PDA

View Full Version : রাখাইনে রোহিঙ্গাদের এনভিসি কার্ড নিতে বাধ্য করছে সেনারা



khalid-hindustani
11-05-2017, 07:27 AM
http://cdn.banglatribune.com/contents/cache/images/700x0x1/uploads/media/2017/11/04/345b3d4883d85e13544a07c0043d19c0-59fdf49079a6f.jpgমিয়ানমারের রাখাইনে জাতীয় যাচাইকরণ প্রক্রিয়ায় ওই প্রদেশে থাকা রোহিঙ্গাদের ন্যাশনাল ভেরিফিকেশন কার্ড (এনভিসি) গ্রহণে বাধ্য করা হচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। সম্প্রতি মোবাইল ফোনে রাখাইনের মংডুতে থাকা একাধিক রোহিঙ্গার সঙ্গে কথা বললে তারা এ অভিযোগ করেন। এছাড়া, বাংলাদেশে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের কাছেও এমন অভিযোগ পাওয়া গেছে। গত ১ অক্টোবর রাখাইনে শুরু হয় ওই যাচাইকরণ প্রক্রিয়া।
মাসখানেক আগে বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছেন মংডুর ওয়ামইজ্জাদি পাড়ার বাসিন্দা জাকির হোসেনের ছেলে ইয়াসির আরাফাত (৩০)। তিনি বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘মিলিটারিরা এনভিসি কার্ড নিতে রোহিঙ্গাদের বাধ্য করছে। তারা (মিলিটারিরা) পাড়ায় পাড়ায় এসে রোহিঙ্গাদের বলছে, “এনভিসি কার্ড নিলে কিছু করব না। আর যদি না নাও তাহলে পুড়িয়ে মারব।”’

