Results 1 to 10 of 10
  1. #1
    Senior Member
    Join Date
    May 2017
    Posts
    387
    جزاك الله خيرا
    88
    1,351 Times جزاك الله خيرا in 310 Posts

    আল্লাহু আকবার যুদ্ধের ময়দানে উচ্চস্বরে তাকবিরের বিধান

    যুদ্ধের ময়দানে উচ্চস্বরে তাকবিরের বিধান

    এক ভাই একটি প্রশ্ন করেছেন, যার সারমর্ম- মুজাহিদ ভাইয়েরা অপারেশন চলাকালে আল্লাহু আকবার তাকবির দিয়ে থাকেন বা জিকির করে থাকেন বা অনান্য কথাবার্তা বলে থাকেন৷ অথচ কোনো কোনো হাদিসে যুদ্ধের ময়দানে চুপ থাকার নির্দেশ এসেছে এবং উচ্চস্বরে আওয়াজ অপছন্দ করা হয়েছে। তাহলে মুজাহিদগণের এ আমলের কি জওয়াব হবে?

    উত্তর


    যেসব হাদিস বা আসারে জিহাদের ময়দানে আওয়াজ করাকে অপছন্দনীয় বলা হয়েছে, সেগুলোতে বে-ফায়েদা হৈ-হুল্লোর উদ্দেশ্য। তাকবির, তাহলিল, আল্লাহ তাআলার যিকির বা প্রয়োজনীয় আওয়াজ নিষিদ্ধ নয়। বরং জিহাদের ময়দানে আল্লাহ তাআলার যিকির করতে আল্লাহ তাআলা নিজেই আদেশ দিয়েছেন।

    আল্লাহ তাআলা ইরশাদ করেন,
    {يَاأَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُوا إِذَا لَقِيتُمْ فِئَةً فَاثْبُتُوا وَاذْكُرُوا اللَّهَ كَثِيرًا لَعَلَّكُمْ تُفْلِحُونَ}
    হে ঈমানদারগণ! যখন তোমরা কোন বাহিনির সাথে সংঘাতে লিপ্ত হও, তখন সুদৃঢ় থাক এবং আল্লাহ তাআলাকে অধিক পরিমাণে স্বরণ করতে থাক, যাতে তোমরা উদ্দেশ্যে কৃতকার্য হতে পার। (আনফাল: ৪৫)


    ইমাম জাসসাস রহ. বলেন,
    وقوله تعالى: {واذكروا الله كثيرا} يحتمل وجهين: أحدهما: ذكر الله تعالى باللسان، والآخر: الذكر بالقلب، وذلك على وجهين: أحدهما: ذكر ثواب الصبر على الثبات لجهاد أعداء الله المشركين وذكر عقاب الفرار؛ والثاني: ذكر دلائله ونعمه على عباده وما يستحقه عليهم من القيام بفرضه في جهاد أعدائه. وضروب هذه الأذكار كلها تعين على الصبر والثبات ويستدعى بها النصر من الله والجرأة على العدو والاستهانة بهم. وجائز أن يكون المراد بالآية جميع الأذكار لشمول الاسم لجميعها. اهـ

    আল্লাহ তাআলার বাণী- এবং আল্লাহ তাআলাকে অধিক পরিমাণে স্বরণ করতে থাক এর দুটি ব্যাখ্যা হতে পারে:
    এক. মুখে আল্লাহ তাআলার যিকির করা।
    দুই. অন্তরের যিকির।
    এই সব ধরণের যিকির অটল অবিচল থাকতে সহায়ক হবে। আল্লাহ তাআলার নুসরত লাভ এবং শত্রুর উপর দুঃসাহসিকতা দেখানো ও তাদেরকে তুচ্ছ জ্ঞান করার মাধ্যম হবে।
    আয়াতের দ্বারা সব ধরণের যিকিরই উদ্দেশ্য হতে পারে। কেননা, যিকির শব্দ সব ধরণের যিকিরকেই বুঝায়। (আহকামুল কুরআন: ৩/৮৬)


    অতএব, মনে মনে যেমন আল্লাহ তাআলাকে স্বরণ করবে, মুখে মুখেও আল্লাহ তাআলার যিকির করবে। এর দ্বারা দৃঢ়তা পয়দা হবে। ময়দানে টিকে থাকা সহজ হবে। অন্য মুমিনদের অন্তর শক্তিশালী হবে।

