Page 6 of 6 FirstFirst ... 456
Results 51 to 58 of 58
  1. #51
    Senior Member কালো পতাকা's Avatar
    Join Date
    Apr 2017
    Posts
    1,756
    جزاك الله خيرا
    0
    3,995 Times جزاك الله خيرا in 1,346 Posts
    ইমাম মাহদীর আগমন সম্পর্কিত ৫ টি স্বপ্নের বর্ণনা
    https://dawahilallah.com/showthread.php?12612

    video tir ইংরেজি সাব-টাইটেল karbo inshallah
    ( গাজওয়া হিন্দের ট্রেনিং) https://dawahilallah.com/showthread.php?9883

  2. The Following 2 Users Say جزاك الله خيرا to কালো পতাকা For This Useful Post:


  3. #52
    Senior Member কালো পতাকা's Avatar
    Join Date
    Apr 2017
    Posts
    1,756
    جزاك الله خيرا
    0
    3,995 Times جزاك الله خيرا in 1,346 Posts
    ইমাম মাহদীর তালাশ ! ভাইয়েরা সময় অল্প, জেগে উঠুন, অলসতা ছাড়ুন।

    https://dawahilallah.com/showthread.php?12848

    ইমাম মাহদী বিষয়ক একটা গুরুত্বপূর্ণ পিডিএফ বই

    লিংক : https://dawahilallah.com/showthread....2453;&%232509;
    ( গাজওয়া হিন্দের ট্রেনিং) https://dawahilallah.com/showthread.php?9883

  4. The Following User Says جزاك الله خيرا to কালো পতাকা For This Useful Post:

    ওমর (04-26-2020)

  5. #53
    Junior Member
    Join Date
    Apr 2019
    Posts
    8
    جزاك الله خيرا
    4
    17 Times جزاك الله خيرا in 7 Posts
    ভাই এই Training এর ভিডিও লিংক গুলো এখন কাজ করে না। ভাই ভিডিও গুলোর নতুন লিংক দেন।

  6. #54
    Senior Member nazir as sams's Avatar
    Join Date
    Apr 2019
    Posts
    183
    جزاك الله خيرا
    244
    300 Times جزاك الله خيرا in 116 Posts
    ও আল্লাহ। আপনি আমাদেরকে যাবতিও ফেত্না থেকে হেফাজত করেন।।।
    আসলেই ভয়াবহ হালত।।

  7. The Following User Says جزاك الله خيرا to nazir as sams For This Useful Post:


  8. #55
    Senior Member কালো পতাকা's Avatar
    Join Date
    Apr 2017
    Posts
    1,756
    جزاك الله خيرا
    0
    3,995 Times جزاك الله خيرا in 1,346 Posts
    Quote Originally Posted by আদনানমারুফ View Post

    সহিহ হাদিসের আলোকে ইমাম মাহদীর পরিচয়

    ইমাম মাহদীর নাম

    عن عبد الله، قال: قال رسول الله صلى الله عليه وسلم: لا تذهب الدنيا حتى يملك العرب رجل من أهل بيتي يواطئ اسمه اسمي. رواه الترمذي (2230) وأحمد: (3573)
    وقال الترمذي: هذا حديث حسن صحيح. وقال الشيخ أحمد شاكر في تعليقه على مسند أحمد (3/494) : إسناده صحيح.
    وقال الإمام أبو بكر بن العربي في عارضة الأحوذي 9/ 77 بعد أن ذكر عدة أحاديث في المهدي وصفته وأنه من ولد فاطمة: والذي يصح من هذا كله أنه يملكها رجل من أهل بيته يواطئ اسمه اسمه.
    وأورد الإمام القرطبي في التذكرة ص 701 حديث أنس بن مالك الذي أخرجه ابن ماجه (4039) وفيه: ولا المهدي إلا عيسى ابن مريم ثم ضعفه، وقال: والأحاديث عن النبي صلى الله عليه وسلم في التنصيص على خروج المهدي من عترته من ولد فاطمة ثابتة أصح من هذا الحديث فالحكم لها دونه.
    ونقل القرطبي في التذكرة ص 701 عن أبي الحسن محمد بن الحسين بن إبراهيم السجستاني الآبري قوله: قد تواترت الأخبار واستفاضت بكثرة رواتها عن المصطفى يعني المهدي، وأنه من أهل بيته وأنه سيملك سبع سنين، وأنه يملأ الأرض عدلا، يخرج مع عيسى عليه السلام، فيساعده على قتل الدجال بباب لد بأرض فلسطين، وأنه يؤم هذه الأمة وعيسى صلوات الله عليه يصلي خلفه. وأبو الحسن الآبري هذا وصفه الحافظ الذهبي في السير 16/299 بقوله: الإمام الحافظ محدث سجستان بعد ابن حبان.
    وقال شيخ الإسلام ابن تيمية في منهاج السنة النبوية 8/254: الأحاديث التي يحتج بها على خروج المهدي أحاديث صحيحة، رواها أبو داود والترمذي وأحمد وغيرهم من حديث ابن مسعود وغيره.
    وكذلك قال تلميذه الإمام ابن القيم في المنار المنيف ….ص 148: (كذا في تعليق الشيخ شعيب الأرنؤوط على سنن أبي داود: 6/339)

    আব্দুল্লাহ বিন মাসউদ রাযি. থেকে বর্ণিত, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, দুনিয়া ধ্বংস হবে না যতক্ষণ না আমার পরিবার হতে একজন বাদশাহ হবে, যার নাম আমার নামের সাথে মিলবে। -সুনানে তিরমিযি, ২২৩০ মুসনাদে আহমদ, ৩৫৭৩

