বলছেন। গোয়েবলসীয় তত্ত্বকে হারিয়ে দিচ্ছেন। পৃথিবীতে ৫০/৬০টি দেশে ভারতবর্ষের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ হচ্ছে। উনি ৫৬ ইঞ্চি ছাতি ফুলিয়েছিলেন, কিন্তু এখন বেলুন চুপসে যাচ্ছে! নিজেকে ভাবছিলেন, আমি হলাম পরবর্তী মহাত্মা গান্ধী। কিন্তু এত মিথ্যাবাদী যে, এখন কম্পিউটারের যুগে সবটাই ধরা পড়ে যাচ্ছে।’

    তিনি বলেন, ‘ভারতবর্ষের ৯০ শতাংশ মানুষ এনআরসি ও সিএএ-এর বিরুদ্ধে। ১০ শতাংশ মানুষ ওদের পক্ষে। এখন যদি ভোট হয় ওরা গো-হারা হেরে যাবে।’

    কেন্দ্রীয় সরকারকে সতর্ক করে মাওলানা সিদ্দিকুল্লাহ বলেন, ‘ফেরাউনকে আল্লাহ্* ধ্বংস করেছেন। নমরুদকে আল্লাহ্* ধ্বংস করেছেন। অত্যাচারী শাসকদেরকে ধ্বংস করেছেন। আমরা চাইব কেন্দ্রের মোদি সরকার একটু ভাবুন। তা না হলে উপরওয়ালার শাস্তি অনিবার্য। কারণ মানুষের প্রতি অবিচার উপরওয়ালা চান না।

    তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী বলছেন, ভারতের কোথাও ডিটেনশন ক্যাম্প হয়নি তো! আমি জানিই না। এত কাঁচা কাঁচা মিথ্যা বাচ্চা ছেলেরাও মনে হয় বলে না! পরের দিন অসমের এক প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বলছেন, আমাকে ৪৬ কোটি টাকা দিয়েছেন অসমের গোয়ালপাড়ায় ডিটেনশন ক্যাম্প বানানোর জন্য। মুখটা থাকল এতে? তিন হাজার বন্দি সেখানে থাকবেন। এই কারণে জনগণ যাতে জেগে ওঠে, বাড়ি বাড়ি মায়েরা যাতে জেগে ওঠেন সেজন্য আজ নারীদের আনার প্রয়োজন ছিল।’

    মাওলানা সিদ্দিকুল্লাহ বলেন, ‘মায়েদের বলে দেবেন কোনও ধরণের বৈধ কাগজ ভোটার পরিচয়পত্র, প্যান কার্ড, আধার কার্ড, রেশন কার্ড, জন্মের প্রমাণপত্র, স্কুলের সার্টিফিকেট, কোনও দলিল কোনও সময়ে কাউকে দেবেন না, দেবেন না, দেবেন না। মায়েদের কানে কানে এটা বলে দেবেন। সকালে কাজ করতে বাড়ি থেকে বেরোবেন, আর ওই বেইমান আরএসএস-বিজেপি বাড়িতে ঢুকবে। গলায় দরকার হলে ঘুঁটের মালা তাঁদের গলায় চড়িয়ে দেবেন। জুতোর মালা পরিয়ে দেবেন। কারও বাড়ির কাগজ নেয়ার অধিকার তোমাকে কে দিয়েছে? প্রয়োজনে জেরক্স কপি করবেন। এ নিয়ে অবহেলা করবেন না।’

    তিনি বলেন, ‘ভারতের কোনও রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী যখন এনআরসির বিরুদ্ধে মুখ খুলতে পারেননি তখন আমাদের রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সর্বপ্রথম এনআরসির বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়িয়েছেন। এটা অতি সত্য কথা। এরপরেই ভারতের অন্য রাজ্য বুকে সাহস পেয়েছে।’

    আজকের ওই সভা শেষে মাওলানা সিদ্দিকুল্লাহ চৌধুরী আল্লাহ্*র উদ্দেশ্যে বিশেষ মুনাজাতে বলেন, আল্লাহ্* আমাদের সকলের নিরাপত্তা দান করুন। অত্যাচারী কেন্দ্রীয় সরকারের হাত থেকে আমাদের রক্ষা করুন। মানুষে মানুষে ভ্রাতৃত্বের মেলবন্ধন যাতে জোরালো হয় সেই বিষয়েও তিনি প্রার্থনা করেন।

    সূত্র : পার্সটুডে


    সূত্র: https://alfirdaws.org/2020/02/11/32813/
    আপনাদের নেক দোয়ায় আমাদের ভুলবেন না। ভিজিট করুন আমাদের ওয়েবসাইট: alfirdaws.org

  2. The Following 3 Users Say جزاك الله خيرا to Al-Firdaws News For This Useful Post:

    আহমাদ সালাবা (1 Week Ago),abu mosa (1 Week Ago),Munshi Abdur Rahman (1 Week Ago)

  3. #2
    Media Al-Firdaws News's Avatar
    Join Date
    Sep 2018
    Posts
    3,203
    جزاك الله خيرا
    30
    10,406 Times جزاك الله خيرا in 3,189 Posts
    সরকারি যেকোন মিটিংয়ে অংশ গ্রহণে অস্বীকৃতি জানালেন দেওবন্দের মুহতামিম



    সরকারি যেকোন মিটিংয়ে অংশগ্রহণে অস্বীকৃতি জানালেন ভারতের ঐতিহ্যবাহী ইলমি বিদ্যাপীঠ দারুল উলুম দেওবন্দের মুহতামিম। তিনি বলেছেন, এখন থেকে তিনি সরকারি কোন মিটিং এ অংশগ্রহণ করবেন না।

