PDA

View Full Version : দাওলা ও কায়েদার মধ্যে মুবাহালার মহাপ্লা



musafir2
07-18-2015, 09:59 AM
দাওলা ও কায়েদার মধ্যে
মুবাহালার মহাপ্লাবন.
মুবাহালা কি ?
=========
মুবাহালা হলো কোন বিষয়ে দুই পক্ষের মধ্যে বিরোধ থাকলে বিবদমান বিষয়ে সত্য প্রকাশ করে দিবার জন্য এবং মিথ্যাবাদীর মুখোশ উন্মোচন এবং তার উপর আল্লাহর গজব নাজিল হবার জন্য দোয়া করা । উলামাগনের মতে এবং তাদের অভিজ্ঞতা অনুসারে মুবাহালাহ করার দিন থেকে মোটামুটি ১ বছরের মধ্যে এর ফলাফল দেখা যায় ।
সিরিয়াতে মুবাহালায় অংশগ্রহনকারী পক্ষ :
========================
জাবাত আল নুসরাহ (আল কায়েদা) এর পক্ষে তাদের মজলিস এ শুরার সদস্য আবু আব্দুল্লাহ শামী এবং দাওলা (ইসলামিক স্টেট) এর পক্ষে তাদের মুখপাত্র আবু মুহাম্মদ আদনানী ।
সিরিয়াতে আল কায়েদার শাখা জাবাত আল নুসরাহ এবং ইসলামিক স্টেট এর মধ্যে যখন বিরোধ শুরু হয়, তখন জাবাত আল নুসরাহ এর মজলিসে শুরার সদস্য আবু আব্দুল্লাহ আশ শামী ৫ মার্চ ২০১৪ সালে এক স্টেটম্যান্ট দেন যাতে যাতে দাওলার বিরুদ্ধে ১৮ টি অভিযোগ ছিল ।
লিঙ্ক=
http://anonym.to/?https://pietervanostaeyen.wordpress.com/2014/03/08/a-message-from-abu-abdullah-as-shami-member-of-majlis-shura-of-jabhat-an-nusra-and-a-member-of-the-shariah-committee
অভিযোগ গুলো দাখিল করার পর উনিবলেন, “After all these details itbecame clear to us that everyone who fights ISIS they will consider to be fighting against Islam. And this is from the way they act and conduct themselves even if it’s not in their official statements.”
অর্থাৎ সব কিছু বিচার বিবেচনা করার পর এটা আমাদের কাছে পরিস্কার, যারাই দাওলার বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে দাওলা মনে করে তারা ইসলামের বিরুদ্ধে যুদ্ধে লিপ্ত । এবং এই নীতির ভিত্তিতে দাওলা কাজ করে এবং নিজেদেরকে পরিচালিত করে যদিও এটা তারা অফিশিয়ালী স্বীকার করে না । আবু আব্দুল্লাহ শামীর এই অভিযোগের পর দাওলা মুখপাত্র আবু মুহাম্মদ আদনানী ৭ মার্চ ২০১৪ সালে “Then let us supplicate and invoke the curse of Allah upon the liars” অর্থাত
“মিথ্যাবাদীদের উপর আল্লাহর লানত বর্ষিত হোক” শিরোনামে এক বিবৃতি প্রদান করেন ।
লিঙ্ক=
http://anonym.to/?https://pietervanostaeyen.wordpress.com/2014/03/08/abu-muhammad-al-adnani-about-the-allegations-made- against-isis-by-jabhat-an- nusra-leader-abu-abdullah- al-shami/
এই বিবৃতীতে আবু আব্দুল্লাহ শামী কর্তৃত উথ্থাপিত অভিযোগ আদনানী শুধু অস্বীকারই করেন নি, উল্টা মুবাহালার ডাক দেন । আদনানী বলেন,”হে আল্লাহ, আমাদের মধ্যে যে ই মিথ্যা বলুক, তার উপর আপনি লানত বর্ষন করুন, আমাদের কাছে তার ব্যাপারে দলিল প্রকাশ করে দিন এবং তাকে আমাদের জন্য নজীর হিসেবে উপস্থাপন করুন ।” আদনানী আরও বলেন, “হে আল্লাহ, আমাদের যে কেউই জিহাদ এবং মুজাহিদীনদের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করবে, সেই ষড়যন্ত্র তার উপরই ফিরিয়ে দিন, আর যারা এই বিষয়ের ওয়াকেফহাল তাদের জন্য তাকে উদাহরন বানিয়ে দিন । হে আল্লাহ, তার উপর রোগ ব্যাধি আর বালা মুসীবত চাপিয়ে দিন ।” পরবর্তীতে ১৭ এপ্রিল ২০১৪ সালে আবু মুহাম্মদ আদনানী “This was never our manhaj and never will be” অর্থাত “এটা কখনও আমাদের মানহাজ ছিল না, না কখনও হবে” শিরোনামে আরেকটি বিবৃতি প্রদান করে ।