বাংলাদেশে আসার পর ইয়াসির দুবার রাখাইনে গিয়েছিলেন। একবার মা-বাবাকে এবং দ্বিতীয়বার ভাইকে নিয়ে আসতে তিনি দেশে ফিরে যান।
http://cdn.banglatribune.com/contents/cache/images/700x0x1/uploads/media/2017/11/04/2762d88cec056b355ed6d02b8fc06870-59fdf0523a701.jpgপরে তার মোবাইল ফোন দিয়ে মিয়ানমারের মংডুর দংখালী চরে অবস্থান করা আরও দুজন রোহিঙ্গার সঙ্গে কথা হয় এ প্রতিবেদকের। ইয়াসির প্রথমে তার ছোট ভাই বশির আহমেদকে কল করেন। পরে তাকে বললে তিনি ওই চরে থাকা তার দুই প্রতিবেশীকে ধরিয়ে দেন। মিয়ানমারে থাকা ওই দুই রোহিঙ্গাও একই অভিযোগ করেন।
বুচিদং হরমুরা পাড়ার আব্দুর রহিমের ছেলে আব্দুর রহমান মোবাইল ফোনে বলেন, ‘বৌদ্ধরা আমাদের পাড়ায় এসে বলে, “তোমাদের এনভিসি কার্ড নিতে হবে। যদি এনভিসি কার্ড নাও, তাহলে তোমরা যেকোনও বাস, গাড়িতে চড়তে পারবা। দেশের যেকোনও জায়গায় যেতে পারবা। আর না নিলে তোমাদের মিলিটারিরা এখানে থাকতে দিবে না।” মোবাইল ফোনে সৈয়দ নূর নামে রাখাইনে থাকা আরেক রোহিঙ্গাও একই অভিযোগ করেন।
শুধু ইয়াসির, আব্দুর রহমান ও সৈয়দ নূর নয়, গত সপ্তাহে বাংলাদেশে আসা রোহিঙ্গাদের কাছে জানতে চাইলে তারাও জোর করে এনভিসি কার্ড দেওয়ার কথা জানান।
http://cdn.banglatribune.com/contents/cache/images/700x0x1/uploads/media/2017/11/04/3b55aca5d85d4d2a572ca9d927fe1a09-59fdf05930e4f.jpgগত বৃহস্পতিবার পরিবার নিয়ে বালুখালী ক্যাম্প-১ এসে আশ্রয় নিয়েছেন মুনির আহমদ। শনিবার ওই ক্যাম্পে গেলে ৭০ বছর বয়সী এই বৃদ্ধকে থাকার জন্য ঘর তৈরি করতে দেখা যায়। তার কাছে এনভিসি কার্ড সর্ম্পকে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘যারা মিয়ানমারে এখনও আছেন তাদের সেনারা এনভিসি কার্ড নিতে বাধ্য করছে। প্রথমে খাবার দেওয়া হবে, স্বাধীনভাবে চলতে পারবে এসব বলে এনভিসি কার্ড নিতে উদ্বুদ্ধ করে। তাদের কথায় রাজি না হলে তারা ভয়ভীতি দেখি এনভিসি কার্ড নিতে বাধ্য করে। না হয় মেরে ফেলার হুমকি দেয়। যারা নিতে চায় না তাদের মিয়ানমার ছেড়ে যেতে হুমকি দেয়।’
এনভিসি কার্ড না নেওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘যদি আমরা এই কার্ডটি নেই, তাহলে আমাদের যেসব সম্পদ আছে সব হুকুমতের (সরকার) হয়ে যাবে। আমরা শুধুমাত্র ৫০ হাজার কিয়াতের মালিক হতে পারব। আমাদের বাকি স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তি হুকুমত নিয়ে যাবে। এছাড়া, যে কার্ডটি দেওয়া হচ্ছে তাতে আমাদের রোহিঙ্গা হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়া হচ্ছে না। তাই আমরা এটি গ্রহণ করতে আগ্রহী নই।’
১৯৮২ সালের বিতর্কিত নাগরিকত্ব আইনে মিয়ানমারের প্রায় ১০ লাখ রোহিঙ্গার নাগরিকত্ব অস্বীকার করা হয়। এতে মিয়ানমারে বসবাসকারীদের Citizen, Associate এবং Naturalized পর্যায়ে ভাগ করা হয়েছে। এমনকি দেশটির সরকার রোহিঙ্গাদের প্রাচীন নৃগোষ্ঠী হিসেবেও স্বীকৃতি দেয়নি। ১৮২৩ সালের পর আগতদের Associate আর ১৯৮২ সালে নতুনভাবে আবেদনকারীদের Naturalized বলে আখ্যা দেওয়া হয়।
ওই আইনের ৪ নম্বর ধারায় শর্ত দেওয়া হয়, ‘কোনও জাতিগোষ্ঠী রাষ্ট্রের নাগরিক কিনা তা আইন-আদালত নয়; নির্ধারণ করবে সরকারের নীতিনির্ধারণী সংস্থা কাউন্সিল অব স্টেট।’ এ আইনের কারণে রোহিঙ্গারা ভাসমান জনগোষ্ঠী হিসেবে চিহ্নিত হয়। পরে ২০১২ সালে রোহিঙ্গাদের ভোটাধিকার নিশ্চিত করতে হোয়াইট কার্ড দেওয়া হয়েছিল। ২০১৫ সালে সেটিও বাতিল করে দেওয়ার পর জাতীয়তার স্বীকৃতিস্বরূপ রোহিঙ্গাদের আর কোনোকিছুই দেওয়া হয়নি।
সম্প্রতি সেনা অভিযানের কারণে রোহিঙ্গারা বাংলাদেশে পালিয়ে আসলে আন্তর্জাতিক চাপের কারণে রাখাইন প্রদেশে বসবাসকারী রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে ন্যাশনাল ভেরিফিকেশন কার্ড (এনভিসি) দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় মিয়ানমার সরকার। জাতীয় যাচাইকরণ প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে গত ১ অক্টোবর থেকে শুরু হওয়া এই প্রক্রিয়ার আওতায় ২৯ অক্টোবর পর্যন্ত সাত হাজারের বেশি রোহিঙ্গাকে এনভিসি কার্ড দেওয়া হয়েছে।
চীনের সিনহুয়া নিউজ এজেন্সিকে উদ্ধৃত করে বার্তাসংস্থা এএফপির প্রতিবেদনে বলা হয়, জাতিসংঘের সাবেক মহাসচিব কফি আনানের নেতৃত্বাধীন উপদেষ্টা কমিশনের সুপারিশ অনুযায়ী এ যাচাইকরণ প্রক্রিয়া শুরু হয়। রাখাইনের অভিবাসন ও জনসংখ্যাবিষয়ক বিভাগের পরিচালক উ অং মিনের উদ্ধৃতি দিয়ে ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, প্রদেশটির যেসব এলাকার পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে এসেছে সেখানে বায়োমেট্রিক পদ্ধতি ব্যবহার করে এ যাচাইকরণের কাজ চলছে।