    হাদিসের মান:-
    ইমাম তিরমিযি, ইবনুল আরবী, কুরতুবী, ইবনে তাইমিয়াহ, ইবনুল কাইয়িম এবং শায়েখ আহমদ শাকের হাদিসটিকে সহিহ বলেছেন। বরং হাফেয আবুল হাসান সিজিস্তানী বলেন, “রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম থেকে মুতাওয়াতির সূত্রে বর্ণিত হয়েছে যে, মাহদীর আগমণ ঘটবে, সে আহলে বাইত থেকে হবে, সাত বছর রাজত্ব করবে, যমিনকে আদল-ইনসাফ দ্বারা পূর্ণ করে দিবে।” (সুনানে তিরমিযি, ২২৩০ আরেযাতুল আহওয়াযী, ৯/৭৭ আততাযকিরাহ, পৃ: ৭০১ মিনহাজুস সুন্নাহ, ৮/২৫৪ আলমানারুল মুনিফ, পৃ: ১৪৩ ও ১৪৬ সুনানে আবী দাউদের টীকা, শায়েখ শুয়াইব আরনাউত, ৬/৩৩৯)

    পিতার নাম
    عبد الله بن مسعود رضي الله عنه: أنَّ رسولَ الله صلى الله عليه وسلم، قال: لوْ لَمْ يَبْقَ مِنَ الدنيا إلا يوم واحد لطوّل الله ذلك اليومَ حتى يبعثَ الله فيه رجلاً مِنِّي - أو من أهل بيتي - يواطيء اسمُه اسمي، واسمُ أبيه اسمَ أبي، يملأُ الأرضَ قِسْطاً وعدلاً، كما مُلئت ظُلماً وجَوْراً. رواه أبو داود: (4282). وقال الشيخ شعيب في تعليقه على سنن أبي داود(6 : 337): (صحيح لغيره، وهذا إسناد حسن من أجل عاصم -وهو ابن أبي النجود- فهو صدوق حسن الحديث، وباقي رجاله ثقات. فطر: هو ابن خليفة، وزائدة: هو ابن قدامة، وسفيان: هو الثوري، ويحيى: هو ابن سعيد القطان .... وقال ابن الجوزي في العلل المتناهية 2/861: إسناده حسن. وفي المهدي أحاديث صالحة الأسانيد أن النبي صلى الله عليه وسلم قال: يخرج مني رجل، -ويقال: من أهل بيتي- يواطئ اسمه اسمي، واسم أبيه اسم أبي ....(

    আব্দুল্লাহ বিন মাসউদ রাযি. থেকে বর্ণিত, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, “যদি দুনিয়ার মাত্র একদিনও বাকী থাকে, তবুও আল্লাহ তায়ালা সেদিনকে দীর্ঘ করতে থাকবেন, যতক্ষণ না তিনি আমার পরিবার হতে একজন বাদশাহ বানাবেন, যার নাম হবে আমার নামের মত আর তার পিতার নাম হবে আমার পিতার নামের মত। সে যমিনকে আদল ও ইনসাফে পূর্ণ করে দিবে, যেরুপ তা অন্যায়- অবিচারে পূর্ণ ছিল।” -সুনানে আবী দাউদ, ৪২৮২; ৫/২১৫ ইসলামী ফাউন্ডেশন।

    হাদিসের মান:- ইমাম ইবনে তাইমিয়াহ, ইবনুল কাইয়িম, যাহাবী আলবানী রহ. হাদিসটিকে সহিহ বলেছেন। ইমাম ইবনুল জাওযী, শুয়াইব আরনাউত আব্দুল আলীম বুস্তাভী হাসান বলেছেন। (আলইলালুল মুতানাহিয়াহ, ২/৮৬১ মিনহাজুস সুন্নাহ, ৮/২৫৫ আলমানারুল মুনিফ, পৃ: ১৪৩ ও ১৪৬ সুনানে আবী দাউদের টীকা, শায়েখ শুয়াইব আরনাউত, ৬/৩৩৭ আলমাহদিউল মুন্তাযার, পৃ: ২৭৮)

