Page 2 of 2 FirstFirst 12
Results 11 to 14 of 14
  1. #11
    Media Al-Firdaws News's Avatar
    Join Date
    Sep 2018
    Posts
    4,792
    جزاك الله خيرا
    30
    15,996 Times جزاك الله خيرا in 4,751 Posts
    বিশ্ব থেকে বিচ্ছিন্ন হওয়ার আশঙ্কা বাংলাদেশের



    বিশেষ ফ্লাইটে ঢাকা থেকে নেগেটিভ সনদ নিয়ে ইতালি যাওয়া যাত্রীদের পরীক্ষার পর কিছু ব্যাক্তির শরীরে করোনা ধরা পড়ে। এরপর ঢাকার সঙ্গে ফ্লাইট চলাচল বন্ধ করে দেয় ইতালি। এর আগে জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া এবং চীনও ঢাকার সঙ্গে বিমান যোগাযোগ বন্ধ করে দিয়েছিল একই কারণে।

    ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি বাংলা এক প্রতিবেদনে তথ্যগুলো জানায়। এর মধ্যে বাংলাদেশের আইন প্রয়োগকারী সংস্থা র*্যাব তদন্ত করে ঢাকার রিজেন্ট হাসপাতাল থেকে করোনাভাইরাস পরীক্ষার হাজার হাজার
    ভুয়া রিপোর্ট দেওয়ার প্রমাণ পেয়েছে।

    এমনকি নমুনা না নিয়ে কিংবা নমুনা নিয়ে ফেলে রেখে টাকার বিনিময়ে মনগড়া রিপোর্ট দেওয়ার প্রমাণ পেয়েছে র*্যাব, যে খবর মূহূর্তেই ছড়িয়েছে সারা বিশ্বে।

    বিমান ও পর্যটন সংক্রান্ত ম্যাগাজিন দ্য বাংলাদেশ মনিটরের সম্পাদক কাজী ওয়াহিদুল আলম জানান, বাংলাদেশের সঙ্গে যোগাযোগ আছে এমন প্রতিটি দেশ ও এয়ারলাইন্স তীক্ষ্ণ নজর রাখছে করোনা টেস্ট নিয়ে ঢাকায় কি হচ্ছে তার দিকে।

    তিনি বলেন, দ্রুত এমন কোনো ব্যবস্থা চালু করতে হবে যাতে বিদেশগামীরা করোনা পরীক্ষা করে সঠিক রিপোর্ট নিয়ে বিমানবন্দরে যেতে পারেন। না হলে বড় চাপে পড়তে পারে বাংলাদেশ, কারণ বিমানবন্দরে চার মাসেও কার্যকর স্ক্রিনিং ব্যবস্থা তৈরি হয়নি। আবার টেস্ট নিয়েও দুর্নীতি বা অনিয়ম চলতে থাকলে এভিয়েশনের ক্ষেত্রে বড় ধরণের নিষেধাজ্ঞায় পড়ে যাওয়ার আশংকাও তৈরি হতে পারে।

    বিশ্ব থেকে বিচ্ছিন্ন হওয়ার ঝুঁকি?

    ৮ মার্চ বাংলাদেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণের শুরুর পরই বিদেশ থেকে আসা বাংলাদেশীদের কোয়ারেন্টাইনে করা নিয়ে শোরগোল দেখা দিয়েছিলো যা খবর হয়েছিলো জাতীয় ও আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে। এমনকি ইতালি থেকে আসা একটি দলকে কোয়ারেন্টাইনের জন্য হজ ক্যাম্পে নিয়েও রাখা যায়নি তাদের অসহযোগিতার কারণে।

    পরে ইতালি প্রবাসীদের অনেকের এবং তারা যাদের সংস্পর্শে এসেছিলেন তাদের অনেকে করোনায় আক্রান্ত হবার খবর এসেছে। এরপর ঢাকায় দুটি প্রতিষ্ঠানের ভুয়া করোনা রিপোর্ট দেবার খবর আবার আলোচনার ঝড় তুলেছে। এর মধ্যে গত ছয় মাসেও করোনা স্ক্রিনিংয়ের কার্যকর কোনো পন্থা দাঁড় করানো যায়নি ঢাকা বিমানবন্দরে।