লিঙ্ক=
http://anonym.to/?https://pietervanostaeyen.wordpress.com/2014/04/18/message-by-isis-shaykh-abu-muhammad-al-adnani- as-shami/
এই বিবৃতীতে আবারও দৃঢ়তার সাথে আদনানী মুবাহালার ষোষনা দিয়ে বলেন,’’ হে আল্লাহ, যারা মুজাহিদীনদের সারীকে বিভক্ত করে, তাদের বক্তব্যকে খন্ডিত করে, কুফফারদের আনন্দিত করে, বিশ্বাসীদের রাগান্বিত করে এবং জিহাদকে বহু বছর পিছনে নিয়ে যায়, তাদের সাথে আপনি ন্যায়সঙ্গত আচরন করুন ।” মোটামুটি এই হলো দাওলার আবু মুহাম্মদ আদনানী এবং জাবাত আল নুসরাহ এর আবু আব্দুল্লাহ শামী এর মধ্যে অনু্ঠিত হওয়া মুবাহালা । ৩ ফেব্রুয়ারী ২০১৪ সালে আল কায়েদা দাওলার সাথে সম্পর্ক ছেদ করার পর এই মুবাহালা অনুষ্ঠিত হয় । মুবাহালার পরবর্তী ঘটনা :মুবাহালার পর জুন মাসে দাওলা ঝটিকা আক্রমনে ইরাকের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর মসুল দখল করে । প্রায় ৩০০০০ ইরাকী শীয়া কাপুরুষ সোলজার হাজার খানেক দাওলার যোদ্ধার ভয়ে কোন যুদ্ধ না করেই মসুল থেকে পলায়ন করে । এমনকি জান বাঁচানোর জন্য অনেকে ইউনিফর্ম ত্যাগ করে সিভিল ড্রেসে পলায়ন করে । দাওলা একই সাথে তিকরিত এবং আনবারের কিছু অংশও
জয় করে । সিরিয়াতে বিদ্রোহীদের কাছ থেকে তারা আগে থেকেই রাক্কা প্রদেশ দখল করে নিয়েছিল । ২৯ জুন ২০১৪ সালে দাওলা তাদের দখলে থাকা সিরিয়ার রাক্কা ইরাকের মসুল, তিকরিত এবং আনবারের কিছু অংশ নিয়ে খিলাফাহ ঘোষনা করে এবং আবু বকর বাগদাদীরে খলিফা হিসেবে ঘোষনা করে ।
ইরাকের মসুল দখল করার পর দাওলা ইরাকী দালাল সরকারকে প্রদত্ত বিপুল পরিমান আমেরিকান সামরিক সরঞ্জাম হস্তগত করে যার মধ্যে ছিল ২৩০০ আমেরিকান হামভি । একই সাথে তারা মসুলের কেন্দ্র্রীয় ব্যাংক থেকে বিপুল পরিমান স্বর্ন এবং অর্থ হস্তগত করে । এসব অর্থ এবং অস্রের কারনে দাওলা রাতারাতি সামরিকভাবে শক্তিশালী হয়ে উঠে । তারা ইরাকে প্রাপ্ত সামরিক সরঞ্জামের একটা অংশ সিরিয়ার রাক্কাতে প্রেরন করে । এদিকে দাওলার সাথে সম্পর্কচ্ছেদ করার পর কায়েদার আমির আইমান জাওয়াহিরী সিরিয়ার আল কায়েদার ব্রাঞ্চ জাবাত আল নুসরার আমির আবু মুহাম্মদ জাওলানীকে নির্দেশ প্রদান করেন দাওলার সাথে সংষর্ষ রক্তপাত এড়িয়ে চলার জন্য । সিরিয়ার দেইর আজ্জুর প্রদেশ ছিল তখন জাবাত আল নুসরর শক্ত ঘাটি । দাওলা ইরাক থেকে প্রাপ্ত সামরিক সরঞ্জাম দিয়ে দেইর আজ্জুর এ জাবাত আল নুসরার উপর হামলা করে । তারা প্রায় বীনা প্রতিরোধে দেইর আজ্জুর দখল করে নেয় । জাবাত আল নুসরাহ সহ অন্য দলগুলো রক্তপাত এড়ানোর জন্য কোন প্রতিরোধ না করে সিরিয়ার ইদলিব প্রদেশে চলে যায় । মোটামুটি এই সময়টাতে দাওলা সামরিকভাবে কিছু সফলতা অর্জন করে । তারা তাদের অফিশিয়াল ম্যাগাজিন দাবিক সহ স্যোসাল মিডিয়াতে প্রচার করে এগুলো সবই মুবাহালার ফল । মুবাহালার কারনে জাবাত আল নুসরাহ এর উপর আল্লাহর লানত বর্ষিত হয় এবং এই কারনে তাদের দেইর আজ্জুর হাতছাড়া হয় । আমার মতো কিছু মানুষ এখানে একটা ছোট ভূল করে ফেলে । তারা দাওলার সামরিক সফলতাকে মুবাহালার রেজাল্ট মনে করতে থাকে । এটা ছিল ভূল । মুবাহালাতে আল্লাহর কাছে দোয়া করা হয় কে সত্যবাদী আর কে মিথ্যাবাদী তা প্রকাশ করে দিবার জন্য, এটার সাথে যুদ্ধে জয় পরাজয়ের কোন সম্পর্ক নেই ।