    ইমাম মাহদীর বংশপরিচয়

    أم سلمة رضي الله عنها قالت: سمعتُ رسولَ الله صلى الله عليه وسلم يقول: المهدِيُّ من عِترتي من ولدِ فاطمةَ. أخرجه أبو داود (4284) وقال الشيخ شعيب في تعليقه على سنن أبي داود: إسناده ضعيف لضعف زياد بن بيان. قال البخاري في "تاريخه الكبير" 3/ 346: في إسناده نظر، ونقله العقيلي في "الضعفاء" 2/ 76 عن البخاري وأقره عليه. وقال الذهبي في "المغني في الضعفاء": لم يصح خبره. وقال المنذري في "اختصار السنن" 6/ 160 بعد أن نقل كلام العقيلي: وقال غيره: وهو كلام معروف من كلام سعيد بن المسيب، والظاهر أن زياد بن بيان وهم في رفعه.
    وقال الشيخ أحمد بن محمد بن الصديق الغماري : سكت عليه الحاكم والذهبي في التلخيص، وهو حديث صحيح أو حسن، كما حكم به الحُفّاظ، إذ رجاله كلهم عدول أثبات، أما سعيد بن المسيب فلا تسأل عن جلالته وإتقانه، فإنه رأس علماء التابعيين وفردهم وفاضلهم وفقيههم.
    وأما علي بن نفيل فقد أثنى عليه أبو المليح، وقال أبو حاتم لا بأس به، وذكره ابن حبان في الثقات، ولم يتكلم فيه أحد بجرح.
    وأما زياد بن بيان فقال البخاري: قال عبد الغفار: حَدَّثَنَا أبو المليح سمع زياد بْن بيان - وذكر من فضله، وقال النسائي: ليس به بأس، وذكره ابن حبان في الثقات، وقال: كان شيخا صالحا.
    وأما أبو المليح الرقي فقال أحمد بن حنبل: ثقة، ضابط لحديثه، صدوق، وقال أبو حاتم: يكتب حديثه. وقال الدارقطني: ثقة. وكذا قال عثمان الدارمي عن ابن معين، وذكره ابن حبان في الثقات.
    وأما من دونه فلا نطيل بذكر توثيقهم لكثرتهم وشهرة الحديث عن أبي المليح، فقد رواه عنه عبد الله بن جعفر الرقي، وأحمد بن عبد الملك وعبد الله بن صالح، وعمرو بن خالد الحراني، فحال سند الحديث على ما ترى من الجودة والصحة، فالحديث صحيح خصوصا مع انضمام الشواهد. (إبراز الوهم المكنون من كلام ابن خلدون، ص: 500 ط. الترقي، 1347 هـ).
    وقال الشيخ عبد العليم البستوي بعد تفصيل طرق الحديث وبيان أحوال رجاله : إذا نظرنا في رجال الإسناد لا نرى فيهم مغمزا، فكلهم من الذين يُحتج بأمثالهم لدى العلماء، أما كلام العقيلي في علي بن نفيل بأنه لا يُتابع عليه، فلا حاجة إلى المتابعة. وأما قول البخاري في ترجمة زياد بن بيان: في إسناده نظر فليس جرحا في الراوي، ولكنه يرى النظر في إسناد الرواية، ولم أجد من فسَّر وجه النظر هذا سوى ما أشار إليه ابن الجوزي من أنه كلام معروف لسعيد بن المسيب، وأن زياد بن بيان وهم في رفعه، وذكره المنذري أيضا دون أن يسمي قائله، وسيأتي كلام ابن المسيب هذا في الآثار (برقم 17) وإسناده بمجموع طرقه حسن. إذن فليس هو أحسن حالا من هذا الإسناد حتى يكون علة لتضعيف هذا الحديث. ولا منافاة بين الروايتين، فهذا القول من الأمور الغيبية التي لا يقول بها ابن المسيب رحمه الله إلا إذا كان عنده خبر صحيح من الصادق الأمين صلى الله عليه وسلم، لا سيما، وأن ابن المسيب لم يعرف برواية الإسرائيليات، ولا الأخذ من أهل الكتاب، فقول ابن المسيب جاء جوابا على استفسار عن المهدي، وهل هو حق أم لا، فأوضح بأنه حق، وأنه من ولد فاطمة. وجاءت رواية علي بن نفيل هذه، فبينت الخبر الذي اعتمد عليه ابن المسيب رحمه الله في فتاواه، فكلا الخبرين عنه صحيح، والله أعلم.
    وقد سكت عليه أبو داود، وقال في رسالته إلى أهل مكة: وما لم أذكر فيه شيئا فهو صالح، وبعضها أصلح من بعض.
    وأورده السيوطي في الجامع الصغير ورمز له بالصحة.
    وقال العزيزي في السراج المنير بشرح الجامع الصغير إسناده حسن.
    وقال الألباني في سلسلة الأحاديث الضعيفة والموضوعة: هذا سند جيد رجاله كلهم ثقات، وله شواهد كثيرة ...

    উম্মে সালামাহ রাযি. হতে বর্ণিত, রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, “মাহদী আমার ঔরসজাত ফাতেমার বংশ থেকে হবে” -সুনানে আবু দাউদ, ৫/২১৫।

    হাদিসের মান:- ইমাম বুখারী, হাফেয উকাইলী, মুনযিরি ও যাহাবী রহ. হাদিসটিকে যয়ীফ বলেছেন। শুয়াইব আরনাউত এ মতটিই গ্রহণ করেছেন। আল্লামা সিরাজুদ্দীন আযীযী (মৃ: ১০৭০) শায়েখ আহমদ গুমারী, (মৃ: ১৩৮০) শায়েখ আলবানী ও ডক্টর আব্দুল আলীম বুস্তাভী (মৃ: ১৪৩৭ হি.) হাদিসটিকে হাসান বলেছেন। -ইবরাযুল ওয়াহমিল মাকনুন, পৃ: ৫০০ আলমাহদিউল মুন্তাযার, পৃ: ২২৬

    মূলত হাদিসটির সনদ হাসান পর্যায়ের। তবে হাদিসের রাবীদের মাঝে মতভেদ হয়েছে। কেউ হাদিসটিকে রাসুলের হাদিস রুপে বর্ণণা করেছেন। কেউ তাবেয়ী সাঈদ বিন মুসাইয়িবের নিজস্ব বাণীরুপে। তবে হাদিসটি রাসুলের বাণী হোক বা সাঈদ বিন মুসাইয়িবের সর্বাবস্থায় তা দলিল হওয়ার যোগ্য। কেননা ইমাম মাহদি ফাতেমা রাযি. এর সন্তান হওয়া ভবিষ্যতের বিষয়, যা সাঈদ বিন মুসাইয়িব আন্দাযে ধারণা করে বলতে পারেন না। বরং এ বিষয়টি তিনি কোন সাহাবীর সূত্রে রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের হাদিস থেকে জেনেছেন এটাই স্বাভাবিক। তবে তিনি সূত্র উল্লেখ না করে এবং রাসুলের বাণী হিসেবে না বলে এমনিই বলে দিয়েছেন। তো এটা বেশি থেকে বেশি সাঈদ বিন মুসাইয়িবের মুরসাল হাদিস হবে। আর সাঈদ বিন মুসাইয়িবের মুরসাল হাদিসও মুহাদ্দিসদের নিকট গ্রহণযোগ্য। (দেখুন, আততামহিদ, হাফেয ইবনে আব্দুল বার, ১/৩০ আলমুকিযাহ, হাফেয যাহাবী, পৃ: ৩৮ কাওয়ায়েদ ফি উলুমিল হাদিস, যফর আহমদ উসমানী, পৃ: ১৫১)