Source (http://www.banglatribune.com/country/news/259337/%E0%A6%B0%E0%A6%BE%E0%A6%96%E0%A6%BE%E0%A6%87%E0%A 6%A8%E0%A7%87-%E0%A6%B0%E0%A7%8B%E0%A6%B9%E0%A6%BF%E0%A6%99%E0%A 7%8D%E0%A6%97%E0%A6%BE%E0%A6%A6%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E2%80%98%E0%A6%8F%E0%A6%A8%E0%A6%AD%E0%A6%BF%E0%A 6%B8%E0%A6%BF-%E0%A6%95%E0%A6%BE%E0%A6%B0%E0%A7%8D%E0%A6%A1%E2%8 0%99-%E0%A6%A8%E0%A6%BF%E0%A6%A4%E0%A7%87-%E0%A6%AC%E0%A6%BE%E0%A6%A7%E0%A7%8D%E0%A6%AF-%E0%A6%95%E0%A6%B0%E0%A6%9B%E0%A7%87)

khalid-hindustani
11-05-2017, 07:29 AM
http://cdn.banglatribune.com/contents/cache/images/800x0x1/uploads/media/2017/11/03/abb727583eed596af36715d75da538b5-59fc93b32cfe9.jpgরাখাইনে রোহিঙ্গাদের চাষাবাদ করে আসা ক্ষেতের ধান কাটা শুরু করেছে মিয়ানমার সরকার। বিভিন্ন এলাকা থেকে আনা শ্রমিকদের পাশাপাশি দেশটির সেনাবাহিনীও ধান কাটছে ক্ষেত থেকে।
টেকনাফ ও উখিয়ায় পালিয়ে আসা রোহিঙ্গারা বাংলা ট্রিবিউনকে এই তথ্য জানিয়েছেন। এমনকি মিয়ানমারও ঘোষণা দিয়ে রোহিঙ্গাদের ধান কাটার বিষয়টি স্বীকার করেছে।
গত শনিবার (২৮ অক্টোবর) থেকে রাখাইনের প্রত্যন্ত অঞ্চলের আবাদি জমি থেকে ধান কাটা শুরু করেছে মিয়ানমার সরকার। এজন্য সেনাবাহিনী দেশটির বিভিন্ন অঞ্চল থেকে রাখাইনে শ্রমিক নিয়ে এসেছে।
গত আগস্টের শেষের দিকে শুরু হওয়া সহিংসতায় রাখাইন রাজ্য থেকে প্রায় ছয় লাখের মতো রোহিঙ্গা বাংলাদেশে পালিয়ে আসে। ওই রাজ্যের ৯০ শতাংশেরও বেশি মানুষ কৃষি কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করে। সহিংসতা শুরুর আগে রোহিঙ্গারা আবাদি জমিতে ধান চাষ করেছিল। সেই ধান এখন পেকেছে। আর তা কেটে নিচ্ছে মিয়ানমার সরকার।
http://cdn.banglatribune.com/contents/cache/images/800x0x1/uploads/media/2017/11/03/a02f6198798bbe9f73fc56507efb663c-59fc93ae86c2f.jpgশনিবার রাখাইনের মংডু এলাকা থেকে ধানকাটা শুরু হয়। মংডুর মরিকং এলাকার রোহিঙ্গা চেয়ারম্যান জাফর আলম বাংলা ট্রিবিউনকে এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
জাফর আলম বর্তমানে উখিয়ার থ্যাইংখালী রোহিঙ্গা ক্যাম্পে তার পরিবার নিয়ে রয়েছেন। তিনি খবর পেয়েছেন মিয়ানমার সেনাবাহিনী ও মগরা মিলে পাকা ধান কেটে নিয়ে যাচ্ছে।
তিনি জানান, রাখাইনের মংডুতে ৭১ হাজার একর জমির ধান কাটতে শুরু করেছে মিয়ানমান।
একইভাবে তমব্রু, বুচিদং, রাছিদংসহ অন্যান্য এলাকার ধানও কাটার ইঙ্গিত দিয়েছে মিয়ানমার। দেশটির রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম গ্লোবাল নিউ লাইট অব মিয়ানমারের এক প্রতিবেদনে মংডু কৃষি বিভাগের প্রধান কর্মকর্তা থেইন ওয়েই’র উদ্বৃতি দিয়ে ধান কাটার বিষয়টি জানানো হয়েছে। তবে সরকার এই ধান কী করবে সে ব্যাপারে নিশ্চিত হওয়া যায়নি।
http://cdn.banglatribune.com/contents/cache/images/800x0x1/uploads/media/2017/11/03/b6ab2707d33cd5b3a135d3efc1843261-59fc93a8e72b4.jpgধান কাটার খবর পেয়ে টেকনাফ ও উখিয়ার ক্যাম্পে থাকা রোহিঙ্গারা হতাশা ব্যক্ত করেছেন।
চেয়ারম্যান জাফর আলম জানান, রোহিঙ্গাদের আয়ের উৎস চাষাবাদ। সবাই ক্ষেত খামারে কাজ করে। গবাদি পশু পালন করে। সেনাবাহিনী ঘরবাড়ি, সহায় সম্পত্তি,মানুষ,গবাদি পশু পুড়িয়ে দিয়েছে। রোহিঙ্গাদের দেশ ছাড়া করেছে। এখন আবার ধান কেটে নিয়ে যাচ্ছে। এসব তাদের পূর্ব পরিকল্পিত।
রোহিঙ্গা নিধনের অভিযোগে মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক চাপ তোয়াক্কা করছে না দেশটি। এখনও রাখাইন রাজ্য থেকে প্রতিদিন হাজার হাজার রোহিঙ্গা বাংলাদেশে আসছে। টেকনাফ ও উখিয়ার বিভিন্ন পাহাড়ে আশ্রয় হচ্ছে এসব নিঃস্ব রোহিঙ্গাদের।