বাকি অংশ নিচে..........

musafir2
07-18-2015, 10:00 AM
................মুবাহালার এক বছর পর :
===============
ইরাক সিরিয়াতে সামরিক সফলতার কারনে দাওলা অতিরিক্ত আত্মবিশ্বাসী হয়ে উঠে । তারা লিবিয়া, নাইজেরিয়া, আলজেরিয়া, মিশর, ইয়েমেনে একের পর এক উলাইয়া বা প্রদেশ ঘোষনা করতে থাকে । এভাবে প্রদেশ ঘোষনা করতে করতে একপর্যায়ে তারা তালেবানদের ঘাঁটি খোরাসান বা আফগানে প্রদেশ ঘোষনা করে । একপর্যায়ে তাদের হামলায় কয়েকজন তালেবান নিহত হয় । শামের ফিতনা নিয়ে বরাবর চুপ থাকা তালেবান এইবার মুখ খুলতে বাধ্য হয় । তালেবানদের নায়েবে আমির মোল্লা মনসুর এক বিবৃতীতে দাওলাকে ভাই বলে সম্বোধন করেন এবং বিনীতভাবে অনুরোধ করেন খোরাসানে নতুন কোন দল, পতাকা, স্লোগান না তৈরি করার জন্য । তিনিও এটাও বলেন, যদি দাওলা এই ধরনের কাজ করে তবে তা শুধু রক্তপাত তৈরি করবে এবং এর সুফল পাবে আমেরিকান ক্রুসেডাররা । তিনি আরও বলেন, তাদের ইমারতের এর বিরুদ্ধে এমন কোন অভিযোগ নাই যার উপর ভিত্তি করে তাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করা যায় । মোল্লা মনসুরের বিবৃতির জবাবে ২৩ জুন ২০১৫ সালে আবু মুহাম্মদ আদনানী “O Our People Respond to the Caller of Allah” শিরোনামে বিবৃতি প্রদান করেন ।
লিঙ্ক=
http://anonym.to/?https://pietervanostaeyen.wordpress.com/2015/06/23/o-our-people-respond-to- the-caller-of allah-audio- statement-by-shaykh-abu- muhammad-al-adnani-as- shami/