    ডক্টর আব্দুল আলীম বুস্তাভী রহ. বলেন, সাইদ বিন মুসাইয়িব কখনো এটাকে রাসুলের হাদিস হিসেবে বর্ণণা করেছেন আর কখনো তার নিকট মাহদির বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে তিনি সূত্র উল্লেখ না করে ফতোয়াপ্রদানের মত বলে দিয়েছেন যে, মাহদী ফাতেমার সন্তানদের মধ্য থেকে হবে। তাই যারা হাদিসটিকে রাসুলের হাদিস হিসেবে বর্ণণা করেছেন তাদেরটাও সহিহ আর যারা সাইদ বিন মুসাইয়িবের নিজস্ব বাণী হিসেবে বর্ণণা করেছেন তাদেরটাও সহিহ। -আলমাহদিউল মুন্তাযার, পৃ: ২২৬

    তাছাড়া মাহদির ফাতেমী বা সাইয়েদ হওয়ার বিষয়ে একাধিক হাদিস রয়েছে যার দ্বারা আলোচ্য হাদিসটি আরো শক্তিশালী হয়, সুনানে আবু দাউদে বর্ণিত হয়েছে,
    عن أبي إسحاق، قال: قال علي، ونظر إلى ابنه الحسن، فقال: إن ابني هذا سيد، كما سماه النبي صلى الله عليه وسلم، وسيخرج من صلبه رجل يسمى باسم نبيكم صلى الله عليه وسلم يشبهه في الخلق، ولا يشبهه في الخلق، ثم ذكر قصة: يملأ الأرض عدلا. رواه أبو داود، (4290) وقال الشيخ شيعب: (6/347) : إسناده ضعيف لإبهام شيخ أبي داود فيه، وأبو إسحاق -وهو عمرو بن عبد الله السبيعي- رأى عليا رضي الله عنه، ولم تثبت له رواية عنه.
    وأخرجه نعيم بن حماد في "الفتن" (1113) عن غير واحد، عن إسماعيل بن عياش، عمن حدثه، عن محمد بن جعفر، عن علي بن أبي طالب. وفي إسناده مبهمون كما ترى.
    আবু ইসহাক সাবিয়ী রহ. বলেন, আলী রাযি. হাসান রাযি. এর দিকে তাকিয়ে বলেন, “আমার এ ছেলেকে রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সাইয়েদ-নেতা বলেছেন। অচিরেই তার বংশে এমন একব্যক্তি জন্মগ্রহণ করবে যার নাম হবে তোমাদের নবীর অনুরূপ। স্বভাব-চরিত্রে সে নবীজির মতই হবে তবে তার দৈহিক গড়ন নবীজি থেকে ভিন্ন হবে। সে আদল-ইনসাফ দ্বারা পৃথিবীকে পূর্ণ করে দিবে।” -সুনানে আবু দাউদ, ৪২৯০; ৫/২১৭


    হাদিসের মান:- হাদিসের রাবী আবু ইসহাক সাবিয়ী রহ. আলী রাযি. এর যমানা পাননি। তাই হাদিসটি মুরসাল। আর আবু ইসহাক সাবিয়ীর মুরসাল হাদিস মুহাদ্দিসদের নিকট যয়ীফ। তাছাড়া ইমাম আবু দাউদ হাদিসের সনদে তার শায়খের নাম উল্লেখ করেননি। বরং এভাবে বলেছেন, حدثت عن هارون بن المغيرة অর্থাৎ আমার নিকট হারুন বিন মুগীরার সূত্রে হাদিস বয়ান করা হয়েছে। (দেখুন, সুনানে আবু দাউদ, তাহকীক শায়েখ শুয়াইব ৬/৪৪৭ তাদরীবুল রাবী, হাফেয সুয়ুতী, ১/২৩২)

    তবে হাদিসটি পূর্বে বর্ণিত হাদিসটির শাহেদ-সমর্থক হওয়ার যোগ্য। সুতরাং এ হাদিস ও পূর্বের হাদিস মিলিয়ে প্রমাণ হয়, ইমাম মাহদী সাইয়েদ বা আলী রাযি. এর বংশধর হবেন। কিন্তু যেহেতু হাদিসটি এককভাবে যয়ীফ তাই এই হাদিসের আলোকে ইমাম মাহদী হাসান রাযি. এর বংশধর হওয়া প্রমাণিত হয় না। বরং তিনি হুসাইন রাযি. এর বংশধরও হতে পারেন। যদিও ইমাম ইবনুল কাইয়িম ও ইবনে কাসীর রহ. উল্লিখিত হাদিসের কারণে বলেছেন, “মাহদী হাসান রাযি. এর বংশধর হবেন।” আর এর অন্তর্নিহিত কারণ হিসেবে ইবনুল কাইয়িম উল্লেখ করেছেন, “যেহেতু হাসান রাযি. আখেরাতের সওয়াবের আশায় মুসলমানদের ঐক্যের লক্ষ্যে খেলাফতের দাবী ত্যাগ করেছিলেন, তাই আল্লাহ তায়ালা এর প্রতিদান স্বরুপ তার বংশধরদের মধ্য হতে মাহদীকে রাজত্ব দান করবেন। এটাই আল্লাহ তায়ালার রীতি, যে আল্লাহর জন্য কোন কিছু ত্যাগ করে আল্লাহ তাকে বা তার বংশধরকে তার চেয়ে উত্তম জিনিষ প্রদান করেন।” -দেখুন, আলমানারুল মুনিফ, পৃ: ১৫১ আননিহায়া ফিল ফিতান, 1/55

