Results 1 to 7 of 7

Threaded View

  1. #1
    Member
    Join Date
    Jul 2015
    Posts
    41
    جزاك الله خيرا
    5
    41 Times جزاك الله خيرا in 21 Posts

    রাগান্বিত হাদিস ও কুরআনের আয়াত দিয়ে জিহাদ কে যেভাবে সাধারণ মানুষের সামনে "সন্ত্রাস" বলে প্রমাণ করা হচ্ছে!

    ধর্মের নামে জঙ্গিবাদ ইসলামে কঠোরভাবে নিষিদ্ধ
    হাফেজ মোহাম্মদ ওমর ফারুক

    সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ সারা বিশ্বে এখন আতঙ্কের বিষয়। অতিব দুঃখজনক হলো এর মধ্যে জড়িয়ে ফেলা হচ্ছে শান্তির ধর্ম ইসলামকে। ইসলামের নামে একশ্রেণির নামধারী মুসলিম এসব কাজ করে যাচ্ছে। এতে ইসলামের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হচ্ছে। জঙ্গিবাদের কারণে একশ্রেণির কমজোর ইমানওয়ালা এবং অমুসলিমরা এখন ভাবছে ইসলাম হলো সন্ত্রাসী ধর্ম। আর মুসলিম মানেই সন্ত্রাসী। কিছু লোকের সন্ত্রাসী কাজের কারণে এখন ইসলামের পক্ষে কথা বলাই বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। লোকজন আলেমদের দেখতে পারে না। দীনের নসিহতও শুনতে চাচ্ছে না। দীনি শিক্ষায় সন্তানদের দিতে চাচ্ছে না। ভাবছে বোমাবাজ বানানোর দরকার নেই। যারা সন্ত্রাসী কাজ করছে, তারা দীনের কোনো উপকার তো করছেনই না, বরং প্রচণ্ড ক্ষতি করছে। তারা দীন কায়েম করছে না, বরং ধ্বংস করার চক্রান্ত করছে। আসলে তারা নিম্নের আয়াতের পরিণাম ডেকে আনছেন। সেসব জালিমদের ওপর আল্লাহর লানত (অভিশাপ), যারা আল্লাহর নির্ধারিত সরল জীবন ব্যবস্থায় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে এবং একে জটিল ও বক্র করে তুলতে চেষ্টা করে, আর এসব লোকই হয় আখিরাতকে অস্বীকারকারী। (সূরা হুদ : ১৮-১৯) এ জন্য সরকারের ওপর দায়িত্ব হয়ে গেছে, সন্ত্রাসের সঙ্গে যারা যুক্ত তাদের প্রতিহত করা। কারণ মহান আল্লাহ বলেন, তোমরা তাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ কর, যতক্ষণ না ফেতনা ও বিপর্যয়ের অবসান হয় এবং দীন শুধু আল্লাহর জন্য হয়। (সূরা বাকারা : ১৯৩)। আর এ কাজ এখনই না করলে আল্লাহতায়ালা এর ভয়াবহতার কথা স্মরণ করিয়ে দিতে ঘোষণা করছেন : তোমরা যদি এ দায়িত্ব পালন না কর, তবে পৃথিবীতে বড় ধরনের বিপর্যয় দেখা দেবে। (সূরা আনফাল-৭৩) মূলত আল্লাহর বাণীকে বিজয়ী ও সমুন্নত করার প্রচেষ্টাকে বলে জিহাদ। কারণ মহানবী (সা.) বলেছেন : যে আল্লাহর বাণীকে বিজয়ী ও সমুন্নত করার জন্য লড়াই করে, সেই আল্লাহর পথের মুজাহিদ। (বুখারি) জঙ্গিবাদী সন্ত্রাসীরা দীনকে সমুন্নত করছে না, বরং ক্ষতি করছে। জঙ্গিবাদী কর্মকাণ্ডের দ্বারা গোটা বিশ্বে এখন ইসলাম চরম বিপর্যয়ে পড়েছে। ইসলাম জঙ্গিবাদ সমর্থন করে না বলেই জঙ্গিবাদীরা লুকিয়ে তাদের কার্যক্রম চালাচ্ছে। নবীজী কখনই গোপনে জিহাদ করেননি। তিনি দাওয়াতি কাজ গোপনেও করেছেন। কিন্তু জিহাদ করেছেন প্রকাশ্যে এবং ঘোষণা দিয়ে। কখনো কারও ওপর গোপনে আক্রমণ করেননি। যাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করেছেন, তাদেরও আগে দাওয়াত দিয়েছেন। আক্রমণের মাঝখানেও কেউ আত্মসমর্পণ করলে তাকে পূর্ণ নিরাপত্তা দিয়েছেন। (সূরা বাক্বারা-১৯০, সূরা আনফাল-৬১, সূরা তাওবা-৬, সূরা হজ-৩৭) বর্তমানে যারা ইসলামের নামে জঙ্গিবাদের চর্চা করছে, তারা গোপনে আক্রমণ করে আবার গোপনেই পালিয়ে যায়। এর দ্বারা প্রমাণিত হয়, তারা ইসলামের পথে চলছে না। কারণ ইসলামের বিধান মোতাবেক জিহাদ থেকে পালানো হারাম ও কবিরা গুনাহ। মহান আল্লাহ বলেন, হে মুমিনগণ, তোমরা যখন জিহাদের ময়দানে বাহিনীরূপে কাফিরদের সম্মুখীন হবে, তখন তাদের মোকাবিলা করা থেকে পিছন ফিরে যাবে না। এরূপ অবস্থায় যে লোক পিছনে পালাবে, সে নিশ্চয়ই আল্লাহর গজবে ঘেরাও হবে আর জাহান্নামই হবে তার ঠিকানা এবং ফিরে যাওয়ার জন্য তা বড়ই খারাপ জায়গা। তবে একটি যুদ্ধ কৌশল হিসেবে কিংবা অপর বাহিনীর সঙ্গে মিলিত হওয়ার জন্য করা হলে তা অন্য কথা। (সূরা আনফাল : ১৫-১৬) যারা সীমা লঙ্ঘন করে, পৃথিবীতে অশান্তি ও বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে এবং কোনোরূপ সংস্কার প্রচেষ্টায় আত্মনিয়োগ করে না, তাদের হুকুম তোমরা মানবে না। (সূরা শুআরা ১৫১-১৫২) আল্লাহতায়ালা বিপর্যয় ও ধ্বংসাত্মক কাজকর্মকে আদৌ পছন্দ করেন না। (সূরা বাকারা-২০৫) ইসলামের কাজ অবশ্যই করতে হবে। কিন্তু মানুষের ক্ষতি করে নয়; আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়ে নয়। মানুষকে জাহান্নাম থেকে বাঁচাতে তাদের দাওয়াত দিতে হবে। বুঝাতে হবে। তাদের হত্যা করে নিজে জাহান্নামি হয়ে নয়। মানুষ হত্যা করার নাম জিহাদ নয়। জিহাদ হলো দীনের পক্ষে কাজ করা। আর যারা আত্মঘাতী হামলা করে, তারা একসঙ্গে ৩টি কবিরা গুনাহ করে। ১. মানুষ হত্যা, ২. সন্ত্রাস (ফাসাদ), ৩. আত্মহত্যা। যারা মানুষ হত্যা করে, তাদের সম্পর্কে আল্লাহ বলেন, আর যে লোক স্বেচ্ছায় কোনো মুমিন ব্যক্তিকে হত্যা করবে, তার শাস্তি হচ্ছে জাহান্নাম, সেখানে সে চিরদিন থাকবে। আল্লাহতায়ালা তার প্রতি ভয়ানকভাবে রুষ্ট, তাকে তিনি লানত (অভিশাপ) দেন এবং তার জন্য যন্ত্রণাদায়ক শাস্তি প্রস্তুত করে রেখেছেন। (সূরা নিসা-৯৩) যে কেউ প্রাণের বিনিময়ে প্রাণ অথবা পৃথিবীতে ফ্যাসাদ সৃষ্টি করার শাস্তি প্রদান ছাড়া অন্য কাউকে হত্যা করে, সে যেন গোটা মানব জাতিকে হত্যা করে। আর যদি কেউ কারও প্রাণ রক্ষা করে, তবে সে যেন গোটা মানব জাতিকে রক্ষা করে। (সূরা মাইদা-৩২)।

    http://www.bd-pratidin.com/islam/201....2leJM6yq.dpuf
    আলহামদুলিল্লাহ ফর এভরিথিং !

  2. The Following User Says جزاك الله خيرا to Abu Ahmed For This Useful Post:


Similar Threads

  1. Replies: 5
    Last Post: 05-17-2016, 07:38 AM
  2. Replies: 6
    Last Post: 03-20-2016, 04:34 PM
  3. Replies: 2
    Last Post: 02-13-2016, 10:53 PM
  4. নতুন অডিও লেকচার "হে নওজোয়ান..."
    By TawhidMedia in forum অডিও ও ভিডিও
    Replies: 6
    Last Post: 09-17-2015, 12:51 PM

Posting Permissions

  • You may not post new threads
  • You may not post replies
  • You may not post attachments
  • You may not edit your posts
  •