ইতিমধ্যে মুবাহালার ১ বছর পার হয়েগেছে । অত্যন্ত বাকপটু (বাকপটুরা অধিকাংশ ক্ষেত্রে মিথ্যাবাদী হয়) আবু মুহাম্মদ আদনানী মনে হয় মুবাহালায় দেয়া তার বক্তব্য ভুলে গিয়েছিলেন । তিনি অত্যন্ত অদ্ভুতভাবে মুবাহালায় দেয়া তার বক্তব্যের বিপরীত বক্তব্য প্রদান করেন । তিনি খোরাসানে তার সোলজারদের তালিবানদের উপর কঠোর হামলার নির্দেশ প্রদান করে বলেন, “এবং খোরাসানে অনেকে আছে যারা নিজেদেরকে আল্লাহর রাহে মুজাহিদ দাবী করে, যখন তাদের মিত্রতা পাকিস্থানের গোয়েন্দা সংস্থা এবং অন্যান্যদের সাথে । আমরা সে সকল লোকদেরকে সতর্ক করছি এবং তওবাহ করার জন্য আহবান করছি । যারাই তওবাহ করে না এবং তাদের তওবাহ ঘোষনা করে না, তারা যেন নিজেদের ছাড়া অন্য কাউকে দোষারোপ না করে । হে মুজাহিদিন, এদের প্রতি কোন করুনা বা দয়া প্রদর্শন করবেন না ।” তারপরই তিনি বলেন, “We likewise renew our call to the soldiers of the factions in Shām and Libya. We call on them to think long before embarking to fight the Islamic State, which rules by that which Allah revealed. Remember, O you afflicted by fitnah, before embarking to fight the Islamic State, that there is no place on the face of the Earth where the Sharī’ah of Allah is implemented and the rule is entirely for Allah except for the lands of the Islamic State. Remember that if you were able to capture one hand span, one village, or one city from it, the rule of Allah in that area would be replaced with the rule of man. Then ask yourself, “What is the ruling on someone who replaces or is a cause for the replacement of the rule of Allah with the rule of man?” Yes, you become a disbeliever because of that. So beware, for by fighting the Islamic State you fall into kufr whether you realize it or not.” অর্থাত, “একইভাবে আমরা শাম এবং লিবিয়ার বিভিন্ন দলের সৈন্যদের প্রতি আমাদের আহবান নবায়ন করছি । আমরা তাদের আহবান করছি তারা যেন দাওলাতুল ইসলামিয়ার সাথে যুদ্ধে লিপ্ত হবার আগে ভালোভাবে চিন্তা করে নেয়, যা আল্লাহর নাযিলকৃত কিতাব দ্বারা শাসন করে । হে ফিতনাহে আপতিত ব্যাক্তি, দাওলাতুল ইসলামিয়ার সাথে যুদ্ধ করার আগে
মনে করে নাও, দাওলাতুল ইসলামের ভূমি ছাড়া পৃথিবীতে এমন কোন ভূমি নেই যেখানে আল্লাহর শরীয়াহ প্রতিষ্ঠিত এবং হুকুম পুরোপুরি আল্লাহর জন্য । জেনে রাখ, যদি তুমি তা থেকে এক বিঘত পরিমান জমি বা একটি গ্রাম অথবা একটি শহর দখল করতে সক্ষম হও, তাহলে সেখানে আল্লাহর বিধান মানব রচিত আইন দ্বারা প্রতিস্থাপিত হবে । তারপর নিজেকে প্রশ্ন করো, ‘তার ব্যাপারে শরিয়াহর হুকুম কি, যে আল্লাহর শরীয়াহকে মানব রচিত আইন দ্বারা প্রতিস্থাপিত করে বা তা করতে সাহায্য করে?’ হ্যাঁ, সেই কারনে তুমি একজন কাফিরে পরিনত হবে । তাই সাবধান, দাওলাতুল ইসলামের বিরুদ্ধে যুদ্ধের কারনে তুমি কুফরে পতিত হবে, তুমি তা উপলব্ধি করো আর না করো ।” আদনানীর এই বক্তব্য ১ বছর আগে মুবাহালায় দেয়া তার বক্তব্যের সম্পূর্ন বিপরীত । এখন আমরা বলতে পারি আবু আব্দুল্লাহ শামী যা বলছিল তাই ই ঠিক । আবার দেখেন আবু আব্দুল্লাহ শামী ১ বছর আগে বলছিল, ““After all these details it became clear to us that everyone who fights ISIS they will consider to be fighting against Islam. And this is from the way they act and conduct themselves even if it’s not in their official statements.” অর্থাৎ সব কিছু বিচার বিবেচনা করার পর এটা আমাদের কাছে পরিস্কার, যারাই দাওলার বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে
দাওলা মনে করে তারা ইসলামের বিরুদ্ধে যুদ্ধে লিপ্ত । এবং এই নীতির ভিত্তিতে দাওলা কাজ করে এবং নিজেদেরকে পরিচালিত করে যদিও এটা তারা অফিশিয়ালী স্বীকার করে না । আদনানী এটা অস্বীকার করে বলছিল, “Oh God punish the person that’s lying (from us two) and make him an example for others.” ”হে আল্লাহ, আমাদের মধ্যে যে ই মিথ্যা বলুক, তার উপর আপনি লানত বর্ষন করুন, আমাদের কাছে তার ব্যাপারে দলিল প্রকাশ করে দিন এবং তাকে আমাদের জন্য নজীর হিসেবে উপস্থাপন করুন ।” আর ১ বছর পর আদনানী কি বলতেছে ?
আদনানী এখন স্পষ্ট করে বলতেছে, “So beware, for by fighting the Islamic State you fall into kufr whether you realize it or not.” “তাই সাবধান, দাওলাতুল ইসলামের বিরুদ্ধে যুদ্ধের কারনে তুমি কুফরে পতিত হবে, তুমি তা উপলব্ধি করো আর না করো ।”
ভাইলোগ, এখন আপনারা বিচার বিবেচনা করেন, কে সত্যবাদী আর কে মিথ্যাবাদী । আল্লাহ আমাদের সবাইকে বিচার বিবেচনা করার ক্ষমতা দিয়ে দিছে এবং আল্লাহ একই সাথে আবু মুহাম্মদ আদনানীর মুখ দিয়ে সত্য মিথ্যা প্রকাশ করে দিছে । আমি মনে করি, আমরা মুবাহালার ফল পেয়ে গেছি । সত্য প্রকাশ হয়ে গেছে এবং মিথ্যা সন্দেহ সংশয় এর কুয়াশা দূর হয়ে গেছে । এখন যার ইচ্ছে সত্যটা বুঝে নিক । ঝকঝকে ভিডিও, চকচকে খেলাফতি ঘোষনা আর বাকপটুদের কথার মায়াজাল কাউকে সত্য বুঝতে এবং মিথ্যাবাদীদের চিনতে যেন বাধা না দেয় । খুব খুব খিয়াল কইরা কিন্তু..............
--------------------------------
সংগৃহীত