    গত শনিবার (০৮ ফেব্রুয়ারি) শনিবার দারুল উলুম দেওবন্দের মেহমান খানায় দেওবন্দের মজলিসে শূরার পক্ষ থেকে ডাকা এক গুরুত্বপূর্ণ মিটিংয়ে এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন তিনি।

    ইউএনএ উর্দু নিউজ সূত্রে জানা যায়, শনিবার (০৮ ফেব্রুয়ারি) দারুল উলুম দেওবন্দের মেহমান খানায় দেওবন্দের মজলিসে শূরার পক্ষ থেকে ডাকা এক গুরুত্বপূর্ণ মিটিং অনুষ্ঠিত হয়। দেওবন্দের মুহাদ্দিস মাওলানা আরশাদ মাদানী, মুহতামিম মাওলানা আবুল কাসেম নোমানী, নায়েবে মুহতামিম আব্দুল খালেক মাদারাজীসহ আরো অন্যান্য উস্তাদ তাতে অংশগ্রহণ করেন।

    মিটিংয়ে সর্বসম্মতিক্রমে সিদ্ধান্ত হয় ভবিষ্যতে সরকারী কর্মকর্তাদের ডাকা কোন মিটিং এ দেওবন্দ মুহতামিম মাওলানা আবুল কাসেম নোমান কাসেমীকে আমন্ত্রণ করা হলে তিনি তাতে অংশগ্রহণ করবেন না।

    এছাড়া আরো জানানো হয়েছে, এখন থেকে সরকারি কোন মিটিং-এ অংশ গ্রহণের প্রয়োজন হলেও মুহতামিমের পরিবর্তে তার সমমানের কেউ তাতে অংশ গ্রহণ করবেন।

    জানা যায়, ইতোপূর্বে সরকারী কর্মকর্তাদের মিটিং-এ দেওবন্দ মুহতামিমের অংশগ্রহণকে ঘিরে জন-সাধারণের মাঝে অসন্তোষ দেখা দিয়েছে। দেওবন্দ সরকারী কোন প্রতিষ্ঠান না হয়েও দেওবন্দ মুহতামিম সেই মিটিং এ অংশগ্রহণ করায় জন সাধারণের পাশাপাশি ছাত্রদের সাঝে এব্যাপারে ক্ষোভ দেখা গেছে।

    জনসাধারনের আবেগকে মূল্যায়ন করে মজলিসে শূরা তাই সিদ্ধান্ত নিয়েছে এখন থেকে সরকার ও মজলিসে শূরার মধ্যকার কোন মিটিং এ দেওবন্দ মুহতামিম অংশগ্রহণ করবেন না।

    উল্লেখ্য, কিছুদিন পূর্বে সরকারি একটি গেস্ট হাউজে মজলিসে শূরার মিটিং এ মাওলানা আবুল কাসেম নোমানীর বক্তব্যকে ঘিরে ভুল বোঝাবোঝির তৈরি হয়েছিল। দেওবন্দ মুহতামিম কয়েক ঘন্টার মধ্যেই সে বক্তব্যের ব্যাখা দিয়েছেন। সাথে সাথে নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে দেশব্যাপী চলমান ছাত্র ও জনগণের বিক্ষোভকে দেওবন্দের পক্ষ থেকে সাধুবাদ জানিয়েছেন। নিজের দেওয়া তাৎক্ষণিক এ ব্যাখ্যায় দেওবন্দ মুহতামিম আবারো দেশবাসীর ভালবাসা অর্জন করেছেন।


    সূত্র: https://alfirdaws.org/2020/02/11/32825/
    আপনাদের নেক দোয়ায় আমাদের ভুলবেন না। ভিজিট করুন আমাদের ওয়েবসাইট: alfirdaws.org

  4. The Following 3 Users Say جزاك الله خيرا to Al-Firdaws News For This Useful Post:

    আহমাদ সালাবা (1 Week Ago),abu mosa (1 Week Ago),Munshi Abdur Rahman (1 Week Ago)

  5. #3
    Media Al-Firdaws News's Avatar
    Join Date
    Sep 2018
    Posts
    3,203
    جزاك الله خيرا
    30
    10,406 Times جزاك الله خيرا in 3,189 Posts
    বিপর্যয়ের মুখে উইঘুর জাতিসত্তা



    জিনজিয়াং প্রদেশে বসবাসরত উইঘুর মুসলমানদের ওপর চীন সরকারের বর্বরতা সীমা ছাড়িয়ে গেছে বলে বিভিন্ন সূত্র জানায়। ২০ লাখের অধিক উইঘুর মুসলিম নারী-পুরুষকে বন্দী করে রাখা হয়েছে। বেইজিং সরকারের দাবি, এটা ‘চরিত্র সংশোধনাগার’। প্রতিদিন বিভিন্ন স্থান থেকে উইঘুর মুসলিমদের গ্রেফতার করে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। গত মাসে প্রখ্যাত হুই মুসলিম কবি Kwe Cui Haoxin-কে গ্রেফতার করা হয়েছে এই বন্দীদের মুক্তি দাবি করে কবিতা লেখার ‘অপরাধে’। নির্যাতনের খবর যাতে বহির্বিশ্বে ছড়িয়ে না পড়ে সেজন্য মোবাইল ও ইন্টারনেট সংযোগ শিথিল ও বাধাগ্রস্ত করা হচ্ছে। বিদেশী সাংবাদিকদের জন্য জিনজিয়াং প্রদেশে ভ্রমণ নিষিদ্ধ। উইঘুর জনগোষ্ঠীর দাবি, তারা এই পর্যন্ত কোনো সহিংস পদক্ষেপ নেয়নি। অপর দিকে, চীনা কর্তৃপক্ষ উইঘুরদের ‘সন্ত্রাসী’ হিসেবে আখ্যায়িত করে বিশ্বের দৃষ্টিভঙ্গি অন্যত্র সরিয়ে নিতে চায়। আন্তর্জাতিক কোনো সশস্ত্র সংগঠনের সাথে উইঘুরদের সংশ্লিষ্টতার প্রমাণ মেলেনি। Thierry Kellner, নামক Brussels Institute of Contemporary Studies-এর একজন গবেষক সাংবাদিকদের কাছে মন্তব্য করেন, “This is a technique that has been used by Beijing for a long time, and that consists in blaming everything that happens in Xinjiang on Uighur exiles,”

