PDA

View Full Version : কী ঘটছে সৌদি রাজতন্ত্রের অন্দরমহলে?



khalid-hindustani
11-07-2017, 09:22 AM
সৌদি রাজপরিবারের অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্বের খবর শোনা যাচ্ছিলো বেশ কিছুদিন আগে থেকেই। ২০১৫ সালে যুবরাজ মনোনীত হওয়া মুহাম্মদ বিন নায়েফকে সরিয়ে কিছুদিন আগে বাদশাহ সালমান তার নিজ সন্তান মোহাম্মদ বিন সালমানকে যুবরাজ ঘোষণা করেন। সেই থেকে গুঞ্জন ওঠে, সাবেক যুবরাজ নায়েফকে প্রাসাদে আটকে রাখা হয়েছে এবং বাইরে বের হতে দেওয়া হচ্ছে না। এরইমধ্যে একদিকে মন্ত্রীদের ধরপাকড়, অন্যদিকে নিরাপত্তা বাহিনীতে বড় ধরনের রদবদলের খবর মেলে শনিবার। রাজ কর্তৃপক্ষ বলতে চাইছে, সৌদি আরবে আধুনিকায়নের রাজনৈতিক সংস্কার চলছে। তবে এবারের গ্রেফতার-আটকের ঘটনায় অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্ব নিরসনের পুরনো ঐতিহ্য ভেঙে পড়ার ইঙ্গিত মিলেছে। অনেক গোপনীয়তা সত্ত্বেও তা আড়াল করতে পারছে না রাজপরিবার।

http://cdn.banglatribune.com/contents/cache/images/800x0x1/uploads/media/2017/11/07/70ce60b39d2f01afb161256dd7c1c33a-5a00aac200545.jpg
বাদশাহ আব্দুল আজিজ ইবনে সৌদ কর্তৃক ১৯৩২ সালে প্রতিষ্ঠিত এই সৌদি রাজত্ব। এই ৮৫ বছরে শাসন করেছেন ছয়জন বাদশাহ। এরা সবাই বাদশাহ আব্দুল আজিজ ইবনে সৌদের সন্তান। ৬ জনের কেউ ৫০ বছর বয়সের আগে হাল ধরেননি এই বিশাল তেল-সমৃদ্ধ রাষ্ট্রের। বর্তমান অসুস্থ বাদশাহ সালমান, প্রায় তিন বছর আগে সিংহাসনে বসেন। সে সময় তিনি ৭৯ বছর বয়সী এক বৃদ্ধ। বাদশাহ সালমান বর্তমান রাজমুকুটধারী যুবরাজের মাধ্যমে ডজন খানেক মন্ত্রী, রয়্যালস, কর্মকর্তা ও সিনিয়র সামরিক কর্মকর্তাদের গ্রেফতার ও বরখাস্ত করেন। নজিরবিহীন এই ঘটনাটি এখনও গোপনীয়। তবে যার কারণে বস্তুত রাজকীয় সিংহাসনের এমন একটি টালমাটাল বাস্তবতা, সেই বাদশাহ সালমান তিন বছর আগে পুরোনো এবং অভিজ্ঞ শাসকদের মধ্যে সামান্য পরিচিত ছিলেন।