Hazi Shariyatullah
07-19-2015, 10:26 PM
ভাই musafir2,
আপনাকে আল্লাহ তায়ালা উত্তম প্রতিদান দিন। এমন একটি পোষ্ট আমি ভাইদের থেকে আশা করছিলাম। ইংলিশে যেহেতু আমি বেশী দক্ষ নই তাই দাউলার ম্যাগাজিন গুলো পরা হয় না। আর তাদের অফিসিয়াল স্টেটমেন্টে ও ম্যাগাজিনে তাদের তাকফিরি ও খারেজী আকিদাগুলো প্রকাশ হয়,যা আমাদের ভাইদের কাছে স্পষ্ট করে তুলে ধরা খবই জরুরী। আপনি যেই পয়েন্টটি তুলে ধরেছেন আল হামদুলিল্লাহ একধম মূল বিষয়ে হাত দিয়েছেন। দাউলা যে অন্যান্য মুজাহিদদেরকে তাকফীর করে তা আদনানীর নিচের কথা দ্বারা আল্লাহ তায়ালা স্পষ্ট করে দিয়েছেনঃ-
“So beware, for by fighting the Islamic State you fall into kufr whether you realize it or not.” “তাই সাবধান, দাওলাতুল ইসলামের বিরুদ্ধে যুদ্ধের কারনে তুমি কুফরে পতিত হবে, তুমি তা উপলব্ধি করো আর না করো ।”
======>>
তাই ভাই মুসাফির২, আমাদের অনেক ভাই দাউলার এই ধুম্রজালে পরে আছে। তাদেরকে এই ফিতনা থেকে আল্লাহ তায়ালা রক্ষা করুন। আপনার প্রতি আমার বিনীত অনুরোধ এই ব্যাপারে আরো এই ধরনের ডকুমেন্ট সংগ্রহ করে পোষ্ট করুন। এবং এই ব্যাপারে আমাকে সহযোগীতা করুন। আল্লাহ তায়ালা আপনাকে মদদ করুন। আপনার এই পোষ্টা আমাকে কি পরিমান ফায়দা দিয়েছে বলে বুঝাতে পারবো না আখি। এই ধরনের অথেনটিক পোষ্ট আরো বেশি পরিমানে ও তড়িৎ আশা করছি। সকলেই এই সত্যকে ছড়িয়ে দিন।