    পাশাপাশি ঢাকা থেকে নেগেটিভ সনদ দেখিয়ে বিমান যাত্রার পর বিদেশে গিয়ে যাত্রীর করোনাভাইরাস পজিটিভ ধরা পড়ার ঘটনায় আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে আলোচিত হয়েছে। ইতালিতে এমন যাত্রী পাওয়ার পর সেখানকার কর্তৃপক্ষ ও গণমাধ্যম এমন বাংলাদেশী যাত্রীদের নাম দিয়েছে ভাইরাস বোমা।

    দ্রুত সমস্যা অর্থাৎ নমুনা পরীক্ষা গ্রহণযোগ্য পর্যায়ে নিতে না পারলে আরও অনেক দেশ বিশেষ করে পশ্চিমা বিশ্ব থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা আছে কি না, এমন প্রশ্নের জবাবে সাবেক কূটনীতিক নাসিম ফেরদৌস বলেন, বাংলাদেশ হয়তো বিচ্ছিন্ন হবে না। তবে করোনার ভুয়া সার্টিফিকেট ইস্যুকে শক্ত হাতে ডিল করতে হবে বাংলাদেশকে।

    তিনি বলেন, এটা শুধু বাইরের দেশের ব্যাপার না। নিজেদের জন্যও বড় ব্যাপার। এখন যারা যোগাযোগ বন্ধ করছে সেটা সাময়িক। করোনা নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রসহ অনেক বড় দেশই এমন পরিস্থিতি মোকাবেলা করছে। তবে এটা ঠিক যে যেসব অভিবাসীরা ফিরে এসেছিলো তাদের ফিরে যাওয়ার ওপর প্রভাব পড়বে।

    অন্যদিকে, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্তর্জাতিক সম্পর্কের অধ্যাপক রুকসানা কিবরিয়া বলছেন, পুরোপুরি বিচ্ছিন্ন না হলেও করোনাভাইরাসকে ঘিরে যেসব অনিয়ম হচ্ছে তাতে চাপের মুখে পড়বে বাংলাদেশ।

    তিনি আরও বলেন, টেস্টিং নিয়ে যে গলদ তা দূর করার বিকল্প নেই। কারণ, আর কোনো দেশই এমন ঝুঁকি নেবেনা। তাই দেশের ভাবমূর্তি ফিরিয়ে আনা ও সম্ভাব্য সংকট থেকে বাঁচতে রাজনৈতিক উদ্যোগ নিয়ে অনিয়ম দুর করতেই হবে।

    গত ২১ মার্চ থেকে চীন ছাড়া বাকি সব গন্তব্যে ঢাকা থেকে ফ্লাইট বন্ধ করা হয় করোনা পরিস্থিতির জের ধরে। পরে আবার ভাড়া করা বা বিশেষ বিমান চালু হলেও নতুন করে সেটিও বন্ধ করেছে জাপান, কোরিয়া ও ইতালি। দশই জুন জাপানে বিমানের একটি ফ্লাইটে যাওয়া যাত্রীর শরীরে করোনাভাইরাস পাওয়া যাওয়ার পর জাপান বিমান যোগাযোগ বন্ধ করে দেয়।

    ১১ জুন চীনের চায়না সাউদার্ন এয়ারলাইন্সে এবং একই দিনে দক্ষিণ কোরিয়ায় ঢাকা থেকে যাওয়া একটি বিশেষ ফ্লাইটের যাত্রীর শরীরের করোনা ধরা পড়ে। আরব আমিরাত বিমান বাংলাদেশকে ফ্লাইট চালুর অনুমতি দিয়ে পরে আবার তা স্থগিত করেছে। আমাদের সময়

    তবে গত ১৫ জুন থেকে যুক্তরাজ্য ও কাতারের সঙ্গে বিমান চলাচলের নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়া হয়েছে। যদিও ইতালিতে ৬ জুলাই ২১ জন যাত্রীর শরীরে করোনাভাইরাস পাওয়ার পর তুমুল শোরগোল শুরু হয়। ইতিমধ্যেই এক সপ্তাহের জন্য ফ্লাইট নিষিদ্ধ করেছে ইতালি। এসময় কোনো চার্টার্ড বিমানও বাংলাদেশ থেকে যেতে পারবে না।