    ইমাম মাহদীর দৈহিক গড়ন
    عن أبي سعيد الخدري، قال: قال رسول الله صلى الله عليه وسلم: المهدي مني أجلى الجبهة، أقنى الأنف، يملأ الأرض قسطا وعدلا، كما ملئت جورا وظلما، يملك سبع سنين. أخرجه أبو داود. (4285) وقال الشيخ شعيب في تعليقه على مسند أحمد (6 : 342) : (جيد بهذا اللفظ، سهل بن تمام بن بزيع -وإن كان ضعيفا- متابع -وعمران القطان - وهو ابن داور- حسن الحديث، وقد روي حديثه هذا من وجه آخر حسن في المتابعات، سيأتي ذكره. وذكر ابن الجوزي هذا الحديث في "العلل المتناهية" (1443) ثم قال 2/ 861: لا بأس به. وجود إسناده ابن قيم الجوزية في "المنار المنيف" ص 144. وصححه الحاكم 4/ 557، لكن تعقبه الذهبي بقوله: عمران ضعيف. قلنا: القول قول من قوى هذا الحديث، لأن عمران لم ينفرد به. أبو نضرة: هو المنذر ابن مالك بن قطعة.
    وأخرجه الطبراني في "غريب الحديث" 2/ 191 من طريق عفان بن مسلم، والحاكم 4/ 557 من طريق عمرو بن عاصم الكلابي، كلاهما عن عمران القطان، بهذا الإسناد.
    وأخرجه أحمد (11130)، وأبو يعلى (1128)، وابن حبان (6826) من طريق مطر بن طهمان الوراق، عن أبي الصديق الناجي، عن أبي سعيد الخدري. وهذا إسناد حسن في المتابعات.
    قال الراقم عفا الله عنه: أما عمران القطان فقد قال الشيخ عوامة في تعليقه على مصنف ابن أبي شيبة (21 : 81) : (وثقه غير واحد، ومشاه آخرون، وممن وثقه تلميذه عفان ...) وقال الحافظ في التقريب (ص 429) : (صدوق يهم، و رمي برأى الخوارج). وقد حسَّن الترمذي حديثه في الجامع : (3934) وكذا حسَّن الحافظ حديثه في فتح الباري كما في تحفة اللبيب: (1 : 610) وقال الحافظ في التلخيص (4/335 ط. القرطبة) فيه مقال إلا أنه ليس بمتروك، وقد استشهد به البخاري، وصحح له ابن حبان والحاكم).
    وقال أيضا في تهذيب التهذيب : (8 : 131 ط. دائرة المعارف النظامية، الهند، 1326هـ) قال عمرو بن علي: (كان ابن مهدي يحدث عنه وكان يحيى لا يحدث عنه، وقد ذكره يحيى يوما فأحسن الثناء عليه. وقال عبد الله بن أحمد، عن أبيه: أرجوه أن يكون صالح الحديث. وقال الدوري عن ابن معين: ليس بالقوي، وقال مرة: ليس بشيء لم يرو عنه يحيى بن سعيد. وقال الآجري، عن أبي داود: هو من أصحاب الحسن وما سمعت إلا خيرا، وقال مرة: ضعيف أفتي في أيام إبراهيم بن عبد الله بن حسن بفتوى شديدة فيها سفك الدماء، قال: وقدم أبو داود أبا هلال الراسبي عليه تقديما شديدا. وقال النسائي: ضعيف. وقال ابن عدي: هو ممن يكتب حديثه. وذكره بن حبان في الثقات. وقال أبو المنهال، عن يزيد بن زريع: كان حروريا، كان يرى السيف على أهل القبلة. قلت: في قوله: حروريا نظر ...
    وقال الساجي: صدوق وثقه عفان .... وقال الترمذي: قال البخاري صدوق بهم. وقال ابن شاهين في الثقات: كان من أخص الناس بقتادة. وقال الدارقطني: كان كثير المخالفة والوهم. وقال العجلي: بصري ثقة. وقال الحاكم: صدوق).
    وأما مطر بن طهمان فقد قال عنه الذهبي في السير (10 : 54 ط. الرسالة) : (الإمام، الزاهد، الصادق، ... حدث عنه: شعبة، .... وغيره أتقن للرواية منه، ولا ينحط حديثه عن رتبة الحسن. وقد احتج به: مسلم. قال يحيى بن معين: صالح. وقال أحمد بن حنبل: هو في عطاء ضعيف. وقال النسائي: ليس بالقوي. وكان يحيى القطان يشبه مطرا بابن أبي ليلى في سوء الحفظ. .... وقال محمد بن سعد: فيه ضعف في الحديث. (سير أعلام النبلاء: 1/59)
    قلت: فحديث كل منهما يصلح للاحتجاج به عند الانفراد، فكيف إذا اجتمعا، وقوّٰى أحدُهما الآخرَ؟
    আবু সাইদ খুদরী রাযি. হতে বর্ণিত, রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, “মাহদী আমার বংশোদ্ভুত হবে, তার কপাল প্রশস্ত ও নাক উঁচু হবে। সে জুলুম-অত্যাচারে ভরা পৃথিবীকে আদল-ইনসাফ দ্বারা পূর্ণ করে দিবে। সে সাত বছর রাজত্ব করবে।” সুনানে আবু দাউদ, ৪২৮৫; ৫/২১৬ মুসনাদে আহমদ, ১১১৩০

    হাদিসের মান:- ইমাম ইবনুল জাওযী বলেন, “হাদিসটিতে কোন সমস্যা নেই”। ইবনুল কাইয়িম হাদিসটির সনদকে ‘জাইয়িদ’ বলেছেন, যা সহিহ ও হাসানের মধ্যবর্তী স্তর। শায়েখ শুয়াইব আরনাইত হাদিসটিকে হাসান বলেছেন।