Hazi Shariyatullah
07-19-2015, 10:32 PM
ভাই মুসাফির২,
দাউলার ভ্রান্তি গুলো তুলে ধরে একটা সংকলন করলে অনেক ফায়দা হত। তাহলে এটা সকল ভাইদের মাঝে ছড়িয়ে দেওয়া যেতো। এটা খুবই জরুরী হয়ে পড়েছে । আমি এই ব্যাপারে আপনাকে হেল্প করতে চেস্টা করবো ইনশাল্লাহ।

musafir2
07-20-2015, 01:07 AM
জাঝাকুমুল্লাহ ! নিচের পোস্টটি পড়া যায়। আশা করি উপকার পাবেন।
যে সত্য গ্রহণ করতে চায় !
# মুহতারাম ভাই ! খুব উত্তম একটি পরামর্শ । অন্যান্য ভাইদের কাছে সহযোগিতা ও দুয়া চাই।
আল্লাহ কারিম।

Hazi Shariyatullah
07-20-2015, 02:12 AM
জী ভাই, এটা পড়েছি।
জাযাকুমুল্লাহ খাইর । আল্লাহ তায়ালা আপনাকে তাউফিক দিন।
দাবিক ম্যাগাজিন টি দেখতে পারেন।

titumir
07-20-2015, 12:00 PM
জাঝাকাল্লাহ অাখি, বারাকাল্লাহ

abu asim
07-21-2015, 08:13 PM
Assalamua'laikum,
Jajhakumullah khairan akhee.Bangladesher nobbo kharijira bolse adnanir kono boktobbo dabik theke release kora sara kono tai grohonjoggo noi.borong tara bolse tader khilafar bisoye kono prokar negetive montobbo korle, indirectly hottar humki disse.

musafir2
07-21-2015, 09:08 PM
আসসালামু আলাইকুম আখি !
এ যুগের খারিজিরা আমাদেরকে হত্যার হুমকি দিচ্ছে। কারণ আমরা তাদের কথিত খেলাফতের বিরুধিতা করি। ঠিক এ সকল কারণেই তারা সিরিয়ায় আমাদের ভাইদের কাফের ইত্যাদি আখ্যা দিয়ে শহীদ করে দিচ্ছে। তবুও এত অকারণ দলিল তলব কেন?

আর তোমরা তাদেরকে আদ জাতির মত হত্যা কর!

আল্লাহ্* আমাদের সকল প্রকার ফেতনা থেকে হেফাজত করুন। ও তা নির্মুলের তাওফিক দান করুন। আমীন

abu asim
07-23-2015, 07:08 AM
jajhakumullah vai,
kew ki amake dabik er link ta dite paren insa.tahole khub kaje lagto insa.

Hazi Shariyatullah
07-23-2015, 09:58 AM
ভাই,
"dabiq" লিখে গোগলে সার্চ দিলেই আশা করি লিঙ্ক পেয়ে যাবেন।
ভাই, বাংলাদেশের যে সকল খাওয়ারিজরা আমাদের ভাইদেরকে হুমকি দিচ্ছে তাদের একটা লিষ্ট ও তাদের ঠিকানা সংগ্রহ করা দরকার মনে হয়। যাতে তাদের ব্যাপারে স্টেপ নেওয়া যায়। কি বলেন ভাইয়েরা ?

AbdulMajed
07-23-2015, 10:18 AM
আসসালামু আলাইকুম আখি !

নিচের লিঙ্ক গুলোতে খুজুন.......

http://anonym.to/?http://www.clarionproject.org/news/islamic-state-isis-isil-propaganda-magazine-dabiq

http://anonym.to/?https://azelin.files.wordpress.com

http://anonym.to/?https:/jihadology.net/category/dabiq-magazine/

AbdulMajed
07-23-2015, 10:24 AM
আসসালামু আলাইকুম আখি !
খুব গুরুত্বপূর্ণ একটি পরামর্শ দিয়েছেন। এ বিষয়ে বড় ভাইদের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।