    এরপর তুরস্ক কর্তৃপক্ষ ১৫ জুলাই পর্যন্ত বাংলাদেশের সঙ্গে সব ফ্লাইট যোগাযোগ বন্ধের সিদ্ধান্ত নেয়। এর মধ্যে টেস্ট নিয়ে ব্যাপক অনিয়মের খবরে আরও উদ্বেগ তৈরি হয়েছে যে এর মাশুল হিসেবে বিশ্ব থেকে ক্রমশ বাংলাদেশ যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়তে পারে কি না।


    সূত্র: https://alfirdaws.org/2020/07/11/39897/
    আপনাদের নেক দোয়ায় আমাদের ভুলবেন না। ভিজিট করুন আমাদের ওয়েবসাইট: alfirdaws.org

  2. The Following 3 Users Say جزاك الله خيرا to Al-Firdaws News For This Useful Post:

    abu ahmad (2 Weeks Ago),abu mosa (3 Weeks Ago),Munshi Abdur Rahman (3 Weeks Ago)

  3. #12
    Media Al-Firdaws News's Avatar
    Join Date
    Sep 2018
    Posts
    4,792
    جزاك الله خيرا
    30
    15,996 Times جزاك الله خيرا in 4,751 Posts
    করোনার চেয়ে শক্তিশালী বাংলাদেশ কেন করোনায় বিপর্যস্ত?



    বাংলাদেশ সর্বশেষ করোনা আক্রান্ত বিশ্বে এখন ১৭তম, যেখানে মোট আক্রান্তের সংখ্যা (৯ই জুলাই-এর তথ্য অনুযায়ী) ১৭৫,৪৯৪, মৃতের সংখ্যা ২,২৩৮।

    মার্চ মাসে যখন সারা বিশ্বে কোভিড-১৯ এর তাণ্ডব চলছে, হাজারে হাজারে মানুষ মারা যাচ্ছে, উন্নত দেশগুলো হিমশিম খাচ্ছে, তখন আমাদের মন্ত্রীরা করোনা ভাইরাসকে তুচ্ছ তাচ্ছিল্য করেছেন। প্রয়োজনীয় উদ্যোগ না নিয়ে বলেছেন, আমরা করোনার চেয়ে বেশি শক্তিশালী।

    কোথায় সে মন্ত্র, কোথায় সে যাদু যা দিয়ে করোনাকে গুঁড়িয়ে দেবার কথা ভেবেছিলেন নীতি নির্ধারকরা তা আমরা জানি না, শুধু এইটুকু সহজে বোঝা যায়, এই মহামারি মোকাবেলায় সরকারের প্রস্তুতিতে যথেষ্ট ঘাটতি ছিলো, যার মাশুল গুনছেন এখন আক্রান্ত মানুষ, আর দায় শোধ করছেন মৃতেরা প্রাণ দিয়ে।

    ট্রাম্পের মৌসুমি জ্বর

    যুক্তরাষ্ট্রে মানুষ যখন করোনা ভাইরাস নিয়ে উদ্বিগ্ন, তখন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে বলতে শোনা যায়, করোনা ভাইরাস এমন কিছু না, তিনি করোনাকে মৌসুমি জ্বরের সাথে তুলনা করেন। ট্রাম্প বলেন, মৌসুমি জ্বরে গত বছর ৩৭ হাজার আমেরিকান মানুষ মারা গেছে, গড়ে প্রতিবছর ২৭ হাজার থেকে ৭০ হাজার মানুষ মারা যায়। কিছু বন্ধ থাকে না, জীবন এবং অর্থনীতি চলমান থাকে।

    মানুষকে সাহস জুগিয়ে অর্থনীতি চলমান রাখার এক ব্যর্থ প্রয়াস ট্রাম্পের এই বক্তব্য, যা যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন স্টেটে লকডাউনের পরিসীমা আর মৃতের সংখ্যার দিকে তাকালেই বোঝা যায়।

    বাংলাদেশে শুরু থেকে কঠোরভাবে লকডাউন ঘোষণা করলে, অদেখা কেস অর্থাৎ যারা আক্রান্ত হতে পারে তাদের শনাক্ত করে সঠিকভাবে আইসোলেটেড রাখতে পারলে, আজকের বাংলাদেশের রূপ অন্যরকম হতে পারতো। কিন্তু তা হয় নি।

    শুরুতে লকডাউনের পরিবর্তে বাংলাদেশে ঘোষণা করা হয়েছে সাধারণ ছুটি। আর এর ফলস্বরূপ আমরা দেখেছি লঞ্চে, বাসে একসাথে শত শত মানুষকে গায়ে গা ঘেঁষে ছুটি কাটাতে বাড়ি যেতে। অথচ সংক্রমণ ঠেকাতে সরকারের ঘোষণা করা উচিৎ ছিল স্টে ইন প্লেস অর্থাৎ যে যেখানে আছেন সেখানেই থাকবেন।