    হাকেম রহ. হাদিসটিকে সহিহ বলেন, হাফেয যাহাবী তার উপর আপত্তি করে বলেন, “হাদিসের একজন রাবী ইমরান যয়ীফ,” কিন্তু শায়েখ শুয়াইব আরনাউত যাহাবী রহ. এর মত খন্ডন করে বলেন, “হাদিসটি ইমরানের একক বর্ণণা নয় বরং মুসনাদে আহমদে ‘মাতর বিন তহমানে’র সূত্রেও হাদিসটি বর্ণিত হয়েছে” খোদ ইমাম যাহাবীই বলেছেন, “তার হাদিস হাসান পর্যায়ের, এর চেয়ে নিচের নয়”। ইমাম মুসলিম তার হাদিস সহিহ মুসলিমে এনেছেন। তাছাড়া ইমরানও একেবারে যয়ীফ নন, অনেক ইমাম তাকে নির্ভরযোগ্য বলেছেন। তাই তার হাদিস হাসান পর্যায়ের হবে, বিশেষকরে যদি তা তার একক বর্ণণা না হয়। (দেখুন, সিয়ারু আলামীন নুবালা, ১০/৫৯ তাহযীবুত তাহযীব, হাফেয ইবনে হাযার, ৮/১৩১ সুনানে আবু দাউদের টীকা, শায়েখ শুয়াইব আরনাউত, মুসান্নাফে ইবনে আবী শাইবার টিকা, শায়েখ আওয়ামা, ২১/৮১ )

    একটি প্রশ্ন:- এখানে একটি প্রশ্ন হতে পারে যে, ইমাম মাহদীর পরিচয় সংক্রান্ত সহিহ হাদিস তো একেবারেই অল্প। তাহলে এত সামান্য আলামতের ভিত্তিতে আমরা তাকে কিভাবে চিনবো?

    উত্তর:- আল্লাহ তায়ালা ইমাম মাহদীর আবির্ভাবের পূর্বে তাকে চিনার দ্বায়িত্ব আমাদের দেননি। বরং আল্লাহ ও তার রাসুল আমাদের যা আদেশ দিয়েছেন আমরা তা পালন করলেই ইমাম মাহদীকে পেয়ে যাবো এবং তার দলে শরিক হতে পারবো ইনশাআল্লাহ। নিচের হাদিসটি লক্ষ্য করুন,


    عن جابر بن عبد الله، قال: سمعت النبي صلى الله عليه وسلم يقول: لا تزال طائفة من أمتي يقاتلون على الحق ظاهرين إلى يوم القيامة، قال: فينزل عيسى ابن مريم صلى الله عليه وسلم، فيقول أميرهم: تعال صل لنا، فيقول: لا، إن بعضكم على بعض أمراء تكرمة الله هذه الأمة. صحيح مسلم: (156) صحيح ابن حبان (6819) المنتقى لابن الجارود (1031) مسند أحمد : (14720)

    আমার উম্মতের একটি দল কিয়ামত পর্যন্ত সর্বদা হকের উপর প্রতিষ্ঠিত থেকে বাতিলের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে থাকবে। পরিশেষে ইসা আলাইহিস সালাম অবতরণ করবেন। তখন ঐ দলের আমীর বলবেন, আসুন, নামাযে আপনি ইমামতি করুন। ইসা আলাইহিস সালাম উত্তর দিবেন, না, আপনারাই একে অপরের ইমাম, এটা আল্লাহ তায়ালার পক্ষ থেকে এই উম্মাহর জন্য (বিশেষ) সম্মাননা।” -সহিহ মুসলিম, ৬৮১৯ সহিহ ইবনে জারুদ, ১০৩১ সহিহ ইবনে হিব্বান, ৬৮১৯ মুসনাদে আহমদ, ১৪৭২০

    হাদিস থেকে সুস্পষ্টরুপে বুঝে আসে, যারা সর্বদা জিহাদ চালিয়ে যাবে তারাই ইমাম মাহদীর বাহিনী হবে, ইমাম মাহদী তাদের আমির হবেন। আর এখন যারা জিহাদী দলগুলোকে বাতিল মনে করে জিহাদ থেকে বিরত থাকছে, আল্লাহ-রাসুলের আদেশ অমান্য করে ঘরে বসে ইমাম মাহদীর আগমণের প্রতীক্ষা করছে, বস্তুত তারা ইমাম মাহদী আসলেও তার ব্যাপারে সংশয় পোষণ করবে। তাদের সবচেয়ে বড় সংশয় তো এটাই হবে যে, ইমাম মাহদী কিভাবে আলকায়েদা-তালেবানের মত ভ্রান্ত দলের আমীর হতে পারেন?!

    এখন যেমন কাফের ও তাদের দোসর মুরতাদ সরকাররা জিহাদে প্রতিবন্ধকতা তৈরী করছে, শরিয়তের সমস্ত দলিল উপেক্ষা করে দরবারী আলেমরা জিহাদ বিরোধী ফতোয়া দিচ্ছে, তখনও যে পরিস্থিতি এরচেয়ে ভিন্ন হবে এমন ভাবার কোন কারণ নেই।


    তাছাড়া তারা যে ভাবছে, মাহদীর আগমণ ঘটলেই তারা মুহুর্তে দুনিয়ার সমস্ত ঝই-ঝামেলা পেছনে ফেলে মাহদীর সাহাযার্থ্যে ছুটে যাবে, এটা অলীক কল্পনা বৈ কিছুই নয়। জিহাদ কোন চাট্টিখানি বিষয় নয়। জিহাদের জন্য মানসিক-শারিরীক-বস্তুগত সব ধরণের পূর্বপ্রস্তুতির প্রয়োজন রয়েছে। যারা জিহাদের আকাংক্ষা পোষণ করার দাবী করে কিন্তু এর জন্য কোন প্রস্ততি গ্রহণ করে না কুরআনের সাক্ষ্য অনুযায়ী তারা মিথ্যাবাদী। আল্লাহ তায়ালা বলেন,
    وَلَوْ أَرَادُوا الْخُرُوجَ لَأَعَدُّوا لَهُ عُدَّةً (سورة التوبة : 46)
    ‘যদি যুদ্ধে যাবার ইচ্ছাই তাদের থাকতো তবে এর জন্য কিছু না কিছু প্রস্তুতি অবশ্যই গ্রহণ করতো’। -সুরা তাওবাহ, ৪৬