    খায়বারে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম নিজেই তাকবীর ধ্বনি দিয়েছেন- الله أكبر خربت خيبر আল্লাহু আকবার! খায়বারের ধ্বংস সুনিশ্চিত। -সহীহ বুখারি ২৮২৯


    ইমাম বুখারি রহ. এ হাদিসের উপর এ বাব কায়েম করেছেন-
    باب التكبير عند الحرب
    যুদ্ধে তাকবির প্রদান সংক্রান্ত বাব।

    হাফেয ইবনে হাজার রহ. (৮৫২হি.) এর ব্যাখ্যা বলেন,
    أي جوازه أو مشروعيته
    অর্থাৎ তাকবির বৈধ হওয়া ও বিধিসম্মত হওয়ার আলোচনা সংক্রান্ত বাব। ফাতহুল বারি ৬/১৩৪

    হাদিসে এসেছে, শেষ যামানায় কুস্তুনতুনিয়া বিজয় হবে তাকবির ধ্বনির মাধ্যমে। সাহাবায়ে কেরাম থেকেও তাকবির প্রমাণিত।


    ইমাম মুহাম্মাদ রহ. (১৮৯হি.) বলেন (সারাখসী রহ. এর ব্যাখ্যাসহ),
    ولا يستحب رفع الصوت في الحرب من غير أن يكون ذلك مكروها من وجه الدين. ولكنه فشل، فإن كان فيه تحريض ومنفعة للمسلمين فلا بأس به. يعني أن المبارزين يزدادون نشاطا برفع الصوت، وربما يكون فيه إرهاب للعدو على ما قال النبي صلى الله عليه وسلم -: صوت أبي دجانة في الحرب فئة. اهـ
    যুদ্ধের ময়দানে উচ্চস্বরে আওয়াজ করা মুস্তাহাব নয়। অবশ্য শরয়ী দৃষ্টিকোণ থেকে তা মাকরূহও নয়। তবে তা হীনমন্যতার পরিচায়ক। তবে এর দ্বারা যদি অন্যরা উৎসাহিত হয় বা মুসলিমদের অন্য কোন ফায়েদা হয় তাহলে কোনো সমস্যা নেই। অর্থাৎ উচ্চ আওয়াজের ফলে যোদ্ধাদের মধ্যে স্পৃহা তৈয়ার হবে। এর দ্বারা শত্রুদের মনে ভীতিও তৈয়ার হতে পারে। যেমন রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেছেন, যুদ্ধে আবু দুজানার আওয়াজ মুজাহিদের এক বাহিনির সমতুল্য।- শরহুস সিয়ারিল কাবির ১/৮৯