    চীন সরকার সে দেশের মুসলমানদের জাতিসত্তা, সংস্কৃতি ও ধর্মীয় ঐতিহ্য মুছে ফেলার লক্ষ্যে ব্যাপক কর্মসূচি নিয়ে অগ্রসর হচ্ছে বলে অভিযোগ। প্রায় ৯০ লাখ মুসলিম অধ্যুষিত এ অঞ্চলের নাম ছিল ‘পূর্ব তুর্কিস্তান’। চীনা কর্তৃপক্ষ নাম দিয়েছে জিনজিয়াং (পশ্চিমের অংশ)। পুরনো মসজিদগুলো সংস্কারের অভাবে জীর্ণশীর্ণ হয়ে গেছে। নতুন মসজিদ তৈরি, সংস্কার বা পুনর্নির্মাণের অনুমতি নেই। পুরনো মসজিদ সংস্কার করতে হলে বৌদ্ধমন্দিরের আদলে নাকি গড়তে হবে। ধর্মীয় শিক্ষা নিতে হয় সঙ্গোপনে। পবিত্র হজ পালনকে নিরুৎসাহিত করা হচ্ছে। হুই জেলার লিউ কাউলান ও কাশগড়ের প্রাচীনতম মসজিদে জুমার নামাজ আদায়ে বাধা প্রদান করা হচ্ছে। এসব মসজিদের প্রতিটিতে এক হাজার মানুষ নামাজ আদায়কালে ১০০ জন পুলিশ অস্ত্র ও লাঠি নিয়ে মসজিদের চারপাশে দণ্ডায়মান থাকে প্রতি জুমাবার। মসজিদের দরজায় পোস্টার লাগানো হয়েছে ‘নামাজ পড়ার জন্য ঘরে যাও’ (“Go home to pray”)। ধর্মকর্ম পালনের অধিকার সীমিত হয়ে পড়েছে চীনে। মানবাধিকার সংস্থাগুলোর ভূমিকা দায়সারা গোছের।

    সু সম্রাটের (৯৬০-১২৭৯) রাজত্বকালে মুসলমানরা আমদানি-রফতানি বাণিজ্যে প্রাধান্য বিস্তার করে। মিং রাজত্বকাল (১৩৬৮-১৬৪৪) ছিল মুসলমানদের জন্য ‘স্বর্ণযুগ’। এ সময় মুসলমানরা নিজেদের সংস্কৃতিকে ধরে রেখে সমাজের বিভিন্ন স্তরে তাৎপর্যপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে সক্ষম হয়। চিং রাজত্বকালে (১৬৪৪-১৯১১) চীনের পরিস্থিতি নাটকীয় মোড় নিলে মুসলমানরা বড় ধরনের বিপর্যয়ের সম্মুখীন হয়েছিল। রাশিয়ার সৈন্যরা ১৮৬৫ খ্রিষ্টাব্দে তুর্কিস্তানের পশ্চিমাংশ দখল করে নিয়ে পাঁচটি Republic এ বিভক্ত করে ফেলে। ১৮৮৪ খ্রিষ্টাব্দে চীনের মাঞ্চু সরকার তুর্কিস্তানের পূর্বাংশ দখলে নিয়ে এর নামকরণ করে ‘উইঘুর-জিনজিয়াং’। জিনজিয়াংয়ের অর্থ হচ্ছে ‘নতুন সীমান্ত’। চীনের পুরো ভূখণ্ডের পাঁচ ভাগের এক ভাগ নিয়ে গঠিত এই প্রদেশের জনসংখ্যা প্রায় এক কোটি ৭০ লাখ। বেশির ভাগ মুসলমান যারা উইঘুর, হুই, তাজিক, কাজাখ, কিরগিজ, উজবেক, মঙ্গোলিয়া ও তুর্কি বংশোদ্ভূত। চীনা কমিউনিস্টরা ধর্ম, ভাষা ও জাতিগত বিশেষত্বের জন্য জিনজিয়াং প্রদেশকে ‘স্বায়ত্তশাসিত’ বললেও আসলে এটা আইওয়াশ মাত্র। সামরিক ও রাজনৈতিকভাবে কঠোর নিগড়ে আবদ্ধ এ প্রদেশের জনগণ সরাসরি বেইজিং দ্বারা শাসিত ও পরিচালিত।

    পূর্ব তুর্কিস্তান হাজার বছর ধরে ছিল স্বাধীন রাষ্ট্র। এশিয়া মহাদেশ থেকে ইউরোপ পর্যন্ত বিস্তৃত বাণিজ্যপথের গুরুত্বপূর্ণ অংশ এই পূর্ব তুর্কিস্তান। আন্তঃমহাদেশীয় পরিবহন ও সড়ক যোগাযোগের ভূ-কৌশলগত অংশ ছাড়াও তুর্কিস্তান মুসলিম বিশ্বের পূর্বাঞ্চলীয় ফ্রন্টের একটি ‘সুরক্ষিত দুর্গ’, যার প্রান্ত সীমায় রয়েছে বিস্তৃত মুসলিম জনপদ, প্রাকৃতিক ও খনিজ সম্পদে সমৃদ্ধ উর্বরভূমি। কালের প্রবাহে মুসলিম বিশ্ব যখন আহত, ভঙ্গুর ও নির্বীর্য হয়ে পড়ে, তখন তুর্কিস্তান অন্যান্য মুসলিম রাষ্ট্রের মতো বৈরী শক্তির অধীনে চলে যায়। ১৯৫০ খ্রিষ্টাব্দে যেখানে জিনজিয়াং এ মুসলমানদের সংখ্যা ছিল ৮৫ শতাংশ, সেখানে ১৯৯৩ খ্রিষ্টাব্দে এসে দাঁড়ায় ৪৮ শতাংশে। এখন তা আরও কম।