    আয়াতের তাফসীরে ইমাম কুরতুবী রহিমাহুল্লাহু বলেন,
    قوله تعالى : {وَلَوْ أَرَادُوا الْخُرُوجَ لَأَعَدُّوا لَهُ عُدَّةً} أي لو أرادوا الجهاد لتأهبوا أهبة السفر. فتركهم الاستعداد دليل على إرادتهم التخلف. (تفسير القرطبي 8/156 ط. دار عالم الكتب)

    ‘অর্থাৎ যদি তারা যুদ্ধ করতে চাইতো তাহলে সফরের প্রস্তুতি গ্রহণ করতো। সুতরাং তাদের প্রস্তুতি গ্রহণ না করা, যুদ্ধে অংশগ্রহণ করার ইচ্ছা না থাকার দলিল’।

    ইমাম জাসসাস রহিমাহুল্লাহু বলেন,
    قال الله تعالى: {ولو أرادوا الخروج لأعدوا له عدة} فذمهم على ترك الاستعداد والتقدم قبل لقاء العدو.اهـ

    ‘আল্লাহ তায়ালা বলেন, যদি তারা যুদ্ধে বের হওয়ার ইচ্ছা করতো, তবে এর জন্য প্রস্তুতিগ্রহণ করতো।” যুদ্ধের সময় আসার পূর্বেই প্রস্তুতি গ্রহণ না করার কারণে আল্লাহ তাআলা তাদেরকে তিরস্কার করেছেন’। -আহকামুল কুরআন: ৩/৮৯

    আল্লামা সা’দী রহিমাহুল্লাহু (মৃত্যু: ১৩৭৬ হি.) বলেন,
    يقول تعالى مبينا أن المتخلفين من المنافقين قد ظهر منهم من القرائن ما يبين أنهم ما قصدوا الخروج للجهاد بالكلية، وأن أعذارهم التي اعتذروها باطلة، فإن العذر هو المانع الذي يمنع إذا بذل العبد وسعه، وسعى في أسباب الخروج، ثم منعه مانع شرعي، فهذا الذي يعذر.
    {و} أما هؤلاء المنافقون فـ {لَوْ أَرَادُوا الْخُرُوجَ لأعَدُّوا لَهُ عُدَّةً} أي: لاستعدوا وعملوا ما يمكنهم من الأسباب، ولكن لما لم يعدوا له عدة، علم أنهم ما أرادوا الخروج. (تفسير السعدي: 339 ط. مؤسسة الرسالة)

    আল্লাহ তায়ালা (এ আয়াতে) বলছেন, (তাবুক) যুদ্ধে যে মুনাফিকরা অংশগ্রহণ করেনি, তাদের থেকে এমন কিছু আলামত প্রকাশ পেয়েছে, যা দ্বারা বোঝা যায় তাদের জিহাদে যাওয়ার কোন ইচ্ছাই ছিল না এবং যেসব বাহানা তারা পেশ করেছে সেগুলো একেবারেই অবান্তর। কেননা প্রকৃত উযর হলো ঐ প্রতিবন্ধকতা যা বান্দা তার সাধ্যের সবটুকু করার পর এবং যুদ্ধে যাওয়ার আসবাব-মাধ্যম অর্জনের চেষ্টা করার পর দেখা দেয়, সুতরাং এমন উযর যার রয়েছে তাকে ক্ষমা করা যায়। পক্ষান্তরে এই মুনাফিকরা যদি যুদ্ধে যাওয়ার ইচ্ছা রাখতো তাহলে তারা প্রস্তুতি গ্রহণ করতো এবং যেসব আসবাব গ্রহণ করা তাদের জন্য সম্ভব ছিলো সেগুলো গ্রহণ করতো। কিন্তু যেহেতু তারা যুদ্ধের জন্য কোন প্রস্তুতিই গ্রহণ করেনি তো বোঝা গেলো তাদের যুদ্ধে যাওয়ার ইচ্ছা একদমই ছিলো না। -তাফসীরে সা’দী: পৃ: ৩৩৯

    আল্লামা শাওকানী রহিমাহুল্লাহু বলেন,
    ولو أرادوا الخروج لأعدوا له عدة أي: لو كانوا صادقين فيما يدعونه- ويخبرونك به- من أنهم يريدون الجهاد معك، ولكن لم يكن معهم من العدة للجهاد ما يحتاج إليه، لما تركوا إعداد العدة، وتحصيلها قبل وقت الجهاد كما يستعد لذلك المؤمنون، فمعنى هذا الكلام: أنهم لم يريدوا الخروج أصلا، وإلا استعدوا للغزو. (فتح القدير: 2/522 ط. دار الوفاء)

    “যদি তারা যুদ্ধে যাওয়ার ইচ্ছা করতো তবে যুদ্ধের জন্য প্রস্তুতি গ্রহণ করতো। অর্থাৎ তারা যে দাবী করে যে, আপনার সাথে যুদ্ধে যাওয়ার ইচ্ছা তাদের ছিল, কিন্তু তাদের নিকট যুদ্ধে যাওয়ার প্রয়োজনীয় আসবাব ছিল না,- যদি তারা তাদের এই দাবীতে সত্যবাদী হতো তাহলে যুদ্ধের সময় আসার পূর্বেই যুদ্ধের জন্য প্রস্তুতি গ্রহণ করতো, যেমনিভাবে মুমিনরা যুদ্ধের জন্য প্রস্তুতি গ্রহণ করে। সুতরাং এ বাক্যের অর্থ হলো, তাদের যুদ্ধে যাওয়ার কোন ইচ্ছাই ছিলো না। নতুবা তারা প্রস্তুতিগ্রহণ করতো। -ফাতহুল কাদীর, ২/৫২২

