Announcement

Collapse
No announcement yet.

সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিন - বিপদগ্রস্থ উম্মাহর দিকে!!

Collapse
X
 
  • Filter
  • Time
  • Show
Clear All
new posts

  • সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিন - বিপদগ্রস্থ উম্মাহর দিকে!!


    বিসমিল্লাহি রহমানির রাহীম

    বেশ কিছুদিন যাবত সিলেট এলাকা বন্যায় প্লাবিত সোশাল মিডিয়া সিলেটের বন্যার বিভিন্ন ছবি ভিডিওতে ভরে গেছে কিন্তু সরকার নিয়ন্ত্রিত হলুদ মিডিয়াগুলো ব্যাপারে প্রায় নিশ্চুপ শেষ মুহুর্তে ঠেকায় পরে কেউ কেউ কিছু নিউজ করছে এমনিতেও কুফরি আইনে শাসনকারী এসকল ইসলাম-বিদ্বেষী প্রশাসন থেকে কী বা আশা করা যায়! তাই আমরা কখনোই উম্মাহর ব্যাপারে ওদের নাম-কা-ওয়াস্তে ত্রাণের উপর নির্ভর করে বসে থাকতে পারি না!

    সম্মানিত মুজাহিদিন ভাইগণ,

    পুরো মুসলিম উম্মাহ এক দেহের মতো আমরা কীভাবে উম্মাহর এই বিপদে চুপ করে থাকতে পারি? আমাদের সংখ্যা যতই কম হোক, সামর্থ্য যতই সীমিত হোক - আমরা সাধ্যমতো এই বিপদের দিনে উম্মাহর সাহায্যে উঠে দাঁড়ানো উচিত হয়তো আমরা নিজ তানজিমের নামে সেখানে যেতে পারবো না কিন্তু আমাদের রব তো তা দেখবেন, জানবেন তাঁর কাছেই শুধু আমরা প্রতিদান চাই, দুনিয়ার কোন বাহবা নয়

    আমরা সকল মুজাহিদিন ভাইগণকে আহবান করছি, নিজ নিজ এলাকায় সামাজিক উদ্যোগের মাধ্যমে উদ্ধার ৎপরতায় কিংবা ত্রাণ বিতরণে কিংবা মেডিকাল সাপোর্ট মিশনে অংশ নেয়ার জন্য ব্যাপারে জরুরী ভিত্তিতে পদক্ষেপ নিন

    বন্যা দূর্গত এলাকাসমূহে সাহায্যের সম্ভাব্য উপায়সমুহ হতে পারেঃ

    নৌকা / ট্রলার ইত্যাদি নিয়ে দূর্গত এলাকায় গিয়ে নিজেরা উদ্ধারকার্য পরিচালনা

    - এটি এখন সবচেয়ে বেশী জরুরী জীবন রক্ষাকারী আইটেম এই মুহুর্তে খাবারেরও আগে নৌকা দূর্গত লোকজনকে উদ্ধার করে নিরাপদ কোন জায়গায় পৌঁছে দেয়ার জন্য নৌকা খুবই জরুরী
    - সিলেটে এখন মানুষ এক বেলার জন্য এক লক্ষ টাকা অফার করেও নৌকা পাচ্ছে না
    - অনেকে ত্রাণ বা উদ্ধারে যাচ্ছেন কিন্তু ফিরে আসতে হচ্ছে নৌকার অভাবে
    - আমাদের চেষ্টা করা উচিত - নিজে এলাকার আশেপাশে কোথাও থেকে নৌকা-ট্রলার ইত্যাদি কিনে বা কয়েকদিনের জন্য ভাড়া করে ট্রাকের মাধ্যমে কিংবা নৌপথে সিলেট-সুনামগঞ্জে নিয়ে যাওয়া যায় কিনা এটি করা গেলে এটি হবে সর্বোত্তম সাহায্য আল্লাহু 'লাম
    - এমনকি নৌকা জোগাড় করতে না পারলে, সিলেটের আশেপাশের এলাকার ভাইরা চাইলে কলাগাছ, প্লাস্টিক ড্রাম ইত্যাদি ম্যানেজ করে ভেলা বানিয়ে নিয়ে যেতে পারেন আশেপাশের এলাকায়