    আপনি এ ব্যাপারে মিম্বারুত তাওহিদের নিচের ফতোয়াটি দেখতে পারেন-

    ما حكم رفع الصوت بالذكر والتكبير في المعارك؟ ... رقم السؤال: 618
    السلام عليكم ورحمة الله،، ... هل يستحب في ساحات القتال عندما يحمى الوطيس رفع الصوت بالتكبير والتهليل لإرعاب الأعداء أم أنه يكره ذلك؟ ... لأنني وجدت آثاراً أن السلف كانوا يكرهون رفع الصوت في ثلاث مواضع منها القتال ..
    السائل: أبو الهيثم الأثري
    المجيب: اللجنة الشرعية في المنبر
    وعليكم السلام ورحمة الله وبركاته .. ... قال الله تعالى: (يا أيها الذين آمنوا إذا لقيتم فئة فاثبتوا واذكروا الله كثيرا لعلكم تفلحون) قال الإمام ابن كثير رحمه الله: هذا تعليم من الله تعالى لعباده المؤمنين آداب اللقاء وطريق الشجاعة عند مواجهة الأعداء ... وفي الحديث المرفوع يقول الله تعالى: (إن عبدي كل الذي يذكرني وهو مناجز قرنه) أي لا يشغله ذلك الحال عن ذكري ودعائي واستعانتي .. وعن قتادة في هذه الآية قال: افترض الله ذكره عند أشغل ما يكون عند الضرب بالسيوف. وقال ابن أبي حاتم: حدثنا أبي حدثنا عبدة بن سليمان حدثنا ابن المبارك عن ابن جريج عن عطاء قال: وجب الإنصات وذكر الله عند الزحف ثم تلا هذه الآية قلت: يجهرون بالذكر؟ قال: نعم .. فأمر تعالى بالثبات عند قتال الأعداء والصبر على مبارزتهم فلا يفروا ولا ينكلوا ولا يجبنوا وأن يذكروا الله في تلك الحال ولا ينسوه بل يستعينوا به ويتوكلوا عليه ويسألوه النصر على أعدائهم. اهـ[تفسير ابن كثير بتصرف يسير] ... وبوب البخاري في كتاب الجهاد من صحيحه: "باب التكبير عند الحرب", وأخرج فيه بإسناده عن أنس رضي الله عنه قال: صبح النبي صلى الله عليه وسلم خيبر وقد خرجوا بالمساحي على أعناقهم فلما رأوه قالوا هذا محمد والخميس محمد والخميس فلجؤوا إلى الحصن فرفع النبي صلى الله عليه وسلم يديه وقال: (الله أكبر خربت خيبر إنا إذا نزلنا بساحة قوم فساء صباح المنذرين). قال الحافظ ابن حجر رحمه الله: قوله:"باب التكبير عند الحرب" أي جوازه أو مشروعيته. اهـ[فتح الباري 6/ 163] ... وروي عن جابر رضي الله عنه عن النبي صلى الله عليه وسلم قال: (ثلاثة أصوات يباهي الله عز وجل بهن الملائكة: الأذان, والتكبير في سبيل الله, ورفع الصوت بالتلبية) [رواه ابن عساكر] ... وأما مسألة رفع الصوت بالتكبير في القتال فقد رويت في ذلك أحاديث وآثار, وقد جمع بعض أهل العلم شيئاً منها, كالإمام ابن النحاس الدمياطي رحمه الله في "مشارع الأشواق إلى مصارع العشاق"صفحة 1/ 262 وما بعدها, وأفردها في فصل بعنوان: " فصل في فضل نظر الغازي والمرابط إلى البحر والتكبير في سبيل الله تعالى". ... قال ابن المنذر في كتابه الأوسط: قال أشهب: سألت مالكاً عن رفع الأصوات بالتكبير على الساحل في الرباط بحضرة العدو أو بغير حضرتهم, هل يكره أو يسمع الرجل نفسه؟ فقال: أما بحضرة العدو فلا بأس وذلك حسن, وبغير حضرتهم على الساحل فلا بأس بذلك أيضاً, إلا أن يكون رفعه صوته يؤذي الناس, لا يستطيع أحد أن يقرأ ولا يصلي فلا أرى ذلك. اهـ ... وقال الليث بن سعد: كان من مضى يكبرون في محاربهم يتقوون به على الحرس وسهر الليل, ولم نر أحداً يعيب ذلك حتى كان حديثاً. اهـ ... وقال ابن القاسم: سئل مالك عن القوم يكونون في الرباط يهللون ويكبرون على الساحل ويطربون بأصواتهم. قال: أما التطريب فلا يعجبني, وأما أن يهللون ويكبرون - يريد إذا كان الحرب - فلا أرى بأساً وأراه حسناً. اهـ[مشارع الأشواق 1/ 268] ... ومما يُستأنس به في هذا الباب, ما رواه مسلم في صحيحه عن أبي هريرة: أن النبي صلى الله عليه وسلم قال: (سمعتم بمدينة جانب منها في البر وجانب منها في البحر؟ قالوا نعم يا رسول الله قال لا تقوم الساعة حتى يغزوها سبعون ألفا من بني إسحاق فإذا جاؤها نزلوا فلم يقاتلوا بسلاح ولم يرموا بسهم قالوا: لا إله إلا الله والله أكبر فيسقط أحد جانبيها, ثم يقولوا الثانية: لا إله إلا الله والله أكبر فيسقط جانبها الآخر ثم يقولوا الثالثة: لا إله إلا الله والله أكبر فيفرج لهم فيدخلوها فيغنموا .. ) قال الشيخ صفي الرحمن المباركفوري: (فيفرج لهم) أي فيكشف لهم ويفر العدو .. وهذا الفتح المذكور في هذا الحديث إنما يحصل بهتاف التكبير دون القتال .. اهـ[منة المنعم في شرح صحيح مسلم 4/ 365] ... فيستحب للمجاهد التكبير وذكر الله في المعارك ورفع الصوت بذلك, لما في ذلك من مقاصد شرعية؛ كتثبيت قلوب المؤمنين, وإرعاب الكافرين والمرتدين, وهذا أمر مجرب معروف, والقصص فيه كثيرة مشهورة, والله أعلم.
    أجابه، عضو اللجنة الشرعية: ... الشيخ أبو همام بكر بن عبد العزيز الأثري