khalid-hindustani
11-05-2017, 08:04 AM
https://ichef-1.bbci.co.uk/news/624/cpsprodpb/AC9F/production/_98619144_3f0288a2-7183-4a0e-8459-6509b12ae35e.jpg

সৌদি আরবে নব গঠিত একটি দুর্নীতি দমন কমিটি দেশটির ১১জন রাজপুত্র, বর্তমান মন্ত্রী এবং বেশ কয়েকজন সাবেক মন্ত্রীকে আটক করেছে। সৌদি ন্যাশনাল গার্ড এবং নৌবাহিনী প্রধানের পদেও করা হয়েছে রদবদল।

সৌদি যুবরাজ, মোহাম্মদ বিন সালমানকে প্রধান করে, শনিবার সৌদি বাদশাহ নিজে একটি দুর্নীতি দমন কমিটি গঠন করেন।

সদ্য গঠিত এই কমিটিই ১১জন রাজপুত্র, চারজন বর্তমান মন্ত্রী এবং প্রায় ডজন খানেক সাবেক মন্ত্রীকে আটক করেছে বলে জানা যাচ্ছে।

আটককৃতদের নাম এবং তাদেরকে আটক করার কারণ সম্পর্কে এখনো কিছুই স্পষ্ট করা হয়নি।

তবে, সৌদি গণমাধ্যম আল-অ্যারাবিয়া জানিয়েছে, ২০০৯ সালে সৌদিতে যে বন্যা হয়েছিল এবং ২০১২ সালে মার্স ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ার যে ঘটনা ঘটেছিল এই বিষয়গুলো নিয়ে নতুন করে তদন্ত শুরু হয়েছে।

নতুন এই কমিটি গঠন করার কয়েকঘণ্টার মধ্যেই গ্রেপ্তার করার ঘটনা ঘটলো।

সৌদি আরবের রাষ্ট্র নিয়ন্ত্রিত বার্তা সংস্থা এসপিএ জানিয়েছে, যুবরাজকে প্রধান করে যে কমিটি গঠন করা হয়েছে সেখানে যুবরাজ চাইলে যে কাউকে গ্রেপ্তার করার এবং যে কারো উপরে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা দেবার ক্ষমতা দেয়া হয়েছে।

সৌদি ন্যাশনাল গার্ড এবং নৌবাহিনী প্রধানের পদেও রদবদল আনা হয়েছে।

যুবরাজ সালমান ন্যাশনাল গার্ড মন্ত্রী প্রিন্স মিতেব বিন আব্দুল্লাহকে এবং নেভি কমান্ডার এডমিরাল আব্দুল্লাহ বিন সুলতান বিন মোহাম্মদ আল সুলতানকে বরখাস্ত করেছেন বলে জানিয়েছে এসপিএ।

তবে, তাদের কেন পদচ্যুত করা হয়েছে এই বিষয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে কোনো কারণ ব্যাখ্যা করা হয়নি।

Source: (http://www.bbc.com/bengali/news-41874473)