    নিজেরা উদ্ধারকার্য পরিচালনা করতে অক্ষম হলে অন্য ইসলামিক সংস্থাসমূহ যারা উদ্ধারকাজ পরিচালনা করছে - দূর্গত এলাকায় তাদের হাতে নৌকা পৌছে দেয়া তবে নিজেরা যথাসম্ভব অংশগ্রহণ করা উত্তম

    মোমবাতি-ম্যাচ, রান্না করার স্টোভ বা চূলা, শূকনা খাবার-কাপড়, ঔষধ, প্রাথমিক চিকিৎসা সরঞ্জাম ইত্যাদি পৌঁছে দেয়া এসব এখন সিলেটে দুষ্প্রাপ্য এবং দাম অনেকগুন

    দূর্গত এলাকায় খাবার পানি বেশী বহন করা সম্ভব না এর চেয়ে পানি বিশুদ্ধকরণ ট্যাবলেট নিয়ে যাওয়া উত্তম হতে পারে যেমন Halotab
    - হ্যালোট্যাব : সাধারণত প্রতি তিন লিটার পানিতে একটি ট্যাবলেট গুলিয়ে রেখে দিলে বিশুদ্ধ পানি পাওয়া যায় এভাবে পরিশোধিত পানিতে কিছুটা গন্ধ থাকলেও সেটা পরিষ্কার স্থানে খোলা রাখলে বা পরিচ্ছন্ন কোন কাঠি দিয়ে নাড়াচাড়া করলে গন্ধটি বাতাসে মিশে যায়

    ডাক্তার ভাইদের সাথে কিছু স্বেচ্ছা-সেবক ভাই মিলে টিম গঠন করা যেতে পারে দূর্গত এলাকায় চিকিৎসা সেবা প্রদানের জন্য

    দুয়া জারি রাখুন আমরা সকলে প্রচুর দুয়া ইস্তিগফার করা দরকার যেন আল্লাহ রাব্বুল আলামীন উম্মাহর উপর থেকে এই বিপদ দূর করে দেন যারা উপরের সকল কাজে জড়িত থাকলেও তাদেরও এই কাজ যথেষ্ট গুরুত্ব দিয়ে করা উচিত আর যারা থাকবেন না, তাদের কথা তো বলাই বাহুল্য

    সামাজিক ত্রাণ-কার্যক্রমের ব্যাপারে কিছু জরুরী বিষয়

    আমরা নিজ নিজ এলাকার দ্বীনদার মানুষদেরকে একত্রিত করে ফান্ড জোগাড় করে এই মিশনে নেমে পরার আপ্রাণ চেষ্টা করবো ইনশাআল্লাহ যদি সম্মিলিতভাবে ফান্ড সংগ্রহ করে নিজেরা গিয়ে ত্রাণ-বিতরণ বা উদ্ধারকাজে অংশ নিতে একান্তই অপারগ হই, তাহলে সংগৃহীত ফান্ড আমাদের নিজ এলাকার অন্য কোন ইসলামী সামাজিক সংগঠন কিংবা সোশাল মিডিয়াতে পরিচিত কোন ইসলামী সাহায্য সংস্থাকে পৌছে দেয়া যায়

    উদ্ধ্বার কার্যক্রম বা ত্রাণ কার্মক্রমের জন্য বন্যা দূর্গত এলাকার মূল রাস্তার আশেপাশের এলাকা থেকে ভিতরের দিকের এলাকা প্রাধান্য পাবে যদি যাবার সামর্থ্য থাকে তাহলে সিলেট শহরের চেয়ে সুনামগঞ্জ বা গ্রামাঞ্চলে বেশি ফোকাস করা উচিত

    যাদের নিজেদের কোন বন্ধু, প্রতিবেশী, ক্লাসমেট, আত্মীয় সিলেট বা আশেপাশের এলাকায় আছেন - পারলে তাদেরকে সাথে নিন বা তাদের সাহায্য নিন এতে আমাদের এই ৎপরতায় ফায়দা বেশী হবে ইনশাআল্লাহ