  2. The Following 8 Users Say جزاك الله خيرا to ইলম ও জিহাদ For This Useful Post:


  3. #2
    Senior Member
    Join Date
    Oct 2018
    Posts
    233
    جزاك الله خيرا
    2,185
    573 Times جزاك الله خيرا in 207 Posts
    মাশাআল্লাহ। বারাকাল্লাহু ফি ইলমিক। ভাইয়ের প্রশ্নটির জবাব খুব দ্রুত দেয়া হয়েছে। আল্লাহ সুবঃ আপনার মেহনতকে কবুল করুন,আমীন।
    মুহতারাম ভাই, আপনি যদি কোন পোস্ট পড়ে তার জবাব দেয়ার নিয়ত করেন, তাহলে ঐ থ্রেডে রিপ্লাই দিয়ে বিষয়টি জানিয়ে দিলে আমাদের জন্য উপকার হতো।
    এখন কথা হবে তরবারি'র ভাষায়!

  4. The Following User Says جزاك الله خيرا to বদর মানসুর For This Useful Post:

    musab bin sayf (2 Weeks Ago)

  5. #3
    Senior Member
    Join Date
    Sep 2018
    Location
    asia
    Posts
    1,695
    جزاك الله خيرا
    7,210
    4,364 Times جزاك الله خيرا in 1,501 Posts
    আলহামদুলিল্লাহ, আল্লাহ আপনাদের ইলমে বারাকাহ দান করুন আমীন। প্রিয় ভাই, আপনাকে নিয়মিত আশাকরি। হয়িত অনেক ব্যস্ত থাকেন, ব্যস্ততার মাঝেও আমাদেরকে সময় দিচ্ছেন, আল্লাহ আপনাদের কাজ কবুল করুন আমীন।
    ولو ارادوا الخروج لاعدواله عدةولکن کره الله انبعاثهم فثبطهم وقیل اقعدوا مع القعدین.

  6. The Following User Says جزاك الله خيرا to Bara ibn Malik For This Useful Post:

    musab bin sayf (2 Weeks Ago)

  7. #4
    Senior Member আহমাদ সালাবা's Avatar
    Join Date
    Dec 2019
    Location
    হিন্দুস্তান
    Posts
    186
    جزاك الله خيرا
    660
    481 Times جزاك الله خيرا in 165 Posts
    আল্লাহপাক ভাইয়ের খেদমত কবুল করুন এবং সমসাময়িক আরো অনেক প্রয়োজনীয়/বিভ্রান্তির অপনোদনের তাওফীক দিন। আমিন ইয়া রব।
    গাজী ইলমুদ্দীন শহীদেরা কখনো আবেগি কিংবা অপরিণামদর্শী হতে পারেনা। বরং তাঁরাই উম্মাহর বীর, সাহসী সন্তানেরা।

  8. The Following User Says جزاك الله خيرا to আহমাদ সালাবা For This Useful Post:

    musab bin sayf (2 Weeks Ago)

  9. #5
    Senior Member হিন্দের মুহাজির's Avatar
    Join Date
    Aug 2018
    Posts
    194
    جزاك الله خيرا
    76
    500 Times جزاك الله خيرا in 171 Posts
    بارك الله فيك
    আলহামদুলিল্লাহ উত্তম আলোচনা!
    মুমিনদেরকে ক্বিতালের জন্য উদ্বুদ্ধ করুন।

  10. The Following User Says جزاك الله خيرا to হিন্দের মুহাজির For This Useful Post:

    musab bin sayf (2 Weeks Ago)

  11. #6
    Senior Member musab bin sayf's Avatar
    Join Date
    Mar 2019
    Posts
    558
    جزاك الله خيرا
    2,167
    1,045 Times جزاك الله خيرا in 425 Posts
    আল্লাহ তায়ালা আপনার ইলম ও আমলে বারাকাহ আরো বাড়িয়ে দিন আমীন।

  12. #7
    Member আলী ইবনুল মাদীনী's Avatar
    Join Date
    Jul 2019
    Location
    Pakistan
    Posts
    288
    جزاك الله خيرا
    136
    599 Times جزاك الله خيرا in 233 Posts
    ইমাম আবূ দাউদ কিতাবুল জিহাদে একটা অধ্যায় এনেছেন "باب قيام يومر من الصمت عند اللقاء" অর্থাৎ শত্রুর সাথে মোকাবেলার সময় চুপ থাকতে হয় ৷ এই অধ্যায়ের হাদিসের ব্যখা করতে গিয়ে "বজলুল মাজহুদ(আবু দাউদের ব্যখাকার)" বলেন সাহাবায়ে কেরাম উচ্চস্বরে জিকির করছেন এমন কোন বর্ণনা পাওয়া যায় না ৷