    সুনানে নাসায়ীর হাদিসে এসেছে, মানুষ যখন জিহাদে যাওয়ার ইচ্ছা করে তখন শয়তান তাকে নানা কুমন্ত্রণা দিতে থাকে। শয়তান বলে, তুমি জিহাদে যাবে? এতে তোমার কত কষ্ট হবে, তোমার ধনসম্পদ ক্ষতিগ্রস্থ হবে। তুমি যুদ্ধে নিহত হবে তখন তোমার (প্রাণপ্রিয়) স্ত্রীকে অন্য কেউ বিয়ে করবে, তোমার (কষ্টার্জিত) ধনসম্পদ অন্যরা ভাগাভাগি করে নিয়ে যাবে। -সুনানে নাসায়ী, ৩১৩৪

    আল্লাহ তায়ালা আমাদেরকে জিহাদের পথে অবিচল রাখুন, রাসুল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এ হাদিসের উপর আমল করার তাওফিক দান করুন,
    فإذا لقيتموهم فاصبروا، واعلموا أن الجنة تحت ظلال السيوف
    “কাফেরদের সাথে তোমাদের মোকাবেলা হলে অবিচল থেকে (যুদ্ধ করো)। আর জেনে রাখো, জান্নাত তো তরবারীর ছায়াতলেই।” -সহিহ বুখারী, ২৯৬৬ সহিহ মুসলিম, ১৭৪২

    رَبَّنَا أَفْرِغْ عَلَيْنَا صَبْرًا وَثَبِّتْ أَقْدَامَنَا وَانْصُرْنَا عَلَى الْقَوْمِ الْكَافِرِينَ
    رَبَّنَا اغْفِرْ لَنَا ذُنُوبَنَا وَإِسْرَافَنَا فِي أَمْرِنَا وَثَبِّتْ أَقْدَامَنَا وَانْصُرْنَا عَلَى الْقَوْمِ الْكَافِرِينَ

    আজ এখানেই শেষ করছি, আগামীতে ইনশাআল্লাহ সহিহ হাদিসের আলোকে ইমাম মাহদীর রাজত্বকাল এবং তার রাজত্বকালে মুসলমানদের বিজয়, সমৃদ্ধি ও প্রাচূর্য এবং অন্যান্য বিবরণ তুলে ধরবো ইনশাআল্লাহ।
    ইমাম মাহদী নিয়ে গবেষণামূলক একটি সাইট হচ্ছে
    https://blackflagseriesinbangla.wordpress.com/
    ( গাজওয়া হিন্দের ট্রেনিং) https://dawahilallah.com/showthread.php?9883

  9. The Following 2 Users Say جزاك الله خيرا to কালো পতাকা For This Useful Post:

    আলোকিত হৃদয় (03-26-2020),ওমর (04-26-2020)

  10. #56
    Member আলী ইবনুল মাদীনী's Avatar
    Join Date
    Jul 2019
    Location
    Pakistan
    Posts
    608
    جزاك الله خيرا
    136
    1,595 Times جزاك الله خيرا in 514 Posts
    ভাই!লেখাগুলো আনেক সুন্দর হয়েছে ৷ তবে মাঝে মাঝে দাড়ি,কমা ইত্যাদি দিলে বুঝতে সহজ হত ৷
    "জিহাদ ঈমানের একটি অংশ ৷"-ইমাম বোখারী রহিমাহুল্লাহ

  11. The Following User Says جزاك الله خيرا to আলী ইবনুল মাদীনী For This Useful Post:

    মারজান (05-12-2020)

  12. #57
    Member আলোকিত হৃদয়'s Avatar
    Join Date
    Feb 2020
    Location
    হিন্দুস্তান
    Posts
    216
    جزاك الله خيرا
    1,459
    458 Times جزاك الله خيرا in 165 Posts
    মাশাআল্লাহ
    খুব গুরুত্বপূর্ণ ও যুগ উপযোগী পোষ্ট
    আল্লাহ তুমি ভায়ের খেদমতগুলো কবুল কর
    আমিন
    মুমিনের একটাই স্লোগান,''হয়তো শরীয়াহ''নয়তো শাহাদাহ''

  13. The Following User Says جزاك الله خيرا to আলোকিত হৃদয় For This Useful Post:

    মারজান (05-12-2020)

  14. #58
    Senior Member কালো পতাকা's Avatar
    Join Date
    Apr 2017
    Posts
    1,756
    جزاك الله خيرا
    0
    3,995 Times جزاك الله خيرا in 1,346 Posts
    ইমাম মাহদী সংক্রান্ত হাদীস গুলো নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ একটা পিডিএফ বই সকলকে পড়ার অনুরোধ

    ডাওনলোড লিংক


    https://mega.nz/file/bhkCACDI#CHKX7q...7XJDX-eXL6x7sg

    https://my.pcloud.com/publink/show?c...4D8hFs9mBiBbRk

    https://archive.org/details/imam-mahdi_202005
    ( গাজওয়া হিন্দের ট্রেনিং) https://dawahilallah.com/showthread.php?9883

  15. The Following User Says جزاك الله خيرا to কালো পতাকা For This Useful Post:

    মারজান (05-12-2020)

Similar Threads

Posting Permissions

  • You may not post new threads
  • You may not post replies
  • You may not post attachments
  • You may not edit your posts
  •