    এই উদ্যোগে আপনার বন্ধু, প্রতিবেশী, ক্লাসমেট, আত্মীয়, এলাকার মুরব্বী, গণ্যমান্য ব্যক্তিদেরকে যথাসম্ভব সামিল রাখুন, সকলকে একটিভেট করুন পারলে এটিকে একটি অঘোষিত কিংবা ঘোষিত "ইসলামিক সামাজিক সংগঠন" হিসেবে রূপদান করুন যেন ভবিষ্যতেও এই সংগঠন রকম কার্যক্রম সহজেই গ্রহণ করতে পারে ইনশাআল্লাহ তবে অবশ্যই এর মূল উদ্যোক্তা হিসেবে আপনি থাকুন এবং এর নিয়ন্ত্রণ আপনার হাতে রাখুন তানজিমের তরফ থেকে আপনার কাছে এটি একটি চাহিদা এটি আপনি নিজের জন্য করবেন না বরং তানজিমের চাহিদা মোতাবেক করবেন - তাই এতে রিয়া এর ভয় নেই ইনশাআলাহ


    আল্লাহ আমাদের কাজে বারাকাহ দান করুন, কাজসমূহকে কবুল করুন বিপদগ্রস্থ উম্মাহকে সাহায্য করুন আল্লাহুম্মা আমীন


  • #2
    আবু হুরায়রা (রদিঃ) থেকে বর্ণিত যে, আল্লাহর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন : নিশ্চয় আল্লাহ আজ্জা ওয়া জাল্লা কিয়ামতের দিন বলবেন :

    হে বনী আদম! আমি অসুস্থ ছিলাম কিন্তু তুমি আমাকে দেখতে আসনি। তখন বনী আদম বলবে : হে আমার রব! আমি কিভাবে আপনাকে দেখতে আসতে পারি অথচ আপনি বিশ্ব জগতসমূহের প্রতিপালক? তখন আল্লাহ তায়ালা বলবেন : তুমি কি জানো না যে, আমার অমুক বান্দা অসুস্থছিল আর তুমি তাকে দেখতে যাওনি, তুমি কি জানো না যে, যদি তুমি তাকে দেখতে যেতে তবে তুমি তার প্রতিদান অবশ্যই আমার কাছে পেতে?

    হে বনী আদম! আমি তোমার কাছে খাবার চেয়েছিলাম (অর্থাৎ ক্ষুদার্ত ছিলাম) কিন্তু তুমি আমাকে খাবার খাওয়াওনি। তখন বনী আদম বলবে : হে আমার রব! আমি কিভাবে আপনাকে খাওয়াতে পারি অথচ আপনি বিশ্ব জগতসমূহের প্রতিপালক? তখন আল্লাহ তায়ালা বলবেন : তুমি কি জানো না যে, আমার অমুক বান্দা তোমার কাছে খাবার চেয়েছিল আর তুমি তাকে খাবার খাওয়াওনি, তুমি কি জানো না যে, যদি তুমি তাকে খাবার খাওয়াতে তবে তুমি তার প্রতিদান অবশ্যই আমার কাছে পেতে?

    হে বনী আদম! আমি তোমার কাছে পানি চেয়েছিলাম (অর্থাৎপিপাসার্ত ছিলাম) কিন্তু তুমি আমাকে পানি পান করাওনি। তখন বনী আদম বলবে : হে আমার রব! আমি কিভাবে আপনাকে পানি পান করাতে পারি অথচ আপনি বিশ্ব জগতসমূহের প্রতিপালক? তখন আল্লাহ তায়ালা বলবেন : তুমি কি জানো না যে, আমার অমুক বান্দা তোমার কাছে পানি চেয়েছিল আর তুমি তাকে পানি পান করাওনি, তুমি কি জানো না যে, যদি তুমি তাকে পানি পান করাতে তবে তুমি তার প্রতিদান অবশ্যই আমার কাছে পেতে?
    অসৎ আনন্দের চেয়ে পবিত্র বেদনা অনেক মধুর।

    Comment


    • #3
      মাশাআল্লাহ, অনেক উপকারী পরামর্শ দিয়েছেন ভাই। আল্লাহ ইলমে ও আমলে বরকত দান করুন। আমীন
      ‘যার গুনাহ অনেক বেশি তার সর্বোত্তম চিকিৎসা হল জিহাদ’-শাইখুল ইসলাম ইবনে তাইমিয়া রহ.