    এখন ইনার এই দাবির উত্তর কি হবে?
    "জিহাদ ঈমানের একটি অংশ ৷"-ইমাম বোখারী রহিমাহুল্লাহ

  13. #8
    Moderator
    Join Date
    Jul 2019
    Posts
    830
    جزاك الله خيرا
    2,443
    1,847 Times جزاك الله خيرا in 590 Posts
    বারাকাল্লাহু ফিকা...আমীন
    ধৈর্যশীল সতর্ক ব্যক্তিরাই লড়াইয়ের জন্য উপযুক্ত।-শাইখ উসামা বিন লাদেন রহ.

  14. #9
    Senior Member
    Join Date
    May 2017
    Posts
    387
    جزاك الله خيرا
    88
    1,351 Times جزاك الله خيرا in 310 Posts

    আল্লাহু আকবার

    Quote Originally Posted by আলী ইবনুল মাদীনী View Post
    ইমাম আবূ দাউদ কিতাবুল জিহাদে একটা অধ্যায় এনেছেন "باب قيام يومر من الصمت عند اللقاء" অর্থাৎ শত্রুর সাথে মোকাবেলার সময় চুপ থাকতে হয় ৷ এই অধ্যায়ের হাদিসের ব্যখা করতে গিয়ে "বজলুল মাজহুদ(আবু দাউদের ব্যখাকার)" বলেন সাহাবায়ে কেরাম উচ্চস্বরে জিকির করছেন এমন কোন বর্ণনা পাওয়া যায় না ৷

    এখন ইনার এই দাবির উত্তর কি হবে?


    উনার মূল বক্তব্যটা এমন, واستثنى القاري منه ذكر الله فقال: بغير ذكر الله، ولم يثبت لي أنهم يرفعون أصواتهم بذكر الله تعالى عند القتال. اهـ بذل المجهود 9\268

    অর্থাৎ
    মোল্লা আলী কারি বলেছেন যে, সাহাবায়ে কেরাম যুদ্ধের ময়দানে হৈ-হুল্লোর করতেন না, তবে উচ্চস্বরে আল্লাহ তাআলার যিকির করতেনসাহারানপুরি রহ. বলছেন, আমি এমনটি দেখিনি
    কুরআনে কারীমের আয়াত দ্বারা যিকির প্রমাণিতআর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম খায়বারে তাকবির দিয়েছেনশেষ যামানায় কুস্তুনতুনিয়া বিজয় হবে তাকবিরের দ্বারাঅতএব, তাকবির তাহলিল বৈধ হওয়ার ব্যাপারে বরং উত্তম হওয়ার ব্যাপারে কোনো সংশয় নেই। এখন রইল উচ্চস্বর।

    যিকিরের ক্ষেত্রে স্বাভাবিক নিয়ম হলো, আস্তে ধীরে হওয়া। যুদ্ধের ময়দানের বিষয়টাও এমনই। মুজাহিদগণ আস্তে ধীরে নিম্নস্বরে আল্লাহর যিকির করবেন। তবে যেখানে প্রয়োজন সেখানে জোরে হলেও সমস্যা নেই। যেমন, মল্লযুদ্ধ চলছে। তখন কাফের সৈন্যটিকে ভীত করার জন্য এবং মুসলিম মুজাহিদকে উৎসাহ দেয়ার জন্য উচ্চস্বরে তাকবির দিলে সমস্যা নেই। এমনিভাবে অন্য মুসলমানদের উৎসাহিত করার জন্য জোরে তাকবির দিলেও সমস্যা নেই। মোটকথা যেখানে জোরে প্রয়োজন সেখানে জোরে, অন্যথায় আস্তে। বিনা প্রয়োজনে হৈ-হুল্লোর করা সাহাবায়ে কেরাম অপছন্দ করেছেন। নতুবা প্রযোজনের সময় তো উচ্চৈস্বরে আওয়াজ সীরাত থেকে স্পষ্ট। হুনাইনের যুদ্ধে সাহাবায়ে কেরামকে পুনর্বার একত্রিত করার জন্য আব্বাস রাদিয়াল্লাহু আনহু জোর গলায় আওয়াজ দিয়ে সকলেকে আহ্বান করেছেন। যু কারাদের যুদ্ধে সালামা রাদিয়াল্লাহু আনহু ইয়া সাবাহা বলে চিৎকার দিয়ে মদীনা বাসীকে শত্রুর আক্রমণ অবগত করেছেন। এছাড়াও মুজাহিদ বাহিনির বিভিন্ন শিয়ার ছিল, যেগুলো দিয়ে প্রয়োজন মূহুর্তে তাদের ডাকা হতো। অনেক সময় সাহাবায়ে কেরাম কবিতাও আবৃতি করতেন। জোশ আনার জন্য এমনটা করতেন।