    জিনজিয়াং দখলের পর থেকে চীনা কর্তৃপক্ষ এ অঞ্চলের সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলমানদের নানাবিধ হয়রানি করে আসছে, চালাচ্ছে নৃশংসতার স্টিমরোলার এবং হরণ করছে মৌলিক অধিকার। অভিযোগ হলো, নীলনকশার মাধ্যমে এ প্রদেশের বৃহত্তর জনগোষ্ঠীর ধর্মীয় ও আর্থসামাজিক স্বাধীনতা, সাংস্কৃতিক মূল্যবোধ এবং ভাষাগত ঐতিহ্য ধ্বংস করে দেয়া হচ্ছে। এভাবে কালান্তরে উইঘুররা তাদের স্বতন্ত্র জাতিসত্তা হারিয়ে চীনের কমিউনিস্ট ও হান মূল স্রোতের সাথে মিশে যাবে। ইসরাইলি কর্তৃপক্ষের মতো, চীনা কর্তৃপক্ষ বিভিন্ন গ্রাম ও শহর থেকে ‘হান’ জাতিগোষ্ঠীর বৌদ্ধদের আগে তুর্কিস্তানে এনে বসতি গড়ে তোলার কাজে হাত দিয়েছে। নতুন বসতি স্থাপনকারীদের দেয়া হচ্ছে ব্যাপক আর্থিক সুবিধা। ফলে তুর্কিস্তানের জনমিতি পরিবর্তিত হয়ে যাচ্ছে। এখন পূর্ব তুর্কিস্তানের মোট জনসংখ্যার ৩৮ শতাংশ হচ্ছে নতুন বসতি স্থাপনকারী। এ প্রক্রিয়া অব্যাহত থাকলে আগামী দিনে বহিরাগত হানরা হয়ে যাবে জিনজিয়াংয়ের বৃহত্তর জনগোষ্ঠী। নিজ মাতৃভূমিতে উইঘুররা হয়ে পড়বে পরবাসী ও অপাঙ্ক্তেয়।

    উইঘুরদের ইসলামী পরিচয় ও সাংস্কৃতিক মূল্যবোধ বিনষ্ট করে দেয়ার উদ্দেশ্যে আন্তঃধর্মীয় বিয়েকে উৎসাহিত করা হচ্ছে। মুসলিম যুবকদের ৪০০ মার্কিন ডলার করে দেয়া হচ্ছে বৌদ্ধ মেয়েকে বিয়ে করার জন্য। ইসলামী পোশাক পরিধানে বিরত রাখার উদ্দেশ্যে মুসলিম মেয়েদের ওপর চাপ সৃষ্টি করা হচ্ছে। বিয়ে, তালাক, উত্তরাধিকার সংক্রান্ত মুসলিম আইন ও বিধানের কার্যকারিতা সুকৌশলে মুছে ফেলার জন্য কর্তৃপক্ষ অত্যন্ত তৎপর। মাদক দ্রব্যের অপব্যবহার, ধনী বৌদ্ধদের কাছে দরিদ্র মুসলিম বালিকাদের বিক্রয়, দরিদ্রতা, অশিক্ষা এবং বেকারত্ব জিনজিয়াংয়ের মানুষের জীবনসঙ্গী হয়ে আছে। মুসলমানদের জন্মহার একেবারে নিম্ন পর্যায়ে যাতে নেমে যায়, তার জন্য জন্মশাসন ও বন্ধ্যাকরণ বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। এ প্রদেশের একটি শহরকে ভূগর্ভস্থ পারমাণবিক বিস্ফোরণের জন্য বাছাই করা হয়েছে। ১৯৬৪ সাল থেকে এ পর্যন্ত প্রায় ৪০টি বিস্ফোরণ ঘটানো হয়েছে এ অঞ্চলের জনগণ ও পরিবেশের ভারসাম্যের প্রতি বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে। ১৯৬৭ খ্রিষ্টাব্দে ‘সাংস্কৃতিক’ বিপ্লবের পর দেশত্যাগীদের সংখ্যা বৃদ্ধি পেতে থাকে। বর্তমানে জিনজিয়াংয়ের ২৫ লাখ অধিবাসী পার্শ্ববর্তী দেশে অবস্থান করছে। উইঘুরদের মধ্যে বঞ্চনার বেদনা তীব্রতর হচ্ছে। ২০০১ সালে হুতান শহরে অভিযান চালিয়ে সেনাবাহিনী শায়খ আবদুল কাইউম নামক এক ধর্মীয় নেতাসহ বিপুল সংখ্যক মুসলমানকে গ্রেফতার করে এবং ২৭ জনকে মৃত্যুদণ্ড দেয়।