      Comment


      • #4
        وَعَن أنس بن مَالك عَنِ النَّبِيِّ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ قَالَ: «لَمَّا خَلَقَ اللَّهُ الْأَرْضَ جَعَلَتْ تَمِيدُ فَخَلَقَ الْجِبَالَ فَقَالَ بِهَا عَلَيْهَا فَاسْتَقَرَّتْ فَعَجِبَتِ الْمَلَائِكَةُ مِنْ شِدَّةِ الْجِبَالِ فَقَالُوا يَا رَبِّ هَلْ مِنْ خَلْقِكَ شَيْءٌ أَشَدُّ مِنِ الْجِبَالِ قَالَ نعم الْحَدِيد قَالُوا يَا رَبِّ هَلْ مِنْ خَلْقِكَ شَيْءٌ أَشَدُّ مِنَ الْحَدِيدِ قَالَ نَعَمِ النَّارُ فَقَالُوا يَا رب هَل من خلقك شَيْء أَشد من النَّار قَالَ نعم المَاء قَالُوا يَا رب فَهَل مِنْ خَلْقِكَ شَيْءٌ أَشَدُّ مِنَ الْمَاءِ قَالَ نَعَمِ الرِّيحُ فَقَالُوا يَا رَبِّ هَلْ مِنْ خَلْقِكَ شَيْءٌ أَشَدُّ مِنَ الرِّيحِ قَالَ نَعَمِ ابْن آدم تصدق بِصَدقَة بِيَمِينِهِ يخفيها من شِمَالِهِ» . رَوَاهُ التِّرْمِذِيُّ وَقَالَ: هَذَا حَدِيثٌ غَرِيبٌ আনাস ইবনু মালিক (রাঃ) হতে বর্ণিত। তিনি বলেন, নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেনঃ আল্লাহ তা’আলা পৃথিবী সৃষ্টি করার পর তা দুলতে লাগল। তখন পাহাড়গুলো সৃষ্টি করে সেগুলো পৃথিবীর উপর দাঁড় করিয়ে দিলেন। পৃথিবী স্থির হয়ে গেল। পাহাড়ের শক্তি দেখে মালায়িকাহ্ (ফেরেশতাগণ) বিস্মিত হলেন। তারা জিজ্ঞেস করলেন, হে রাব্বুল আলামীন! আপনার সৃষ্টি জগতে পাহাড়ের চেয়ে শক্তিধর আর কিছু কী আছে? আল্লাহ উত্তর দিলেন, হ্যাঁ, আছে। তা হলো লোহা। ফেরেশতাগণ জিজ্ঞেস করলেন, হে রব! লোহার চেয়ে শক্তিধর কী কিছু আছে? আল্লাহ বললেন, হ্যাঁ, আগুন। ফেরেস্তাগন বললেন,হে পরওয়ারদিগার। আপনার সৃষ্টির মধ্যে আগুনের চেয়েও বেশী শক্তিধর কিছু কি আছে? আল্লাহ তা’আলা বললেন, পানি। (এখানে অনুবাদ ছুটে গেছে। -মডারেটর)( সংশোধন করে নিয়েছি - mahmud123) তারপর মালায়িকাহ্ জিজ্ঞেস করলেন, হে পরওয়ারদিগার! সৃষ্টির মধ্যে পানির চেয়েও শক্তিধর কিছু আছে কী? আল্লাহ তা’আলা বললেন, হ্যাঁ, আছে। (আর তা হলো) বাতাস তখন ফেরেশতারা জিজ্ঞেস করল হে আমাদের প্রতিপালক আপনার সৃষ্টি হতে বাতস থেকে শক্তিশালী কিছু আছে কি ?তখন তিনি বলেন হ্যাঁ তা হল আদম সন্তানের দান খায়রাত। ডান হাতে দান (এমনভাবে যে) বাম হাত হতেও গোপন করে থাকে। (তিরমিযী; তিনি বলেন, এ হাদীসটি গরীব।)[1]
        Last edited by Munshi Abdur Rahman; 1 day ago.

        Comment

        Working...
        X