    জোরে আওয়াজ অছন্দ করার আরেকটা কারণ হলো, এতে শত্রুবাহিনি টের পেয়ে যাবে যে মুসলমানরা কোথায় আছে। তবে যখন শত্রু সামনেই বিদ্যমান, কিতাল চলছে তখন এ সমস্যাটি নেই। তবে তখনও অপ্রয়োজনে উচ্চস্বর না করা ভাল। এজন্যই ইমাম মুহাম্মাদ রহ. একে মুস্তাহাব বা ভাল নয় বলেছেন। প্রয়োজন পড়লে সমস্যা নেই বলেছেন।


    আর সাহাবায়ে কেরাম জোরে জোরে যিকির করেছেন কিনা যুদ্ধের ময়দানে, এ ব্যাপারে সুস্পষ্ট কিছু কোথাও দেখিনি। কিছু বর্ণনা আছ তবে দুর্বল। হয়তো সাহারানপুরি রহ. এর কথাই সঠিক যে, এ ব্যাপারে তিনি কিছু পাননি। তবে এর দ্বারা প্রয়োজনের সময়ও নাজায়েয প্রমাণিত হয় না, যেমনটা আব্বাস রাদিয়াল্লাহু আনহু বা সালামা রাদিয়াল্লাহু আনহুর জোর গালার ডাক নাজায়েয হয়নি। ওয়াল্লাহু আলাম।

  15. The Following 2 Users Say جزاك الله خيرا to ইলম ও জিহাদ For This Useful Post:


  16. #10
    Member আলী ইবনুল মাদীনী's Avatar
    Join Date
    Jul 2019
    Location
    Pakistan
    Posts
    288
    جزاك الله خيرا
    136
    599 Times جزاك الله خيرا in 233 Posts
    Quote Originally Posted by ইলম ও জিহাদ View Post
    আর সাহাবায়ে কেরাম জোরে জোরে যিকির করেছেন কিনা যুদ্ধের ময়দানে, এ ব্যাপারে সুস্পষ্ট কিছু কোথাও দেখিনি। কিছু বর্ণনা আছ তবে দুর্বল। হয়তো সাহারানপুরি রহ. এর কথাই সঠিক যে, এ ব্যাপারে তিনি কিছু পাননি। তবে এর দ্বারা প্রয়োজনের সময়ও নাজায়েয প্রমাণিত হয় না, যেমনটা আব্বাস রাদিয়াল্লাহু আনহু বা সালামা রাদিয়াল্লাহু আনহুর জোর গালার ডাক নাজায়েয হয়নি। ওয়াল্লাহু আলাম।
    ভাই!জায়েজ এবং নাজায়েজের ব্যাপারে সমাধান পেলাম(আলহামদু লিল্লাহ) ৷ এখন আর একটু কষ্ট করে বলবেন,খলিল আহমাদ সাহরানপুরির দাবির উপর ভিত্তি করে এই মাসআলায় উত্তম অনুত্তমের দিক দিয়ে কোন পর্যায়ে রাখা যেতে পারে?
    "জিহাদ ঈমানের একটি অংশ ৷"-ইমাম বোখারী রহিমাহুল্লাহ

  17. The Following User Says جزاك الله خيرا to আলী ইবনুল মাদীনী For This Useful Post:


Similar Threads

  1. একটি বিষয়ে সমাধান চাচ্ছি...
    By কালো পতাকাবাহী in forum অন্যান্য
    Replies: 4
    Last Post: 02-10-2019, 09:45 PM
  2. Replies: 4
    Last Post: 09-19-2018, 02:31 AM
  3. যুদ্ধ হচ্ছে ধোঁকা!
    By Short Translation in forum মানহায
    Replies: 5
    Last Post: 02-20-2018, 10:39 PM
  4. Replies: 4
    Last Post: 02-12-2018, 09:42 PM
  5. Replies: 4
    Last Post: 05-08-2017, 05:06 PM

Posting Permissions

  • You may not post new threads
  • You may not post replies
  • You may not post attachments
  • You may not edit your posts
  •