    প্রায় দশ শতাব্দী ধরে পূর্ব তুর্কিস্তানের জনগণ কৃষি ও কুটির শিল্প উৎপাদন, বিপণন, পুঁজি বিনিয়োগ এবং আমদানি-রফতানির মাধ্যমে অভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক বাণিজ্যে প্রাধান্য বিস্তার করেছিলেন। চামড়া ও রেশমজাত দ্রব্য ও নকশাদার টুপির ব্যবসায়ে তাঁরা দক্ষতার পরিচয় দেন। ‘সাংস্কৃতিক’ বিপ্লবের পর কেন্দ্রীয় সরকারের বৈষম্য নীতির ফলে এ অঞ্চলের মুসলমানরা অর্থনৈতিক বঞ্চনার শিকার হয়েছেন। ব্যবসা তাদের হাতছাড়া হয়ে যায়। পূর্ব তুর্কিস্তান প্রাকৃতিক সম্পদ, বিশেষত তেল, ইউরেনিয়াম, কয়লা এবং স্বর্ণে সমৃদ্ধ। তা সত্ত্বেও এটা হচ্ছে চীনের দরিদ্রতম প্রদেশ। কারণ চীনা কমিউনিস্টরা এ প্রদেশে জনগণকে বঞ্চিত করে তাদের প্রাকৃতির সম্পদ লুটে নিচ্ছে। উইঘুর-জিনজিয়াং প্রদেশের জনগণের গড়ে বার্ষিক মাথা পিছু আয় মাত্র ৪৫ মার্কিন ডলার। অনেকে অর্ধাহারে-অনাহারে ও বিনা চিকিৎসায় মানবেতর জীবন কাটাতে বাধ্য হচ্ছে। চীনা কর্তৃপক্ষ ১৮ লাখ ২৮ হাজার ৪১২ বর্গকিলোমিটার আয়তনের জিনজিয়াংয়ের ৬০ শতাংশ প্রাকৃতিক সম্পদ আহরণ করে থাকে যদিও এ অঞ্চলের মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ জনগণের নিয়মিত আহারও জুটে না। মুসলিম জাতিসত্তা মুছে ফেলার প্রক্রিয়া শুরু হয় ১৯৫০ সালে Bin Tuan I XPCC সংগঠনের মাধ্যমে। চীনা কর্তৃপক্ষ এর মাধ্যমে জিনজিয়াংয়ের আর্থ-রাজনৈতিক ও সামরিক নিয়ন্ত্রণ সুকৌশলে নিজেদের হাতে নিয়ে নেয়। বর্তমানে ২০০ কৃষিজাত কোম্পানি, ১২টি কারখানা ও পুরো হোটেল ব্যবসা ওই সংগঠনের নিয়ন্ত্রণে। ১৯৮৯ সালে জিনজিয়াংয়ের তেলের খনিতে ২০ হাজার লোকের কর্মসংস্থান হয়েছে। বিস্ময়ের ব্যাপার এর মধ্যে একজনও মুসলমান নেই।

    এ অঞ্চলের মুসলমানদের শিক্ষার সুযোগও অত্যন্ত সীমিত। মুসলিম তরুণ সম্প্রদায় যাতে করে তাদের ধর্ম, ভাষা, ঐতিহ্য ও ইতিহাস সম্পর্কে অজ্ঞ থাকে সে উদ্দেশ্যে সুকৌশলে তাদের অশিক্ষিত রাখা হচ্ছে। প্রদেশের রাজধানী উরুমকিতে অবস্থিত এ অঞ্চলে উচ্চতর শিক্ষার একমাত্র প্রতিষ্ঠান জিনজিয়াং বিশ্ববিদ্যালয়ে মুসলমান ছাত্রছাত্রীর সংখ্যা হাতেগোনা। ধর্মীয় শিক্ষার প্রতি কমিউনিস্টরা একেবারে খড়গহস্ত। ১৯৯৬ সাল থেকেই প্রদেশের ৪০টি শহর ও গ্রামে অবস্থিত মাদরাসা ও হিফজখানার ওপর নিষেধাজ্ঞা বহাল রয়েছে। ফলে এ শিশু-কিশোররা ধর্মীয় জ্ঞান ও কুরআনে পাক হিফজ করার সুযোগ থেকে বঞ্চিত। ১৮ বছরের নিচে, শিশু-কিশোরদের জন্য ধর্মীয় শিক্ষা গ্রহণ সম্পূর্ণভাবে নিষিদ্ধ। চীনা কর্তৃপক্ষ জিনজিয়াংয়ের মুসলমানদের তুর্কি ভাষায় কথা বলায় এবং আরবি বর্ণমালা ব্যবহারে বিধিনিষেধ আরোপ করেছে। ২০টি নতুন মসজিদ নির্মাণ স্থগিত এবং ৫০টি পুরনো মসজিদ তালাবদ্ধ করে দিয়েছে। জুমার খুতবা প্রদানে ইমামদের ওপর সেন্সরশিপ রয়েছে। প্রকাশ্যে ইসলামী শিক্ষা প্রদানে বিধিনিষেধ থাকায় অতি সঙ্গোপনে ধর্মীয় শিক্ষা প্রদান করা হয়। তবুও তা তরুণদের মধ্যে জনপ্রিয় হওয়ায় দ্রুত বিকাশ লাভ করছে শহরে ও গ্রামে। অতি সম্প্রতি মক্কাভিত্তিক রাবেতা আল-আলম আল-ইসলামী স্থানীয় ভাষায় অনুবাদ করে পবিত্র কুরআনের তিন লাখ কপি জিনজিয়াং প্রদেশের মুসলমানদের মধ্যে বিনামূল্যে বিতরণের জন্য পাঠিয়েছে। কিন্তু কমিউনিস্ট কর্তৃপক্ষ সব কপি বাজেয়াপ্ত করে ফেলেছে। পরে অবশ্য আন্তর্জাতিক মুসলিম সম্প্রদায়ের চাপে কিছু কপি ফেরত দেয়া হয়।