কয়েক দশক ধরেই, রাজ্য শাসনামলের দায়িত্ব ভাই থেকে ভাইয়ের মধ্যে স্থানান্তর করা হতো। কিন্তু যুবরাজ মোহাম্মদ তার বাবা থেকে উত্তরাধিকারসূত্রে রাজ্য শাসনের দায়িত্ব পেলেন। যুবরাজ ইতোমধ্যেই প্রতিরক্ষা মন্ত্রী এবং দেশের অর্থনীতি, পরিকল্পনা, সংস্কার ও নিরাপত্তাসহ সকল দিকের তত্ত্বাবধানের দিকে নজরদারি দিচ্ছেন। যদিও মাত্র কয়েক মাস আগে, সিংহাসনে তার দায়িত্বের সম্ভাবনা ছিলো খুব অল্প।
রাজকীয় প্রথা মোতাবেক, ২০১৫ সালে বাদশাহ আব্দুল আজিজের মৃত্যুর পর মুহাম্মদ বিন নায়েফকে যুবরাজ মনোনীত করা হয়। মুহাম্মদ বিন নায়েফ দেশটির প্রথম উপপ্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ছিলেন। তিনি রাজনীতি ও নিরাপত্তা বিষয়ক কাউন্সিলের চেয়ারম্যান। কিন্তু রাজা সালমান তাকে উত্তরাধিকার সূত্রে থেকে সরিয়ে দেন। অভিযোগ আছে মোহাম্মদ বিন সালমানকে যুবরাজ ঘোষণা করার পর সাবেক যুবরাজ নায়েফকে প্রাসাদে আটকে রাখা হয়েছে এবং বাইরে বের হতে দেওয়া হচ্ছে না। তারপরও সিংহাসনের লক্ষ্যে পৌঁছাতে যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের আরও কজন প্রতিদ্বন্দ্বী থেকেই যায়। এরইমধ্যে শনিবার ১১ রাজপুত্র গ্রেফতারের খবর শোনা যায়।
সম্প্রতি এক রাজ ডিক্রির মাধ্যমে বাদশা সালমান বিন আব্দুল আজিজ যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানের নেতৃত্বে একটি দুর্নীতি দমন কমিটি গঠন করেন। যার প্রতিফলন হিসেবে শনিবার (৪ নভেম্বর) রাতে মাধ্যমে ইতোমধ্যেই ১১জন রাজপুত্র, চারজন বর্তমান মন্ত্রী ও ১০ জন সাবেক মন্ত্রীকে আটক করা হয়। আর এই দুর্নীতিবিরোধী জালিয়াতিতে কঠোর ব্যবস্থা নিয়ে এক সাহসী পদক্ষেপ দেখিয়েছেন তিনি। যুবরাজ সালমান তাঁর প্রজন্মের প্রথম রাজা হবেন ,যিনি কিনা রাজ্যের প্রতিষ্ঠাতা রাজা আব্দুল আজিজএর ছেলে, তার বাবা সাবেক রাজা সালমানের কাছে থেকে সরাসরি রাজ্য শাসনের দায়িত্ব পেতে যাচ্ছেন।
যুবরাজ তার শাসনের শুরুর দিকেই তার সৎ ভাই প্রিন্স মুকরিন প্রতিদ্বন্দ্বীতা থেকে সরিয়ে ফেলেন। ২০১৫ সালের এপ্রিল মাসে, বাদশাহ সালমান তার ছেলে মোহাম্মদ বিন যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমানকে ডেপুটি ক্রাউন প্রিন্স বা উপ-যুবরাজের উপাধিতে ভূষিত করেন। রাজার নেওয়া এমন পদক্ষেপ ক্ষমতাসীন পরিবারের অনেক সিনিয়র এবং অভিজ্ঞ সদস্যদেরকে বিস্মিত করেছিলো। সিংহাসনে আরোহণের ক্ষেত্রে ডজনেরও বেশি উত্তরাধির যুবরাজকে পেছনে ঠেলে তাকে সামনের কাতারে নিয়ে আসা হয়।
সৌদি রাজপ্রথা অনুযায়ী, এক জন বাদশাহর শাসনকাল শেষে সেই সময়ের যুবরাজ যখন দায়িত্ব নেন, তখন "এলিয়জ্যান্স কাউন্সিল" নামক একটি সংস্থা নতুন যুবরাজ মনোনীত করেন। সাবেক বাদশাহ আবদুল্লাহ সিংহাসনে আরোহণ করার পর ২০০৭ সংস্থাটি গঠন করেছিলেন। যদিও ২০১৫ সালের বিশৃঙ্খলা এর অকার্যকারিতাকেই সামনে এনেছে। সীমিত হয়ে এসেছে এর কর্মক্ষেত্র।
অবশ্য সৌদি রাজতন্ত্রে অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্ব সবসময়ই ছিল। তবে রাজপরিবারের সেই অভ্যন্তরীণ সংকট কোনদিন এমন জোরালোভাবে সামনে আসেনি। ভিন্নমত সত্ত্বেও দীর্ঘ সময় ধরে রাজপরিবার একক কণ্ঠস্বরকেই ঐতিহ্য হিসেবে অনুসরণ করে আসছে। তবে এবার তা ভেঙে অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্বের বিষয়টি স্পষ্ট হয়ে সামনে এসেছে।
যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান গ্রেফতার-আটকের ঘটনাকে সংস্কার প্রক্রিয়ার ধারাবাহিকতা আখ্যা দিয়ে বলেন, সৌদি আরব ঠিক আগে যেমন ছিল, আবার তেমনই হবে। উদার নীতিতে ফিরে যাবে সৌদি আরব।তবে পুরনো ঐতিহ্য ভেঙে এই বিপুল গ্রেফতার আটকের ঘটনার কারণে অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্ব প্রথমবারের মতো স্পষ্ট করে উন্মোচিত হয়েছে।

