PDA

View Full Version : শেষ যামানায় রাসুলুল্লাহর (ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭ ﺳﻠﻢ) পরিবর্তে কেন ঈসা (عليه السلام) অবতরণ করবেন?



Umm Khawla
01-11-2020, 12:25 AM
শেষ যামানায় রাসুলুল্লাহর (ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭ ﺳﻠﻢ) পরিবর্তে কেন ঈসা *(عليه السلام) অবতরণ করবেন?
-শাইখ আবু কাতাদাহ আল ফিলিস্তিনি হাফিজাহুল্লাহ্
.
আল্লাহ্ মহামহিম শেষ যামানায় আমাদের নবির ( ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭ ﺳﻠﻢ ) পরিবর্তে ঈসাকে (عليه السلام) পাঠাবেন। কারণ আল্লাহ্ তায়ালা বলেন: {'আর তোমার রব যা ইচ্ছা ও পছন্দ করেন তাই সৃষ্টি করেন। তাদের কোনো পছন্দের স্বাধীনতা নেই..'} [আল-কাসাস, ৬৮]

এবং এর পিছনে একটি হিকমাহ আছে। তা হলো, খ্রিষ্টান ও ইয়াহুদিরা ঈসাকে (عليه السلام) নিয়ে মিথ্যা ও বানোয়াট কথা বলে। খ্রিষ্টানরা দাবি করে, তারা ঈসাকে (عليه السلام) হত্যা করেছে এবং আমাদের নবি ( ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭ ﺳﻠﻢ ) আমাদেরকে জানিয়েছেন যে, শেষ যামানায় তিনি (ঈসা) অবতরণ করবেন। তিনি অবতরণ করলে আমরা এথেকে দুইভাবে উপকৃত হতে পারি,
.
প্রথমত, নবির ( ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭ ﺳﻠﻢ ) বাণী সত্য এবং তিনি আখেরি নবি। তিনি ( ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭ ﺳﻠﻢ ) তাঁর রবের পক্ষ হতে যা কিছু বলেন, সবই সত্য। কেননা এই অবশ্যম্ভাবী ঘটনা সম্পর্কে তিনি আমাদের আগেই অবহিত করেছিলেন।
সুতরাং এ ঘটনার ফলে একথা সত্য প্রমাণিত হবে যে, নবি মুহাম্মাদ ( ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭ ﺳﻠﻢ ) আখেরি নবি। যদি তিনিই আবার অবতরণ করতেন তাহলে বাড়তি কোনো উপকার থাকতো না। কিন্তু যখন ঈসা (عليه السلام) অবতরণ করবেন এবং আমাদের নবির ( ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭ ﺳﻠﻢ ) শরিয়াহ্ অনুসরণ করবেন ও সেই অনুযায়ি শাসনকার্য পরিচালনা করবেন এবং নিজ ও অন্যদের উপর এর অনুসরণকে অত্যাবশকীয় করবেন শুধু তাই নয়, বরং প্রত্যাশিত মাহদির পিছনে সালাত আদায় করবেন তখনই তা দ্ব্যর্থহীনভাবে প্রতিষ্ঠিত হবে যে, আমাদের নবি মুহাম্মাদ শেষ নবি ( ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭ ﺳﻠﻢ ) এবং তাঁর শরিয়াহর পর আর কোনো ওয়াহি (বা শরিয়াহ্) নাযিল হবে না এবং ঈসার অনুসারিরাও এমনকি যাদের কাছে ইঞ্জিলের মূল বা অবিকৃত সংস্করণ আছে, তারাও তা থেকে উপকার লাভের দাবি করতে পারবে না যেহেতু, স্বয়ং ঈসা (عليه السلام) নবির ( ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭ ﺳﻠﻢ ) শরিয়াহ্ অনুসরণ করবেন।
.
দ্বিতীয়ত, খ্রিষ্টানরা ঈসার ব্যাপারে বানোয়াট মিথ্যা রটনা করতো।

ঈসা (عليه السلام) অবতরণের ফলে মাসিহ দাজ্জাল প্রকৃত মাসিহর হাতে খুন হবে। যেহেতু মারইয়াম পুত্র ঈসা মিথ্যা মাসিহকে হত্যা করবেন সুতরাং এর ফলে মুমিন মাসিহ দ্বারা কাফির মাসিহ ধ্বংস হবে৷

পাশাপাশি, ঈসা (عليه السلام) হচ্ছেন সেই নবি যার ব্যাপারে কুরআনে বলা হয়েছে যে, তিনি নবির ( ﺻﻠﻰ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭ ﺳﻠﻢ ) ব্যাপারে সুসংবাদ জানিয়েছিলেন। মহান আল্লাহ্ বলেন, {'...এবং একজন রাসুলের সুসংবাদদাতা যিনি আমার পরে আসবেন, তার নাম আহমাদ।} [আস সফ, ৬]
.
ইঞ্জিলেও একইরকম বর্ণিত হয়েছে।
সুতরাং, তিনি অবতরণ করার পর দেখবেন যে, যারা নিজেদেরকে তার অনুসরণকারী হিসেবে দাবি করতো তারা কি তাঁর এই সুসংবাদ শ্রবণ করেছিলো? কিংবা তারা কি ইচ্ছাকৃতভাবে তাদের কুফরি ও জিদের উপর অটল ছিলো?
_
আসসালামু আলাইকুম ওয়া রহমাতুল্লাহি ওয়া বারাকাতুহ্।

আলী ইবনুল মাদীনী
01-11-2020, 07:20 PM
মুহতারাম ভাই!কথা গুলো নির্ভরযোগ্য কিতাবের দলিল দিলে ভাল হত ৷ তবে আমার উদ্দেশ্য এটা নয় যে,উক্ত আলেম গ্রহণ জগ্য আলেম নয় ৷ বরং আমার উদ্দেশ্য হল,গ্রহণ জগ্য কিতাবের দলিল দিলে অন্যের সামনে বা সাধারণ আলেমদের সামনে কোন প্রয়োজনে সেটা উপস্থাপন করতে সহজ হয় ৷