    এরপর আমরা দেখলাম শত শত মানুষ এই সাধারণ ছুটি শেষে কীভাবে দল বেঁধে শহরে ফিরে এলো আবারও ফিরে গেলো। বাংলাদেশে আমরা দেখছি অর্থনীতিকে রক্ষা করার আরেক ব্যর্থ প্রচেষ্টার ফল।

    বাংলাদেশে আক্রান্ত কতজন বা কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হয়ে মোট কতজনের মৃত্যু হয়েছে , তা বলা দুষ্কর। অচেনা মানুষের অনেক তথ্য আমরা জানিনা, তবে এমন অনেকে আছেন যারা করোনা ভাইরাসের সব উপসর্গে ভুগেছেন তাদেরও করোনার টেস্ট নেগেটিভ এসেছে।

    শুধু তাই নয় করোনার উপসর্গ নিয়ে বাড়িতে বিনা চিকিৎসায় মারা যাচ্ছেন অনেকে। প্রয়োজন হলেও অনেকে টেস্ট করাতে পারছেন না।

    বিশ্বব্যাংক গত এপ্রিলে বাংলাদেশকে ১০০ মিলিয়ন ডলার লোন দেয় শুধু করোনা মোকাবেলায় টেস্টিং, চিকিৎসা সরঞ্জাম, কন্টাক্ট ট্রেসিং ইত্যাদির জন্য। এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক (এডিবি) গত এপ্রিলে ১০০ মিলিয়ন ডলার লোন অনুমোদন দিয়েছে করোনা ভাইরাস মহামারি মোকাবেলায় জরুরি স্বাস্থ্যখাতে প্রয়োজনীয় জরুরি ব্যবস্থা নিতে।

    স্বাস্থ্য খাতে, সামাজিক নিরাপত্তায় বা অর্থনৈতিক সংকট মোকাবেলায় গৃহীত এসব অর্থের কোনো প্রতিফলন এখনও পর্যন্ত দৃশ্যমান না। সারা বিশ্ব যেখানে টেস্টের সক্ষমতা বাড়ানোর জন্য সব ধরণের উদ্যোগ নিচ্ছে, সেখানে বাংলাদেশে শুধু কিটের ঘাটতি দেখা দেয়ায় নমুনা সংগ্রহ কমিয়ে দেয়া হয়েছে।

    উচ্চহারের সংক্রমণের মুখে ৩০ হাজার নমুনা পরীক্ষার কথা বলা হলেও, এখন তা সীমিত ১৬ বা ১৭ হাজারের মধ্যে। করোনা মোকাবেলায় বাংলাদেশের এই সিদ্ধান্ত সম্পূর্ণ বিপরীতমুখী।

    বাংলাদেশ সরকারের দেয়া তথ্য মতে, জুলাই মাসের ৯ তারিখ পর্যন্ত মোট ৯০৪,৭৮৪টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে, যার ১৯.৪০ শতাংশ করোনাভাইরাস আক্রান্ত বলে শনাক্ত করা হয়েছে। অন্যদিকে প্রতিবেশী ভারত, যেখানে মোট সংক্রমণের সংখ্যা এখন বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম, নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে সেখানে শনাক্তের হার সাত শতাংশ। এই চিত্র থেকে হয়তো অনুমান করা যেতে পারে বাংলাদেশে সংক্রমণের প্রকৃত চিত্র কত ভয়াবহ হতে পারে।

    ধনী-দরিদ্রের বিভাজন

    বাংলাদেশের অর্থনৈতিক সূচকগুলি বিগত বেশ কয়েক বছর ধরে ইতিবাচক থাকলেও ধনী-দরিদ্রের বিভাজন কমেনি, কমেনি মানুষের বেকারত্ব বা কৃষকের বঞ্চনা। জিডিপির সাথে সাথে সাধারণ মানুষের বিশেষত: নিম্নবিত্ত, দরিদ্র বা হত দরিদ্র মানুষের জীবন-মান বদলায়নি।