Source: (http://www.banglatribune.com/foreign/news/260043/%E0%A6%95%E0%A7%80-%E0%A6%98%E0%A6%9F%E0%A6%9B%E0%A7%87-%E0%A6%B8%E0%A7%8C%E0%A6%A6%E0%A6%BF-%E0%A6%B0%E0%A6%BE%E0%A6%9C%E0%A6%A4%E0%A6%A8%E0%A 7%8D%E0%A6%A4%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A7%87%E0%A6%B0-%E0%A6%97%E0%A7%8B%E0%A6%AA%E0%A6%A8-%E0%A6%85%E0%A6%A8%E0%A7%8D%E0%A6%A6%E0%A6%B0%E0%A 7%87)

khalid-hindustani
11-07-2017, 09:23 AM
http://cdn.banglatribune.com/contents/cache/images/1150x0x1/uploads/media/2017/07/25/90ddec3996aa949d978993dec137d564-597672e551f35.jpgহেলিকপ্টার বিধ্বস্ত হয়ে প্রিন্স মানসুর বিন মাকরিন নিহতের ২৪ ঘণ্টার মাথায় সৌদি আরবের আরও একজন প্রিন্স নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। আবদুলআজিজ বিন ফাহাদ নামের এ প্রিন্স পবিত্র আল আকসা মসজিদ ও ফিলিস্তিনিদের স্বাধীকারের পক্ষে সোচ্চার ছিলেন। সিয়াসাত ডেইলি এবং ইন্ডিয়া টুডের প্রতিবেদনে তার মৃত্যুর কথা বলা হয়েছে। নির্ভরযোগ্য সূত্র থেকে বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া যায়নি। তবে টুইটারে এ নিয়ে ব্যাপক আলোচনা চলছে।