    মুসলমানদের প্রতি বেইজিং কর্তৃপক্ষের ধর্মীয় অসহিষ্ণুতা অযৌক্তিক ও ন্যক্কারজনক। ১৯৬৬ খ্রিষ্টাব্দে মাও সে তুংয়ের নেতৃত্বে পরিচালিত সাংস্কৃতিক বিপ্লবের সময় মুসলমানরা সবচেয়ে বেশি নিগৃহীত হয়। সে সময় ২৯ হাজার মসজিদ বন্ধ করে দেয়া হয়েছিল। কিছু দিন আগে জিনজিয়াং প্রদেশের মুসলমানরা যখন ঈদুল ফিতরের নামাজ আদায়ের জন্য প্রধান মসজিদে জমায়েত হয় তখন হাজার হাজার পুলিশ মসজিদ ঘেরাও করে রাখে এবং শ্রদ্ধেয় ধর্মীয় ব্যক্তিত্ব খাজা মুহাম্মদ ইয়াকুবকে গ্রেফতার করে নিয়ে যায়। মুসলমানরা এ কারণে বিক্ষোভে ফেটে পড়ে। পুলিশ স্বয়ংক্রিয় অস্ত্রের গুলি চালিয়ে ১০০ জনকে হত্যা করে এবং বিপুল সংখ্যক মুসলিমকে জিজ্ঞাসাবাদের নামে জেলে আটকে রাখে। ঘটনার পরপরই পুরো শহর সিল করে দেয়া হয় এবং সাঁজোয়া যান টহল দিতে থাকে। বিগত পাঁচ বছরে এ রকম ঘটনায় মুসলমানদের ধর্মীয় অনুভূতি যখনি আহত হয়েছে এবং তারা প্রতিবাদ করতে চেয়েছে, তখনি তাদের ওপর নেমে এসেছে নির্যাতনের খড়গকৃপাণ।

    পূর্ব তুর্কিস্তান ন্যাশনাল ফাউন্ডেশনের কেন্দ্রীয় নেতা ইব্রাহিম চেঙ্গিস হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেন: ‘The situation in East Turkistan is explosive. China is sitting on time-bomb that will soon blow up. The repression and ethnic cleansing carried out by Beijing are wearing down the people’s patience East Turkistan is a territory rich in oil, uranium and minerals. When the world needs these riches, then our demand will move to the top of the agenda. It is only a question of time.’

    ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের প্রাক্তন চেয়ারম্যান ড. মো: মাইমুল আহসান খানের মন্তব্য প্রণিধানযোগ্য ‘কোনো জাতিকে ধর্মীয় বা অন্য কোনো কারণে নিশ্চিহ্ন করার অপরাধ মানবসভ্যতা কখনই বেশি দিন সহ্য করে না। হালাকু, চেঙ্গিস, হিটলার ও স্টালিনকে একটি নির্দিষ্ট সীমা পর্যন্ত ইতিহাস সহ্য করেছে। কাউকে জীবদ্দশায়, কাউকে মৃত্যুর পর ইতিহাসের আঁস্তাকুড়ে নিক্ষেপ করা হয়েছে। জাতি বা আদর্শের ওপর ভর করে ফ্যাসিবাদী শক্তিও বেশি দিন দর্প দেখাতে পারে না। সাম্রাজ্যবাদ ও কমিউনিজমের তাই আজ করুণ পরিণতি। সার্ব, ইংরেজ, রুশ ও কট্টর ইহুদিরা আজ তাই ইতিহাসের কাঠগড়ায় দণ্ডায়মান’ (সমকালীন মুসলিম বিশ্ব, ইসলাম ও বাংলাদেশ, মুখবন্ধ)।

    বাংলাদেশ, তুরস্ক, ভারত, অস্ট্রেলিয়া, ইন্দোনেশিয়ার সাধারণ মুসলমানরা উইঘুরদের প্রতি সহানুভূতিশীল হলেও আরব বিশ্ব সম্পূর্ণ নীরব। ওআইসি এবং আরব লিগের এ ইস্যুতে ভূমিকা নেই বললে চলে। এ নির্লিপ্ততা লজ্জাজনক। ভ্রাতৃত্বের এ অবক্ষয়ের হাত থেকে আগামী প্রজন্মকে অবশ্য বাঁচাতে হবে। চীনের উইঘুর জনগোষ্ঠী তুর্কি ভাষাভাষী হওয়ায় তুরস্কের রাজধানী আঙ্কারায় সাধারণ মানুষ সহমর্মিতা প্রদর্শনের জন্য রাস্তায় নেমে পড়ে। তারা চীনা পণ্যদ্রব্য বর্জনের জন্য বিশ্বের সচেতন মানুষের প্রতি আহ্বান জানায়।

    নিপীড়িত মুসলমানদের প্রতি সহমর্মিতা প্রদর্শন করা সারা বিশ্বের শান্তিকামী মানুষের, বিশেষত মুসলমানদের ধর্মীয়, নৈতিক ও মানবিক দায়িত্ব। উইঘুর মুসলমানদের করুণ অবস্থা ফিলিস্তিনের মুসলিম জনগোষ্ঠীর দুর্দশার সাথে তুলনীয়। উভয় ভূখণ্ডের জনগণ ধর্মীয় বিধিবিধান পালনের নিশ্চয়তাসহ মৌলিক মানবাধিকারের দাবিতে সোচ্চার।