    এই মহামারির কালে তারা কেমন আছে তা অনুমান করা যায় যখন মৃত্যুর ভয় না পেয়ে মানুষ কাজের সন্ধানে বের হয়। অথচ দেশের সকল নিপীড়িত মানুষকে সুরক্ষা দেবার দায়িত্ব সরকারের।

    বাংলাদেশে অন্তত প্রতিটি মানুষ যাতে এই সময়ে কোভিড-১৯ মোকাবেলাকেই সবচেয়ে প্রাধান্য দিতে পারে, সেজন্য প্রয়োজনীয় আর্থিক সহযোগিতা সরকারের কাছে সাধারণ মানুষের ন্যায্য পাওনা। কিন্তু পরিস্থিতি একদম উল্টো।

    মানুষ খাদ্যাভাবে আছে, জীবন হাতের মুঠোয় নিয়ে কাজের উদ্দেশ্যে বের হচ্ছে বাধ্য হয়ে, ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা এই মহামারির মধ্যেও ব্যবসা টিকিয়ে রাখতে চেষ্টা করছেন।

    সরকার ব্যর্থ হয়েছে

    দৃশ্যত: সরকার সাধারণ মানুষের কাছে প্রয়োজনীয় দুর্যোগকালীন আর্থিক সহযোগিতা পৌঁছুতে ব্যর্থ হয়েছে।

    আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ) ইতিমধ্যে কোভিড-১৯ এর কারণে বাংলাদেশে সৃষ্ট অর্থনৈতিক সঙ্কট মোকাবেলায় ৭৩২ মিলিয়ন ডলার বা ৬২২২ কোটি টাকার একটি জরুরি লোন অনুমোদন করেছে। আইএমএফ বলছে এই অর্থ বাংলাদেশ সরকার দেশের জনগণের স্বাস্থ্য সুরক্ষাসহ জনগণের সামাজিক নিরাপত্তা জোরদার এবং দেশের অর্থনীতিকে সঠিক পথে রাখতে যে প্রণোদনা কর্মসূচি নিয়েছে তা বাস্তবায়নে ব্যয় করতে হবে।

    বিশ্বব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী বাংলাদেশে হত দরিদ্রের সংখ্যা ২ কোটি ৪১ লাখ। ক্রয়ক্ষমতার সমতা অনুসারে (পিপিপি) যাদের দৈনিক আয় ১ ডলার ৯০ সেন্টের কম। বিশ্বব্যাংক বাংলাদেশের পিপিপি ডলারের মান নির্ণয় করেছে ৩২ টাকা। অর্থাৎ বাংলাদেশে ২ কোটি ৪১ লাখ মানুষ দৈনিক ৬১ টাকা ৬০ পয়সাও আয় করতে পারে না।

    এই দুর্যোগে কর্মহীন মানুষকে সরকারের ১০ টাকা কেজি চালের খাদ্য সহায়তা দেয়ার ক্ষেত্রে কিংবা রিলিফ দেয়ার ক্ষেত্রে সরকারি দলের নেতাদের ভয়ানক দুর্নীতি, অনিয়ম আমরা দেখলাম। সরকারকেই এখন সিদ্ধান্ত নিতে হবে দরিদ্র মানুষের কাছে সরকার কীভাবে, কোন পদ্ধতিতে সাহায্য পৌঁছে দেবে। এই সহায়তা সবার কাছে পৌঁছে দিতে হলে সরকারকে বিতরণের পুরো পদ্ধতি নিয়ে ভাবতে হবে।

    জবাবদিহিতার অভাব

    বিগত প্রতিটি নির্বাচনে ভোট কারসাজি, চুরিই ছিল গণমাধ্যমের খবর। আজ যারা নেতা এবং পাতি নেতা, তারা জানেন, ভোটার ছাড়াও, জনগণকে পাশ কাটিয়েও তারা নির্বাচিত হতে পারেন।

    সম্প্রতি ইমপেরিয়াল কলেজের কোভিড-১৯ অ্যানালাইসিস টুলস এর দেয়া তথ্যানুসারে বাংলাদেশে সর্বোচ্চ আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা থাকবে সেপ্টেম্বর-অক্টোবর মাসে।