সিয়াসাত ডেইলির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, প্রিন্স মানসুর বিন মাকরিন নিহতের কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই রাজপরিবারের কনিষ্ঠতম এ প্রিন্স নিহত হন।
যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা (এফবিআই)-এর সাবেক স্পেশাল এজেন্ট আল এইচ সৌফান তার নিহতের খবর নিশ্চিত করেছেন। টুইটারে দেওয়া এক পোস্টে তিনি লিখেছেন, আবদুলআজিজ-এর মৃত্যু সম্পর্কে নিশ্চিত হওয়া হওয়া গেছে। তার বয়স ছিল ৪৪ বছর। এর আগে সাবেক যুবরাজের পুত্র প্রিন্স মানসুর বিন মাকরিনকে মৃত ঘোষণা করা হয়।
এ টুইটে অবশ্য প্রিন্স আবদুলআজিজ বিন ফাহাদের মৃত্যুর কারণ সম্পর্কে কিছু জানানো হয়নি।
ভারতীয় সংবাদমাধ্যম ইন্ডিয়া টুডের খবরে বলা হয়েছে, খবর পাওয়া যাচ্ছে প্রিন্স আবদুলআজিজ বিন ফাহাদকে গ্রেফতারের সময় সংঘটিত বন্দুকযুদ্ধে তিনি নিহত হয়েছেন।
এর আগে একইদিন ৬ নভেম্বর সোমবার হেলিকপ্টার বিধ্বস্ত হয়ে সৌদি আরবের দক্ষিণাঞ্চলের আসির প্রদেশের ডেপুটি গভর্নর প্রিন্স মানসুর বিন মাকরিন তার কয়েকজন সহকর্মীসহ নিহত হন। তবে দুর্ঘটনার কারণ সম্পর্কে কিছু জানা যায়নি।
রয়টার্স জানিয়েছে, সরকারি কাজে সরকারি কর্মকর্তাদের নিয়ে আসির প্রদেশের ইয়েমেন সীমান্ত দিয়ে যাচ্ছিল হেলিকপ্টারটি। পরে হঠাৎ সেটি বিধ্বস্ত হয়।
http://cdn.banglatribune.com/contents/cache/images/1150x0x1/uploads/media/2017/11/07/a0eaf61383bb4f423d62db33643de152-5a00d14bddc71.JPG
সম্প্রতি সৌদি যুবরাজ সালমান বিন আব্দুল্লাহর নেতৃত্বে গঠিত দুর্নীতি দমন কমিশনের অভিযানে দেশটির ১১জন রাজপুত্র প্রিন্স, চারজন বর্তমান মন্ত্রী এবং প্রায় ডজন খানেক সাবেক মন্ত্রী গ্রেফতার হওয়ার ঘটনায় দেশটিতে আলোড়ন তৈরি হয়েছে। এর মধ্যেই দুই প্রিন্স নিহত হলেন।
সৌদি রাজতন্ত্রে অবশ্য অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্ব নতুন নয়। তবে রাজপরিবারের সেই অভ্যন্তরীণ সংকট ইতোপূর্বে এমন জোরালোভাবে সামনে আসেনি। ভিন্নমত সত্ত্বেও দীর্ঘ সময় ধরে রাজপরিবার একক কণ্ঠস্বরকেই ঐতিহ্য হিসেবে অনুসরণ করে আসছে। তবে এবার তা ভেঙে অভ্যন্তরীণ দ্বন্দ্বের বিষয়টি স্পষ্ট হয়ে সামনে এসেছে। সর্বশেষ নিহত প্রিন্স আবদুলআজিজ বিন ফাহাদ পবিত্র আল আকসা মসজিদ ও ফিলিস্তিনিদের স্বাধীকারের পক্ষে সোচ্চার ছিলেন।
চলতি বছরের জুলাইয়ে এক টুইটে প্রিন্স আবদুলআজিজ বিন ফাহাদ লিখেছেন, সামর্থ্য অনুযায়ী প্রত্যেক মুসলিম ফিলিস্তিনে এবং পবিত্র আল আকসা মসজিদে আমাদের ভাইদের সমর্থন করতে বাধ্য। হে মুহাম্মাদের জাতি, তাদের দেখিয়ে দাও তোমরা কারা। আল আকসাকে অবহেলা করাটা হবে অসম্মানজনক। সৃষ্টিকর্তা আমাদের কাছে এর জবাব চাইবেন।
অন্য এক টুইটে তিনি লিখেছেন, হে মুহাম্মাদের জাতি, আমাদের তৃতীয় কিবলা দখলদারদের হাতে বন্দি। আমাদের মধ্যে কী কোনও প্রজ্ঞাবান ব্যক্তি নেই? আসুন লড়াই করি। আমাদের বিজয়ী হয়ে এই পবিত্র ঘরের সংরক্ষণ করতে হবে। আর সে লড়াইয়ে ব্যর্থ হলেও আমাদের রব আমাদের ক্ষমা করবেন। সূত্র: ইন্ডিয়া টুডে, দ্য দুরান।

কালো পতাকা
11-07-2017, 02:54 PM
আল্লাহু আকবার এটা হচ্ছে ইমাম মাহদী আর্বিভাবের সর্বশেষ আলামত মাশাআল্লাহ চমৎকার পোস্ট

bokhtiar
11-07-2017, 06:28 PM
আল্লাহু আকবার । এভাবেই আমাদের নেতার আবির্ভাব হবে ।