    চীনের মাটির গভীরে তাদের শিকড়। ইসলামের প্রাথমিক যুগে সাহাবা হজরত আবি ওয়াক্কাস রা:-এর নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধিদল দাওয়াত নিয়ে চীনে পৌঁছেন। তখন থেকে ইসলামের যাত্রা শুরু। শত নির্যাতন ও নিপীড়নের মুখেও চীনের মুসলমানদের ঈমানি জজবা ও দেশপ্রেমে ভাটা পড়েনি। তারা তাদের মাতৃভূমি চীনকে ভালোবাসেন। উইঘুর মুসলমানরা তাদের প্রিয় ধর্ম ইসলাম নিয়ে বেঁচে থাকতে চান। নজিরবিহীন দমন নীতি চালিয়েও তাদের মনোবল ভাঙা যায়নি বরং জুুলুম ও বৈষম্য তাদের শক্তি জোগাচ্ছে।

    লেখক : অবসরপ্রাপ্ত অধ্যাপক ও বিভাগীয় প্রধান, ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগ, ওমর গণি এমইএস ডিগ্রি কলেজ, চট্টগ্রাম

    সূত্রঃ নয়া দিগন্ত


    সূত্র: https://alfirdaws.org/2020/02/11/32841/
    আপনাদের নেক দোয়ায় আমাদের ভুলবেন না। ভিজিট করুন আমাদের ওয়েবসাইট: alfirdaws.org

  6. The Following 2 Users Say جزاك الله خيرا to Al-Firdaws News For This Useful Post:

    abu mosa (1 Week Ago),Munshi Abdur Rahman (1 Week Ago)

  7. #4
    Media Al-Firdaws News's Avatar
    Join Date
    Sep 2018
    Posts
    3,203
    جزاك الله خيرا
    30
    10,406 Times جزاك الله خيرا in 3,189 Posts
    তামাকের কারণে বছরে প্রাণহানি হয় পৌনে ২ লাখ



    তামাকজনিত বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়ে বাংলাদেশে প্রতি বছর এক লাখ ৬১ হাজারের বেশি মানুষ মৃত্যুবরণ করে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

    টোব্যাকো এটলাস ২০১৮র উদ্ধৃতি টেনে তিনি বলেন, ধূমপানের কারণে বাংলাদেশে ১২ লক্ষাধিক মানুষ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হন। এর মধ্যে ৩ লাখ ৮২ হাজার মানুষ অকাল পঙ্গুত্বের শিকার হন। তামাকজনিত রোগব্যাধি ও অকাল মৃত্যুর কারণে বাংলাদেশে প্রতি বছর ৩০ হাজার ৫৭০ কোটি টাকার আর্থিক ক্ষতি হয়, যা ২০১৭-১৮ অর্থবছরে জাতীয় আয়ের ১.৪ শতাংশ।

    বিভিন্ন তামাকজাত দ্রব্যের উদাহরণ টেনে তিনি বলেন, Impact of Tobacco Related Illness in Bangladesh শিরোনামে ২০০৪ সালের এক গবেষণায় বলা হয়েছে, তামাক সেবনের কারণে ১২ লাখ মানুষ বিভিন্ন অসংক্রামক রোগে আক্রান্ত হন। এসব রোগের মধ্যে রয়েছে ফুসফুস ক্যান্সার ও ফুসফুসের দীর্ঘমেয়াদি রোগ ক্রনিক অবস্ট্রাকটিভ পলমনারিডিজিজ (সিওপিডি); যা প্রধানত ধূমপান ও পরোক্ষ ধূমপানের কারণে হয়। মুখ গহ্বরের ক্যান্সার- যা প্রধানত ধোঁয়াবিহীন বিভিন্ন তামাক সেবন, পানের সঙ্গে জর্দ্দা বা সাদাপাতার ব্যবহার এবং মাড়িতে গুল ব্যবহারের কারণে হয়। এছাড়া ধূমপান ও ধোঁয়াবিহীন তামাক সেবনের ফলে হৃদরোগ, স্ট্রোক, বার্জাজ ডিজিজের মতো রোগও হয়।

    তিনি বলেন, তামাক হচ্ছে এমন একটি ক্ষতিকর পণ্য, যা উৎপাদন, প্রক্রিয়াজাতকরণ ও সেবন- প্রতিটি ক্ষেত্রেই পরিবেশ, জনস্বাস্থ্য, অর্থনীতির ক্ষতি করে। ধূমপান ও ধোঁয়াবিহীন তামাক সেবন- দুটিই ভয়াবহ ও প্রাণঘাতী নেশা। পরোক্ষ ধূমপান অধূমপায়ীদের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর। তামাক মানুষকে তিলে তিলে মৃত্যুর দিকে ধাবিত করে। তামাক ব্যবহারজনিত রোগে ও মৃত্যু বাংলাদেশের জন্য একটি বড় চ্যালেঞ্জ। অর্থনীতিতেও তামাকের প্রভাব অত্যন্ত নেতিবাচক। The Economic Cost of Tobacco Users in Bangladesh : A Health Cost Approach শিরোনামে ২০১৮ সালের এক গবেষণায় বলা হয়েছে, বর্তমানে দেশে ১৫ লাখের অধিক প্রাপ্তবয়স্ক নারী ও পুরুষ তামাক সেবনের কারণে এবং ৬১ হাজারের অধিক শিশু পরোক্ষ ধূমপানের প্রভাবে প্রাণঘাতী বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত। এতে আরও বলা হয়, তামাকজনিত রোগব্যাধি ও অকাল মৃত্যুর কারণে বাংলাদেশে প্রতি বছর ৩০ হাজার ৫৭০ কোটি টাকা আর্থিক ক্ষতি হয়, যা ২০১৭-১৮ অর্থবছরে জাতীয় আয়ের ১.৪ শতাংশ।

    সূত্রঃ মানবকণ্ঠ


    সূত্র: https://alfirdaws.org/2020/02/11/32835/
    আপনাদের নেক দোয়ায় আমাদের ভুলবেন না। ভিজিট করুন আমাদের ওয়েবসাইট: alfirdaws.org