    এই গবেষণা দাবি করছে, লকডাউন ও সরকারের বিভিন্ন পদক্ষেপের কারণে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা তাদের আগের টুলসে তুলে ধরা তথ্যের চেয়ে ৭৫ ভাগ কম হয়েছে। বাংলাদেশে এখনও কোভিড-১৯ আক্রান্তের সংখ্যা ক্রমবর্ধমান, প্রতিদিনই বাড়ছে মৃতের সংখ্যা। শুধু কিছু অঞ্চলকে রেড জোন ঘোষণা করে লকডাউন জারি রাখলে তা যে ক্রমশ: পরিস্থিতিকে নিয়ন্ত্রণের বাইরে নিয়ে যাবে এখন তা স্পষ্ট।

    সরকার প্রতিটি সেক্টরকে স্টিমুলাস প্যাকেজের আওতায় এনে, ইনফরমাল শ্রমিকদের অর্থ, দরিদ্র মানুষকে অর্থ সহায়তা দিয়ে, একমাত্র কঠোর লক ডাউনের মধ্যে দিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে না আনলে হয়ত শুধু মানুষই প্রাণ হারাবে না, অর্থনৈতিকভাবেও চরম বিপর্যয়ের মুখে পড়তে পারে বাংলাদেশ।

    বাংলাদেশ কোভিড-১৯ কে জয় করতে পারেনি, তবে আগামী দিনের ইতিহাসের রূপ কেমন হবে তা নির্ধারিত হবে খুব দ্রুত। সরকার কি সত্যি সত্যিই করোনার চেয়ে শক্তিশালী হয়েছে? সেই সক্ষমতা কি আমরা দেখবো সহসা? বিবিসি বাংলা


    সূত্র; https://alfirdaws.org/2020/07/11/39909/
    আপনাদের নেক দোয়ায় আমাদের ভুলবেন না। ভিজিট করুন আমাদের ওয়েবসাইট: alfirdaws.org

  4. The Following 3 Users Say جزاك الله خيرا to Al-Firdaws News For This Useful Post:

    abu ahmad (2 Weeks Ago),abu mosa (3 Weeks Ago),Munshi Abdur Rahman (3 Weeks Ago)

  5. #13
    Media Al-Firdaws News's Avatar
    Join Date
    Sep 2018
    Posts
    4,792
    جزاك الله خيرا
    30
    15,996 Times جزاك الله خيرا in 4,751 Posts
    যুব মহিলালীগ নেত্রীর বিরুদ্ধে ৩ যুবককে অপহরণের অভিযোগ



    টঙ্গীর দত্তপাড়া লেদু মোল্লা রোড এলাকায় অপহরণ করে ৩ লাখ টাকা মুক্তিপণের দাবিতে ৩ যুবককে ৮ দিন ধরে আটক রেখে অমানুষিক নির্যাতনের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

    পাশাপাশি ওই তিন যুবককে বৈদ্যুতিক শক দেয় অপহরণকারীরা। গত বৃহস্পতিবার রাতে অপহৃত ৩ যুবককে উদ্ধার করা হয়। ঘটনার মূল হোতা টঙ্গীর পাপিয়া খ্যাত পূর্ব থানা যুব আওয়ামী মহিলালীগের সাধারণ সম্পাদক পদপ্রার্থী শিল্পী আক্তার (৩৫) ও কথিত সাংবাদিক শাওন সরকার পলাতক রয়েছে। এ ঘটনায় টঙ্গী পূর্ব থানায় একটি মামলা হয়েছে।

    মামলা সূত্রে জানা যায়, ৩-৪ মাস পূর্বে ঘটনার মূল আসামি শিল্পী আক্তারের বাসায় স্বর্ণ চুরির মিথ্যে অভিযোগে গত ২ জুলাই জালাল (৩৫), খোকন (৩৫) ও রনি (২৬) নামের ৩ নিরীহ যুবককে তাদের বাসা থেকে জোরপূর্বক তুলে নিয়ে সহযোগী কথিত সাংবাদিক শাওন সরকারের বউ বাজারস্থ গোপন আস্তানায় নিয়ে যায়। সেখানে একদিন আটক রেখে বেধড়ক পিটিয়ে তাদের সাথে থাকা নগদ টাকা ও মুঠোফোন লুটে নেয় অপহরণকারীরা।

    আপহৃত তিন যুবককে উদ্ধার

    পরে হুমকি দিয়ে জালালের বাবার কাছ থেকে নগদ ১০ হাজার টাকা আদায় করে এ চক্রের সদস্যরা। এসময় তারা অপহৃতদের অমানুষিক নির্যাতনের পাশাপাশি বৈদ্যুতিক শকও দেয়। পরবর্তীতে অপহরণকারী চক্রটি অপহৃতদের ওই স্থান থেকে সরিয়ে শিল্পী আক্তারের নিজ বাড়ি দত্তপাড়ায় নিয়ে যায় এবং অপহৃতদের স্বজনদের কাছে আরও ৩ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করে।