  8. The Following 2 Users Say جزاك الله خيرا to Al-Firdaws News For This Useful Post:

    abu mosa (1 Week Ago),Munshi Abdur Rahman (1 Week Ago)

  9. #5
    Media Al-Firdaws News's Avatar
    Join Date
    Sep 2018
    Posts
    3,203
    جزاك الله خيرا
    30
    10,406 Times جزاك الله خيرا in 3,189 Posts
    এক মাসেই নিখোঁজ বাকৃবির দুই শিক্ষার্থী



    গত এক মাসে ময়মনসিংহের বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই শিক্ষার্থী নিখোঁজ হয়েছেন। নিখোঁজ শিক্ষার্থীরা হলেন, কৃষি অনুষদের শেষবর্ষের আহসান হাবিব হামজা ও ভেটেরিনারি অনুষদের ২০১৪-১৫ শিক্ষাবর্ষের শেখ ইফতেখারুল ইসলাম আরিফ।

    এর মধ্যে হামজা থাকতেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ নাজমুল আহসান হলে। সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া উপজেলার পূর্ণিমাগাতি ইউনিয়নের ফলিয়া গ্রামের মো. আবদুল মোতালেবের ছেলে তিনি। আর আরিফ থাকতেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ শামসুল হক হলে।

    হামজার স্বজনরা জানান, হামজা গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে শপিং ব্যাগ হাতে হল থেকে বের হন। বাড়ি যাবেন বলে হামজা তার বাবাকে ফোনে জানিয়েছিলেন। কিন্তু তিনি বাড়িও যাননি, হলেও ফেরেননি।
    শুক্রবার সকাল থেকে হামজার মোবাইল ফোন বন্ধ পেয়ে তার বাবা ও ভগ্নিপতি শনিবার বিশ্ববিদ্যালয়ে খোঁজ করতে যান।

    বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর মো. আজহারুল হক বলেন, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে ময়মনসিংহের কোতোয়ালি থানায় জিডি করা হয়েছে। এছাড়া গত ৯ই জানুয়ারি নিখোঁজ হওয়া শেখ ইফতেখারুল ইসলাম আরিফকেও এখনও পাওয়া যায়নি।

    সূত্রঃ মানবজমিন


    সূত্র: https://alfirdaws.org/2020/02/11/32839/
    আপনাদের নেক দোয়ায় আমাদের ভুলবেন না। ভিজিট করুন আমাদের ওয়েবসাইট: alfirdaws.org

  10. The Following 2 Users Say جزاك الله خيرا to Al-Firdaws News For This Useful Post:

    abu mosa (1 Week Ago),Munshi Abdur Rahman (1 Week Ago)

  11. #6
    Media Al-Firdaws News's Avatar
    Join Date
    Sep 2018
    Posts
    3,203
    جزاك الله خيرا
    30
    10,406 Times جزاك الله خيرا in 3,189 Posts
    খালিয়াজুরীতে কুপিয়ে ব্যবসায়ীকে হত্যা, এখনো হয়নি গ্রেফতার



    দুর্বৃত্তের ধারালো অস্ত্রের আঘাতে মো. তানভীর (২৫) নামের এক ক্ষুদ্র মনোহারি ব্যবসায়ী নিহত হয়েছেন। ঘটনাটি ঘটেছে শুক্রবার রাতে নেত্রকোনার খালিয়াজুরী উপজেলার মেন্দীপুর ইউনিয়নের নূরপুর বোয়ালী গ্রামে। শনিবার ভোর ৫টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

    নিহত তানভীরের পিতা আবুল বাশার জানান, তানভীরের স্ত্রী ও দুটি সন্তান রয়েছে। তানভীর শুক্রবার সন্ধ্যায় তার মাকে কিছুক্ষণের মধ্যে বাড়িতে ফিরে আসছি বলে ঘর থেকে বের হয়ে যায়। রাত ৮টার দিকে একই গ্রামের তার বন্ধু সিজিল ও রাহাত বাড়িতে এসে খবর দেয়, তানভির বড় মসজিদের সামনের পাকা সড়কে আহত অবস্থায় পড়ে রয়েছে। পরিবারের লোকজন দৌড়াদৌড়ি করে ঘটনাস্থলে পৌঁছে প্রায় অর্ধমৃত অবস্থায় উদ্ধার করে। এ সময় তারা দেখতে পায় তানভীরের মাথায় ধারালো অস্ত্রের আঘাত এবং ডান কান কাটা। অজ্ঞান অবস্থায় তারা তাৎক্ষণিক তানভীরকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে ৯ ঘণ্টা চিকিৎসাধীন অবস্থায় শনিবার ভোর ৫টার দিকে সে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ে।

    সূত্রঃ যায়যায়দিন


    সূত্র: https://alfirdaws.org/2020/02/11/32837/
    আপনাদের নেক দোয়ায় আমাদের ভুলবেন না। ভিজিট করুন আমাদের ওয়েবসাইট: alfirdaws.org

  12. The Following 3 Users Say جزاك الله خيرا to Al-Firdaws News For This Useful Post:

    আহমাদ সালাবা (1 Week Ago),abu mosa (1 Week Ago),Munshi Abdur Rahman (1 Week Ago)

Similar Threads

  1. Replies: 10
    Last Post: 10-21-2019, 06:28 PM
  2. Replies: 11
    Last Post: 06-24-2019, 02:03 PM
  3. Replies: 6
    Last Post: 06-16-2019, 10:33 PM
  4. Replies: 2
    Last Post: 06-16-2019, 11:33 AM
  5. Replies: 2
    Last Post: 10-22-2018, 07:41 PM

Posting Permissions

  • You may not post new threads
  • You may not post replies
  • You may not post attachments
  • You may not edit your posts
  •