    বিষয়টি পুলিশ কিংবা অন্য কোন ব্যক্তিকে জানালে তাদের হত্যা করে মরদেহ স্বজনদের উপহার দিবে বলেও জানায় অপহরণকারী চক্রটি। একপর্যায়ে ভুক্তভোগী পরিবারের সদস্যরা নিরুপায় হয়ে বিষয়টি থানা পুলিশকে অবহিত করলে টঙ্গী পূর্ব থানার এসআই শাহিন মোল্লাসহ একদল পুলিশ শিল্পী আক্তারের তিন বাড়িতে অভিযান পরিচালনা করে বৃহস্পতিবার রাত ৯টার দিকে অপহৃত ওই তিনজনকে উদ্ধার করে। এসময় অপহরণকারী মুন্নাকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

    পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে ঘটনার মূল হোতা শিল্পী আক্তার ও শাওন সরকার পালিয়ে যায়। এঘটনায় অপহৃত খোকনের স্ত্রী নিলুফা বেগম বাদী হয়ে গতকাল শুক্রবার টঙ্গী পূর্ব থানায় একটি অপহরণ মামলা (নং-১৮) দায়ের করেন। গ্রেফতারকৃতকে আদালতের মাধ্যমে গাজীপুর জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

    স্থানীয় বাসিন্দারা ক্ষোভের সাথে জানায়, ইতিপূর্বে সারাদেশে আলোচিত যুব মহিলালীগ নেত্রীসহ অনেক উচ্চপর্যায়ের লোকদের সাথে বেশ সখ্যতা রয়েছে টঙ্গীর পাপিয়া খ্যাত শিল্পী আক্তারের। এ সুবাদে যুব মহিলালীগের নাম ভাঙিয়ে নিরীহ লোকদের জিম্মি ও অপহরণ করে অর্থ আদায়সহ বিভিন্ন অপকর্মের সাথে জড়িত সে। তার অত্যাচারে এলাকাবাসী অতিষ্ট। এ ঘটনায় এলাকায় রাজনৈতিক নেতৃবৃৃন্দের মাঝে সমালোচনার ঝড় বইছে। বিডিআরটিএনএন


    সূত্র: https://alfirdaws.org/2020/07/11/39908/
    আপনাদের নেক দোয়ায় আমাদের ভুলবেন না। ভিজিট করুন আমাদের ওয়েবসাইট: alfirdaws.org

  6. The Following 3 Users Say جزاك الله خيرا to Al-Firdaws News For This Useful Post:

    abu ahmad (2 Weeks Ago),abu mosa (3 Weeks Ago),Munshi Abdur Rahman (3 Weeks Ago)

  7. #14
    Senior Member abu mosa's Avatar
    Join Date
    May 2018
    Location
    আফগানিস্তান
    Posts
    2,313
    جزاك الله خيرا
    16,751
    4,096 Times جزاك الله خيرا in 1,684 Posts
    ইন্নালিল্লাহ....।
    হে আল্লাহ আপনি বিশ্বের সকল মুসলিম জাতিকে এই করোনা মাহামারি থেকে হিফাজত করুন,আমী।
    হে আল্লাহ আপনি বাংলাদেশের মুসলমানদেরকে করোনা মহামারি থেকে হিফাজত করুন,আমীন।
    হে আল্লাহ আপনি বিশ্বের সকল মুজাহিদ ভাইদেরকে সুস্থ ও নিরাপদে রাখুন,আমীন।
    হে আল্লাহ আপনি বিশ্বের সকল মুজাহিদ আমির উমারাদেরকে সুস্থ ও নিরাপদে রাখুন,আমীন।
    হে আল্লাহ আপনি আমাদেরকে শহিদ হিসাবে কবুল করুন,আমীন।
    হয়তো শরিয়াহ, নয়তো শাহাদাহ,,

  8. The Following User Says جزاك الله خيرا to abu mosa For This Useful Post:

    abu ahmad (2 Weeks Ago)

Posting Permissions

  • You may not post new threads
  • You may not post replies
  • You may not post attachments
  • You may not edit your posts
  •